হেনরিক হার্টজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(হাইনরিশ হেরৎস থেকে ঘুরে এসেছে)
হেনরিক রুডল্ফ হার্টজ
Heinrich Rudolf Hertz
Heinrich Rudolf Hertz.jpg
হেনরিক রুডল্ফ হার্টজ
জন্ম (১৮৫৭-০২-২২)২২ ফেব্রুয়ারি ১৮৫৭
হামবুর্গ, জার্মানি
মৃত্যু ১ জানুয়ারি ১৮৯৪(১৮৯৪-০১-০১) (৩৬ বছর)
বন, জার্মান সাম্রাজ্য
বাসস্থান জার্মানি
জাতীয়তা জার্মান
কর্মক্ষেত্র পদার্থবিজ্ঞান
ইলেকট্রনিক প্রকৌশল
প্রতিষ্ঠান কিল বিশ্ববিদ্যালয়
কার্ল্‌সরুয়ে বিশ্ববিদ্যালয়
বন বিশ্ববিদ্যালয়
প্রাক্তন ছাত্র মিউনিখ বিশ্ববিদ্যালয়
বার্লিন বিশ্ববিদ্যালয়
পিএইচডি উপদেষ্টা হের্মান ফন হেল্মহোল্‌ৎস
পিএইচডি ছাত্ররা Vilhelm Bjerknes
পরিচিতির কারণ তড়িৎ-চুম্বকীয় বিকিরণ
আলোক তড়িৎ ক্রিয়া
উল্লেখযোগ্য পুরস্কার রাম্ফোর্ড মেডেল (১৮৯০)
স্বাক্ষর

হেনরিক রুডল্ফ হার্টজ (জার্মান: Heinrich Hertz; জার্মান: [hɛʁʦ] ); ২২ ফেব্রুয়ারি ১৮৫৭ – ১ জানুয়ারি ১৮৯৪) একজন জার্মান পদার্থবিজ্ঞানী যিনি প্রথম প্রত্যয়জনকভাবে ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক তরঙ্গ-এর অস্তিত্ব প্রমাণ করেন যা জেমস ক্লার্ক ম্যাক্সওয়েলের আলোর ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক তত্ত্ব দ্বারা ধারণা করা হয়। ১৮৮৮ সালে তিনি সর্বপ্রথম একটি যন্ত্রের সাহায্যে অত্যন্ত উচ্চ কম্পাঙ্কের বেতার তরঙ্গ তৈরি ও শনাক্ত করেন এবং এর সাহায্যে তড়িৎ-চুম্বকীয় তরঙ্গের অস্তিত্ব প্রমাণ করেন। তাঁর নামেই কম্পাঙ্কের আন্তর্জাতিক এককের নামকরণ করা হয়েছে হার্জ[১]

জীবনী[সম্পাদনা]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

গবেষণা[সম্পাদনা]

আবহাওয়াবিজ্ঞান[সম্পাদনা]

হার্টজের সবসময় আবহাওয়াবিদ্যার উপর এক গভীর আগ্রহ ছিল, ধারণা করা হয় এটা উইলহেম ভন বেজল্ড (১৮৭৮ সালে মিউনিখ পলিটেকনিক-এ হার্টজের প্রফেসর ছিলেন) এর সাথে যোগাযোগের পর থেকেই ৷ কিন্তু হার্টজ কিছু প্রাথমিক নিবন্ধ বাদে এই ক্ষেত্রে তেমন কোনো অবদান রাখেননি৷ নিবন্ধগুলি তিনি বার্লিনে হেল্মহোল্টজের সহকারী হিসেবে থাকাকালীন লিখেছিলেন, যেগুলোর মধ্যে ছিল তরলের বাষ্পীভবনের উপর গবেষণা, এক নতুন ধরণের আর্দ্রতামাপক যন্ত্র এবং একই রুদ্ধতাপীয় পরিবর্তনে আর্দ্র বাতাসের বৈশিষ্ট্য নির্ণয়ের রৈখিক উপায় ৷ [২]

