সামুয়েল হানেমান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
স্যামুয়েল হ্যানেমান[১]
Samuel Hahnemann 1841.jpg
স্যামুয়েল হ্যানেমান
জন্ম ১০ এপ্রিল, ১৭৫৫
মৃত্যু ২ জুলাই, ১৮৪৩
জাতীয়তা জার্মান
কর্মক্ষেত্র হোমিওপ্যাথি

স্যামুয়েল হ্যানেমান

(জার্মান ভাষায়: [ˈhaːnəman];)[২] জার্মানির স্যাক্সনি প্রদেশে মেসেন শহরে ১৭৫৫ সালের ১০ এপ্রিল মধ্য রাতের পর জন্ম গ্রহণ করেন। এজন্য ইংরেজী ক্যালেন্ডার অনুসারে  কোথাও কোথাও তাঁর জন্ম তারিখ ১১ এপ্রিল বলে উল্লেখিত ও উদযাপিত হয়ে থাকে। জন্ম নেন।[৩]  তিনি ১৭৯৯ সালে তিনি ১৭৯৯ সালে ডক্টরেট অব মেডিসিন বা এম ডি ডিগ্রী লাভ করেন। তিনি তিনি ২ টি বিয়ে করেন, প্রথম স্ত্রী হলো   জোহনা হেনরিয়েটি লিওপোলডিনি কুসলার ও দ্বিতীয় স্ত্রী  মেরী মেলানী ডি. হারভিলী[৪] বিয়ে করেন। তিনি ১৮০৫ সালে হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা চালু করেন। ১৮১০ সালে চিকিৎসা নিয়মাবলী গ্রন্থ অর্গানন অব  রেসনাল হেলিং আর্ট (Organon der rationellen Heilkunde)[৫] জার্মানী ভাষায় প্রকাশ করেন পরবর্তীতে যা অর্গানন অব মেডিসিন নামে প্রকাশিত হয় অর্গানন গ্রন্থ প্রকাশ করেন। ১৮১২ সালের ২৯ শে সেপ্টেম্বর হতে ১৮২১ সাল পর্যন্ত লিপজিগ  বিশ্বিবিদ্যালয়ে হোমিওপ্যাথি বিষয়ে শিক্ষা দান করেন।। কথ্বেনে এসে সাফল্য পান। ১৮৩৫ সালের জুন মাসে জার্মানী ছেড়ে প্যারিসে বসবাস শুরু করেন এবং ১৮৪৩ সালে সালে প্যারিসেই মৃত্যুবরণ করেন।।

খৃস্টান ফ্রেডরিখ স্যামুয়েল হ্যানিম্যান ( জার্মান : [ haːnəman ] 10 এপ্রিল 1755 - 2 জুলাই 1843 ) - ক্রিশ্চিয়ান ফ্রেড্রিক স্যামুয়েল হ্যানেমান (Christian Friedrich Samuel Hahnemann)[৬] (ইসলাম পূর্ব নাম), জামুয়্যেল হ্যানেমান (ইসলাম গ্রহণ পরবর্তী নাম- জার্মান উচ্চারন); সামিউল হ্যানিম্যান (ইংরেজী উচ্চারণ) জন্মঃ ১০ এপ্রিল ১৭৫৫ ইংরেজী সন, মৃত্যুঃ ২ জুলাই ১৮৪৩ ইংরেজী সন, তিনি জার্মানীর একজন বিখ্যাত চিকিৎসক ছিলেন, তিনি বিকল্প চিকিৎসা পদ্ধতির [৭] (হোমিওপ্যাথি) আবিষ্কারক।



বাল্য কাল[সম্পাদনা]

জামুয়্যেল হ্যানেমান (জার্মান উচাচারণ) জার্মানীর সাক্সনী রাজ্যের ড্রেসড্রেন শহরের নিকটে মিশেনে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা ক্রিশ্চিয়ান গটফ্রিড হ্যানেমান Christian Gottfried Hahnemann চীনামাটির পাত্রের জন্য বিখ্যাত শহর মিশেন [৮] এ একজন চীনামাটির পাত্রের ডিজাইনার ও পেইন্টার ছিলেন। তিনি পিতা মাতার ৫ জন সন্তানের মধ্য ৩য় ছিলেন [৯] এবং শিশু বয়সেই বিজ্ঞান ও ভাষা শিক্ষায় দক্ষতা প্রদর্শন করেন। [১০]

মাতা- জোহানা ক্রিশ্চিয়ানা (Johonna Christiana) ছিলেন তাঁর পিতার দ্বিতীয় স্ত্রী। তাঁর গর্ভে স্যামুয়েল হ্যানেমান ছাড়াও অগাস্ট হ্যানেমান (August Hahnemann), চার্লোটি হ্যানেমান (Charlotee Hahnemann) ও মিনা হ্যানেমান (Minna Hahnemann) নামে এক ভাই ও দু’ বোনের জন্ম হয়। [১১]

পিতামহ- ক্রিস্টফ হ্যানেমান (Christoph Hahnemann) তিনি জার্মানীর লচেস্টেডে [[১২]] রং-তুলির কাজ করতেন।


