হুমাম খলিল আবু মুলাল আল বালাবি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
Humam Khalil Abu-Mulal al-Balawi
জন্ম
হুমাম খলিল আবু মুলাল আল বালাবি

(১৯৭৭-১২-২৫)২৫ ডিসেম্বর ১৯৭৭
মৃত্যু৩০ ডিসেম্বর ২০০৯(2009-12-30) (বয়স ৩২)

হুমাম খলিল আবু মুলাল আল বালাবি (ডিসেম্বর ২৫, ১৯৭৭ - ডিসেম্বর ৩০, ২০০৯) ছিলেন একজন জর্দানীয় চিকিৎসক এবং একজন আত্মঘাতী বোমা হামলাকারী। তিনি এমন একটি ইসলামি চরমপন্থী দলের সাথে যুক্ত ছিলেন। এই দল ডিসেম্বর ২০, ২০০৯ সালে আফগানিস্তানের খোস্ত প্রদেশের নিকটে সিআেই-এর বিরোদ্ধে একটি আত্মঘাতী বোমা হামলা পরিচালনা করে। এটি ক্যাম্প চ্যাপম্যান হামলা নামে অভিহিত।

ছদ্মনাম[সম্পাদনা]

একজন আফগান নিরাপত্তা কর্মকর্তা আল-বালাবির নাম হামমান খলিল আবু মালাল আল-বালাবি দিয়েছিলেন।[১] আরবের দৈনিক পত্রিকা দি ন্যাশনাল তাকে হোমাম খলিল মোহাম্মদ আবু মালাল হিসাবে উল্লেখ করে।[২] জিহাদী ওয়েবসাইটের জন্য লেখালেখির সময় তিনি আবু দুজানা আল-খোরাসানি বা দুজ্জানাহ আল খোরাসানি ছদ্মনামে লেখালেখি করতেন।[১][২] পাকিস্তানী তালিবানদের স্ব ঘোষিত মুখপাত্র হজ্ব ইয়াকুব তাকে হাম্মান খলিল মোহাম্মদ হিসাবে চিহ্নিত করে।[৩]

জীবনী[সম্পাদনা]

আল-বালাবি’র জন্ম কুয়েতে ডিসেম্বর ২৫, ১৯৭৭ সালে। তিনি কুয়েতের এমন একটি মধ্যবিত্ত পরিবারে বেড়ে উঠেন যেখানে তার জমজ ভাইসহ আরো নয়জন শিশু ছিল, এবং ১৯৯০ সালে ইরাকের কুয়েতের আগ পর্যন্ত তারা সেখানেই বসবাস করতে থাকেন, এরপর তারা জর্দানে চলে আসেন। তিনি আম্মানের একটি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রী অর্জন করেন। আল-বালাবি তুরস্কের ইস্তানবুল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চিকিৎসাশাস্ত্রে ছয় বছর পড়াশুনা করেন এবং ২০০২ সালে স্নাতক পাশ করেন। তিনি জর্দান বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল এবং আম্মানের ইসলামিক ব্রাদারহুড কর্তৃক পরিচালিত ইসলামিক হাসপাতাল থেকেও প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন। তিনি দাফিনাহ বাইরাক নামে একজন তুর্কি সাংবাদিক ও অনুবাদককে বিবাহ করেন এবং তাদের সংসারে দুইটি সন্তান রয়েছে। তারা আম্মানের শহরতলী জাবাল নুজাহাতে বসবাস করতেন।

ইসলামিক চরমপন্থী ঘটনাগুলোতে সমর্থন করার ইতিহাস রয়েছে আল-বালাবির। গ্রেট ইস্টার্ন ইসলামিক রাইডার্স ফ্রন্টের সাথে সম্পর্ক থাকার কারণে তুরস্কের জাতীয় গোয়েন্দা সংস্থার দ্বারা তিনি চিহ্নিত হয়েছিলেন। এই তথ্যটি অন্যান্য গোয়েন্দা সংস্থার সাথে ভাগ করা হয়েছিল কিনা তা স্পষ্ট নয়। সাইট গোয়েন্দা গ্রুপের (যারা চরমপন্থীদের ওয়েবসাইট নিরীক্ষণ করে) মতে, তিনি আল-হেসবাহ, ইসলামী চরমপন্থীদের দ্বারা পরিচালিত একটি অনলাইন ফোরাম, এর সুপরিচিত অবদানকারী ছিলেন। তিনি নিজেও একটি ইসলামিক ব্লগ চালাতেন।

২০০৭ সালের শেষের দিকে জর্দান নিরাপত্তা বাহিনী কর্তৃক আল-বালাবি গ্রেপ্তার হয় এবং মনে করে হয়ে থাকে যে তাকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও জর্দানের অনুগত একজন ডবল এজেন্ট হিসাবে রূপান্তরিত করা হয়। পশ্চিমা সরকারি কর্মকর্তাদের মতে, আল-বালাবিকে জর্দান গোয়েন্দা সংস্থা নিয়োগ দেয় এবং আফগানিস্তানে প্রেরণ করে। জর্দানের গোয়েন্দা সংস্থা মধ্যপ্রাচ্যে সিআইএর সহযোগীদের মধ্যে অন্যতম একটি সংস্থা।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Gorman, Siobhan; Gopal, Anand; Dreazen, Yochi J. (৫ জানুয়ারি ২০১০)। "CIA Blast Blamed On Double Agent"Wall Street Journal। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১০ 
  2. Ma'ayeh, Suha Philip (জানুয়ারি ৫, ২০১০)। "CIA suicide bomber was a triple agent"The National। ২৫ মার্চ ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১০ 
  3. "Bomber at CIA base was a double agent"। Associated Press। ৫ জানুয়ারি ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৫ জানুয়ারি ২০১০