হরে কৃষ্ণ ফুড ফর লাইফ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ফুড ফর লাইফ (জীবনের জন্য খাদ্য) বিশ্বের বৃহত্তম অলাভজনক নিরামিষ খাদ্য ত্রাণ সংস্থা। যার স্বেচ্ছাসেবকরা প্রতিদিন বিশ্বের ৬০টিরও বেশি দেশে প্রায় ২,০০০,০০০ জনের খাদ্য বিনামূল্যে সরবরাহ করে থাকে।[১][১] [২]

ফুড ফর লাইফ গ্লোবাল
চিত্র:Food For Life Global logo.png
প্রতিষ্ঠাকাল১৯৭৪
ধরনদানশীলতা
28209397
নিবন্ধন নং4077911000
এলাকাগত সেবা
বিশ্বব্যাপী
মালিকইসকন
মূল ব্যক্তিত্ব
পল রডনি টার্নার
মুকুন্দ গোস্বামী
রুক্মিণী ওয়াকার
ওয়েবসাইটffl.org
রাশিয়ার ফুড ফর লাইফের সদস্য খাদ্য সরবরাহ করছেন
ফুড ফর লাইফ শুধুমাত্র নিরামিষ ও ল্যাকটো-নিরামিষ উপাদান থেকে উৎপাদিত খাদ্য আন্তর্জাতিক ভিত্তিতে বিতরণ করে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

অভয়চরণারবিন্দ ভক্তিবেদান্ত স্বামী প্রভুপাদ, ফুড ফর লাইফ এর প্রধান উদ্যোক্তা

১৯৭৪ সাল, একদিন ভক্তিবেদান্ত প্রভুপাদ লক্ষ্য করলেন রাস্তায় একদল শিশু কুকুরের সাথে একটুকরো খাবারের অংশ নিয়ে লড়াই করতে, তখন হতবাক হয়ে গিয়েছিলেন এবং তাঁর ছাত্রদের বলেছিলেন, "আমাদের মন্দিরের দশ মাইলের মধ্যে কেউ যেন ক্ষুধার্ত না থাকে... আমি চাই তোমরা অবিলম্বে খাবার পরিবেশন শুরু করুন।" তার এই কথার প্রতিক্রিয়ায়,বিশ্বজুড়ে ইসকনের সদস্য এবং স্বেচ্ছাসেবকরা সম্মিলিত প্রচেষ্টায় একটি বিশ্বব্যাপী নেটওয়ার্কে প্রসারিত করল, যা বিনামূল্যে খাবার সরবরাহ করে। পবিত্র উদ্ভিদ-ভিত্তিক খাবারের বিতরণ ভারতের বৈদিক আতিথেয়তার একটি অপরিহার্য অংশ হয়ে থাকবে এবং থাকবে, যা থেকে "ফুড ফর লাইফ" এর জন্ম হয়েছিল।[৩]

এটি ১৯৭৪ সালে আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘ অংশ হিসাবে ভারতের মায়াপুরে স্থানীয় খাদ্য ত্রাণ হিসাবে যাত্রা শুরু করে । ১৯৯৫ সালে, প্রকল্পের সম্প্রসারণে সহায়তা করার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মেরিল্যান্ড সদর দপ্তর প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। ২০১৫-২০১৭ অস্থায়ীভাবে স্লোভেনিয়াতে স্থানান্তরিত হয়েছিল এবং তারপর পুনরায় ২০১৭ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডেলাওয়্যারে স্থাপিত হয়।[৩]

স্বেচ্ছাসেবকরা প্রতিদিন প্রায় ২,০০০,০০০ জনের বিনামূল্যে উদ্ভিদ-ভিত্তিক খাবার স্কুলে, দুর্গম এবং দুর্যোগপূর্ণ এলাকায় পরিবেশন করা হয়। জাতিসংঘের বিশ্ব খাদ্য কর্মসূচিকেও ছাড়িয়ে ফুড ফর লাইফ গ্লোবাল এখন বিশ্বের বৃহত্তম খাদ্য ত্রাণ নেটওয়ার্ক।

এটি বিশ্বব্যাপী ত্রাণ প্রদানে ব্যাপক অবদান রাখার জন্য নিউইয়র্ক টাইমস, ভেজিটেরিয়ান টাইমস, পল ম্যাককার্টনি এবং নেলসন ম্যান্ডেলা কর্তৃক প্রশংসিত হয়েছে।[৪][৫]

দুর্যোগে ত্রান বিতরণ[সম্পাদনা]

সারাজেভো অবরোধ[সম্পাদনা]