সংস্পর্শ বলবিজ্ঞান[সম্পাদনা]

<--তড়িৎচুম্বক -এর বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের জন্য হার্জ সবার কাছে পরিচিত (নিচে দেখুন)-->

১৯৮৬-১৯৮৯ সালের মধ্যে হার্টজ দুইটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেন যা পরে সংস্পর্শ বলবিদ্যা নামে পরিচিতি লাভ করে। বেশিরভাগ প্রতিবেদন যেগুলো সংস্পর্শের মৌলিক ধর্ম নিয়ে আলোচিত ছিল,তাদের মধ্যে হার্টজের ঐ দুইটি প্রতিবেদন উদ্বাহরণস্বরুপ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ধারনার উৎস হিসেবে পরিচিত ছিল। যোসেফ ভেলেন্তিন বোসিনেস্ক হার্টজের কাজের উপর কিছু জটিল গুরুত্বপূর্ণ পর্যবেক্ষন প্রকাশ করেন, যাই হোক,সংস্পর্শ বলবিদ্যার উপর এইসব অধিষ্ঠিত কাজের বিপুল গুরুত্ব ছিল। তার কাজের মূলত সারসংক্ষেপ হলো,দুইটি এক্সি-সিমেট্রিক বস্তু একে অপরের সংস্পর্শে ভারবহনকৃত অবস্থায় কিরূপ আচরণ করে তা বের করা। এইসব কাজের ফলাফল তিনি চিরায়ত স্থিতিস্থাপক এবং সন্ততি বলবিদ্যা তত্ত্বের উপর ভিত্তি করে সংগ্রহ করেন।

তড়িৎচৌম্বক গবেষণা[সম্পাদনা]

1887 experimental setup of Hertz's apparatus

১৮৭৯ সালে হার্টজের গবেষণার সময় হেল্মহোল্টজ প্রস্তাব করেছিলেন যে, হার্টজের গবেষণামূলক প্রবন্ধ ম্যাক্সওয়েলের তড়িৎচুম্বকীয় তত্ত্ব পরীক্ষা করতে পারে। এটা ১৮৬৫ সালে প্রকাশিত যা তড়িৎচুম্বকীয় তরংগের অস্তিত্ব থাকতে পারে বলে অনুমান করেছিলো। এটি ভবিষ্যতবাণী করেছিলো যে, তড়িৎচুম্বকীয় তরংগ আলোর দ্রুতিতে চলে এবং আলো নিজেই ঠিক একটি তরংগের মতো। এছাড়াও হেল্মহোল্টজ সে বছর প্রুসিয়ান একাডেমী অব সাইন্স একটি সমস্যার উপর 'বার্লিন পুরস্কার' প্রস্তাব করেছিলেন। যে পরীক্ষামূলকভাবে অপরিবাহী/ অন্তরক(insulator) এর সমবর্তন(polarization) এবং অসমবর্তন এর মধ্যে তড়িৎচুম্বকীয় প্রভাব প্রমাণ করতে পারবে এই পুরস্কার তার জন্য। ম্যাক্সওয়েল এর তত্ত্ব থেকে এই প্রভাব সম্পর্কে কিছু একটা আভাস পাওয়া গিয়েছিলো। [৩][৪] হেল্মহোল্টজ প্রায় নিশ্চিত ছিলেন যে, এটা জেতার জন্যে হার্টজই ছিলেন সবচেয়ে উপযুক্ত প্রার্থী। [৪] হার্টজের ধারণা ছিলো এটি পরীক্ষামূলকভাবে প্রমাণের জন্য যন্ত্রপাতি তৈরি বেশ কষ্টকর। অন্য কোন উপায় না পেয়ে তিনি এর পরিবর্তে তড়িৎচুম্বকীয় আবেশন এর উপর কাজ করেছিলেন। কিয়েল এ তার সময়ে প্রচলিত 'একশান এট আ ডিসটেন্স' তত্ত্বের তুলনায় তাদের অধিক বৈধতা রয়েছে দেখাতে হার্টজ ম্যাক্সওয়েল এর সূত্রের বিশ্লেষণ প্রকাশ করেছিলেন। [৫]