যুবক বয়সেই হ্যানেমান বিভিন্ন ভাষায় দক্ষতা অর্জন করেন। তিনি ইংরেজি, ফরাসি, ইতালিয়ান, গ্রিক ও ল্যাটিন ভাষার ব্যুৎপত্তি লাভ করেন. এবং শেষ পর্যন্ত অনুবাদক ও ভাষার শিক্ষক হিসেবে জীবিকা নির্বাহ করতেন, তিনি এ ছাড়াও "আরবি, সিরিয়াক, চ্যাডউইক এবং হিব্রূ" ভাষাতে দক্ষতা অর্জন করেন. [১৩]


শিক্ষা জীবন[সম্পাদনা]

থাম্ব|লিপজিগ বিশ্ববিদ্যালয়ে

স্যামুয়েল হ্যানেমান এর বাল্যশিক্ষা ও লেখাপড়ায় হাতে খড়ি হয় বাবা-মায়ের কাছ থেকে। ১৭৬৭ সালের ২০ জুলাই ১২ বছর ২ মাস ১০ দিন বয়সে তাকে মিসেনের টাউন স্কুলে ভর্তি করা হয়। অতঃপর তিনি ১৭৭৪ সালের ২০ নভেম্বর ১৯ বছর বয়সে ফার্স্টেন অ্যাডল্যান্ডে স্কুল সেন্ট আফ্রা স্কুল তে ভর্তি হন। এখানে তিনি হিপোক্র্যাটিসের লেখার সাথে পরিচিত হওয়ার পাশাপাশি ল্যাটিন, গ্রীক ও হিব্রু ভাষা এবং ইতিহাস, পদার্থবিদ্যা ও উদ্ভিদবিদ্যা শিক্ষা করেন। চিকিৎসা বিদ্যা ছিল তার প্রিয় বিষয়। ১৭৭৫ সনে বিশ বছর বয়সে তিনি লিপজিগ বিশ্ববিদ্যালয়ে মেডিসিন বিভাগে ভর্তি হন। কিন্তু তিনি এ প্রতিষ্ঠানের অব্যবস্থাপনা ও কম সুযোগ সুবিধার জন্য অস্বস্তি বোধ করেন। মেডিসিন শিক্ষার্থীদের জন্য লিপজিগ না ছিল ক্লিনিক, না ছিল হাসপাতাল। [১৪] হ্যানেমান লিপজিগ এ ঔষধ নিয়ে দুই বছর পড়াশোনা করেন। [6] তার আয় কম থাকার কারনে তিনি অর্থের বিনিময়ে ইংরেজী হতে বই অনুবাদ এবং ধনী গ্রীকদেরকে ফ্রেঞ্চ ভাষা শিখানোর কাজ শুরু করেন। [১৫] এভাবেই হানেম্যান এর নিয়মিত ছাত্রজীবনের ইতি ঘটে।

পরবর্তীতে ১৭৭৭ সালে অস্ট্রিয়ার ভিয়েনার লিওপোল্ডস্টট জেলার ব্রাদার্স অব মার্সি হাসপাতালে [[১৬]] চিকিৎসা বিদ্যা শিখতে আসেন। এখানে তিনি হিপোক্রিটাস [[১৭]], গ্যালেন ও স্টোয়ার্কের লেখাগুলিা সম্পর্কে ভালভাবে জানতে পারেন। এছাড়াও প্রখ্যাত চিকিৎসক জে ভন কোয়ারিনের প্রত্যক্ষ সহানুভূতি লাভ করে তাঁর কাছে হাতে কলমে রোগী দেখার শিক্ষা পান। এ হাসপাতালে নয় মাস থাকার পর ছাত্রাবাস হতে হ্যানেমানের অর্থ চুরি যাবার ফলে ও দারিদ্রতার কারণে তার লেখাপড়া বন্ধ হয়ে যায়। তখন প্রফেসর জে ভন কোয়ারিনের সহযোগিতায় তিনি ট্রানসেলভ্যানিয়ার গভর্ণর ব্যারণ এস ভন ব্রউঁকেনথল এর সাথে হার্মানস্ট্যাটে চলে যান। এখানে তিনি গভর্ণরের মুদ্রা ও চিত্রকর্মের সংগ্রহশালার তত্ত্বাবধায়ক, লাইব্রেরিয়ান ও পারিবারিক চিকিৎসক হিসেবে কাজ করেন। একই সাথে হাতে কলমে বাইরের রোগী দেখার ও ব্যাপক পড়াশুনার সুযোগ পান। এরপর আবার ১ বছর ৯ মাস পরে ১৭৭৯ সালে এরল্যাঞ্জেন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা শুরু করেন। এরপর আবার ১ বছর ৯ মাস পরে ১৭৭৯ সালে এরল্যাঞ্জেন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশুনা শুরু করেন। এখানে তিনি হেফ্রাথ স্কেবারের কাছে এসে উদ্ভিদবিদ্যায় পারদর্শী হন এবং ১৭৭৯ সালের ১০ ই আগষ্ট চিকিৎসাবিদ্যায় ডক্টরেট অব মেডিসিন বা এম.ডি ডিগ্রী লাভ করেন। এ ডিগ্রী লাভের জন্য হ্যানেমান “ আপেক্ষিক রোগের কারণ ও এর চিকিৎসা” (Conspectus adfectuum spasmodicorum aetiologicus et therapeuticus)[[১৮]] [[১৯]] বিষয়ে ২০ পৃষ্ঠা ব্যাপী একখানা ছাপানো গবেষনাপত্র পেশ করেছিলেন।[২০]


ভাষাবিদ, অনুবাদক ও লেখক[সম্পাদনা]

