প্রবেশদ্বার:যুদ্ধ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

উইকিপিডিয়া যুদ্ধ প্রবেশদ্বার


সম্পাদনা 

ভূমিকা

Austerlitz-baron-Pascal.jpg
ফ্রাসোয়া জেরার্ড দ্বারা অঙ্কিত অস্ট্রালিটজ যুদ্ধ

যুদ্ধ বা সমর বলতে রাষ্ট্রীয় ও অরাষ্ট্রীয় পক্ষগুলোর মধ্যে সুসংগঠিত এবং কখনও কখনও দীর্ঘস্থায়ী সশস্ত্র সংঘর্ষকে বোঝায়। চারিত্রিক দিক দিয়ে এটি প্রচণ্ড সহিংস এবং সামাজিক ও অর্থনৈতিক বিপর্যয়ের অন্যতম কারণ। যুদ্ধকে সবসময় রাজনৈতিক পক্ষগুলোর মধ্যে একটি বাস্তব, প্রায়োগিক ও বিস্তৃত সশস্ত্র সংঘর্ষ হিসেবে দেখা হয়। সেকারণে এটি অনেকসময় রাজনৈতিক সহিংসতা ও হস্তক্ষেপ হিসেবে গণ্য। এ সশস্ত্র সংঘর্ষে প্রত্যেক পক্ষের চরম ও পরম লক্ষ্য থাকে প্রতিদ্বন্দ্বী পক্ষকে পদানত করে সম্পূর্ণ নির্মূল বা স্বীয় শর্তাধীনে শান্তি স্থাপন করতে বাধ্য করা। তাই কোন পক্ষ একতরফাভাবে সশস্ত্র আক্রমনাত্মক কার্যকলাপ চালিয়ে গেলে এবং তার প্রত্যুত্তরে অপর পক্ষ কোন পদক্ষেপ না নিলে তাকে যুদ্ধ বলা যায় না। কোন একটি পক্ষ যুদ্ধে যে পরিকল্পনা ও কৌশল অবলম্বন করে, তাকে সমরকৌশল বলে। যুদ্ধহীন সময়কে অধিকাংশ ক্ষেত্রে শান্তির সাথে তুলনা করা হয়। নোবেল বিজয়ী রবার্ট ই. স্ম্যালি ২০০৩ সালে আগামী পঞ্চাশ বছরে মানবজাতি যে দশটি হুমকির সম্মুখীন হবে তার মধ্যে যুদ্ধের অবস্থান ষষ্ঠ।


নতুন ভুক্তি প্রদর্শন করুন...
সম্পাদনা 

বিশেষ নিবন্ধ

বোমা বর্ষণের পর বিধ্বস্থ রাজপ্রাসাদ

অ্যাংলো-জাঞ্জিবার যুদ্ধ সংগঠিত হয়েছিল যুক্তরাজ্যজাঞ্জিবার সুলতানাতে মধ্যে ২৭ আগস্ট, ১৮৯৬ সালে। যুদ্ধটি মাত্র ৩৮ মিনিট (কেউ কেউ ৪০ মিনিট অথবা ৪৫ মিনিটও বলে থাকেন) স্থায়ী হয়েছিল এবং এই যুদ্ধকে ইতিহাসের সবচেয়ে কম সময়ের যুদ্ধ বলে আক্ষায়িত করা হয়। জাঞ্জিবার সুলতানাতের সুলতান হামিদ বিন তোয়াইনি ২৫ আগস্ট, ১৮৯৬ সালে মৃত্যুবরণ করলে সিংহাসনে বসেন খালিদ বিন বারঘাস। কিন্তু ব্রিটিশরা সুলতান হিসেবে হামাদ বিন-মুহাম্মদকে বসাতে চেয়েছিল। ১৮৮৬ সালের এক চুক্তির আওতায় হিংহাসনে বসতে হলে ব্রিটিশ কাউন্সিলের অনুমতি নিতে হত কিন্তু বারঘাস ব্রিটিশদের এই চুক্তি অমান্য করায় ব্রিটিশরা তাকে ও তার সৈনিকদের রাজপ্রাসাদ ত্যাগ করার সময় বেঁধে দিয়েছিল। কিন্তু খালিদ ব্রিটিশদের কথা না শুনে প্রাসাদের চারপাশে সৈন্য সংখ্যা বৃদ্ধি করে তিনি প্রাসাদেই অবস্থান করেন। এখান থেকেই যুদ্ধের সূত্রপাত হয়।

সম্পাদনা 

বিশেষ জীবনী

CheHigh.jpg

এর্নেস্তো "'চে" গেভারা (স্পেনীয়: tʃe geˈβaɾa চে গেবারা) (১৪ জুন, ১৯২৮৯ অক্টোবর, ১৯৬৭) ছিলেন একজন আর্জেন্টিনীয় মার্ক্সবাদী, বিপ্লবী, চিকিত্সক, লেখক, বুদ্ধিজীবী, গেরিলা নেতা, কূটনীতিবিদ, সামরিক তত্ত্ববিদ এবং কিউবার বিপ্লবের প্রধান ব্যক্তিত্ব। তাঁর প্রকৃত নাম ছিল এর্নেস্তো গেভারা দে লা সের্না (স্পেনীয়: Ernesto Guevara de la Serna)। তবে তিনি সারা বিশ্ব লা চে বা কেবলমাত্র চে নামেই পরিচিত। মৃত্যুর পর তাঁর শৈল্পিক মুখচিত্রটি একটি সর্বজনীন প্রতিসাংস্কৃতিক প্রতীক এবং এক জনপ্রিয় সংস্কৃতির বিশ্বপ্রতীকে পরিণত হয়। বাতিস্তা সরকারকে উত্খাত করার লক্ষ্যে দুই বছর ধরে চলা গেরিলা সংগ্রামের সাফল্যের ক্ষেত্রে একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।

সম্পাদনা 

আপনি জানেন কি...

