হাতি সির্পান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
হাতি সির্পান
Hatı Çırpan.jpg
হাতি সির্পান, ১৯৩৫ সালে
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম১৮৯০
কাজান, আঙ্কারা, উসমানীয় সাম্রাজ্য
মৃত্যু২১ মার্চ ১৯৫৬(1956-03-21) (বয়স ৬৫–৬৬)
আঙ্কারা, তুরস্ক
পেশারাজনীতিবিদ

হাতি সির্পান (formerly সাতি কাদিন, ১৮৯০ - ২১ মার্চ, ১৯৫৬) একজন তুর্কি রাজনীতিবিদ ছিলেন। তিনি ১৯৩৫ সালের সাধারণ নির্বাচনে নির্বাচিত তুরস্কের গ্র্যান্ড ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলি এর প্রথম নারী সংসদের সদস্যদের একজন।

জীবনী[সম্পাদনা]

তিনি ১৮৯০ সালে কাহরামানকাজান গ্রামে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তার পিতা কারা মেহমেত এফেন্দী এবং তার মা এমিন হানাম।[১] তিনি বলকান যুদ্ধের সময় গলায় আঘাতপ্রাপ্ত এক সৈনিকের স্ত্রী ছিলেন।[২] তিনি পাঁচ সন্তানের মা ছিলেন। তিনি কৃষিকাজ করতেন এবং তার বাবার পরে কাজান গ্রামের প্রধান হিসাবে কাজ করেছিলেন। ১৯৩৩ সালের ২৬শে অক্টোবর, মহিলাদের মুখতার হওয়ার অধিকার দেওয়ার পর, তিনি কাজান গ্রামের প্রধান হবার জন্য নির্বাচনে জয়লাভ করেন এবং তুরস্কের প্রথম মহিলা মুখতার হয়েছিলেন।[৩]

দ্বিতীয় ভাষা কংগ্রেসের ঠিক আগে (İkinci Türk Dil Kurultayı, ১৮-২৩ আগস্ট ১৯৩৪), ১৬ই জুলাই, ১৯২৪,[৪] রাষ্ট্রপতি মোস্তফা কামাল আতাতুর্ক কাজান গ্রামে ভ্রমণের জন্য আঙ্কারা ত্যাগ করেন, (আঙ্কারা প্রদেশের কিজিলচামাম জেলার অংশে), [৫][৬] রাজধানী আঙ্কারা থেকে ৫০ কিলোমিটার (৩১ মা) দূরে।[৭] এই ভ্রমণের সময়, আতাতুর্ককে সাতি কাদিনের সাথে পরিচয় করিয়ে দেওয়া হয়েছিল, যিনি কাজান গ্রামের প্রধান ছিলেন। তিনি ছিলেন মধ্য আনাতোলিয়ার একজন কৃষক যিনি তুরস্কের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় চার বছর যুদ্ধ করেছিলেন।[৮] দুজন কথোপকথনে ব্যস্ত ছিলেন, যার পরে আতাতুর্ক সাতি কাদিনের অর্জন এবং বুদ্ধিমত্তা পছন্দ করেছিলেন বলে জানা গেছে।[৫][৬][৭]

ইনানের মতে, আতাতুর্ক তার সাথে দেখা করার পর বলেছিলেন, "উনি একজন ব্যতিক্রমী মহিলা যিনি পার্লামেন্টের সদস্য হিসেবে সমৃদ্ধ করতে পারেন।"[৯] সাতি কাদিনকে তার সফল প্রচারণায় আতাতুর্ক নিজেই স্পন্সর এবং সমর্থিত করেছিলেন।[৮] পরবর্তীতে, আতাতুর্কের পরামর্শে তিনি তার প্রথম নাম হাতি এ পরিবর্তন করেন, আতাতুর্ক সেই সময়ে হাতিয়ান সভ্যতায় আগ্রহী ছিলেন এবং তুর্কি ভাষায় তার পূর্ব নাম সাতির অর্থ ছিল "বিক্রয়" বা "ক্রয়"।[৭] ১৯৩৪ সালের তুর্কি উপাধি আইন অনুসারে সমস্ত তুর্কি নাগরিকদের একটি উপাধি থাকা আবশ্যক হওয়ার পর তিনি সির্পান উপাধি গ্রহণ করেছিলেন।

হাতি সির্পান তার সংসদীয় দায়িত্ব শেষ করে কাহারামানকাজানে ফিরে আসেন। তিনি ১৯৫৬ সালের ২১শে মার্চ মারা যান।

কাহারামানকাজানে তার সমাধি রয়েছে এবং তার বাড়ি পুনরুদ্ধার করে একটি যাদুঘরে পরিণত করা হয়েছে।[১০]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; Duroğlu নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  2. aydinlikgazete.com [ত্রুটি: আর্কাইভের ইউআরএল অজানা] আর্কাইভকৃত [তারিখ অনুপস্থিত] তারিখে
  3. tekadam.8k.com [ত্রুটি: আর্কাইভের ইউআরএল অজানা] আর্কাইভকৃত [তারিখ অনুপস্থিত] তারিখে
  4. A. Turan Alkan, "Bu cennet yurt köşesinde mutlusunuz Kızılcahamamlılar!" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১২-০৩-১৪ তারিখে, Zaman, July 25, 2010. (তুর্কি ভাষায়)
  5. A. Afetinan, Tarih'ten bugün'e, Türk Tarih Kurumu Basımevi, 1970, p. 164. (তুর্কি ভাষায়)
  6. A. Afetinan, Cumhuriyetʼin Ellinci yılı için Köylerimiz, Türk Tarih Kurumu Basımevi, 1978, p. 8. (তুর্কি ভাষায়)
  7. Emin Karakuş, 40 yıllık bir gazeteci gözü ile İşte Ankara, Hür Yayın ve Ticaret, 1977, p. 22. (তুর্কি ভাষায়)
  8. The Turkish Woman (1919-1923), Basın Yayın Genel Müdürlüğü, p. 36.
  9. İşte mebus olacak kadın., A. Afetinan, Kemal Atatürk'ü Anarken, Güzel Sanatlar Matbaası, 1956, p. 67. (তুর্কি ভাষায়)
  10. dha.com.tr [ত্রুটি: আর্কাইভের ইউআরএল অজানা] আর্কাইভকৃত [তারিখ অনুপস্থিত] তারিখে