টেক্সাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
স্টেট অব টেক্সাস
Flag of টেক্সাস State seal of টেক্সাস
পতাকা সীলমোহর
ডাকনাম: The Lone Star State(দ্যা লোন স্টার স্টেট)
নীতিবাক্য: বন্ধুতা
Map of the United States with টেক্সাস highlighted
অফিসিয়াল ভাষা No official language
(see Languages spoken in Texas)
কথ্য ভাষা English 68.7%
Spanish 27.0%[১]
Demonym Texan
Texian (archaic)
রাজধানী অস্টিন
বৃহত্তম শহর হিউস্টন
বৃহত্তম মেট্রো এলাকা ডালাস-ফোর্ট ওয়ার্থ-আর্লিংটন[২]
আয়তন  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে 2nd স্থান
 - মোট 268,581[৩] বর্গ মাইল
(696,241 বর্গকিমি)
 - প্রস্থ 773[৪] মাইল (১,২৪৪ কিমি)
 - দৈর্ঘ্য ৭৯০ মাইল (১,২৭০ কিমি)
 - % জল 2.5
 - অক্ষাংশ 25° 50′ N to 36° 30′ N
 - দ্রাঘিমাংশ 93° 31′ W to 106° 39′ W
জনসংখ্যা  মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে 2nd স্থান
 - মোট 25,145,561 (2010 Census)[৫]
 - ঘনত্ব 96.3[৬]/sq mi  (37.2/km2)
স্থান 26th in the U.S.
উচ্চতা  
 - সর্বোচ্চ বিন্দু Guadalupe Peak[৭]
8,751 ফুট (2,667 মিটার)
 - গড় 1,700 ফুট  (520 মিটার)
 - সর্বনিম্ন বিন্দু গালফ অফ মেক্সিকো coast[৭]
sea level
Admission to Union  ২৯ ডিসেম্বর, ১৮৪৫ (২৮ তম)
গভর্ণর রিক পেরি (R)
Lieutenant Governor David Dewhurst (R)
বিধানমণ্ডল Texas Legislature
 - উচ্চসভা Senate
 - নিম্নসভা House of Representatives
মার্কিন সেনেট Kay Bailey Hutchison (R)
John Cornyn (R)
মার্কিন হাউস প্রতিনিধিবর্গ ২৩ রিপাবলিকান, ৯ ডেমোক্রেট (তালিকা)
সময় অঞ্চল  
 - most of state Central: UTC−6/−5
 - tip of West Texas Mountain: UTC−7/−6
সংক্ষেপ TX Tex. US-TX
ওয়েবসাইট www.texas.gov

টেক্সাস মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একটি অঙ্গরাজ্য। ১৮৪৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রের ২৮তম অঙ্গরাজ্য হিসেবে টেক্সাস অন্তর্ভুক্ত হয়। আয়তন এবং জনসংখ্যা উভয় দিক থেকেই টেক্সাস যুক্তরাষ্ট্রের দ্বিতীয় বৃহত্তম অঙ্গরাজ্য । যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যবর্তী অংশের সবচেয়ে দক্ষিণের রাজ্য টেক্সাসের দক্ষিণে রয়েছে মেক্সিকোর সাথে সুদীর্ঘ আন্তর্জাতিক সীমারেখা। সীমান্তবর্তী অন্যান্য অঙ্গরাজ্যের মাঝে রয়েছে পশ্চিমে নিউ মেক্সিকো, উত্তরে ওকলোহামা , উত্তর-পূর্বে আরকানসাস এবং পূর্বে লুইজিয়ানা।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

টেক্সাসের সূচনালগ্ন স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে যার নাম প্রজাতন্ত্রী টেক্সাস

