অনিতা দুবে

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অনিতা দুবে
জন্ম (1958-11-28) ২৮ নভেম্বর ১৯৫৮ (বয়স ৬০)
লক্ষ্ণৌ, উত্তর প্রদেশ, ভারত
বাসস্থাননতুন দিল্লি
যেখানের শিক্ষার্থীমহারাজা সায়াজিরাও বিশ্ববিদ্যালয়
পেশাসমকালীন শিল্পী
কার্যকাল১৯৭০–বর্তমান

অনিতা দুবে (জন্ম ২৮ নভেম্বর, ১৯৫৮) একজন ভারতীয় সমকালীন শিল্পী, যার ধারণাগতভাবে সমৃদ্ধ, রাজনৈতিকভাবে উদ্দীপিত কাজটি ব্যাপকভাবে জাদুঘর এবং গ্যালারী, লেকিরিন গ্যালারী, মুম্বাইয়ের কিরণ নাদার মিউজিয়াম অফ আর্ট (নয়া দিল্লি), ডাঃ ভাউ দাজী লাদ যাদুঘর (মুম্বাই); গ্যালারি প্রকৃতি মর্ট (নিউ দিল্লি), কেএইচওজে ইন্টারন্যাশনাল আর্টিস্টস অ্যাসোসিয়েশনের (নয়া দিল্লি) ইত্যাদি স্থানে প্রদর্শন করা হয়েছে।

প্রথম জীবন[সম্পাদনা]

দুবে ১৯৫৮ সালের ২৮ নভেম্বর ভারতে উত্তর প্রদেশের লক্ষ্ণৌতে, চিকিৎসকের পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। [১] তিনি ১৯৭৯ সালে দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে সম্মাননা সহ বিএ পাস করেন। ১৯৮২ সালে তিনি বরোদা মহারাজা সায়াজিরাও বিশ্ববিদ্যালয়ের বহু চর্চিত ললিতকলা বিভাগের একটি বিশেষ সৃষ্টিশীল ও প্রভাবশালী সময়কালে, শিল্প সমালোচনায় এমএফএ সম্পন্ন করেন। [২]

প্রাথমিক কর্মজীবন এবং ভারতীয় র‍্যাডিকাল পেইন্টার এবং স্কাল্পচার এসোসিয়েশন[সম্পাদনা]

ভিসুয়াল আর্টিস্ট হিসাবে কর্মরত অবস্থায় তার কাজে প্রভাব ফেলেছিল, বরোদায় একজন শিল্প ইতিহাসবিদ হিসেবে পূর্বের প্রশিক্ষণ এবং স্বল্পকালীন কিন্তু অত্যন্ত প্রভাবশালী ভারতীয় র‍্যাডিকাল পেইন্টার এবং স্কাল্পচার এসোসিয়েশনের সাথে তার সম্পর্ক, যেটি প্রধানত মালয়ালি সমসাময়িক শিল্পীদের একটি দল (অনিতা যেখানে একটি বিরল ব্যতিক্রম ) এই সংগঠনটি ১৯৮৭ সালে বরোদায় কে পি কৃষ্ণকুমার গঠিত, যা বরোদায় শিল্পী ও অনুষদের পূর্ববর্তী প্রজন্মের সাথে যুক্ত চিত্রকলার আরও আলঙ্কারিক শৈলীটির বিপরীতে শিল্প সৃষ্টির জন্য একটি স্পষ্টভাবে অন্তর্নিহিত, সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে সচেতন দৃষ্টিভঙ্গি তৈরি করেছিল। যারা পরবর্তীকালে তথাকথিত "বারোদা স্কুল" নামেও পরিচিত ছিলেন, যারা কখনও কখনও "আখ্যান চিত্রশিল্পী" নামে পরিচিত ছিলেন। ভুপেন খাখার, নলিনী মালানি, ভিভান সুন্দরম , যোগেন চৌধুরী , সুধীর পট্টবর্ধন , গোলাম মোহাম্মদ শেখ ও সমালোচক গীতা কাপুরের মত শিল্পীদের নিয়ে একটি গোষ্ঠী যা ১৯৭০ এর দশকের মাঝামাঝি থেকে শেষ অবধি বিশিষ্টতা লাভ করেছিল। [৩]

১৯৮৭ সালে, কৃষ্ণকুমারের নেতৃত্বে ইন্ডিয়ান র‍্যাডিকাল পেইন্টারস অ্যান্ড স্কাল্পচার অ্যাসোসিয়েশন, বরোদায় ললিতকলা বিভাগের একটি "প্রশ্ন ও সংলাপ" নামক প্রদর্শনী করেন, যাতে বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরের চারপাশে শিল্পকলার সাধারণীকরণ বা পণ্যে রূপান্তরকরণকে নিন্দা করে, "আখ্যান চিত্রকরদের" মধ্যে আন্তরিক এবং কার্যকর রাজনৈতিক ও সামাজিক যোগদানের অভাব হিসাবে যা দেখেছিল তা অনিতার লেখা প্রাচীরপত্রগুলিতে এবং একটি ইস্তেহার সহযোগে দেখানো হয়েছিল। [৪] অনিতা এবং অন্যান্যরা সস্তা, শিল্পজাত সামগ্রী এবং খুঁজে পাওয়া বস্তুগুলির উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করেন যা শিল্প সাধারণীকরণের বিরোধিতা করে এবং যা শ্রম-শ্রেনীর দর্শকদের সাথে সংযুক্ত। তাঁরা শিল্প তৈরি, প্রদর্শন এবং তা নিঃশেষের বুর্জোয়া ধারণার বিরুদ্ধে সংগ্রামী সমালোচনা করেন। [৫]

