টাইপ ৯৬ (ট্যাংক)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

টাইপ ৯৬ দ্বিতীয় প্রজন্মের প্রধান যুদ্ধ বর্মযানের(Main Battle Tank - এমবিটি) সর্বশেষ সংস্করণ। ১৯৯৭ সালে গণমুক্তিফৌজে (পিএলএ) সংযুক্ত এই ট্যাংকের নকশা মূলত টাইপ-৮৫-III থেকে প্রস্তুত করা হয়েছে। ২০০৫ সালের হিসাব মতে ২,৫০০ টাইপ ৯৬ গণমুক্তিফৌজে নিযুক্ত রয়েছে। এছাড়া এর একটি সংস্করণ পাকিস্তান সেনা বাহিনীতে নিয়োজিত আছে।

টাইপ ৯৬ অনেক সময় ভুলবশত টাইপ ৮৮সি নামে অভিহিত হয়। গণমুক্তিফৌজের জন্য আরও টাইপ ৯৬ বর্মযান উৎপাদন চলবে। রাশিয়ার মত দুই প্রধান যুদ্ধ বর্মযান(এমবিটি) নীতি অনুসরণ করে টাইপ ৯৬ সাধারণ এমবিটি হিসেবে থাকবে যখন উন্নত ও ব্যয়সাধ্য টাইপ ৯৯ বিশেষ বাহিনীতে ব্যবহূত হবে।

ইতিহাস, উন্নয়ন কর্মকান্ড ও পূর্বসংস্করণসমূহ[সম্পাদনা]

গণমুক্তিফৌজের প্রধান যুদ্ধ বর্মযান উন্নয়ন কর্মশালা তিন প্রজন্মে বিভক্ত করা য়েতে পারে। প্রথম প্রজন্মে সোভিয়েত টি-৫৪এ এবং এথেকে উৎপন্ন টাইপ-৫৯ এবং টাইপ-৬৯/৭৯ । দ্বিতীয় প্রজন্ম শুরু হয় টাইপ-৮০ থেকে। টাইপ-৮৮ ও টাইপ-৯৬ এর উৎপত্তি টাইপ-৮০ থেকে। তৃতীয় প্রজন্মে রয়েছে টাইপ-৯৮, যা থেকে নতুন প্রযুক্তি সংযোগের মাধ্যমে তৈরি হয় টাইপ-৯৯ সর্বাধুনিক প্রধান যুদ্ধ বর্মযান।

গণমুক্তিফৌজের অনুরোধে সোভিয়েত বর্মযানসমূহের সমমানের বর্মযান উদ্দেশ্যে ইনার-মঙ্গোলিয়া ফার্ষ্ট মেশিন গ্রুপ কোম্পানি লি:(যার পূর্বনাম ৬১৯ ফ্যাক্টরী) ৬০ দশকে সীমান্ত সংঘর্ষে দখলকৃত টি-৬২ ট্যাংকের প্রযুক্তি সংযুক্তির পর টাইপ-৬৯ বর্মযান তৈরি করে। তবে বর্মযানটি গণমুক্তিফৌজের প্রয়োজন পূরণে ব্যর্থ হয় যদিও এটি সফলভাবে রপ্তানী হয়(২,০০০ বেশি)। দেশী-বিদেশী সেনা বাহিনীর চাহিদা পূরণে এর বিভিন্ন জাতক(সংস্করণ)তৈরি হয়।

টাইপ-৯০ টাইপ-৮৫ থেকে টাইপ-৯০ প্রস্তুত হয়, তবে এটিও গণমুক্তিফৌজের পূরণে ব্যর্থ হয়। এটি যৌথভাবে বেইজিং ২০১ ইনস্টিটিউট(চায়না নর্থ ভেহিক্যাল রিসার্চ ইনস্টিটিউট) এবং ৬১৯ ফ্যাক্টরী প্রস্তুত করে। এটিই প্রথম চীন-দেশীয় বর্মযান যার বর্মে মডুলার ডিজাইন কনসেপ্ট ব্যবহার করা হয়েছে। এর ফলে ‘উন্নত কম্পজিট বর্ম’ তৈরির পর পুরানো বর্ম(Armor) পরিবর্তণ করা যাবে।

টাইপ-৯০-I এটি পরবর্তী প্রজন্মের প্রধান যুদ্ধ বর্মযান হিসেবে পাকিস্তানে রপ্তানী হয়। এর পাওয়ার প্লান্ট ছিল পার্কিনস স্রিওসবারি সিভি১২-১২০০ টিসিএ ডিজেল ইঞ্জিন, যা চ্যালেঞ্জার ২ প্রধান যুদ্ধ বর্মযানে ব্যবহৃত হয়। ট্রান্সমিশন ছিল ফরাসি এসইএসএম ইএসএম ৫০০ অটোমেটিক ট্রান্সমিশন, যা ল্যাকলার্ক(Leclerc) প্রধান যুদ্ধ বর্মযানে ব্যবহৃত হয়। তবে ১৯৯৮ সালে পাকিস্তানী পারমানবিক পরীক্ষার পর এই পরিকল্পনা বাদ দেয়া হয়।

টাইপ-৯০-II আমদানী নিষেধাজ্ঞা এড়াতে পাওয়ার প্লান্টটি দেশীয় ইঞ্জিন দ্বারা বদল করা হয়। এটি দক্ষিণ চীনের আদ্র আবহাওয়াতে কর্মক্ষম হলেও উত্তর চীন শুকনো ও পকিস্তানের মরু আবহাওয়াতে এটি উপযোগী নয়।

টাইপ-৯০-IIএম, এমবিটি ২০০০ অন্যান্য টাইপ-৯০ বর্মযানের পাওয়ার প্লান্টের সমস্যা ইউক্রেনীয় ৬টিডি ডিজেল ইঞ্জিনের মাধ্যমে সমাধানের পর মুগ্ধ পাকিস্তান সেনা বাহিনী এই বর্মযানটি এমবিটি ২০০০(আল-খালিদ) নামে ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেয়। ২০০৭ সাল নাগাত ৬০০টি এমবিটি ২০০০ বর্মযান উৎপাদিত হওয়ার কথা।

টাইপ-৯৬ ১৯৯৫ সালে নোরিনকো প্রস্তুত করে টাইপ-৮৫-III প্রোটোটাইপ, যাতে আছে ১,০০০ অশ্ব শক্তির ডিজেল ইঞ্জিন, এক্সপ্লোসিভ রিএ্যাকটিভ বর্ম(ERA)। আরও উন্নয়নের পর এটি ১৯৯৬ সালে গণমুক্তিফৌজে গ্রহণযোগ্য হয় এবং ১৯৯৭ সালে টাইপ-৯৬ নামে নিযুক্ত হয়। এরপর টাইপ-৮৮ এর উৎপাদন বন্ধন করে দেয়া হয়। টাইপ-৯৬ –এ টাইপ-৮৫ ও টাইপ-৮৮ এর চেয়ে আরও শক্তিশালী ইঞ্জিন, উন্নত ইলেকট্রনিক্স ও পশ্চিমা টারেট(turret) রয়েছে। এর আরও একটি উন্নত সংস্করণে অ্যাডঅন বর্ম রয়েছে। এটি টাইপ-৯৬জি বলে অসমর্থিত সূত্রে নির্দেশ করা হচ্ছে।

বর্মযানটির ব্যবহারকারী[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]