কার্লশ্রুহে অধ্যাপনা শুরু করার পর ১৮৮৬ সালের এক হেমন্তে যখন হার্জ এক জোড়া রেইস স্পাইরাল নিয়ে পরীক্ষা করছিলেন তখন তিনি দেখতে পেলেন এই কয়েলগুলোর মধ্যকার একটি লেইডেন জার আধানমুক্ত করার প্রক্রিয়া অন্য একটি কয়েলে স্ফূলিঙ্গের সৃষ্টি করে।ম্যাক্সওয়েল এর তত্ত্ব প্রমাণ করার সমস্যা সমাধানের জন্য হার্জ একটি নতুন যন্ত্র তৈরীর উপায় বের করেছিলেন যা তাকে ১৮৭৯ সালের 'বার্লিন পুরস্কার' এনে দিয়েছিল (যদিও আসল পুরস্কারটি গ্রহণ না করার জন্য ১৮৮২ সালে মেয়াদোত্তীর্ণ হয়েছিল)। [৬][৭] তিনি একটি রামকর্ফ কয়েল চালিত স্ফূলিঙ্গ ফাঁক এবং এক জোড়া এক মিটার লম্বা তারকে প্রস্তুতকারী হিসেবে ব্যবহার করেছিলেন। বর্তনীর অণুরণন সমন্বয়ের জন্য ধারক গোলক ব্যবহার করা হয়েছিল।তার গ্রাহকযন্ত্রটি ছিল একটি সরল অর্ধ-তরঙ্গ ডায়াপোল এন্টেনা যা ভূমির সাথে তড়িৎসংযোগ ছাড়াই কাজ করত, এটিই ছিল বর্তমান ডাইপোল এন্টেনার পূর্বরূপ।এই যন্ত্রটি অতি উচ্চ কম্পাংক সীমায় বেতার তরঙ্গ সৃষ্টি ও ধারণ করতে সমর্থ হয়েছিল।

হার্টজ 1886 থেকে 1889 সালের মধ্যে কিছু পরীক্ষণ সম্পাদন করেছিলেন। পরীক্ষণগুলো প্রমাণ করেছিল, তিনি যা পর্যবেক্ষণ করেছিলেন তা ছিল মূলত ম্যাক্সওয়েল এর পূর্ব অনুমিত তড়িতচৌম্বক তরঙ্গের ফলাফল। ১৮৮৭ সালের নভেম্বরে শুরু করে তিনি তার রিসার্চ পেপার "On Electro Magnetic Effect Produced by Electrical Disturbances in Insulators" সহ পর্যায়ক্রমে আরো পেপার বার্লিনের একাডেমির হেল্মহোল্টজকে পাঠিয়েছিলেন। ১৮৮৮ এর পেপারগুলো দেখিয়েছিল যে মুক্ত স্থানে অনুপ্রস্থ তড়িৎচুম্বক তরঙ্গ একটি নিদিষ্ট দূরত্ব সসীম বেগে যায়।[৮][৭] হার্টজ যে যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে ছিলেন সেখানে তারগুলো থেকে তড়িৎ ও চুম্বক ক্ষেত্র অনুপ্রস্থ তরঙ্গ আকারে বের হয়।তিনি জিংক প্রতিফলক প্লেট থেকে ১২ মিটার দূরে দোলক স্থাপন করেছিলেন,যাতে তিনি স্থির তরঙ্গ পান।তরঙ্গগুলো ছিল দৈর্ঘে ৪মিটার।তিনি ম্যাক্সওয়েলের তরঙ্গ পরিমাপ করেছিলেন এবং দেখালেন তরঙ্গগুলোর বেগ আলোর বেগের সমান।তিনি ঐ তরঙ্গগুলোর তড়িৎক্ষেত্রের তীব্রতা,পোলারিটি এবং প্রতিফলন পরিমাপ করেছিলেন।এই পরীক্ষণগুলো এটি প্রতিষ্ঠিত করে ছিল, আলো এবং এই তরঙ্গগুলো ছিল তড়িৎচুম্বক তরঙ্গ যা ম্যাক্সওয়েলের সমীকরণগুলো মেনে চলে।তিনি "hertzian cone" নামের একটি তরঙ্গমুখের কথা বলেছিলেন যেটি বিভিন্ন মাধ্যমে সঞ্চালিত হয়।