১৮৩৫ সালের আগে টেক্সাস মেক্সিকোর অধীনে ছিল। মেক্সিকোতে সেসময় ফেডারালিস্ট এবং সেন্ট্রালিস্টদের মাঝে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছিল। এই উত্তেজনার রেশ ধরে ১৮৩৫ সালের শেষদিকে টেক্সানরা ব্যাটল অফ গনজালেসে মেক্সিকোর সাথে সশস্ত্র সংঘাতে জড়িয়ে পড়ে। পরবর্তী দু'মাসের মধ্যেই মেক্সিকো টেক্সাসের সবগুলো যুদ্ধে পরাজয় বরণ করে। টেক্সাস সে সময় প্রতিনিধি নির্বাচন করে, যারা অন্তর্বর্তী সরকার গঠন করে। তবে আভ্যন্তরীণ সংঘাতে এই সরকার শীঘ্রই ক্ষমতা হারায়। ফলে ১৯৩৬ সালের প্রথম দু'মাস টেক্সাস বস্তুত সরকারবিহীন অবস্থায় থাকে।

রিপাবলিক অফ টেক্সাস (১৮৩৬-১৮৪৫)

রাজনৈতিক এ গোলযোগের মাঝে মেক্সিকোর তদানীন্তন রাষ্ট্রপতি এন্টোনিও লোপেজ ডি সান্তা আনা টেক্সাস বিদ্রোহ দমন করতে নিজেই সেনাবাহিনী নিয়ে অগ্রসর হন।প্রাথমিকভাবে মেক্সিকোর অভিযান সফল হতে থাকে। জেনারেল হোসে ডি উরেয়া উপকূলজুড়ে টেক্সান প্রতিরোধ গুঁড়িয়ে দেন। মেক্সিকান সেনাবাহিনী কর্তৃক এসময় গোলিয়াদ গণহত্যার ঘটনা ঘটে।ব্যাটল অফ আলামোতে ১৩ দিন সান্তা আনার সৈন্যদল কর্তৃক অবরুদ্ধ থাকার পর টেক্সান প্রতিরোধ যোদ্ধারা পরাস্ত হয়। পরাজয়ের খবরে টেক্সাসের বসতি স্থাপনকারীদের মাঝে ব্যাপক উদ্বেগের সৃষ্টি হয়। নির্বাচিত টেক্সান প্রতিনিধিরা সম্মেলনের মাধ্যমে দ্রুত টেক্সাসের স্বাধীনতা ঘোষণা করতে উদ্যোগী হন। ১৮৩৬ সালের ২রা মার্চ টেক্সাস মেক্সিকো থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে স্বাধীন হওয়ার ঘোষণা দেয়। অন্যান্য অনেক বসতি স্থাপনকারীর মত নব গঠিত সরকারও অগ্রসরমান মেক্সিকান সেনাবাহিনীর হাত থেকে বাঁচতে পালিয়ে যায়। কয়েক সপ্তাহ পিছু হটার পর স্যাম হিউস্টনের নেতৃত্বে টেক্সান বাহিনী ব্যাটল অফ স্যান জানকিতো তে সান্তা আনার সেনাবাহিনীকে আক্রমণ এবং পরাজিত করতে সমর্থ হয়। মেক্সিকান রাষ্ট্রপতি সান্তা আনা গ্রেপ্তার হয়ে ভালেস্কোর চুক্তি সাক্ষরে বাধ্য হন। ফলে যুদ্ধের আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘটে।

ব্যাটল অফ স্যান জানকিতো তে মেক্সিকান জেনারেল আন্তোনিও লোপেজ ডি সান্তা আনার আত্মসমর্পন

