আলোর প্রতিফলন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

আলো কোন স্বচ্ছ মাধ্যমের ভিতর দিয়ে যাওয়ার সময় অন্য কোন মাধ্যমে বাধা পেলে দুই মাধ্যমের বিভেদতল থেকে কিছু পরিমাণ আলো আগের মাধ্যমে ফিরে আসে, এ ঘটনাকে আলোর প্রতিফলন বলে।[১] আলোর প্রতিফলনর একটি অন্যতম উদাহরণ হল- সমতল দর্পণ বা আয়নার সামনে যখন আমরা দাঁড়াই তখন আমরা আমাদের বিম্ব দেখতে পাই। দর্পণে আলোর প্রতিফলনের জন্যেই বিম্বের সৃষ্টি হয়।
আলোর প্রতিফলন সাধারণত দুটি বিষয়ের ওপর নির্ভর করেঃ আলোর আপতন কোণ ও মাধ্যমগুলোর প্রকৃতি। আপতিত রশ্মি যত বেশি কোণে আপতিত হবে এবং প্রতিফলক যত বেশি মসৃণ হবে আলোর প্রতিফলন তত বেশি হবে। পক্ষান্তরে, আমসৃণ কিংবা স্বচ্ছ প্রতিফলক থেকে আলোর প্রতিফলন কম হয়।

প্রতিফলনের শ্রেণীবিভাগ[সম্পাদনা]

সমতল দর্পণে আলোর নিয়মিত প্রতিফলনের চিত্র
আলোর ব্যাপ্ত প্রতিফলন

প্রতিফলক পৃষ্ঠের প্রকৃতি আনুযায়ী আলোর প্রতিফলন দু ধরনের হতে পারে, যথাঃ নিয়মিত প্রতিফলন ও ব্যাপ্ত প্রতিফলন।

নিয়মিত প্রতিফলন[সম্পাদনা]

যখন একগুচ্ছ সমান্তরাল আলোকরশ্মি কোন পৃষ্ঠে আপতিত হয়ে প্রতিফলনের পর সমান্তরাল থাকে বা অভিসারী কিংবা অপসারীগুচ্ছে পরিণত হয়, তবে আলোর সেই প্রতিফলনকে নিয়মিত প্রতিফলন বলে। প্রতিফলক পৃষ্ঠ মসৃণ হলে যেমন- সমতল দর্পণে আলোর নিয়মিত প্রতিফলন হয়। এক্ষেত্রে প্রতিটি আলোক রশ্মির আপতন কোণ সমান হয় ও প্রতিফলন কোণগুলোও সমান হয়। গ্রীসের প্রখ্যাত গণিতবিদ এবং ইঞ্জিনিয়ার- হীরন[২][৩] সর্বপ্রথম আলোর নিয়মিত প্রতিফলনের ধর্ম লক্ষ্য করেন।

ব্যাপ্ত প্রতিফলন[সম্পাদনা]

যদি একগুচ্ছ সমান্তরাল আলোক রশ্মি কোন পৃষ্ঠে আপতিত হয়ে প্রতিফলনের পর অসমান্তরাল হয় বা অভিসারী বা অপসারীগুচ্ছে পরিণত না হয় তবে আলোর সেই প্রতিফলনকে ব্যাপ্ত প্রতিফলন বলে। প্রতিফলক পৃষ্ঠ সমান্তরাল না হলে এরূপ হয়। এক্ষেত্রে সমান্তরাল রশ্মিগুলো প্রতিফলকপৃষ্ঠের বিভিন্ন বিন্দুতে বিভিন্ন কোণে আপতিত হয় বলে তাদের প্রতিফলন কোণও আলাদা হয়।

গুরুত্বপূর্ণ কিছু সংজ্ঞা[সম্পাদনা]

নিম্নে আপতিত রশ্মি, আপতন বিন্দু, অভিলম্ব, প্রতিফলিত রশ্মি, আপতন কোণ, প্রতিফলন কোণ এর সংজ্ঞা দেওয়া হল:

আপতিত রশ্মি[সম্পাদনা]

যে রশ্মি প্রতিফলকের উপর এসে পড়ে তাকে আপতিত রশ্মি বলে।

আপতন বিন্দু[সম্পাদনা]