বসনিয়ার সারাজেভো ও হার্জেগোভিনার যুদ্ধ অঞ্চলে, স্বেচ্ছাসেবীরা তিন বছরের সংঘাতের সময় প্রতিদিন অনাথ আশ্রম, বয়স্কদের জন্য বাড়ি, হাসপাতাল, প্রতিবন্ধী শিশুদের জন্য ইনস্টিটিউট এবং বেসমেন্ট আশ্রয়কেন্দ্র পরিদর্শন করে এবং ১৯৯২ সাল থেকে আনুমানিক ২০ টন খাদ্য বিতরণ করে।

২০০৪ সালের সুনামি[সম্পাদনা]

ফুড ফর লাইফ হল প্রথম খাদ্য ত্রাণ সংস্থা যা ডিসেম্বর 2004 এর সুনামি দুর্যোগে সাড়া দেয় । যেদিন সুনামি আঘাত হানে, ভারতের চেন্নাইতে ইসকনের মন্দিরে বৈষ্ণব সন্ন্যাসীরা তাদের সাপ্তাহিক রবিবার নিরামিষ ভোজ প্রস্তুত করছিলেন, যখন তারা বিপর্যয়ের কথা শুনেছিল। তারা অবিলম্বে ভারতের দক্ষিণ-পূর্ব উপকূলরেখার সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় দৌড়ে যায় এবং তাদের প্রস্তুত করা সবজির তরকারি দিয়ে হাজার হাজার মানুষকে পরিবেশন করা শুরু করে। পরবর্তী ৬ মাসে, শ্রীলঙ্কা , ভারত , ইউরোপ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং অস্ট্রেলিয়ার ফুড ফর লাইফ স্বেচ্ছাসেবীরা ভক্তিবেদান্ত কলম্বোতে ইসকনের অনাথ আশ্রমে চিকিৎসা সেবা, জল, পোশাক এবং শিশুদের জন্য ৩৫০,০০০ টিরও বেশি তাজা রান্না করা খাবার সরবরাহ করেছে।

হারিকেন ক্যাটরিনা[সম্পাদনা]

ফুড ফর লাইফ গ্লোবাল ভলান্টিয়াররা ২০০৫ সালের আগস্টের শেষের দিকে হারিকেন ক্যাটরিনা বিপর্যয়ের মিসিসিপি এবং টেক্সাসে স্থানান্তরিত পরিবারগুলোর 800 জনের পর্যন্ত প্রতিদিন খাবার পরিবেশন করা হয়েছিলো।

পাকিস্তানে ভূমিকম্প[সম্পাদনা]

এসি ভক্তিবেদান্ত স্বামী প্রভুপাদের একজন বিশিষ্ট শিষ্য নবযোগেন্দ্র স্বামী মহারাজের নির্দেশনায় উধমপুর, জম্মু, অমৃতসর এবং হরিদ্বারের স্বেচ্ছাসেবকরা পাকিস্তানে 2005 সালের ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্তদের জন্য ত্রাণ সরবরাহ করতে একত্রিত হয়েছিল । উধমপুরের একটি ইসকন মন্দির থেকে কাজ করে , যেটি ভূমিকম্প-আক্রান্ত অঞ্চলের মধ্যে ছিল, স্বেচ্ছাসেবকরা পানীয়, জল , চাল , রুটি এবং কম্বল সহ ট্রাক বোঝাই করে ত্রাণ প্রদান করেছিলো।

ফুড ফর লাইফ বাংলাদেশ[সম্পাদনা]

বাংলাদেশে ইসকন ফুড ফর লাইফ’একটি সম্পূর্ণ অরাজনৈতিক, অসাম্প্রদায়িক, অলাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসেবে গরিব দুঃখী মানুষের মাঝে খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, ঔষধ প্রভৃতি বিতরণ করে এদেশের অসহায় মানুষের মুখে হাসি ফোটানোর চেষ্টা করে আসছে। সম্প্রতি ভূমিকম্প, বন্যা, সুনামীর মতো বহু প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে মানবতার সেবায় ‘ইসকন ফুড ফর লাইফ’অগ্রণী ভুমিকা পালন করছে।[৬][৭][৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "About Food for Life Global"। ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  2. European Vegetarian and Animal News Agency article: Interview with Paul Turner
  3. "ফুট ফর লাইফের ইতিহাস"FFL 
  4. "New York Times - Food for Life Global - Uniting the World Through Pure Food"www.ffl.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১০-১১-২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১২-০৯ 
  5. Network for Good
  6. "ফুড ফর লাইফ – Home- আন্তর্জাতিক কৃষ্ণভাবনামৃত সংঘ International Society for Krishna Consciousness , 79 Swamibag Road , Dhaka" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৫-১৬ 
  7. "ইসকন ফুড ফর লাইফ | কালের কণ্ঠ"Kalerkantho। ২০১৭-০২-২৬। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৫-১৬ 
  8. "ফুড ফর লাইফ প্রোগ্রামের মাধ্যমে সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের মাঝে খাবার বিতরন Daily Sangbad Chorcha"Daily Sangbad Chorcha (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০৮-০৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৫-১৬ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]