টেক্সাস স্বাধীন হলেও দু'টি প্রতিপক্ষ টেক্সান দলের মাঝে চরম রাজনৈতিক মতবিরোধ দেখা দেয়। লামারের নতৃত্ব জাতীয়তাবাদী অংশটি টেক্সাসের স্বাধীনতা সুসংহত করে এর সীমানা প্রশান্ত মহাসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত করার উদ্যোগে ব্রতী হয়। আমেরিকার আদিবাসীদেরকেও তারা টেক্সাস থেকে বহিস্কারের সিদ্ধান্ত নেয়। অন্যদিকে স্যাম হিউস্টনের নেতৃত্ব প্রতিপক্ষ দলটি যুক্তরাষ্ট্রের সাথে টেক্সাসের একীভূত হয়ে যাওয়া এবং আদিবাসীদের সাথে শান্তিপূর্ণ সহাবস্থানের পক্ষে অবস্থান গ্রহন করে। এ ঘটনার সূত্র ধরে ১৮৪২ সালে স্যাম হিউস্টন টেক্সাসের রাজধানী অস্টিন থেকে হিউস্টনে স্থানান্তরের চেষ্টা করেন। ইতিহাসে এটিকে টেক্সাসের আর্কাইভ যুদ্ধ হিসেবে পরিচিত।

১৮৪২ সালে মেক্সিকো ছোট পরিসরে দু'বার টেক্সাস অভিযান চালায়। স্যান অ্যান্টোনিও শহরটি এসময় দু'দফায় মেক্সিকান বাহিনীর পদানত হয়। অভিযানে সাফল্য সত্ত্বেও মেক্সিকো টেক্সাস ভূ-খন্ডে তাদের সেনা উপস্থিতি দীর্ঘায়িত করেনি। ফলে টেক্সাস প্রজাতন্ত্র টিকে থাকে। একই সময় আত্মরক্ষায় টেক্সাস প্রজাতন্ত্রের দুর্বলতা প্রকাশিত হয়ে পড়ায় , মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে একীভূত হয়ে যাবার আন্দোলনটি গতিশীল হতে থাকে।

ভূ-প্রকৃতি[সম্পাদনা]

৬,৯৬,২০০ বগমাইলের আয়তন বিশিষ্ট টেক্সাস , আলাস্কার পরেই বৃহত্তম মার্কিন অঙ্গরাজ্য। ফ্রান্সের তুলনায় এ রাজ্যটি ১০ শতাংশ বড়। জার্মানী অথবা জাপানের তুলনায় আয়তনে প্রায় দ্বিগুণ। আলাদা দেশ হিসেবে বিবেচনা করলে টেক্সাস হত বিশ্বের ৪০ তম বৃহত্তম রাষ্ট্র।

রাজ্যের সীমানা তিনদিকে নির্ধারিত হয়েছে নদী দিয়ে।মেক্সিকোর সাথে পুরো বিভাজনরেখা বরাবর চলে গেছে রিও গ্রান্দে নদী। রেডরিভার নির্ধারণ করে টেক্সাসের সাথে ওকলাহোমা এবং আরকানসাসের সীমানা। পূর্বে সাবিনে নদী টেক্সাস এবং লুইজিয়ানাকে বিভাজন করেছে।

১০ টি ভিন্ন ভিন্ন জলবায়ু অঞ্চল, ১৪ টি ভিন্ন ধরণের ভূমি এবং ১১ টি ভিন্ন বাস্তুসংস্থানের কারণে টেক্সাসের জলবায়ু, ভূ-তত্ত্ব এবং জীব-বৈচিত্রের বিন্যাসটি বেশ জটিল।একটি ধারণা অনুযায়ী রাজ্যকে মূলত তিনটি অংশ ভাগ করে বর্ণনা করা যায়: উপসাগর তীরবর্তী সমতলভূমি, মধ্যভাগের নীচুভূমি, বিশাল সমভূমি-অববাহিকার বিন্যাস অঞ্চল।

জনপরিসংখ্যান[সম্পাদনা]

