ইন্দোনেশিয়া জাতীয় জাদুঘর

স্থানাঙ্ক: ৬°১০′৩৪″ দক্ষিণ ১০৬°৪৯′১৮″ পূর্ব / ৬.১৭৬১১° দক্ষিণ ১০৬.৮২১৬৭° পূর্ব / -6.17611; 106.82167
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
জাতীয় জাদুঘর
ইন্দোনেশিয়া জাতীয় জাদুঘর
Museum Nasional Indonesia.jpg
যাদুঘর এর সম্মুখ দৃশ্য
স্থাপিত১৭৭৮
অবস্থানজেএল। মেদান মেরদেকা বারাত নং-১২, কেন্দ্রীয় জাকার্তা, জাকার্তা, ইন্দোনেশিয়া
ধরনপ্রত্নতত্ত্ব জাদুঘর
নিকটতম গণপরিবহনে স্থানট্রান্স জাকার্তা করিডর প্রথম আশ্রয় কে ১.১৪ মনিমান নেসিওনাল
ওয়েবসাইটMuseum Nasional Indonesia

ইন্দোনেশিয়া জাতীয় জাদুঘর (ইন্দোনেশীয়: জাতীয় জাদুঘর), জালান মেদান মেরদেকা বারাতে অবস্থিত প্রত্নতাত্ত্বিক, ঐতিহাসিক, জাতিতত্ত্বিক এবং ভৌগোলিক জাদুঘর হিসাবে নির্মিত একটি জাদুঘর। জাতীয় জাদুঘর মেরডেকার ডানদিকে, স্কয়ারের পশ্চিম দিকে এবং জাকার্তার মধ্যবর্তি স্থানে নির্মিত। দেশের জনসাধারনের কাছে জাদুঘরের ভবণটি এলিফ্যান্ট বিল্ডিং নামে পরিচিত (ইন্দোনেশিয়ানরা: গেডুং গাজাহ) জাদুঘরের এক প্রান্তে হাতির মূর্তি তৈরি করে। জাদুঘরের বিশাল সংগ্রহগুলি ইন্দোনেশিয়া সকল অঞ্চল এবং সবরকমের ইতিহাস থেকে সংগ্রহ করা হয়েছে। জাদুঘরটি ইন্দোনেশিয়ার ঐতিহ্যকে দুই শতাব্দি ধরে সংরক্ষণ করে চলেছে।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯ শতকের শেষের দিকে জাদুঘরটি ভ্যান হিট কনিঙ্কলিজিক বাটভিয়াশচ জেনুস্কসপ্প ভ্যান কুনস্টেন ও জেনেসেপ্পেপেন নামে পরিচিত ছিল।
জাতীয় জাদুঘরের পুরনো উইল গেডুং গাজাহ।
জাতীয় জাদুঘরের নতুন শাখা গেডুং আরকা।

ডাচ বুদ্ধিজীবীদের একটি দল বটভিয়াশচ জেনুস্কস্যাপের ভ্যান কুনিতেন এন ভেটেনস্ক্যাপেন (আর্টস অ্যান্ড সায়েন্সেসের রয়্যাল ব্যাটিভিয়ান সোসাইটি) নামে ১৭৭৮ সালের ২৪শে এপ্রিল একটি বৈজ্ঞানিক প্রতিষ্ঠানের উদ্দোগ ন্যায়।[২] জাদুঘরেরইতিহাস, প্রত্নতত্ত্ব, জাতিতত্ত্বিক এবং পদার্থবিদ্যা গবেষণা লক্ষ্যে একটি বেসরকারি সংস্থা গবেষণা এবং ফলাফল প্রকাশ করে।

জেনারেল স্যার থমাস স্টামফোর্ড রাফেলস জালান বিরল সংগ্রহের জন্য মাজাপাহিট নামে একটি নতুন স্তান নির্মান করেন। যেটাকে সাহিত্য সমিতি নামকরণ করা হয় ঊনিশ শতাব্দীতে।১৮৬২ সালে ডাচ ইস্ট ইন্ডিজ সরকার একটি নতুন জাদুঘর নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয় যা কেবল একটি অফিস হিসেবেই নয় বরং বাড়ির জন্য ব্যবহৃত হতে পারে, এবং সংরক্ষণ ও প্রদর্শন করতে পারে।

T১৮৬৮ সালে জাদুঘরটি উদ্বোধন করা হয় এবং গেডুং গাজাহ যা জনসাধরনের প্রিয় নাম (এলিফ্যান্ট বিল্ডিং) বা গেডুং আর্কা নামে পরিচিত। ১৮৭১ সালে সিয়ামের রাজা চুলালংকর্ন থেকে উপহার হিসাবে বত্যাভিয়াতে একটি ব্রোঞ্জের হাতির মূর্তি পাঠায় যেটা গেডুং গাজাহ নামে পরিচিত। যেটি বিভিন্ন সময়ের গডুং আরকা নামেও পরিচিত ছিল কারণ মূর্তিগুলি বিভিন্ন সময় বিভিন্ন স্থানে প্রদর্শন করা হত।

জাদুঘরের আট্টালিকার (অভ্যান্তরে) জাতীয় যাদুঘরটির বৈশিষ্ট্যগুলি ডরিক অর্ডার গ্রিক স্থাপত্য।

সংকলন[সম্পাদনা]

একটি বড় মূর্তি অডিটেভারম্যান হিসাবে ভৈরব মধ্যে প্রাচীন ইন্দোনেশিয়ার হিন্দু-বৌদ্ধ নৃতাত্ত্বিক ঐতিহাসিক সংগ্রহ।