স্যামুয়েল হ্যানেমান ২২ বছর বয়সে ১১টি ভাষায় সুপন্ডিত হন, যেমন- জার্মান, গ্রীক, ল্যাটিন, ইংরেজী, ইটালিয়ান, হিব্রু, সিরিয়ান, আরবি, স্প্যানিশ, ফরাসি ও চ্যাডউইক। মিসেনের টাউন স্কুলে পড়ার সময় তিনি তাঁর নিচের শ্রেনীর শিক্ষার্থীদেরকে গ্রীক ভাষা শেখাতেন। সেন্ট আফ্রা বিদ্যালয় হতে বিদায়ের সময় “মানুষের হাতের অদ্ভূদ গড়ন” শিরোনামে ল্যাটিন ভাষায় প্রবন্ধ লেখেন। লিপজিকে পড়ার সময় রাতে ধনী গ্রীক সন্তানদেরকে জার্মান ও ফ্রেঞ্চ ভাষা শেখাতেন।

তিনি একজন নামকরা অনুবাদক ছিলেন। বিজ্ঞান, রসায়ন, চিকিৎসা বিজ্ঞান, কৃষিবিদ্যা, দর্শন, সাধারণ সাহিত্যকর্ম বিভিন্ন বিষয়ে বিভিন্ন ভাষা হতে জার্মান ভাষায় অসংখ্য বই পত্র অনুবাদ করেন। যেমন (১) ইংরেজী ভাষা হতে ১৫ টি বইয়ের মোট ২১ খন্ড (১৭৭৭-১৮০০), (২) ফ্রেঞ্চ বা ফরাসি ভাষা হতে ৬ টি বইয়ের মোট ৯টি খন্ড (১৭৮৪-১৭৯৬), (৩) ইটালিয়ান ভাষা হতে ১ টি (১৭৯০) ও (৪) ল্যাটিন হতে ১ টি বই (১৮০৬)। তাঁর এ অসাধারণ ভাষাজ্ঞান ও অনুবাদ-কর্ম পরবর্তী কালে নিজের অসংখ্য লেখার উপর প্রভাব বিস্তার করেছিল। নিজেও তা থেকে ব্যাপক জ্ঞান লাভ করেন। এমনকি ১৭৯০ সালে উইলিয়াম কুলেন (১৭১০-১৭৯০) এর ইংরেজী লেখা “ এ টিয়েটাইজ অব মেটেরিয়া মেডিকা” এর দ্বিতীয় খন্ড অনুবাদ কালে তিনি হোমিওপ্যাথির আরোগ্য নীতি “লাইক কিউর লাইক” আবিষ্কার করেন। তিনি ১৮০৪ সালে দেশাউতে অবস্থানকালে প্রচলিত অ্যালোপ্যাথিক চিকিৎসা সেবা প্রদান হতে বিরত থাকেন এবং কেবল মাত্র লেখার কাজে আত্মনিয়োগ করেন। “ এই সকল অজানা চিকিৎসা পদ্ধতি দ্বারা আমার রোগভোগকারী ভাইদেরকে চিকিৎসা করতে আমার বিবেক আমাকে সহজেই অনুমোদন দেয় না। চিন্তাধারা এমনদিকে যাচ্ছিল যেন আমি একজন অনিষ্টকারী খুনি অথবা মানুষের অমঙ্গলসাধক, সুতরাং আমি আমার বিয়ের প্রথম বছরেই এই ভয়ানক চিকিৎসা পদ্ধতি ছেড়েই দেই এবং নিজেকে রসায়ন শাস্ত্র ও অনুবাদকের কাজে নিয়োজিত করি” [[২১]]। এছাড়া ১৭৭৯ সাল থেকে ১৮৪৩ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন ভাষায় অসংখ্য মৌলিক রচনাদি, বই পত্র, পত্রিকায় প্রবন্ধ রচনা করেন। [২২]

হ্যানেমানের রচনাবলী[২৩][সম্পাদনা]

বই

১) ফ্রাগমেন্ট দ্য ভিরিবাস  মেডিকামেন্টোরাম পজিটিভিজ সিভ ইন স্যানোকর্পোরি হিউম্যানো অবজার্ভেটিস[২৪] -১৮০৫. ২)অর্গানন অব আর্ট অব হেলিং -১৮১০. ৩) মেটেরিয়া মেডিকা পিউরা-১৮১১. ৪) রেপার্টরিয়াম -১৮১৭. ৫) ক্রণিক ডিজিজেস, দেয়ার পিকিউলিয়ার নেচার এন্ড হোমিওপ্যাথিক কিউর -১৮২৮. ৬) স্ক্রফিউলা ক্ষত ও এর চিকিৎসা ৭) যৌন রোগে সার্জনদের প্রতি নির্দেশনা -১৭৮৯.

প্রবন্ধ 

১) ডা. ক্রেব এর চিকিৎসা বিষয়ক গবেষণা -১৭৮১. ২) পুরাতন ক্ষত ও আলসার রোগের নির্দেশনা -১৭৮৪.  ৩) চিকিৎসা বিদ্যার পুনর্জন্মের প্রয়োজন  ৪) আর্সেনিকের বিষক্রিয়া, এর চিকিৎসা ও বিচার বিভাগীয় সত্য উদঘাটন -১৭৮৬. ৫) পিত্ত ও পিত্তপাথুরী ৬) পচন নিরোধক একটা অসাধারণ শক্তিশালী ঔষধ -১৭৮৮. ৭) স্বাস্থের বন্ধু-১৭৮৯.

