হাসান সোহরাওয়ার্দী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
লেফটেনেন্ট কর্নেল
স্যার হাসান সোহরাওয়ার্দী
Hasan Suhrawardy.jpg
জন্ম১৮৮৬
মৃত্যু১৯৪৬
যুগআধুনিক যুগ
অবদানদ্য স্পিরিট অফ ইসলাম

স্যার হাসান সোহরাওয়ার্দী (১৮৮৪ – ১৮ সেপ্টেম্বর ১৯৪৬) হলেন একজন বাঙালি- ইংরেজ রাজপুরুষ, রাজনীতিজ্ঞ ও খ্যাতনামা শিক্ষাবিদ। তিনি নাইট উপাধি প্রাপ্ত হয়েছিলেন।[১]

জীবনী এবং পরিবার[সম্পাদনা]

সোহরাওয়ার্দী সাহেবজাদী শাহবানু বেগমের সাথে বিয়ে করেন এবং তাদের একটি পুত্র ও একটি কন্যা সন্তান ছিল; হাসান মাসুদ সোহরাওয়ার্দী (১৯০৩–১৯৬৩) এবং শায়েস্তা সোহরাওয়ার্দী ইকরামুল্লাহ। তিনি সালমা সোবহানের, নাজ ইকরামুল্লাহ এবং জর্ডানের রাজকুমারী সারভাথ এর পিতামহ।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

সোহরাওয়ার্দী একটি মাইক্রোফোনের সামনে দাঁড়িয়ে কার্ডিফের শ্রোতাদের উদ্দেশে কথা বলছেন

১৯৪৫ সালে তিনি কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি'র অধ্যাপক নিযুক্ত হন। স্যার সোহরাওয়ার্দী কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম মুসলিম উপাচার্য ছিলেন। একাধারে তিনি ছিলেন সাইমন কমিশনের পরামর্শ দাতা ও বেঙ্গল আইনসভার সদস্য। ১৯২৩ থেকে ১৯২৫ সাল পর্যন্ত তিনি এখানকার উপ সভাপতি পদ অলংকৃত করেন।

ভারতীয় পূর্ব রেল এর প্রধান স্বাস্থ্য আধিকারিক ছিলেন। রেলওয়ে স্বাস্থ্য ও এম্বুলেন্স পরিষেবা চালু করেন। ইংল্যান্ডে ইস্ট লন্ডন মসজিদ তৈরীর ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছিলেন তিনি।

সম্মান[সম্পাদনা]

কলিকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের নিয়ামক থাকাকালীন তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন উৎসবে বাংলার গভর্নর স্যার স্ট্যানলি জ্যাকসনকে বিপ্লবী বীণা দাসের গুলির হাত থেকে বাঁচান ১৯৩২ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি। এই সাহসিকতাপূর্ণ কাজের পুরষ্কারস্বরূপ তাকে ১৯৩২ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারি নাইট উপাধি প্রদান করা হয়।[২][৩]

সোহরাওয়ার্দীকে ১৯২৭ সালে জন্মদিনের সম্মাননা তালিকাতে ওবিই নিযুক্ত করা হয়,[৪] কাইজার-ই-হিন্দ পদক, ১৯৩০ সালে একই সম্মাননা তালিকায় প্রথম শ্রেণী।[৫][৬] ১৯৩২ সালের জানুয়ারীতে সেন্ট জন এর সম্মানসূচক আদেশের (ওএসটিজে) একজন সহযোগী কর্মকর্তা নিযুক্ত হন,[৭] এবং জানুয়ারীর ১৯৩৭-এ সহযোগী কমান্ডার পদে পদোন্নতি হয়েছিলেন স্যার সোহরাওয়ার্দি।[৮][৯] কলকাতা শহরে তার স্মৃতিতে সোহরাওয়ার্দি এভিনিউ নামে একটি রাস্তার নামকরণ হয় ১৯৩৩ সালে তার জীবদ্দশায়।[৩]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

১৯৪৬ সালের সেপ্টেম্বর মাসে স্যার হাসান সোহরাওয়ার্দি মারা যান।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Rehman Sobhan। "Untranquil Recollections: The Years of Fulfilment"। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৭ 
  2. "শতবর্ষে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়েই স্নাতক হবেন বীণা"। আনন্দবাজার পত্রিকা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৭ 
  3. "Swarajya magazine and Jaideep Mazumdar spread falsehood about Suhrawardy Avenue in Kolkata"altnews.in। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৭ 
  4. London Gazette, 2 June 1927
  5. London Gazette, 3 June 1930
  6. London Gazette, 12 April 1932
  7. London Gazette, 1 January 1932
  8. London Gazette, 1 January 1937
  9. "The London Gazette"thegazette.co.uk। লন্ডন গেজেট। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৭