নাৎসি বাহিনীর অত্যাচার[সম্পাদনা]

হেনরিক হার্টজ সারা জীবন এক জন লুথেরিয়ান ছিলেন এবং সে কখনই নিজেকে ইহুদি ধর্মালম্বীদের এক জন বলে মনে করেননি৷ কারণ ১৮৩৪ সালে তাঁর বাবার পরিবারের সবাই তাদের ধর্ম পরিবর্তন করে লুথেরানিজম ধর্ম গ্রহণ করেছিলেন [৯] যখন তাঁর বাবার বয়স সাত বছর ছিল৷ [১০]

তা সত্ত্বেও হার্টজের মৃত্যুর অনেকদিন পর যখন নাৎসি শাসনতন্ত্র ক্ষমতায় আসে তখন তারা তার ছবি হ্যামবার্গ সিটি হলের (রাথাউস) বিখ্যাত সম্মানজনক স্থান থেকে সরিয়ে নেন৷ এর মূল কারণ ছিল তাঁর আংশিক ইহুদী বংশানুক্রম৷ ( এর পর তার ছবি জনসাধারণের প্রদর্শনের জন্য রেখে দেওয়া হয়[১১]) ১৯৩০ সালে হার্টজের বিধবা স্ত্রী এবং তাঁর কন্যারা জার্মানি ছেড়ে ইংল্যান্ড চলে যান।

পদক ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  1. IEC History. Iec.ch.
  2. Mulligan, J. F. and Hertz, H. G.। "An unpublished lecture by Heinrich Hertz: “On the energy balance of the Earth’’"। American Journal of Physics 65: 36–45। ডিওআই:10.1119/1.18565 
  3. Heinrich Hertz. nndb.com. Retrieved on 22 August 2014.
  4. ৪.০ ৪.১ Baird, Davis, Hughes, R.I.G. and Nordmann, Alfred eds. (1998). Heinrich Hertz: Classical Physicist, Modern Philosopher. New York: Springer-Verlag. ISBN 0-7923-4653-X. p. 49
  5. Heilbron, John L. (2005) The Oxford Guide to the History of Physics and Astronomy. Oxford University Press. ISBN 0195171985. p. 148
  6. Baird, Davis, Hughes, R.I.G. and Nordmann, Alfred eds. (1998). Heinrich Hertz: Classical Physicist, Modern Philosopher. New York: Springer-Verlag. ISBN 0-7923-4653-X. p. 53
  7. ৭.০ ৭.১ Huurdeman, Anton A. (2003) The Worldwide History of Telecommunications. Wiley. ISBN 0471205052. p. 202
  8. Fraunhofer Heinrich Hertz Institute, The most important Experiments The most important Experiments and their Publication between 1886 and 1889
  9. Koertge, Noretta. (2007). Dictionary of Scientific Biography. New York: Thomson-Gale. ISBN 0-684-31320-0. Vol. 6, p. 340.
  10. Wolff, Stefan L. (2008-01-04) Juden wider Willen – Wie es den Nachkommen des Physikers Heinrich Hertz im NS-Wissenschaftsbetrieb erging. Jüdische Allgemeine.
  11. Robertson, Struan II. Buildings Integral to the Former Life and/or Persecution of Jews in Hamburg – Eimsbüttel/Rotherbaum I. uni-hamburg.de