এছাড়াও যা উল্লেখ যোগ্য

১) ঔষধ প্রুভিং রিপোর্টের ওপর লেখা ১০ খন্ড বই। ২) রসায়ন ও চিকিৎসা বিদ্যার ওপর লেখা ৭০টি মৌলিক রচনা। ৩) ২৪ জন লেখকের ইংরেজী, ল্যাটিন, ফরাসি ও ইটালিয়ান ভাষার লেখা থেকে জার্মান ভাষায় অনূদিত ২৩ খানা বইয়ের সর্বমোট ৩২ খন্ড রচনা সম্ভার। ৪) রোগীর কেস রেকর্ড বই-৫৪ টি।


শিক্ষক[সম্পাদনা]

ছাত্র জীবনের হ্যানেমান বিভিন্ন ভাষা শেখানের শিক্ষক ছিলেন। কিন্তু তিনি হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা পদ্ধতি আবিস্কার করার পর, হোমিওপ্যাথি শিক্ষার প্রচার ও প্রসারের জন্য হোমিওপ্যাথি হাসপাতালের সংলগ্ন কলেজ প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন। তবে তা সফল হয় নি। ১৮১১ সালের ডিসেম্বর মাসে তিনি ৬ মাস ব্যাপী শিক্ষা কোর্সের জন্য এক বিজ্ঞপ্তি দেন কিন্তু তা ছাত্রদের উৎসাহের অভাবে কার্যকর হয় নি। অতঃপর ১৮১২ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর হতে ১৮২১ সাল পর্যন্ত লিপজিগ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতি বছর ছয় মাস ধরে হোমিওপ্যাথি বিষয়ে বক্তৃতা দিতেন। প্রত্যেক শনি ও বুধবার বিকাল ২টা হতে ৩টা পর্যন্ত এ ক্লাশ চলত। তাঁর এ ক্লাশে ছাত্র, চিকিৎসক, আইনজীবী, বুদ্ধিজীবী, যুবক, বৃদ্ধ প্রভৃতি ধরনের লোকের সমাবেশ ঘটে। [২৫]


রসায়নবিদ ও ঔষধ প্রস্তুতকারক[সম্পাদনা]

রসায়নবিদ হিসেবে হ্যানেমানের সুখ্যাতি ছিল। তিনি সর্ব প্রথম পারদ[২৬] এর শক্তিকরণ (Dynamization) ও ব্যবহার পদ্ধতি আবিস্কার করেন। হ্যানেমান এ সমন্ধে অনেক প্রবন্ধ ও বই রচনা করেন। অনেক বই অনুবাদও করেন। তাঁর এসব অবদানের জন্য ক্রেল, গটলিং, স্কিরার, টম্স ডর্ফ, ক্রাউস, গমেলিন প্রমূখ বিখ্যাত প্রফেসর ও প্রখ্যাত রসায়নবিদ বার্জেলিয়াস[২৭] ভূয়সী প্রশংসা করেন। হ্যানেমান শুধু রসায়নবিদই ছিলেন না, তিনি নিজেই ঔষধ আবিস্কার, প্রস্তুত ও রোগীদেরকে প্রয়োগ করতেন। কিন্তু এ নতুন ঔষধ প্রস্তুত ও প্রচলন এবং একজন চিকিৎসক হয়ে নিজের ঔষধ নিজে প্রস্তুত করায় লিপজিকের অ্যালোপ্যাথি ঔষধ প্রস্তুতকারক ও বিক্রেতারা হ্যানেমানের চরম বিরোধিতা করেন। এমনকি তাকে লিপজিগ থেকে তাড়ানোর চেষ্টা করেন।


চিকিৎসাবিদ্যা অনুশীলন[২৮][সম্পাদনা]

অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসক[সম্পাদনা]

হ্যানেমান তার পূর্বের আড়াই হাজার বছরের চিকিৎসা বিজ্ঞানের ইতিহাস অধ্যয়ণ ও পর্যালোচনা করেন। তিনি ১৭৭৮-১৭৭৯ সাল পর্যন্ত ছাত্র অবস্থাতেই ট্রানসেলভেনিয়ার গভর্ণরের পারিবারিক চিকিৎসক ছিলেন। এছাড়া এসময় বাইরের রোগীও দেখতেন। কিন্তু এম.ডি ডিগ্রীধারী চিকিৎসক হিসেবে ১৭৮১ সালে তাম্রখনি অঞ্চল হিসেবে খ্যাত ম্যান্সফিল্ড রাজ্যের হেটস্টেড শহরে সর্বপ্রথম চিকিৎসা পেশা শুরু করেন। ১৭৮১ সালের শেষ দিকে তিনি ম্যাগডিবার্গের নিকটবর্তী গোমেরন এ জেলা মেডিকেল অফিসার নিযুক্ত হন। এসময় তিনি প্রচলিত অ্যালোপ্যাথি চিকিৎসার কুফল ও অসারতা উপলব্ধি করে তার বিভিন্ন প্রবন্ধ ও বইতে এ বিষয়ে তীব্র সমালোচনা শুরু করেন। যেমন প্রবন্ধ ডা. ক্রেব[২৯] এর “চিকিৎসা বিষয়ক গবেষণা”[৩০] (১৭৮১),“ পুরাতন ক্ষত ও আলসার রোগের নির্দেশনা” (১৭৮৪), “চিকিৎসা বিদ্যার পুনর্জন্মের প্রয়োজন” ও বই “ স্ক্রফিউলা ক্ষত ও এর চিকিৎসা”। ১৭৮৫ সালে তিনি ড্রেসড্রেনে আসেন এবং ১ বছর শহরের বিভিন্ন হাসপাতালে কাজ করেন ও চিকিৎসা আইনবিদ্যায় দক্ষতা অর্জন করেন। এসময় তিনি “আর্সেনিকের বিষক্রিয়া, এর চিকিৎসা ও বিচার বিভাগীয় সত্য উদঘাটন” (১৭৮৬); “পিত্ত ও পিত্তপাথুরী” এবং “পচন নিরোধক একটা অসাধারণ শক্তিশালী ঔষধ” (১৭৮৮) নামে কয়েকটি প্রবন্ধ প্রকাশ করেন। ১৭৮৯ সালের সেপ্টেম্বর থেকে তিন লিপজিকে চিকিৎসা শুরু করেন। এসময় তাঁর “ যৌন রোগে সার্জনদের প্রতি নির্দেশনা” (১৭৮৯) পুস্তিকা প্রকাশ পায়। ১৭৮৯ সালে “স্বাস্থের বন্ধু” বইতে স্বাস্থ বিধি ও জলাতংক রোগের চিকিৎসা সম্পর্কে মূল্যবান বক্তব্য রাখেন এবং “সিফিলিস প্রসংগে” প্রবন্ধে সিফিলিসে পারদের সূক্ষ্মমাত্রা ব্যবহারের নির্দেশ দেন।