প্রদর্শনীর পর, দলটি তাদের কার্যক্রমকে কেরালায় স্থানান্তরিত করে, যেখানে ১৯৮৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে কালিকটে আরেকটি প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়াও ১৯৮৯ দলটি একটি বিক্ষোভ প্রদর্শন করে এবং টাইমস অফ ইন্ডিয়া সহায়তায় মুম্বাইয়ে অনুষ্ঠিত সোথবির নিলামের তীব্র সমালোচনা করে একটি ক্ষুদ্র পুস্তিকা প্রকাশ করে - এখনও ভারতের অপেক্ষাকৃত শান্ত ১৯৮০ এর শিল্প বাজারের জন্য একটি উপন্যাস। "ভারতীয় শিল্প ও সংস্কৃতিতে টাইমস অব ইন্ডিয়ার আকস্মিক আগ্রহতে এটা বোঝা যায়, সাম্রাজ্যবাদীরা শিল্পীদের জন্য অমানবিক প্রকল্পগুলির মাধ্যমে মানুষের মন ও জীবনকে সম্পূর্ণরূপে বিষাক্ত করতে চায়"। তিনি আরও বলেন, "টাইমলেস" ভারত প্রদর্শনীর আমন্ত্রণ ছিল আসলে একটি "ঔপনিবেশিক কৌশল" এর ঐতিহ্য যা সবকিছুকে 'নিরবধি' হিসাবে দেখত এবং এখন ভারতীয় শাসক শ্রেণী নিজের দেশকে সেই একই নজরে দেখতে পায়"। [৫]

পরবর্তী কাজ[সম্পাদনা]

কেপি কৃষ্ণকুমারের মৃত্যুর পর ১৯৮৯ সালে ভারতীয় র‍্যাডিকাল পেইন্টারস এবং স্কাল্পচার অ্যাসোসিয়েশন নিষ্ক্রিয় হয়ে যায়, তখন অনিতা দৃশ্যমান শিল্পের জন্য লেখার ও সমালোচনার থেকে তার দৃষ্টি নিয়ে যান ভিন্ন দিকে। একটি নান্দনিক উপভাষা তৈরি করেন যা সহজলব্ধ বস্তু এবং শিল্প সামগ্রী, শব্দের খেলা এবং আলোকচিত্র ব্যবহার করে ভারতে এবং তার বাইরে বিদ্যমান সামাজিক ও রাজনৈতিক অবস্থার ধারাবাহিক বিশ্লেষণ এবং সমালোচনা তুলে ধরেন। ২০০৩ সালের একটি প্রবন্ধে ফিলিপ ভার্গেন লিখেছেন যে অনিতার কাজ "ব্যক্তিগত ও সামাজিক স্মৃতি, ইতিহাস, পৌরাণিক ঘটনা এবং আশ্চর্যজনক অভিজ্ঞতার সাংস্কৃতিক অংশীদার হিসাবে বিশেষত ভাস্কর্যের অংশ।"[৬]

আন্তর্জাতিকভাবে, তাঁর কাজ ম্যট্রেস ফ্যাক্টরী, পিটসবার্গে দেখানো হয়েছে; ওয়ার্কার আর্ট সেন্টার (মিউনিুপলিস), কনটেম্পোরারি আর্টস মিউজিয়াম (হিউস্টন), মেসিও রফিনো তামায়ো (মেক্সিকো সিটি) এবং হাভানাতে দেখান হয়েছে। অন্য প্রদর্শনিগুলির মধ্যে. সাম্প্রতিক একক প্রদর্শনী নেচার মর্টে (বার্লিন; ২০১৩) লেকিয়েইন গ্যালারী (মুম্বাই; ২০১৩); গ্যালারি ডমিনিক ফিয়াত (প্যারিস; ২০১১); বোস পাশা (নিউ ইয়র্ক; ২০০৮), গ্যালারি এলমাইন রেচ (প্যারিস; ২০০৭), এবং গ্যালারি নেচার মর্টে (নিউ দিল্লি; ২০০০, ২০০৫)। তাঁর কাজ সাম্প্রতিক দলগত প্রদর্শনীতে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, যার মধ্যে আছে কিরান নাদার মিউজিয়াম অব আর্ট (২০১৩), এবং সেন্টার জর্জেস পম্পিডো, প্যারিস (২০১১)।

১৯৯৭ সালে, অনিতা কেএইচওজেনতুন দিল্লীর একটি আন্তর্জাতিক শিল্পী সমিতির সহপ্রতিষ্ঠাতা। একটি অপেক্ষাকৃত শালীন বার্ষিক কর্মশালায় যা শুরু হয়েছে তা দক্ষিণ এশিয় শিল্পের বৈশ্বিক প্রেক্ষাপটে, আন্তর্জাতিক কর্মশালা, বাসস্থান এবং প্রদর্শনী সংগঠিত করার জন্য একটি প্রধান মঞ্চ হয়ে উঠেছে। [৭]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Dube, Anita | Grove Art" (ইংরেজি ভাষায়)। doi:10.1093/gao/9781884446054.001.0001/oao-9781884446054-e-7000097908। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-০৮ 
  2. "Anita Dube - CV"। Gallery Nature Morte। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১৪ 
  3. "Gulam Mohammed Sheikh in conversation with Suman Gopinathan"। otherspaces। ১৮ এপ্রিল ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১৪ 
  4. "Questions & Dialogue: A Radical Manifesto"। Art & Education। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১৪ 
  5. Panikkar, Shivaji K। "FROM TRIVANDRUM TO BARODA AND BACK: A RE-READING"। otherspaces। ১৯ এপ্রিল ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১৪ 
  6. Vergne, Philippe। "Anita Dube"। Bose Pacia। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১৪ 
  7. "About KHOJ"। KHOJ International Artists' Association। ১১ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১৪