ইনছন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

স্থানাঙ্ক: ৩৭°২৯′ উত্তর ১২৬°৩৮′ পূর্ব / ৩৭.৪৮৩° উত্তর ১২৬.৬৩৩° পূর্ব / 37.483; 126.633

ইনছন
인천시
মেট্রোপলিটন সিটি
ইনছন মেট্রোপলিটন সিটি
Korean name প্রতিলিপি
 • Hangul
 • Hanja
 • Revised RomanizationIncheon Gwang-yeoksi
 • McCune-ReischauerInch'ŏn Kwang'yŏkshi
উপরে:ইনছন মহাসেতু, উপর থেকে দ্বিতীয় লাইনের বাঁদিকে ইনছন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, দ্বিতীয় লাইনের ডানদিকে ইনছন এশিয়াড মূল স্টেডিয়াম, তার নীচে চিনা টাউন থেকে ফ্রিডম পার্ক, তার নীচে ইনছন বন্দর, নীচের বাঁদিকে সংদো লেক পার্ক
উপরে:ইনছন মহাসেতু, উপর থেকে দ্বিতীয় লাইনের বাঁদিকে ইনছন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, দ্বিতীয় লাইনের ডানদিকে ইনছন এশিয়াড মূল স্টেডিয়াম, তার নীচে চিনা টাউন থেকে ফ্রিডম পার্ক, তার নীচে ইনছন বন্দর, নীচের বাঁদিকে সংদো লেক পার্ক
ইনছন অফিসিয়াল লোগো
Seal of Incheon
Map of South Korea with Incheon highlighted
Map of South Korea with Incheon highlighted
স্থানাঙ্ক: ৩৭°২৯′ উত্তর ১২৬°৩৮′ পূর্ব / ৩৭.৪৮৩° উত্তর ১২৬.৬৩৩° পূর্ব / 37.483; 126.633
দেশদক্ষিণ কোরিয়া সাউথ কোরিয়া
RegionSeoul National Capital Area
Founded1105 as Gyeongwon
মহকুমা
সরকার
 • ধরনMetropolitan City
 • MayorYoo jung-bok
 • Council ChairmanRyu Su-yong
আয়তন
 • মোট১০২৯.৪৩ কিমি (৩৯৭.৪৭ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (March, 2013)[১]
 • মোট২৯,০০,৮৯৮
 • জনঘনত্ব২৮০০/কিমি (৭৩০০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলKorea Standard Time (ইউটিসি+9)
DialectSeoul
ফুলগোলাপ
গাছTulip tree
পাখিCrane
ওয়েবসাইটincheon.go.kr (ইংরেজি)

ইনছন (Korean: 인천, 仁川 কোরীয় উচ্চারণ: [intɕʰʌn]) দক্ষিণ কোরিয়ার প্রধান বন্দর নগরী। এছাড়াও, ইনছন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের জন্য বিখ্যাত। এই শহরের পূর্ব নাম হচ্ছে চেমাল্পো। সিউল থেকে প্রায় ২৮ কিলোমিটার দূরে উত্তর-পশ্চিমাংশে এই শহরের অবস্থান এবং আধুনিক নৌ যোগাযোগ সুবিধাদি বিদ্যমান। সিউলের সাথে সড়ক ও রেলপথে সংযুক্ত আছে এই শহরটি। পীত সাগর থেকে উদ্ভূত হ্যান নদী তীরবর্তী এলাকায় এই শহর গড়ে উঠেছে। স্যান ফ্রান্সিস্ক ওয়াশিংটন, মাদ্রিদ ও তেহরানের সাথে একই অক্ষাংশে অবস্থান করছে।[২] সিউল ও বুশানের পর এটি দক্ষিণ কোরিয়ার তৃতীয় বৃহত্তম শহর। ২০০৯ সালের হিসেব অণুযায়ী এখানে প্রায় ২.৬ মিলিয়ন অধিবাসী বসবাস করছেন।[৩] ১৮৮৩ সালে জেমালপো বন্দর নির্মাণের সময় এখানে মাত্র ৪,৭০০জন ব্যক্তি বসবাস করতেন। ইনছনে দশটি প্রশাসনিক জেলা রয়েছে। আটটি ওয়ার্ড (গু) ও দুইটি কাউন্টিতে (গান) শহরকে বিভক্ত করা হয়েছে।

গুরুত্ব[সম্পাদনা]

ইনছন মেট্রোপলিটন শহরের মর্যাদাপ্রাপ্ত ও কেন্দ্রীয় সরকার কর্তৃক সরাসরি পরিচালিত হয়। প্রদেশের ন্যায় সমান প্রশাসনিক মর্যাদার অধিকারী এই শহরটি। উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যবর্তী বেসামরিক অঞ্চলে শহর অবস্থান করছে। টেক্সটাইল, রেশম, ধাতব পদার্থ, রেলওয়ের যন্ত্রাংশ, পেট্রোলিয়াম পদার্থ আমদানী ও চাউল, জিনসেং, গম, বৈদ্যুতিক যন্ত্রপাতি ও কাগজ রপ্তানী করা হয়। এছাড়াও, জ্বালানী তৈল শোধনাগার, রাসায়নিক পদার্থ উৎপাদন, ইস্পাতের দ্রবাদি সম্পর্কীত কারখানা এ বন্দর নগরীকে কেন্দ্র করে গড়ে উঠেছে। গত পাঁচশ বছর ধরে স্থানীয় অর্থনীতিতে মৎস্য আহরণ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। গ্রীষ্মকালে পর্যটকদের আকর্ষণের কেন্দ্রবিন্দু এই নগরটি। বন্দর নগরীটি উদ্বোধনের পর থেকেই বহিঃবিশ্বের সাথে সম্পর্ক রক্ষাসহ কোরিয়ার অর্থনৈতিক উন্নয়নে নেতৃত্ব দিয়ে আসছে। এটি আধুনিক কোরিয়ায় শিল্পায়নের প্রধান সূতিকাগাররূপে বিবেচিত। কোরিয়া সরকার আগস্ট, ২০০৩ সালে কোরিয়ার প্রথম মুক্ত অর্থনৈতিক অঞ্চলের মর্যাদা পায়।[৪] এরপর থেকেই বৃহৎ স্থানীয় প্রতিষ্ঠান ও বৈশ্বিক প্রতিষ্ঠানসমূহ ইঞ্চিয়ন মুক্ত অর্থনৈতিক অঞ্চলে ব্যাপকভাবে অর্থ বিনিয়োগ করতে থাকে। তন্মধ্যে স্যামসাং অন্যতম যারা সঙ্গডো আন্তর্জাতিক শহরে নতুন বিনিয়োগ করেছে।

আন্তর্জাতিক নগরী হিসেবে ইনছনে অনেকগুলো আন্তর্জাতিক সম্মেলন অণুষ্ঠিত হয়েছে। ২০০৯ সালে ইনছন বৈশ্বিক মেলা ও উৎসব অণুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৪ তারিখ থেকে সপ্তদশ এশিয়ান গেমসের স্বাগতিক শহরের মর্যাদা পায়। পরিবেশ সংক্রান্ত কর্মকাণ্ডে জড়িত আন্তর্জাতিক সংস্থা গ্রীন ক্লাইমেট ফান্ডের সদর দফতর এখানেই অবস্থিত।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]