আনোয়ার সাইফুল্লাহ খান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আনোয়ার সাইফুল্লাহ খান
أنور سيف الله خان
সিনেটর খাইবার পাখতুনখোয়া
কাজের মেয়াদ
২১ ডিসেম্বর ১৯৯০ – ২১ মার্চ ১৯৯৭
পূর্বসূরীসেলিম সাইফুল্লাহ খান
পেট্রোলিয়াম এবং প্রাকৃতিক সম্পদ মন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
২৬ জানুয়ারি ১৯৯৪ – ৫ নভেম্বর ১৯৯৬
প্রধানমন্ত্রীবেনজির ভুট্টো
পূর্বসূরীজাহাঙ্গীর বদর
উত্তরসূরীনুরাইজ শাকুর
পরিবেশ ও নগর বিষয়ক মন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
১৯৯১ – ১৮ জুলাই ১৯৯৩
প্রধানমন্ত্রীনওয়াজ শরীফ
উত্তরসূরীশাহিদা জামিল
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (1945-06-07) ৭ জুন ১৯৪৫ (বয়স ৭৬)
পেশোয়ার, উত্তর পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশ, ব্রিটিশ ভারত
(এখন খাইবার পাখতুনখোয়া, পাকিস্তান))
রাজনৈতিক দলপাকিস্তান পিপলস পার্টি
পিএমএল-জে। পাকিস্তান মুসলিম লীগ (জুনেজো) (১৯৮৮-২০০৯)
সম্পর্কসেলিম, হুমায়ূন (ভাই)
গোলাম ইসহাক খান (পিতা-শ্বশুর)
ওমর আইয়ুব খান (জামাই)
প্রাক্তন শিক্ষার্থীপেশোয়ার বিশ্ববিদ্যালয়
ক্রিস্ট চার্চ, অক্সফোর্ড
দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়

আনোয়ার সাইফুল্লাহ খান (উর্দু: أنور سيف الله خان‎‎; জন্ম: ৭ জুন ১৯৪৫) একজন পাকিস্তানি রাজনীতিবিদ এবং বিশিষ্ট শিল্পপতি। পাকিস্তান মুসলিম লীগের সদস্য হিসাবে (জুনেজো) তিনি ১৯৯০ থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের মন্ত্রিসভায় পরিবেশ ও নগর বিষয়ক মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন। পরবর্তীতে ১৯৯৪ থেকে ১৯৯৬ সাল পর্যন্ত তিনি প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর জোটের সাথে পেট্রোলিয়াম ও প্রাকৃতিক সম্পদ মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন। ১৯৯০ সালে তিনি খাইবার পাখতুনখোয়া থেকে সিনেটে নির্বাচিত হয়ে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত সিনেটর হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

২০০৮ সালের সাধারণ নির্বাচনে সাইফুল্লাহ লাক্কি মারওয়াতের দুটি প্রাদেশিক আসন থেকে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন এবং উভয় আসন থেকেই খাইবার পাখতুনখোয়া বিধানসভা নির্বাচনে নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি বর্তমানে পাকিস্তান পিপলস পার্টির একজন সদস্য।

প্রথম জীবন এবং পরিবার[সম্পাদনা]

আনোয়ার সাইফুল্লাহ খান পেশাওয়ারে পশতুনের মারওয়াত উপজাতি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি বেগম কুলসুম সাইফুল্লাহর ছেলে এবং রাজনীতিবিদ সেলিম ও হুমায়ুন সাইফুল্লাহ খানের ভাই। তিনি রাষ্ট্রপতি গোলাম ইসহাক খানের জামাতা এবং পাকিস্তানের প্রাক্তন সামরিক স্বৈরশাসক ও রাষ্ট্রপতি আইয়ুব খানের নাতি ওমর আইয়ুব খানের শ্যালক। তার পরিবারের রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতা রয়েছে।

সাইফুল্লাহ পেশোয়ার বিশ্ববিদ্যালয় এবং অক্সফোর্ডের ক্রাইস্ট চার্চ থেকে পড়াশোনা করেছিলেন। তিনি ১৯৮৪ সালে পাকিস্তানি দলীয় সাইফ গ্রুপের সহ-সভাপতির পদ গ্রহণ করেছিলেন।

রাজনৈতিক পেশা[সম্পাদনা]

সাইফুল্লাহ ১৯৯০ সালে খাইবার পাখতুনখোয়া থেকে সিনেটে নির্বাচিত হয়ে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত পাকিস্তান মুসলিম লীগের সদস্য (জুনেজো) হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি ১৯৯০ থেকে ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরীফের মন্ত্রিসভায় পরিবেশ ও নগর বিষয়ক পেট্রোলিয়াম মন্ত্রীর পদে এবং ১৯৯০ থেকে ১৯৯৬ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর সাথে জোটে পেট্রোলিয়াম ও প্রাকৃতিক সম্পদ মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

২০০৮ সালের সাধারণ নির্বাচনে সাইফুল্লাহ লাক্কি মারওয়াত থেকে দুটি প্রাদেশিক আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন এবং উভয় আসন থেকেই খাইবার পাখতুনখোয়া বিধানসভায় নির্বাচিত হয়েছিলেন। পরে তিনি খাইবার পাখতুনখোয়ারের গভর্নরের প্রার্থী হিসাবে পাকিস্তান পিপলস পার্টিতে যোগ দিয়েছিলেন, তবে এটি জোটের সাইফুল্লাহ পরিবারের প্রতিদ্বন্দ্বী শরিক দল আওয়ামী ন্যাশনাল পার্টির দ্বারা ভেটো দেওয়া হয়েছিল।[১] পরিবর্তে তাকে পিপিপির খাইবার পাখতুনখার রাষ্ট্রপতি নিযুক্ত করা হয়েছিল, তবে ২০১৩ সালের সাধারণ নির্বাচনে তাঁর পরাজয়ের পরে তিনি পদত্যাগ করেছিলেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Mukhtar, Imran (ফেব্রুয়ারি ১৮, ২০১২)। "Senate defers 20th Amend Bill"The Nation। Pakistan। ১৯ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ আগস্ট ২০১২