সুন্দরী উত্তমচন্দাণী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
Sundri Uttamchandani
শ্রীমতি সুন্দরী উত্তমচন্দাণী

শ্রীমতি.সুন্দরী উত্তমচন্দাণী (২৮ সেপ্টেম্বর ১৯২৪ – ৮ জুলাই, ২০১৩) ছিলেন একজন সুখ্যাত ভারতীয় লেখক। তিনি বেশিরভাগ সিন্ধি ভাষাতে লেখালেখি করেছেন।[১] তার বিয়ে এ জে উত্তমের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।

১৯৮৬ সালে তিনি সিন্ধি ভাষাতে লিখা ভিচ্ছরো সংকলনের নয়টি ছোট গল্পের জন্য তিনি সাহিত্য অকাদেমির সাহিত্য অকাদেমি পুরষ্কারে ভূষিত হন।[২][৩]

জীবনী[সম্পাদনা]

সুন্দরী উত্তমচন্দাণী জন্মগ্রহণ করেন ২৮ সেপ্টেম্বর ১৯২৪ সালে হায়দ্রাবাদ সিন্ধুতে (বর্তমান পাকিস্তান)। তখন হায়দ্রাবাদের রাজধানী ছিল সিন্ধু । স্বাধীনতার আগে সিন্ধুকে ব্রিটিশামলে হায়দ্রাবাদের রাজধানী করা হয়েছিল। যদিও এটা তার জনপ্রিয়তা হারিয়ে । কিন্তু শহরটির অবস্থান হিসাবে এটি একটি রাজধানী শহর। এই শহর একটি সমৃদ্ধ কেন্দ্র, শিক্ষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতি আছে। সব সংস্কার আন্দোলন হয়েছে এই শহরের মাটিতে। এই আন্দোলনগুলো তরুণ বয়সী সুন্দরির জন্য উন্মুক্ত একটা অভিজ্ঞতা ছিল। একটি চলচ্চিত্রে একটি সুবিশাল আন্দোলনের মতো করে থিয়েটারে নাটক মঞ্চস্থ লোক এবং পৌরাণিক গল্প সাজানো হয়েছিল । তার বাবা তাকে এবং তার অন্যান্য ভাইবোনদের নিয়ে বর্ধিত যৌথ পরিবারে এটা করা হয়েছিল। তার যৌবনকালে স্বাধীনতা আন্দোলন ছিল সুদূরপ্রসারী দেশ জুড়ে । এই ঘটনায় তিনি আরো অনুপ্রাণিত হয়েছেন এই চলচ্চিত্র ধরনের চলচ্চিত্র তৈরি করতে ।

তিনি এ.জে উত্তমকে বিয়ে করেছিলেন। বিয়ের পরের বছরগুলিতে সিন্ধি প্রগতিশীল সাহিত্য আন্দোলনের অন্যতম শীর্ষস্থানীয় লেখক এ.জে. উত্তম ছিলেন। তিনি ছিলেন বোম্বাইয়ের সিন্ধি সাহিত মণ্ডলের প্রতিষ্ঠাতা। সুন্দরী তার সাথে সাপ্তাহিক সাহিত্য সভাগুলোতে সাপ্তাহিক সাহিত্য সভায় সভাপতিত্ব করেন। প্রফেসর এম ইউ মালকানি, যিনি নতুন ও আসন্ন লেখকদের উৎসাহের জন্য একজন ফোয়ারা প্রধান ছিলেন। সিন্ধি লেখক এবং তাদের সৃজনশীল কাজগুলি প্রকাশ হয়। এগুলো তার জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে ওঠে এবং ১৯৫৩ সালে তিনি তার প্রথম উপন্যাসটি "কিরান্দর দেয়ারুন" (ক্রুমিং দেয়াল) রচনা করেছিলেন। পরবর্তীতে তিনি লেখালেখি থেকে বিরতি নিয়েছিলেন। তিনি তাঁর এক কীর্তি দ্বারা সাহিত্যে পুরুষ আধিপত্যের নিকটতম একচেটিয়া অংশকে ছিন্নভিন্ন করে তোলেন।তিনি পরিবার এবং এইভাবে সিন্ধি সাহিত্যে একটি নতুন সাহিত্য স্বাদ এনেছেন। উপন্যাসটির বিষয়বস্তু এবং কাঠামোটি পরিপক্ক ছিল এবং এটি বহুবার ছাপা হয়েছে বলে আলাদাভাবে জানা গিয়েছে। এই উপন্যাসটি ভারতীয় বহু ভাষায় অনূদিত হয়েছিল এবং সেই ভাষাগুলির সাহিত্য সমালোচকরা তাকে প্রশংসিত করেছিলেন। এভাবেই তিনি একটি আঞ্চলিক ভাষার লেখক থেকে অখিল ভারতের খ্যাতি লেখকের কাছে উন্নীত করেছিলেন। ১৯৫৬ সালে তাঁর দ্বিতীয় উপন্যাস "প্রীত পুরাণীর রীত নিরালী" লেখা হয়। এটি পাঁচটি মুদ্রণে পাওয়া গেইয়েছিল। যা তার যোগ্যতা এবং জনপ্রিয়তার প্রশংসা করে।