২০০৯ সালের হিসাব অনুযায়ী টেক্সাসের জনসংখ্যা ২৪,৭৮২,৪০৬ জন । ২০০০ সালের তুলনায় এ সংখ্যাটি প্রায় ১৬ শতাংশ বেশি । ২০০৪ সালের হিসাব অনুযায়ী রাজ্যের সাড়ে তিন মিলিয়ন বাসিন্দার জন্ম যুক্তরাষ্ট্রের বাইরে , যা রাজ্যের মোট জনসংখ্যার ১৫.৬ শতাংশ

টেক্সাসের জনসংখ্যার ঘনত্ব প্রতি বর্গমাইলে ৩৪.৮ জন যা সমগ্র যুক্তরাষ্ট্রের জনসংখ্যার ঘনত্ব ৩১ এর চাইতে খানিকটা বেশি ।

প্রধান শহর[সম্পাদনা]

যুক্তরাষ্ট্রের সবচেয়ে জনবহুল ১০ টি শহরের মাঝে ৩ টিরই অবস্থান টেক্সাসে. এ তিনটি শহর যথাক্রমে হিউস্টন,ডালাস এবং স্যান অ্যান্টোনিও। যুক্তরাষ্ট্রের বড় পঁচিশটি শহরের মাঝেও এছাড়াও রয়েছে টেক্সাসের অস্টিন , ফোর্ট ওয়ার্থ এবং এল প্যাসো শহর। অন্তত ১০ লাখ বা তদূর্ধ্ব জনসংখ্যার চারটি মেট্রোপ্লেক্স হল ডালাস-ফোর্ট ওয়ার্থ-আর্লিংটন , হিউস্টন-সুগারল্যান্ড-বে টাউন, স্যান অ্যান্টোনিও-নিউ ব্রন্সফেল, অস্টিন-রাউন্ড রক-স্যান মার্কোস । এর মাঝে ডালাস-ফোর্ট ওয়ার্থ-আর্লিংটন মেট্রোপ্লেক্সের বাসিন্দা প্রায় ৬৩ লাখ মানুষ। হিউস্টন মেট্রোপলিটন এলাকায় বাস করে ৫৭ লাখ জন। টেক্সাসের সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য তিনটি আন্তঃ-রাজ্য হাইওয়ে যথাক্রমে আই-৩৫ চলে গেছে ডালাস-ফোর্ট ওয়ার্থ থেকে দক্ষিণে অস্টিন হয়ে স্যান অ্যান্টোনিও । আই-৪৫ সংযুক্ত করে ডালাস আর হিউস্টনকে । আর আই-১০ সংযুক্ত করেছে স্যান অ্যান্টোনিও এবং হিউস্টিনকে। এ তিনটি হাইওয়ের শীর্ষের তিনটি বড় শহর এবং মধ্যবর্তী ত্রিভুজাকৃতি এলাকাতেই মূলত টেক্সাসের সবচেয়ে জনবহুল অন্যান্য শহরের এবং কাউন্টির অবস্থান । রাজ্যের জনসংখ্যার তিন চতুর্থাংশ মূলত এই অঞ্চলটিতেই বাস করে। ডালাস এবং হিউস্টন বিশ্বের বেটা সিটিগুলির মাঝে ইতোমধ্যেই স্বীকৃত ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Texas — Languages। MLA। সংগৃহীত 2010-04-15 
  2. "Metropolitan and Micropolitan Statistical Area Estimates"। US Census। 2007-04-04। সংগৃহীত 2008-04-28 
  3. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; facts নামের ref গুলির জন্য কোন টেক্সট প্রদান করা হয়নি
  4. "Environment" (2008–2009 সংস্করণ)। Texas Almanac। 2008। সংগৃহীত 2008-04-29 
  5. "2010 Resident Population Data: Population Change"। US Census। সংগৃহীত 2010-Dec-21 
  6. "2010 Resident Population Data: Population Density"। US Census। সংগৃহীত 2010-Dec-21 
  7. ৭.০ ৭.১ "Elevations and Distances in the United States"। U.S Geological Survey। April 29, 2005। সংগৃহীত 2006-11-08 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]