জাদুঘরে ৬১,৬০০ প্রাগৈতিহাসিক ও নৃতাত্ত্বিক শিল্পকর্ম এবং ইন্দোনেশিয়া ও এশিয়ায় প্রায় ৫০০০ প্রত্নতাত্ত্বিক জিনিসপত্র রয়েছে। জাদুঘরটি সংগ্রহের দিক দিয়ে সবচেয়ে সম্পূর্ণ এবং ইন্দোনেশিয়ার সেরা এবং দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার নিদর্শন মাত্র।[৩] সিরামিক সংগ্রহ করা হয় চীন, জাপান, ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড এবং মায়ানমারের সিরামিক শালা থেকে। মাজপিত পোড়ামাটির জলবাহী জাহাজ, মূর্তি, ছাদ টাইলসগুলি শূকর ব্যাংক প্রদর্শন করা হয়।জাদুঘরে প্রাচীন চীনা সিরামিকের একটি বড় সংগ্রহ রয়েছে। এটি চীনের বাইরে আবিষ্কৃত চীনা সিরামিকের সেরা এবং সবচেয়ে সম্পূর্ণ সংগ্রহ। হান, তানগ, সংগীত, ইউয়ান, মিং এবং সিরামিকস কিংস প্রায় দুই সহস্রাব্দের জন্য রাজধানী যাদুঘর প্রদর্শিত হয়।[৪] সংগ্রহের কাজ শতাব্দী ধরে ইন্দোনেশিয়ার সামুদ্রিক বাণিজ্যর একটি স্থান দখল করে আছে। গবেষণাটি ইঙ্গিত দেয় যে সমুদ্রতীর সিল্ক রাস্তা অংশ হিসেবে চীনের ইন্দোনেশিয়ার (পশ্চিমী হান সময়ের (২০৫ খ্রিস্টপূর্ব থেকে ২২০ খ্রি।) পর্যায়ক্রমে ইন্দোনেশিয়ায় প্রবেশ করে এবং ব্যবসায়িক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠিত হয়।.[৫]

গডুং গাজাহ(ওল্ড উইং)[সম্পাদনা]

জাদুঘরের সংগ্রহগুলি শ্রেণীবদ্ধ এবং সাজানো :

সিরামিক সংগ্রহ[সম্পাদনা]

[[File:Majapahit, Piggy Bank.jpg|right|থাম্ব|ট্রাওউলান, ইস্ট জাভা থেকে একটি মাজাপিত শূকর ব্যাংক]।

সিরামিক সংগ্রহ করা হয় চীন, জাপান, ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ড এবং মায়ানমারের সিরামিক শালা থেকে। মাজপিত পোড়ামাটির জলবাহী জাহাজ, মূর্তি, ছাদ টাইলসগুলি শূকর ব্যাংক প্রদর্শন করা হয়।জাদুঘরে প্রাচীন চীনা সিরামিকের একটি বড় সংগ্রহ রয়েছে। এটি চীনের বাইরে আবিষ্কৃত চীনা সিরামিকের সেরা এবং সবচেয়ে সম্পূর্ণ সংগ্রহ। হান, তানগ, সংগীত, ইউয়ান, মিং এবং সিরামিকস কিংস প্রায় দুই সহস্রাব্দের জন্য রাজধানী যাদুঘর প্রদর্শিত হয়।[৪] সংগ্রহের কাজ শতাব্দী ধরে ইন্দোনেশিয়ার সামুদ্রিক বাণিজ্যর একটি স্থান দখল করে আছে। গবেষণাটি ইঙ্গিত দেয় যে সমুদ্রতীর সিল্ক রাস্তা অংশ হিসেবে চীনের ইন্দোনেশিয়ার (পশ্চিমী হান সময়ের (২০৫ খ্রিস্টপূর্ব থেকে ২২০ খ্রি।) পর্যায়ক্রমে ইন্দোনেশিয়ায় প্রবেশ করে এবং ব্যবসায়িক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠিত হয়।.[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Rosi, Adele (১৯৯৮)। Museum Nasional Guide Book। Jakarta: PT Indo Multi Media, Museum Nasional and Indonesian Heritage Society। পৃষ্ঠা 2। 
  2. Rosi, Adele (১৯৯৮)। Museum Nasional Guide Book। Jakarta: PT Indo Multi Media, Museum Nasional and Indonesian Heritage Society। পৃষ্ঠা 4। 
  3. {{cite web|ইউআরএল=http://www.lonelyplanet.com/indonesia/jakarta/sights/406074%7Ctitle=Lonely Planet review on Museum Nasional}}
  4. {{cite web|ইউআরএল=http://www.jakarta.go.id/en/jakartaku/museum_di_dki04.htm%7Ctitle=Museum in Jakarta}}
  5. Rosi, Adele (১৯৯৮)। Museum Nasional Guide Book। Jakarta: PT Indo Multi Media,Museum Nasional and Indonesian Heritage Society। পৃষ্ঠা 54। 

সাহিত্য[সম্পাদনা]

  • Lenzi (২০০৪)। দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার জাদুঘর। সিঙ্গাপুর: আর্কিপেলাগো প্রেস। আইএসবিএন ৯৮১-৪০৬৮-৯৬-৯ |আইএসবিএন= এর মান পরীক্ষা করুন: invalid character (সাহায্য)  অজানা প্যারামিটার |পৃষ্ঠাগুলি= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য)

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]