আপনি জানেন কি?
সম্পাদনা 

নির্বাচিত চিত্র

Diagrams of first and third rate warships, England, 1728 Cyclopaedia.

একটি যুদ্ধজাহাজ হল একধরনের জাহাজ যা শুধুমাত্র যুদ্ধের উদ্দেশ্যেই তৈরি করা হয়। ১৭২৮ সালের সাইক্লোপিডিয়ায় ইংরেজ যুদ্ধজাহাজের নকশা।

চিত্রালংকরন: ১৭২৮ সাইক্লোপিডিয়া

সম্পাদনা 

নির্বাচিত বার্ষিকী

সম্পাদনা 

প্রধান বিষয়বস্তু এবং বিষয়শ্রেণী

বিষয়শ্রেণী

অন্যান্য সম্পর্কিত বিষয়বস্তু

রাজনীতি • বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ • বাংলাদেশ সামরিক বাহিনী

সম্পাদনা 

সম্পর্কিত উইকিমিডিয়া

উইকিসংবাদে যুদ্ধ   উইকিউক্তিতে যুদ্ধ   উইকিবইয়ে যুদ্ধ   উইকিসংকলনে যুদ্ধ   উইকিঅভিধানে যুদ্ধ   উইকিবিশ্ববিদ্যালয়ে যুদ্ধ   উইকিমিডিয়া কমন্সে যুদ্ধ উইকিউপাত্তে যুদ্ধ উইকিভ্রমণে যুদ্ধ
উন্মুক্ত সংবাদ উৎস উক্তি-উদ্ধৃতির সংকলন উন্মুক্ত পাঠ্যপুস্তক ও ম্যানুয়াল উন্মুক্ত পাঠাগার অভিধান ও সমার্থশব্দকোষ উন্মুক্ত শিক্ষা মাধ্যম মুক্ত মিডিয়া ভাণ্ডার উন্মুক্ত জ্ঞানভান্ডার উন্মুক্ত ভ্রমণ নির্দেশিকা
Wikinews-logo.svg
Wikiquote-logo.svg
Wikibooks-logo.png
Wikisource-logo.svg
Wiktionary-logo.svg
Wikiversity-logo.svg
Commons-logo.svg
Wikidata-logo.svg
Wikivoyage-Logo-v3-icon.svg
সম্পাদনা 

আপনি কি করতে পারেন

আপনি যুদ্ধ নিয়ে লিখতে আগ্রহী হলে লাল লিংক যুক্ত (অনুবাদের সুবিধার্থে প্রত্যেকটির সাথে সংশ্লিষ্ঠ ইংরেজি নিবন্ধের লিংক দেওয়া হয়েছে) যে কোন একটি নিবন্ধ শুরু করে দিতে পারেন অথবা অসম্পূর্ণ তালিকা থেকে যে কোন নিবন্ধের মান উন্নয়নে সহয়তা করতে পারেন।

যুদ্ধ-বিগ্রহের ইতিহাস

বিবরণ (Military history) • প্রাগৈতিহাসিক (Prehistoric warfare) • প্রাচীন (Ancient warfare) • মধ্যযুগীয় (Medieval warfare) • গোলাবারুদ (Early modern warfare) • শিল্পকৌশল (Industrial warfare) • আধুনিক (Modern warfare)

বিভিন্ন ধরণের যুদ্ধ বিগ্রহ

আন্তরীক্ষ (Aerial warfare) • উভচর (Amphibious warfare) • আর্কটিক (Arctic warfare) • সাঁজোয়া (Armoured warfare) • গোলন্দাজ (Artillery) • অসম (Asymmetric warfare) • বিধ্বংস (Attrition warfare) • জৈব (Biological warfare) • অশ্বারোহী বাহিনী (Cavalry) • রাসায়নিক (Chemical warfare) • প্রচলিত (Conventional warfare) • মরুভূমি (Desert warfare) • ইলেকট্রনিক (Electronic warfare) • স্থলপথ (Ground warfare) • গেরিলা (Guerrilla warfare) • দুর্গনির্মাণ (Fortification) • হেরবিসাইডাল (Herbicidal warfare) • পদাতিক সৈন্যবাহিনী (Infantry) • তথ্য (Information warfare) • জঙ্গল (Jungle warfare) • রণকৌশলগত (Maneuver warfare) • ভাড়াটে সৈনিক (Mercenary) • পর্বত (Mountain warfare) • নৌবাহিনী (Naval warfare) • নেটওয়ার্ক-কেন্দ্রিক (Network-centric warfare) • পারমাণবিক (Nuclear warfare) • স্নায়ু (Psychological warfare) • অবরোধ (Siege) • স্কি (Ski warfare) • মহাকাশ (Space warfare) • উপ-জলজ (Sub-aquatic warfare) • সাবমেরিন (Submarine warfare) • সারফেস (Surface warfare) • সর্বপোরি (Total war) • পরিখা (Trench warfare) • রীতিবিরুদ্ধ (Unconventional warfare) • শহুরে (Urban warfare)

অসম্পূর্ণ

সামরিক বাহিনী • বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ • ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলন • প্রথম বিশ্বযুদ্ধ • দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ • স্নায়ুযুদ্ধ