ইন্দাবা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ইন্দাবা হচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকার জুলু ও ঝোসা সম্প্রদায়ের ইজিন্দুনা বা হেডম্যানদের গুরুত্বপূর্ণ কনফারেন্স বা সভা। এ ধরণের সমজাতীয় সভা ইন্দযাবা নামে সোয়াজি সম্প্রদায়ের মাঝেও অনুশীলন হয়। এ ইন্দাবা শুধুমাত্র হেডম্যানদের নিয়ে অথবা বিভিন্ন সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের নিয়েও অনুষ্ঠিত হয়। ইন্দাবা একটি জুলু ভাষার শব্দ যার ইংরেজি প্রতিশব্দ "বিজনেস" অথবা "ম্যাটার"। ইন্দাবা শব্দটি দক্ষিণ অফ্রিকার সর্বত্রই ব্যবহার করতে দেখা যায়। মাঝে মাঝে সমাবেশ বা মিটিং-এর সমার্থক হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

ইন্দাবা ও স্কাউটিং[সম্পাদনা]

ইন্দাবা শব্দটি এখন স্কাউট আন্দোলনের মাধ্যমে সারা বিশ্বে ব্যবহৃত হয়। ইন্দাবা হচ্ছে স্কাউট লিডারদের সমাবেশ। বিশ্ব স্কাউট ইন্দাবা হচ্ছে সারা বিশ্বের স্কাউট লিডার বা স্কাউট মাস্টারদের সমাবেশ। কাবদের সমাবেশ ক্যম্পুরি, স্কাউটদের সমাবেশ জাম্বুরি, রোভারদের সমাবেশ মুট-এর মতো স্কাউট লিডারদের সমাবেশের জন্য “ইন্দাবা” শব্দ ব্যবহৃত হচ্ছে।

১৯৪৯ সালে নরওয়েতে অনুষ্ঠিত ১২তম বিশ্ব স্কাউট কনফারেন্সে আফ্রিকা থেকে ঘুরে আসা লর্ড রোওয়াল্যান ইন্দাবা আয়োজনের প্রথম প্রস্তাব উপস্থাপন করেন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ব্রিটিশ স্কাউট অ্যসোসিয়েশনের লর্ড রোওয়াল্যান উল্লেখ করেন যে, অনেক লিডার প্যাক মিটিং ট্রুপ মিটিং ও ক্রু মিটিং-এ কাজ করে থাকেন যারা সবসময় সমাবেশে অংশগ্রহণ করার সুযোগ পান না সুতরাং লিডারদের নিয়ে সমাবেশ করা দরকার যা আফ্রিকার আদিবাসী সম্প্রদায়ের প্রচলিত ইন্দাবার আদলে হবে। সেই থেকে এই শব্দটি স্কাউট আন্দোলনের সাথে জড়িত।

বিশ্ব স্কাউট ইন্দাবা[সম্পাদনা]

এখন পর্যন্ত ৩টি বিশ্ব স্কাউট ইন্দাবা অনুষ্ঠিত হয়। ১৯৫২ সালের জুলাই মাসে যুক্তরাজ্যের গিলওয়েল পার্কে প্রথম, ১৯৫৭ সালের জুন মাসে যুক্তরাজ্যের সুট্টন কল্ডফিল্ড-এ দ্বিতীয় এবং ১৯৬০ সালের আগস্ট মাসে নরওয়ের ওমেন-এ তৃতীয় বিশ্ব স্কাউট ইন্দাবা অনুষ্ঠিত হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

বাংলাদেশে ইন্দাবা[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ স্কাউটস-এর ব্যবস্থাপনায় ০৫-০৯ মে, ২০০৫ জাতীয় স্কাউট প্রশিক্ষণ কেন্দ্র, মৌচাক গাজীপুরে ১ম জাতীয় ইন্দাবা অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ স্কাউটস, বরিশাল অঞ্চলের ব্যবস্থাপনায় ও পরিচালনায় ০৫-০৯ অক্টোবর ২০০৪ পর্যন্ত বিএম স্কুল বরিশালে প্রথম আঞ্চলিক ইন্দাবা অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ স্কাউটস, বরিশাল অঞ্চলের পরিচালনায় ও বরিশাল জেলার ব্যবস্থাপনায়, বরিশাল জিলা স্কুল বরিশাল ১৮-২১ জুন ২য় আঞ্চলিক ইন্দাবা অনুষ্ঠিত হয়। এ ইন্দাবায় ৬৫ জন কাব ও স্কাউট লিডার ২০ জন কর্মকর্তা, ৫ জন সাপোর্ট স্টাফসহ মোট ৯০ জন অংশহগ্রহণ করেন এবং রূপাতলী ও চর ছখিনা নামক দুটি সাব-ক্যাম্পে কার্যক্রম পরিচালিত হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]