হোমিওপ্যাথি আবিস্কার ও চিকিৎসক[সম্পাদনা]

হ্যানেমান তার সময়ের প্রচলিত চিকিৎসা ব্যবস্থার প্রতি বিরূপ ছিলেন এবং ঐ চিকিৎসার উদ্দেশ্য তাকে ক্ষতবিক্ষত করে দিচ্ছিল। তিনি দাবি করলেন যে তাকে যে ঔষধ সম্পর্কে শেখানো হয়েছে তা রোগীর ভালর চেয়ে বেশী ক্ষতিকর।

“এই সকল অজানা চিকিৎসা পদ্ধতি দ্বারা আমার রোগভোগকারী ভাইদেরকে চিকিৎসা করতে আমার বিবেক আমাকে সহজেই অনুমোদন দেয় না। চিন্তাধারা এমনদিকে যাচ্ছিল যেন আমি একজন অনিষ্টকারী খুনি অথবা মানুষের অমঙ্গলসাধক, সুতরাং আমি আমার বিয়ের প্রথম বছরেই এই ভয়ানক চিকিৎসা পদ্ধতি ছেড়ে দেই এবং নিজেকে রসায়নশাস্ত্র ও অনুবাদকের কাজে নিয়োজিত করি”[৩১]

১৭৮৪ সালের দিকে চিকিৎসা পেশা ছেড়ে দেবার পর হ্যানেমান লেখনী ও অনুবাদকের কাজ করে কষ্টেসৃষ্টে তাঁর জীবন নির্বাহ এবং পাশাপাশি বিভিন্ন ঔষধে বর্ণিত চিকিৎসাগত অসঙ্গতি বের করার কাজও করেন। উইলিয়াম কুলেন [৩২] এর “এ ট্রিয়েট্রাইজ অন মেটেরিয়া মেডিকা” (A Treatise on the Materia Medica) বইটি অনুবাদ করার সময় হ্যানেমান পেরুভিয়ান বার্ক থেকে তৈরী ম্যালেরিয়া (malaria) জ্বরের জন্য “সিঙ্কোনা” (cinchona) নামক গাছের ছালের কার্যকারিতা দেখতে পান। হ্যানেমান বিশ্বাস করলেন যে ম্যালেরিয়া জ্বরে সিঙ্কোনা’র মত অন্যান্য সহায়ক উপাদান (astringent substances) ততটা কার্যকরী নয় এবং তাই তিনি “সিঙ্কোনা” (cinchona) গাছের বাকল এর কার্যকারীতা নিজদেহে পরীক্ষা করা শুরু করলেন, দেখলেন যে এটা ম্যালেরিয়ার মত তাঁর দেহে [৩৩] কম্পজ্বর উৎপন্ন করছে এবং এটা যে কোন সুস্থ দেহেই করতে সক্ষম। এ বিষয়টি তাকে একটি মৌলিক নীতির দিকে ধাবিত করে “ যা একজন সুস্থ ব্যক্তির উপর প্রয়োগের ফলে বিভিন্ন লক্ষণ সমষ্টির উৎপন্ন করতে পারে, তা একই রকম লক্ষন সমষ্টি সমৃদ্ধ অসুস্থ দেহে প্রয়োগ করলে নিরাময় করতে সক্ষম” [৩৪] এটাই “লাইক কিউর লাইক” (like cures like) যা একটি নতুন ধারার চিকিৎসা পদ্ধতির প্রচেষ্টা এবং তিনি এর নাম দেন হোমিওপ্যাথি। ১৮০৭ সালে হুফেলান্ড (Hufeland)[৩৫] জার্নাল এ প্রকাশিত ইন্ডিকেশনস অব দ্যা হোমিওপ্যাথিক ইমপ্লয়মেন্ট অব মেডিসিনেস ইন অর্ডিনারি প্র্যাকটিস (Indications of the Homeopathic Employment of Medicines in Ordinary Practice) নামে এক প্রবন্ধে প্রথম “ হোমিওপ্যাথি” (homeopathy)[৩৬] শব্দটি হ্যানেমান প্রথম ব্যবহার করেন। "২৫০০ বছরের চিকিৎসা ইতিহাসে শুধুমাত্র আলব্রেচ ফন হেলারই বুঝতে পেরেছিলেন যে এটাই প্রাকৃতিক পদ্ধতি, অত্যন্ত প্রয়োজনীয় এবং সঠিক ঔষধ প্রয়োগ পদ্ধতি যা মানুষের সঠিক স্বাস্থের উপর প্রভাব ফেলে এবং আমি তার পরবর্তী ব্যক্তি যে আবার এই প্রাকৃতিক পদ্ধতি চালু করলাম"।[৩৭]  হ্যানেমান পুরাতন চিকিৎসা পদ্ধতি অ্যালোপ্যাথিকে ওল্ড স্কুল এর চিকিৎসা পদ্ধতি বলে অভিহিত করতেন।[৩৮] তিনি ১৭৯২ সালে টুরিংগেন জংগলে জর্জেন্থল এর পাগলা গারদের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। এখানে হ্যানেমান হ্যানোভার মন্ত্রী ক্লকেন ব্রিং এর বিষাদ উন্মাদ চিকিৎসা করেন। এ সময় তিনি রক্তমোক্ষণকারী চিকিৎসা ব্যবস্থা ও মানসিক রোগীর চিকিৎসার নির্যাতনমূলক পদ্ধতির তীব্র সমালোচনা করেন। [৩৯]

