অলিভার রিড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অলিভার রিড
Oliver Reed 1968 (cropped).jpg
১৯৬৮ সালে রিড
স্থানীয় নাম
Oliver Reed
জন্ম
রবার্ট অলিভার রিড

(১৯৩৮-০২-১৩)১৩ ফেব্রুয়ারি ১৯৩৮
মৃত্যু২ মে ১৯৯৯(1999-05-02) (বয়স ৬১)
ভেলেটা, মাল্টা
পেশাঅভিনেতা
কার্যকাল১৯৫৮-১৯৯৯
দাম্পত্য সঙ্গীকেট বায়ার্ন
(বি. ১৯৫৯; বিচ্ছেদ. ১৯৬৯)

জোসেফিন বার্জ
(বি. ১৯৮৫; মৃ. ১৯৯৯)
সন্তান

রবার্ট অলিভার রিড (ইংরেজি: Robert Oliver Reed; ১৩ ফেব্রুয়ারি ১৯৩৮ - ২ মে ১৯৯৯)[১] ছিলেন একজন ইংরেজ অভিনেতা। তার অভিনীত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্রসমূহ হল দ্য ট্র্যাপ (১৯৬৬), অস্কার বিজয়ী চলচ্চিত্র অলিভার! (১৯৬৮), উইমেন ইন লাভ (১৯৬৯), হ্যানিবাল ব্রুকস (১৯৬৯), দ্য ডেভিলস (১৯৭১), দ্য থ্রি মাস্কেটিয়ার্স (১৯৬৬), টমি (১৯৭৫), লায়ন অব দ্য ডেজার্ট (১৯৮১), ক্যাস্টাওয়ে (১৯৮৬), দি অ্যাডভেঞ্চারস অব ব্যারন মুনচাউসেন (১৯৮৮) এবং ফানি বোনস (১৯৯৫)।

তার অভিনীত সর্বশেষ চলচ্চিত্র গ্ল্যাডিয়েটর (২০০০)-এ গ্ল্যাডিয়েটরদের প্রশিক্ষক বৃদ্ধ আন্তোনিয়াস প্রোক্সিমো চরিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি মরণোত্তর শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেতা বিভাগে বাফটা পুরস্কারের মনোনয়ন লাভ করেন। তিনি যখন তার কর্মজীবনের শিখরে ছিলেন, তখন ১৯৭১ সালে ব্রিটিশ প্রদর্শকদের ভোটে তিনি বক্স অফিসে ৫ম জনপ্রিয় তারকার হিসেবে নির্বাচিত হন।[২]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

রিড ১৯৩৮ সালের ১৩ই ফেব্রুয়ারি উইম্বলডনের ৯ নং ডারিংটন পার্ক রোডে জন্মগ্রহণ করেন।[৩] তার পিতা পিটার রিড ছিলেন একজন ক্রীড়া সাংবাদিক এবং মাতা মার্সিয়া (জন্মনাম: ন্যাপিয়ার-অ্যান্ড্রুজ)।[৪] তার ভাই সিমন রিড ব্রিটিশ ইউরোস্পোর্টের ক্রীড়া সাংবাদিক।[৫] তিনি চলচ্চিত্র পরিচালক স্যার ক্যারল রিডের ভাইপো এবং অভিনেতা স্যার হার্বার্ট বিরবোম ট্রি ও মে পিনি রিডের নাতী।[৬] রিড দাবী করেন তিনি রাশিয়ার জার মহান পিটারের বংশধর।

রিড ১৪টি স্কুলে পড়াশোনা করেছেন, তন্মধ্যে একটি হল সারির ইওয়েল ক্যাসল স্কুল। রিড মুষ্টিযোদ্ধা, বাউন্সার, ক্যাব চালক ও হাসপাতালে কুলি হিসেবে কাজ করেছেন। তিনি পরে রয়্যাল আর্মি মেডিক্যাল কর্পসে বাধ্যতামূলক দায়িত্ব পালন করেন।[৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Oliver Reed | British actor"এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  2. ওয়েমার্ক, পিটার (৩০ ডিসেম্বর ১৯৭১)। "Richard Burton top draw in British cinemas"। দ্য টাইমস। লন্ডন। পৃ. ২।
  3. গুডউইন, ক্লিফ (২০০০)। Evil Spirits: The Life of Oliver Reed। লন্ডন: ভার্জিন পাবলিশিং লিমিটেড।
  4. রিড, অলিভার (১৯৭৯)। Reed All About Me: The Autobiography of Oliver Reed। ডব্লিউ. এইচ. অ্যালেন। পৃষ্ঠা ৭। 
  5. হ্যাস্টিংস, ক্রিস (১৮ ফেব্রুয়ারি ২০০১)। "Oliver Reed's widow upset by Oscar snub"দ্য ডেইলি টেলিগ্রাফ। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  6. মিলিগান, স্পাইক (২২ এপ্রিল ২০১৩)। "LIFE AS the son of a hellraiser"আইরিশ ইন্ডিপেন্ডেন্ট। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 
  7. "Ex-army corporal who served with Oliver Reed wants to track down old comrades"সাউথ ওয়েলস আর্গুস। গ্যানেট কোম্পানি। ১০ মার্চ ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]