সরাইয়া উপন্যাস তার সাহিত্য জীবনে চলার পথে অবিচ্ছিন্ন উপন্যাস ছিল। এটা তার নিজের লেখা ছোট গল্প আকারে খুঁজে পাওয়া যায়নি। তার ছোট গল্প সংগ্রহ তার কৃতিত্ব। তার কিছু ছোট গল্প হয়েছে জল চিহ্ন রীতিতে এবং প্রায়ই এটিকে উদাহৃত অসামান্য উদাহরণ বলা হয়।

তার গল্প "ভুরি" (একটি পুতুল) প্রতি বছরের থেকে এই বছরে গল্পের সৌন্দর্য পুরোপুরি স্বস্তি দিয়েছে। তিনি দেশভাগের ধ্বংসযজ্ঞের কারণে তার মায়াবী চেহারাটি হারিয়েছেন। তবে শ্রমের মর্যাদায় জন্মগ্রহণকারী অভ্যন্তরীণ সৌন্দর্যের সাথে উজ্জ্বল এবং প্রতিশ্রুতিবদ্ধ আশ্বাস নিজেকে দিয়েছেন। তার পরিবারকে খাওয়ানোর জন্য অর্থনৈতিক দায়িত্ব তার স্বামী সাথে কাঁধে নিয়ে দাঁড়িয়ে যান। তিনি হলেন লিঙ্গীয় সমতা বয়ে আনে এমন নারীবাদী। তিনি যুদ্ধের বিরুদ্ধে তার প্রথম গল্প 'মমতা' একটি ছোট গল্পের প্রতিযোগিতায় ১৯৫২ সালে প্রথম পুরষ্কার জিতেছিলেন। 'কোশন' আরেকটি গল্প যা কাহানী ম্যাগাজিন থেকে ১৯৫৪ সালে প্রথম পুরষ্কারও প্রশংসা করেছিল এবং সেটি গ্রহণ করেছিল। ষাটের দশকের গোড়ার দিকে 'কাহানী' ম্যাগাজিনের একজন প্রকাশক একটি ছোট গল্পের প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছিলেন, যেখানে সে সময়ের অনেক প্রবীণ লেখক অংশ নিয়েছিলেন এবং সুন্দরীর ছোট গল্প "খের বড়িয়া হাতরা" প্রথম পুরস্কার অর্জন করেছিল। এটি কাহিনী ১৯৯০ সালে কাহানিতে তার লেখা "খের বড়িয়া হাতড়া" নামে একটি বইয়ে প্রকাশিত হয়েছিল। তাঁর গল্প "এইচআই সাহার" (এই শহর) একটি বিশাল নির্মম এবং আত্মার কম যন্ত্র হিসাবে ব্যক্তিগত ক্ষয়ক্ষতি বা ট্রাজেডি হিসাবে এই শহরের একটি নিম্ন মধ্যবিত্ত অ্যাপার্টমেন্ট বিল্ডিংয়ে একটি নম্র নেপালি প্রহরী চিরন্তন চিত্রিত হয়েছে। সুন্দরী ঐতিহ্যবাহী কবিতায় যথাযথ মিটার দিয়ে চেষ্টা করেছেন তবে এটি বিনামূল্যে কথায় আছে যেখানে তিনি তার কুলুঙ্গি খুঁজে পেয়েছেন। তার কৃতিত্বের জন্য তাঁর চারটি কবিতা সংগ্রহ রয়েছে। তাঁর কবিতাগুলি আবেগের সূক্ষ্ম ও সূক্ষ্ম সূত্রের গভীরে নিজেকে পড়ে এবং তাঁর স্বতন্ত্র স্ট্যাম্পের সাথে শৈল্পিক এবং কল্পনাপ্রসূত শিল্পকর্ম খুঁজে পান।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Tunio, Hafeez। "Sundri Uttamchandani: Noted Sindhi fiction writer passes away – The Express Tribune"। Tribune.com.pk। সংগ্রহের তারিখ ১০ জুলাই ২০১৩ 
  2. "Sahitya Academy Awards in Sindhi"। ১৭ জুলাই ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মার্চ ২০২০ 
  3. Lal, Mohan; Amaresh Datta (১৯৯২)। Encyclopaedia of Indian Literature: Sasay-Zorgot (Volume 5)Sahitya Akademi। পৃষ্ঠা 4558।