হোমিওপ্যাথির উন্নয়ন[সম্পাদনা]

১৮০১ সালে আরক্তজ¦রের প্রতিষেধক হিসেবে তিনি “ বেলেডোনা” ব্যবহারের উপদেশ দেন। প্রুশিয়া সরকার এটা সব চিকিৎসক কে ব্যবহার করতে নির্দেশ দেন। এছাড়াও হ্যানেমান ১৮১৩ সালে জার্মানীতে টাইফাস ও হসপিটাল জ¦রে যথাক্রমে “ব্রায়োনিয়া” ও “রাসটক্স” ব্যবহারের পরামর্শ দেন।[৪০]

তিনি হোমিওপ্যাথির উন্নয়নে যে সকল পদ্ধতি প্রচলন করেন, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য- ১) পরীক্ষামূলক ও আরোগ্যকারী সদৃশবিধানে প্রাকৃতিক চিকিৎসা পদ্ধতি (সিমিলিয়া-সিমিলিবাস-কিউরেন্টার)[৪১], ২) সুস্থ মানব দেহে ঔষধ পরীক্ষা করে ঔষধের কার্যকরী ক্ষমতা নির্ধারণ, ৩) চিকিৎসা ক্ষেত্রে জীবনীশক্তি তত্ত্বের আবিস্কার [৪২] , ৪) রোগ সংক্রমণ তত্ত্ব ও কলেরার কারণ প্রসংঙ্গে জীবাণুতত্ত্বের পূর্বাভাষ ৫) চির বা স্থায়ী রোগ তত্ত্ব, ৬) অপরাধ তত্ত্ব ও অপরাধ প্রবণতা, ৭) রোগীর পূর্ণাঙ্গ চিকিৎসা পদ্ধতি, ৮) মানসিক রোগের চিকিৎসা পদ্ধতি ও নির্যাতনমূলক চিকিৎসার বিরোধিতা, ৯) ঔষধের শক্তিকরণ ও নতুন শক্তিকরণ পদ্ধতি (৫০ সহস্রতমিক পদ্ধতি), ১০) ঔষধকে শক্তিকৃত ও অবিমিশ্রিত অবস্থায় সূক্ষ্ম পরিবর্তিত মাত্রায় প্রয়োগ, ১১) পথ্যবিজ্ঞানে নির্দিষ্ট নিয়মনীতি- খাদ্যতত্ত্ব ও পথ্যাপথ্যেও প্রয়োজনীয়তা, ১২) স্বাস্থ্যতত্ত্ব ও নাগরিক স্বাস্থ্য - পাগলাগারদ, এতিমখানা ও জেলের স্বাস্থ্যবিধির দুর্দশা এবং ব্যয়াম সহ স্বাস্থ রক্ষার নিয়মাবলী, ১৩) সার্জারিতে ড্রাই ড্রেসিং ও অস্থি চাঁচন পদ্ধতি, ১৪) পারদকে দ্রবীভূত করা ও এর সূক্ষ্ম উগ্রতাবিহীন প্রস্তুতি ও সফল ব্যবহার, আর্সেনিকের ক্রিয়া প্রসংগ ও চিকিৎসা আইনে রাসায়নের অবদান, মদে ভেজাল নির্ধারণ পদ্ধতি, বিষের ব্যবহার ও সংরক্ষণ বিধি, ব্যবস্থাপত্রের বিধি, ভেষজের জলীয় অংশ নিষ্কাশন, বাষ্পীয় পাতন ও তরল মাধ্যমে ভেষজের নির্যাসের বাষ্পীয়ভবন, টাটকা গাছ থেকে আরক তৈরী, ইত্যাদি। তিনি রোগ ও ঔষধের লাক্ষণিক উৎস আবিস্কার করে চিকিৎসা বিজ্ঞানকে  বৈজ্ঞানিক ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠা করেন। [৪৩]


