বিন্দুসার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বিন্দুসার
মৌর্য সম্রাট
রাজত্বকাল ২৯৮ - আ.২৭২ খ্রীষ্টপূর্ব
পূর্বসূরি চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য্য
উত্তরসূরি মহামতি অশোক
রয়েল হাউস মৌর্য্য বংশ
পিতা চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য্য
মাতা দুর্ধরা

বিন্দুসার, চন্দ্রগুপ্তের পর (জন্ম ৩২০ খ্রীষ্টপূর্ব, শাসনকাল ২৯৮-২৭২ খ্রীষ্টপূর্ব) সম্রাট হন।

বিন্দুসার চন্দ্রগুপ্ত ও দুর্ধরার সন্তান ছিলেন। শোনা যায়, দুর্ধরা যখন নয়মাসের অন্তঃসত্ত্বা, তখন বিষযুক্ত খাবার খেয়ে সন্তানসহ তাঁর প্রাণসংশয় হয়। তখন চন্দ্রগুপ্তের প্রধানমন্ত্রী চাণক্য দুর্ধরার পেট কেটে বিন্দুসারের জন্ম দেন। পিতৃসূত্রে তিনি এক বিশাল সাম্রাজ্যের অধিকারী হন। তাকে বিন্দুসার দক্ষিণ দিকে আরো প্রসারিত করেন ও বর্তমান কর্ণাটক রাজ্যের বিভিন্ন অঞ্চল মৌর্য সাম্রাজ্যভুক্ত করেন। চোল, পান্ড্য ও চের রাজারা তাঁর সঙ্গে মিত্রতার সূত্রে আবদ্ধ হন। প্রকৃতপক্ষে তাঁরা বাধ্য হন। তাই বিন্দুসার সে'সব অঞ্চল আক্রমণ করেননি। এছাড়া ভারতীয় উপমহাদেশে কেবল মাত্র কলিঙ্গ তাঁর সাম্রাজ্যের অন্তর্গত ছিল না।

বিন্দুসারের সময় তক্ষশীলা লোকেরা দু'বার বিদ্রোহ ঘোষণা করে। প্রথমবার বিদ্রোহের কারণ ছিল তত্কালীন আঞ্চলিক শাসক ও বিন্দুসারের জ্যেষ্ঠ পুত্র সুসীমের অপদার্থতা। দ্বিতীয়বার বিদ্রোহের কারণ জানা যায় না, তবে তা দমন করার আগেই বিন্দুসারের অসময়ে মৃত্যু হয়।

ইতিহাসে তাঁর পিতা চন্দ্রগুপ্ত বা পুত্র অশোকের মত বিন্দুসারের সপম্পর্কে অধিক তথ্য পাওয়া যায় না। বিন্দুসারকে বলা হয় 'পিতার পুত্র ও পুত্রের পিতা'। তাঁর সময়ে মিশর ও সেলুকাসীয় সাম্রাজ্য থেকে ভারতবর্ষে দূত এসেছিল। গ্রিকদের সঙ্গে তাঁর ভাল সম্পর্ক ছিল। তিনি আজীবক ধর্মাবলম্বী ছিলেন।