আপতিত রশ্মি প্রতিফলকের উপর যে বিন্দুতে এসে পড়ে তাকে আপতন বিন্দু বলে।

অভিলম্ব[সম্পাদনা]

আপতন বিন্দুতে প্রতিফলকের উপর অঙ্কিত লম্বকে অভিলম্ব বলে।

প্রতিফলিত রশ্মি[সম্পাদনা]

প্রতিফলকে বাধা পেয়ে যে রশ্মি আগের মাধ্যমে ফিরে আসে তাকে প্রতিফলিত রশ্মি বলে।

আপতন কোণ[সম্পাদনা]

আপতিত রশ্মি ও অভিলম্বের মধ্যবর্তী কোণকে আপতন কোণ বলে।

প্রতিফলন কোণ[সম্পাদনা]

প্রতিফলিত রশ্মি অভিলম্বের সাথে যে কোণ উৎপন্ন করে তাকে প্রতিফলন কোণ বলে।

আলোর প্রতিফলনের কয়েকটি সূত্র[সম্পাদনা]

আলোর প্রতিফলনের সূত্রগুলোর প্রামাণস্বরূপ উদাহরণ

প্রতিফলক পৃষ্ঠ মসৃণ হলে আলোর প্রতিফলন প্রধানত তিনটি সূত্র মেনে চলে, যথা-

  • আপতিত রশ্মি, আপতন বিন্দুতে প্রতিফলকের উপর অভিলম্ব এবং প্রতিফলিত রশ্মি একই সমতলে থাকে।[১][৪]
  • আপতন কোণ ও প্রতিফলন কোণ সর্বদা সমান হয়।[১][৪]
  • আপতিত রশ্মি ও প্রতিফলিত রশ্মি সর্বদা অভিলম্বের বিপরীত পার্শ্বে অবস্থান করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. ১.০ ১.১ ১.২ মাধ্যমিক পদার্থবিজ্ঞান বই (অধ্যায়-১৪; পৃষ্ঠা-১৮৪ থেকে ১৮৬)|রচনা:ড. শাহাজাহান তপন,মুহাম্মদ আজিজ হাসান,ড. রানা চৌধুরী|সম্পাদনা: ড. আলী আসগল|প্রকাশক: জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড,ঢাকা|সংস্করণ: ডিসেম্বর, ২০০৮
  2. Boyer (1968 [1991])। "Greek Trigonometry and Mensuration"। A History of Mathematics। পৃ: 171–172। "At least from the days of Alexander the Great to the close of the classical world, there undoubtedly was much intercommunication between Greece and Mesopotamia, and it seems to be clear that the Babylonian arithmetic and algebraic geometry continued to exert considerable influence in the Hellenistic world. This aspect of mathematics, for example, appears so strongly in Heron of Alexandria (fl. ca. A.D. 100) that Heron once was thought to be Egyptian or Phoenician rather than Greek. Now it is thought that Heron portrays a type of mathematics that had long been present in Greece but does not find a representative among the great figures - except perhaps as betrayed by Ptolemy in the Tetrabiblos." 
  3. Gregory A Tokaty (1994)। A History and Philosophy of Fluid Mechanics। Courier Dover Publications। পৃ: 26। আইএসবিএন 0-486-68103-3 
    Grolier Incorporated (1989)। Academic American Encyclopedia। Grolier University of Michigan। পৃ: 144। আইএসবিএন 0-7172-2024-9 
    Encyclopædia Britannica Online - Heron of Alexandria
    Israel Shatzman, Michael Avi-Yonah (1975)। Illustrated Encyclopedia of the Classical World। Harper and Row। পৃ: 234। আইএসবিএন 0-06-010178-4 
    Gillian Clements (2005)। The Picture History of Great Inventors। frances lincoln ltd। পৃ: 13। আইএসবিএন 0-7112-1605-3 
    Enc. Britannica 2007, "Heron of Alexandria"
  4. ৪.০ ৪.১ M. Nelkon (1993)। "Light"। Principles of Physics (10th সংস্করণ)। Singapore: SHING LEE PUBLISHERS PTE LTD.। পৃ: 260। আইএসবিএন 9971616688