পরিবার পরিজন[৪৪][সম্পাদনা]

জোহনা হেনরিয়েটি লিওপোলডিনি কুসলার

প্রথম স্ত্রী জোহনা হেনরিয়েটি লিওপোলডিনি কুসলার[৪৫] যাকে হ্যানেমান ২৮ বছর বয়সে বিবাহ করেন, তখন জোহনা হেনটিয়েটির বয়স ছিল ১৯ বছর, ১৭৮২ সালের ১৭ নভেম্বর তাদের বিয়ে হয়। এঁর গর্ভে হ্যানেমানের ৯ কন্যা ও ২ পুত্রের জন্ম হয়।

মেলানি ডি হারভিলি

দ্বিতীয় স্ত্রী মাদাম মেরী মেলানী ডি. হারভিলী[৪৬] হ্যানেমান ৮০বছর বয়সে বিবাহ করেন, তখন ম্যালানী ডি. হারভিলীর বয়স ছিল ৩২ বছর, ১৮৩৫ সালের ১৮ জানুয়ারী তাদের বিয়ে হয়। তিনি ছিলেন অত্যন্ত সুন্দরী, ধনবতী, বিশিষ্ট চিত্রকর ও নামকরা কবি। হ্যানেমানের জীবনের চরম সাফল্যের দিনগুলিতে তিনি সুযোগ্য সহধর্মিণী হিসেবে যথেষ্ট অবদান রাখেন। শেষ জীবনে তিনি হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা সেবা প্রদান করতেন।

১) প্রথম কন্যাঃ হেনরিয়েটি , এর গর্ভে ২ ছেলে ও ২ মেয়ে জন্ম গ্রহণ করে।

২) প্রথম পুত্রঃ ফ্রেড্রিক , তিনি ভাই বোনদের মাঝে দ্বিতীয় এবং হ্যানেমানের প্রথম ছেলে। শিশুকালে রিকেট রোগের কারণে তাঁর বুক উচু ও মেরুদন্ড বাঁকা হয়ে যায়। তিনি ১৮০৮ সাল থেকে লিপজিক বিশ^বিদ্যালয়ে পড়তেন এবং ২৬ বছর বয়সে চিকিৎসা বিদ্যায় ‘ডক্টরেট ডিগ্রী’ এম.ডি লাভ করেন। আর্জ পর্বতশ্রেণীর ভলকেনস্টেইন এ তিনি হোমিওপ্যাথি চিকিৎসা প্রদান আরম্ভ করেন। তিনি হল্যান্ড ও হামবুর্গে চিকিৎসা করার পর ইংলেন্ডে চলে যান। কিন্তু ১৮২৮ সালের পর তাঁকে আর পাওয়া যায় নি।

৩) ভিলহেলমিনি ইনি হ্যানেমানের দ্বিতীয়া কন্যা, তাঁর গর্ভে এক পুত্রের জন্ম হয়।

৪) অ্যামেলি [৪৭] অ্যামেলি ছিলেন হ্যানেমানের তৃতীয়া কন্যা। তাঁর প্রথম বিবাহ হয় ডা. লিওপোল্ড সাসের সঙ্গে। তাঁর ঔরসে লিওপোল্ড সাস হ্যানেমান (১৮২৬-১৯১৪) নামে এক পুত্রের জন্ম হয়। তিনি হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসক ছিলেন।চিকিৎসা করতেন ইংল্যান্ডের ভেন্টরে। পরবর্তীকালে অ্যামেলি দ্বিতীয়বার বিবাহ করেন লিবে নামক এক মিল পরিদর্শক কে। কিন্তু লিবে তাকে পরে তালাক দেন।

৫) ক্যারোলিনি হ্যানেমানের এ চতুর্থা কন্যা অবিবাহিতা অবস্থায় ১৮৩১ সালের পূর্বে আততায়ীর হাতে নিহত হয়।

৬) আর্ণষ্ট একই বছর জন্ম ও মৃত্যু। হ্যানেমান যখন মোল্সক্লিবেন থেকে পিরমেন্টে যাচ্ছিলেন তখন মূলহৌসেন নামক স্থানে শকট ( ঘোড়া গাড়ী) দুর্ঘটনায় তাঁর এ দ্বিতীয় পুত্রের মৃত্যু ঘটে।

৭) ফ্রেড্রিকি হ্যানেমানের এ পঞ্চমা কন্যার দু’বার বিয়ে হয়। আততায়ীর হাতে তিনি মারা যান।

৮) হ্যানেমানের পঞ্চমা কন্যা (১৭৯৫) ফ্রেড্রিকির সাথে অপর এক জমজ কন্যা মৃত অবস্থায় জন্মেছিল।

৯) ইলিওনোরি তিনি হ্যানেমানের সপ্তম কন্যা। তার দুইবার বিয়ে হয়েছিল, প্রথম স্বামীর নাম হের ক্লেমান । দ্বিতীয় স্বামীর নাম ডা. উলফ । তবে পরে ডা. উল্ফ তাকে তালাক দিয়েছিলেন। ইলিওনোরি হোমিওপ্যাথিক এ্যাডভাইসর ফর দ্যা হোম (Homoeopathic Advisor for the Home) পুস্তক প্রকাশ করেন।

