লন্ডন স্কুল অফ ইকোনমিক্স

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
লন্ডন স্কুল অফ ইকোনমিক্স এন্ড পলিটিক্যাল সায়েন্
London school of economics logo with name.svg
নীতিবাক্য লাতিন: Rerum cognoscere causas
ইংরেজিতে নীতিবাক্য "To Understand the Causes of Things"
স্থাপিত ১৮৯৫
ধরন সরকারী বিশ্ববিদ্যালয়
বৃত্তিদান ৭২.৬ মিলিয়ন ব্রিটিশ পাউন্ড।[১]
আচার্য HRH The Princess Royal (লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়)
পরিচালক অধ্যাপক জুডিথ রীস CBE
Visitor The Rt Hon Nick Clegg
As Lord President of the Council ex officio
অ্যাকাডেমিক স্টাফ ১,৩০৩
ছাত্র ৮,৮১০[২]
অস্নাতক ৩,৮৬০[২]
স্নাতকোত্তর ৪,৯৫০[২]
অবস্থান লন্ডন, যুক্তরাজ্য
স্থানাঙ্ক: ৫১°৩০′৫০.৪০″ উত্তর ০°০৭′০.১২″ পশ্চিম / ৫১.৫১৪০০০০° উত্তর ০.১১৬৭০০০° পশ্চিম / 51.5140000; -0.1167000
ক্যাম্পাস নগর-কেন্দ্র
সংবাদপত্র দ্য বীভার
Colours বেগুনী, কালো এবং স্বর্ণালী[৩]
ম্যাসকট বীভার
অন্তর্ভুক্তি ACU
APSIA
CEMS
EUA
G5
রাসেল গ্রুপ
লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়
Universities UK

লন্ডন স্কুল অফ ইকোনমিক্স এন্ড পলিটিক্যাল সায়েন্স, যা সংক্ষেপে লন্ডন স্কুল অফ ইকোনমিক্স বা এল এস ই (ইং:LSE) নামে সমধিক পরিচিত একটি উচ্চ মানের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। লন্ডন শহরের কেন্দ্রে অবস্থিত এই প্রতিষ্ঠানটি ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন-এর সঙ্গে সম্পৃক্ত। অর্থনীতিরাষ্ট্রবিজ্ঞান শিক্ষা ও গবেষণার জন্য জন্য পৃথিবীতে উঁচু মানের যে কয়েকটি প্রতিষ্ঠান আছে লন্ডন স্কুল অফ ইকোনমিক্স তার মধ্যে অন্যতম। তবে এ দুটি বিষয় ছাড়াও বর্তমানে সমাজবিজ্ঞানের নানা বিষয় এবং আরো অনেক বিষয় এই প্রতিষ্ঠানে পড়ানো হয়ে থাকে। ১৮৯৫ খ্রিস্টাব্দে ফ্যাবিয়ান সোসাইটির কয়েকজন সদস্যের উদ্যোগে এল এস ই প্রতিষ্ঠিতি ছিল। ১৯০০ খ্রিস্টাব্দে এটি ইউনিভার্সিটি অব লন্ডন-এর অঙ্গপ্রতিষ্ঠান হিসাবে স্বীকৃতি লাভ করে এবং সর্বপ্রথম ১৯০২ খ্রিস্টাব্দে এ প্রতিষ্ঠান থেকে ডিগ্রী প্রদান করা হয়েছিল। [৪] এর গ্রন্থাগারটি ব্রিটিশ লাইব্রেরী অব পলিটিক্যাল এন্ড ইকোনমিক সায়েন্স, সংক্ষেপে বিএলপিইস (BLPES) নামে আখ্যায়িত। বর্তমানে শিক্ষক সংখ্যা ১,৩০৩ এবং ছাত্র-ছাত্রী সংখ্যা ৮,৮১০।

সাধারণ্যের বক্তৃতা[সম্পাদনা]

এলএসই সর্বসাধারণের বক্তৃতাপর্ব আয়োজনের জন্য বিখ্যাত। এ বক্তৃতামালা এলএসই ইভেন্টস্ কার্যালয় কর্তৃক পরিচালিত হয়। প্রধানতঃ ছাত্র, সাবেক শিক্ষার্থী এবং সাধারণ গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ এতে অংশগ্রহণ করে থাকেন। পাশাপাশি শীর্ষস্থানীয় শিক্ষার্থী ও ভাষ্যকার, বক্তাসহ বিখ্যাত জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ব্যক্তিত্ব হিসেবে রাষ্ট্রদূত, প্রধান নির্বাহী, সংসদ সদস্যরাষ্ট্রপ্রধানগণ নিয়মিতভাবে অংশ নেন।

সাম্প্রতিককালে এ বক্তৃতামালায় বিখ্যাত ব্যক্তিত্ব হিসেবে - কফি আনান, হিলারী বেন, বেন বার্নানকে, টনি ব্লেয়ার, হ্যাজেল ব্লিয়ার্স, চেরী বুথ, গর্ডন ব্রাউন, ডেভিড কেমেরুন, নোয়াম চমস্কি, বিল ক্লিনটন, আলিস্টের ডার্লিং, নিয়াল ফার্গুসন, জোসকা ফিশার, ভিসেন্ট ফক্স, মিল্টন ফ্রিডম্যান, মুয়াম্মার আল-গাদ্দাফী, জন লুইস গাদ্দিস, এলান গ্রীনপ্যান, উইল হাটন, রিচার্ড ল্যাম্বার্ট, জেন লেহম্যান, লী সিয়েন লুং, জন মেজর, নেলসন মান্ডেলা, ম্যারি ম্যাকালিজ, দিমিত্রি মেদভেদেভ, জন এটা মিলস্, জর্জ অসবর্ন, রবার্ট পেস্টন, সেবাস্তিয়ান পিনেরা, কেভিন রুড, জেফ্রে সাচ, গার্হার্ড স্রোয়েডার, কার্লোস মেসা, লুইজ ইনাসিও লুলা ডা সিলভা, কস্তাস সিমিটিটস, জর্জ সোরোস, লর্ড স্টার্ন, জ্যাক স্ট্র, মার্গারেট থ্যাচার, আর্চবিশপ ডেসমন্ড টুটু এবং রোয়ান উইলিয়ামস প্রমূখ অংশগ্রহণ করেছেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Financial Statements for the Year to 31 July 2010" (PDF)। London School of Economics। পৃ: 21। সংগৃহীত 2010-12-08 
  2. ২.০ ২.১ ২.২ "Table 0a – All students by institution, mode of study, level of study, gender and domicile 2005/06"Higher Education Statistics Agency online statisticsআসল থেকে 15 May 2007-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত 31 March 2007 
  3. [১]:
  4. এলএসই ইতিহাস

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]