সিনাই উপদ্বীপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সিনাই উপদ্বীপের মানচিত্র যাতে আন্তর্জাতিক সীমানাও দেখানো আছে।

সিনাই উপদ্বীপ বা সিনাই (আরবি: سيناءSīnā) মিশরে অবস্থিত ত্রিভুজ আকৃতির একটি উপদ্বীপ, যার আয়তন প্রায় ৬০,০০০ বর্গকিলোমিটার (২৩,০০০ বর্গমাইল)। এর উত্তরে ভূমধ্যসাগর ও দক্ষিণে লোহিত সাগর। এটি মিশরের একমাত্র এলাকা যা আফ্রিকায় নয়, এশিয়ায় অবস্থিত এবং কার্যতঃ এই দুটি মহাদেশের মধ্যে একটি ভূমি সেতুর মত কাজ করে। উপদ্বীপের বেশিরভাগ অঞ্চল প্রশাসনিক ভাবে মিশরের ২৭ টি গভর্নর শাসিত এলাকার ২ টির মধ্যে অন্তর্গত (সুয়েজ খালের দুপাশের অঞ্চল আরও তিনটি প্রশাসনিক এলাকার অন্তর্ভুক্ত)। সিনাই উপদ্বীপের জনসংখ্যা প্রায় ৫০০,০০০। দাপ্তরিক নাম ছাড়াও এই এলাকাকে মিসরীয়রা আদর করে ডাকে "ফেরুজের ভূমি" বা "Land of Fayrouz"।

ঐতিহাসিকভাবে এই অঞ্চল বিভিন্ন রাজ্যের মধ্যে সংঘাতের কেন্দ্রবিন্দু ছিল, যার মূলে ছিল এর কৌশলগত ভূ-রাজনৈতিক অবস্থান। বিভিন্ন মিসরীয় সরকারের সরাসরি শাসনাধীন ছাড়াও (যার মধ্যে আছে আব্বাসীয়, মামলুক, মোহাম্মদ আলী সাম্রাজ্য এবং বর্তমান আধুনিক মিসরীয় প্রজাতন্ত্র), এটি মিসরের অবশিষ্ট এলাকার মত উসমানিয়া সাম্রাজ্য এবং যুক্তরাজ্য কর্তৃক অধিকৃত এবং নিয়ন্ত্রীত হয়েছিল। ইসরাইল ১৯৫৬ সালের সুয়েজ সংকটের সময় এবং আবারও ১৯৬৭ সালে, ছয় দিনের যুদ্ধের সময় এ এলাকায় আগ্রাসন চালায় এবং দখল করে নেয়। এই উপদ্বীপকে মুক্ত করার জন্য ১৯৭৩ সালের ৬ অক্টোবর মিসর অক্টোবর যুদ্ধ শুরু করে এবং তখন এ অঞ্চলে মিসরীয় ও ইসরাইলী বাহিনীর মধ্যে মারাত্মক যুদ্ধ হয়। ১৯৭৯ সালের ইসরাইল-মিসর শান্তি চুক্তির পর, ১৯৮২ সালে ইসরাইল সিনাই উপদ্বীপ থেকে তার বাহিনী সম্পূর্ণরূপে প্রত্যাহার করে নেয়। বর্তমান সময়ে সিনাই উপদ্বীপ এর প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, সমৃদ্ধ প্রবাল প্রাচীর এবং বাইবেলের ইতিহাসের কারণে একটি আকর্ষনীয় পর্যটনকেন্দ্রে পরিনত হয়েছে। এই উপদ্বীপের সিনাই পর্বত ইব্রাহিমিয় ধর্মমত গুলোর জন্য একটি অন্যতম ধর্মীয় গুরুত্বপূর্ণ স্থান।

নামের উৎপত্তি[সম্পাদনা]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

গ্যালারি[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

উইকিভ্রমণে Sinai সম্পর্কিত ভ্রমণ নির্দেশিকা রয়েছে।

স্থানাঙ্ক: ২৯°৩০′ উত্তর ৩৩°৫০′ পূর্ব / ২৯.৫০০° উত্তর ৩৩.৮৩৩° পূর্ব / 29.500; 33.833