আলী সালমান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

আলী সালমান আহমদ সালমান (আরবী: علي سلمان أحمد سلمان) একজন বাহরাইনী ইমামিয়্যাহ (টুইলভার) শিয়া আলেম এবং আল-ওয়েফক নামক রাজনৈতিক সমাজের মহাসচিব। ১৯৯৫ সালের জানুয়ারিতে বাহরাইন সরকার তাকে ১৯৯০ সালের গণজাগরণের সময় সংবিধান পুনঃপ্রতিষ্ঠান এবং সংসদ পুনরুদ্ধারের দাবিতে একটি প্রচারাভিযানের নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য জোরপূর্বক তাকে দুবাইতে নির্বাসনে পাঠিয়ে দেয়। সেখান থেকে লন্ডনে যান এবং সেখানে রাজনৈতিক আশ্রয় চান। তিনি লন্ডন থেকে বিরোধী কার্যক্রম অব্যাহত রাখেন, যেখানে তিনি বাহরাইন ফ্রিডম মুভমেন্ট এর সাথে যুক্ত ছিলেন। ২০০১ সালের মার্চে রাজা হামাদ ঘোষিত রাজনৈতিক সংস্কারের একটি অংশ হিসাবে সালমান সাধারণ ক্ষমা প্রার্থনায় বাহরাইন ফিরে আসেন।

তার পরিবারের নিকটবর্তী অজানা কিছু ব্যক্তির মতে, আল খলিফার শাসনামলে শেখ আলী সালমানকে কারাগারে মারাত্মক নির্যাতন করা হয়েছিল। শেখ আলী সালমানকে আটক রাখার ফলে অনেক প্রতিবাদ হয় এবং আল খলিফার বাহিনী বিক্ষোভকারীদের ছত্রভঙ্গ করতে টিয়ার গ্যাসরবারের গুলি চালানোর ফলে বেশ কয়েকজন প্রতিবাদকারী আহত হয়।

ধর্মীয় বিশ্বাস[সম্পাদনা]

আলী সালমান মূলত ইরানের ইমামিয়্যাহ শিয়া ধর্মীয় চিন্তাভাবনার একটি প্রধান কেন্দ্র ‘কম’ শহরে পড়াশুনা করেন। তিনি একজন ইমামিয়্যাহ শিয়া যা মূলত ১৯৯২ সালে তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত শিয়া বিশ্বের বেশিরভাগ আধ্যাত্মিক নেতা গ্র্যান্ড আয়াতুল্লাহ সাঈদ আবুল-কাশিম আল-খোইয়ের শান্তিকর শিক্ষা অনুসরণ করেছিলেন। তার মূল মার্জার মৃত্যুর পর, সালমান তার নতুন মার্জা সম্পর্কে প্রকাশ্যে কথা বলেননি তবে, একটি ব্যক্তিগত সাক্ষাৎতারে তিনি দাবি করেছিলেন যে তিনি এখন গ্র্যান্ড আয়াতুল্লাহ সাইয়িদ আলী আল-হুসায়ানি আল-সিসতানির অনুসারী।

এই পছন্দটি গুরুত্বপূর্ণ কারণ সালমান তার রাজনৈতিক অবস্থানকে ন্যায্যতা দেওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষের বাহ্যিক উৎসের উপর নির্ভর করেন না। সিসতানির এই অনুসরণ একটি সম্পূর্ণরূপে পৃথক ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত যা সাধারণ পরিমণ্ডলের মধ্যে প্রসারিত হয় না। সিসতানি একটি মার্জা যা তার অনুসারীদের রাজনৈতিক পছন্দগুলিতে হস্তক্ষেপ এড়ায়ে চলার জন্য বিশেষভাবে পরিচিত।

১৯৯০ সালে বাহরাইনের গণজাগরণে ভূমিকা[সম্পাদনা]

১৯৯০ সালে বাহরাইনের গণজাগরণের একজন অন্যতম নেতা হিসেবে আলী সালমান ব্যাপকভাবে পরিচিত। গণজাগরণের প্রথম দিকটি ১৯৯৪ সালের নভেম্বরে বেশ কয়েকটি বিদেশী সংস্থা দ্বারা সংগঠিত একটি দাতব্য ম্যারাথন হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে। ম্যারাথন দৌড়বিদরা, পুরুষ এবং মহিলা উভয়ই শর্টস এবং টি-শার্টে পরিহিত অবস্থায়, কিছু শিয়া গ্রামে প্রবেশ করে। শিয়া ধর্মীয় নেতাদের নেতৃত্বে গ্রামবাসীরা তাদের থামাতে চেষ্টা করেছিল কারণ তাদের মনে হয়েছিল এই অল্প পোশাক পরিহিতরা তাদের ধর্মীয় ও নৈতিক মূল্যবোধকে সরাসরি অপমান করছে। ঘটনা মারামরি এবং পাথর নিক্ষেপ পর্যন্ত গড়িয়েছিল। ঐ রাতে, আলী সালমান সহ বেশ কয়েকজন প্রতিবাদকারীকে নিরাপত্তা বাহিনী গ্রেপ্তার করে। তার গ্রেফতার গণ-বিক্ষোভে রূপ নেয় এবং প্রায় ১২ জন বিক্ষোভকারীর মৃত্যু ঘটে ও শত শত বিক্ষোভকারীকে কারাগারে পাঠান হয়। এইসব বিক্ষোভের নেতা ছিলেন সালমান।

১৯৯৪ সালে গ্রেপ্তার হওয়ার পর সালমানকে নির্বাসিত করা হয় এবং তিনি পরে লন্ডনে যান। যেখানে তিনি বাহরাইনের স্বাধীনতা আন্দোলনের জন্য বাহরাইন ফ্রিডম মুভমেন্টের সাথে যুক্ত হন, সাইদ আল-শেহাবি নেতৃত্বে এই সংগঠনটি গড়ে ওঠে। সালমান এই গ্রুপ থেকে স্বাধীনভাবে কাজ করেছিলেন কিন্তু বাহরাইন বিদ্রোহের রাজনৈতিক দাবিগুলো অর্জনের জন্য তাদেরকে সহযোগিতা করেছিলেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "CV - Mohd H A AlKhayyat". Bahrain Parliament Website. Archived from the original on 6 August 2011. Retrieved 12 October 2012.
  2. "CV - Ali Salman Ahmed Salman". Bahrain Parliament Website. Archived from the original on 23 May 2011. Retrieved 12 October 2012.
  3. "Why Al Khalifa tortured Sheikh Ali Salman".
  4. "Bahrain forces crack down on protestors". Al Bawaba. 31 January 2015.
  5. Michael Sheridan "Violent Shia protests embarrass Bahrain Violent Shia protests embarrass Bahrain ", The Independent, 20 December 1994