১০) চার্লেটি[৪৮] হ্যানেমানের অষ্টমা কন্যা চার্লেটি অবিবাহিতা ছিলেন।

১১) লুুইসি হ্যানেমানের নবমা কন্যা লুইসি। হ্যানেমানের সহকারী ডা. মসডর্ফের সাথে লুইসির বিয়ে হয়। কিন্তু মসডর্ফ তাকে তালাক দেন। হ্যানেমানের দ্বিতীয় স্ত্রী মাদাম মেলানী ডি. হারভিলির গর্ভে কোন সন্তান জন্মেনি।

ইসলাম গ্রহন[সম্পাদনা]

হোমিওপ্যাথিক চিকিৎসা বিজ্ঞানের আবিষ্কর্তা ডা. স্যামুয়েল হ্যানেমানের ইসলাম গ্রহণ নিয়ে বেশ বিতর্ক চলছে। ডা. হুদহুদ  মোস্তাফা এক নিবন্ধে অনেক কথা লিখেছেন । ১৯৯৮ সালে লন্ডনে এক  সেমিনারে ডা. মোস্তাফার সাক্ষাৎ ঘটে এক ইঞ্জিনিয়ারের সঙ্গে। তার নাম উইলিয়াম হ্যানেম্যান। বিজ্ঞানী ডা. স্যামুয়েল হ্যানেমানের এক উত্তর-পুরুষ তিনি। বিশ্বাসে ক্যাথলিক খ্রিস্টান। তিনি জানান, যে  হোমিওপ্যাথিক চিকিসা বিজ্ঞানী ডা. স স্যামুয়েল হ্যানেমান গবেষণার এক পর্যায়ে ইসলাম গ্রহণ করে মুসলিম হয়েছিলেন এবং তিনি আমৃত্যু ইসলমি বিশ্বাসেই প্রতিষ্ঠিত ছিলেন।  যে কারণে তিনি নিজ জন্মভূমি, স্বজাতি, আত্মীয়-পরিজন ত্যাগ করে দ্বিতীয় স্ত্রী মাদাম ম্যালানিকে নিয়ে প্যারিসে হিজরত করেত বাধ্য হয়েছিলেন। মাদাম ম্যালানিও স্বামীর সঙ্গে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছিলেন। হ্যানিম্যানের অনুসন্ধান স্পৃহা অত্যন্ত প্রবল ছিল। তিনি চিকিৎসা বিজ্ঞান সম্বন্ধে ব্যাপক জ্ঞান আহরণের জন্য বহু ভাষা শিক্ষা লাভ করেন। বিভিন্ন সভ্যতার যুগে চিকিৎসাব্যবস্থা সম্পর্কে ব্যাপক গবেষণা করতে গিয়ে ইসলামের স্বর্ণযুগের আবিষ্কার ও চিকিৎসাব্যবস্থা সম্পর্কে ভালোভাবে জ্ঞান লাভের জন্য আরবি ভাষায় দক্ষতা অর্জন তদুপরি আরব বণিক ও পরিব্রাজকদের কাছ থেকে মধ্যপ্রাচ্যের চিকিৎসাব্যবস্থার পাশাপাশি তাদের ধর্ম সম্পর্কেও অবগত হন। আরবি ভাষায় দক্ষতার কারণে মহাগ্রন্থ আল  কোরআনও তিনি অধ্যয়ন করেন এবং এক শুভক্ষণে তিনি ইসলামের কালেমা পাঠ করে মনেপ্রাণে মুসলিম হয়ে যান। এ ঘটনা জানাজানি হয়ে পড়লে হ্যানিম্যানের আত্মীয় স্বজন তার প্রতি বিরূপ হয়ে পড়েন। চির পরিচিতি পরিবেশ তার বিরুদ্ধে চলে যায় শান্তি ও নিরাপত্তার স্বার্থে সব সহায়-সম্পদ উত্তরাধিকারী ও আত্মীয় জনের মধ্যে বিলিবন্টন করে তিনি ইসলামে নবদীক্ষিত স্ত্রী মাদাম ম্যালানিকে নিয়ে প্যারিসের পথে হিজরত করেন। এসময়টা ছিল ১৮৩৫ সালের জুন মাস। তারা তাদের জীবদ্দশায় আর কখনো জার্মানিতে ফিরে যাননি। পায়ুস প্যালেস, গ্রেট অর্মন্ড, লন্ডন, ইউকে তে হ্যানেমান মিউজিয়ামে  হ্যানেমান এর ব্যবহৃত পাত্র, বই, কাপড় চোপর এর বিশাল সংগ্রহ রয়েছে, এমন কি সেখানে মুসলিমদের জায়নামাজ যা অনেকবার নামাজ পড়ার কারনে  সিজদার স্থানে দাগ পড়ে আছে, তসবিহ, একটি তুর্কি টুপি, এমন কি বই এর মধ্য একটি আল কুরআন ও পাওয়া গেছে। [৪৯] " হানিম্যান এর উইল অনুসারে মেলানী ডি. হারভিলি হ্যানেমানের মৃত দেহ সৎকার করার জন্য ৯ দিন পর্যন্ত মুসলিমদের জন্য অপেক্ষা করেছেন।[৫০]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

হ্যানেমান ১৮৪৩ সালের ২ জুলাই রোববার ভোর ৫ ঘটিকার সময় প্যারিসে নিজের ঘরে রুই দ্য মিলান নং -১ স্থানে মৃত্যুবরণ করেন। জীবনের শেষ বিশ ( ডা. হুল ও ডা. ব্রাডফোর্ড এর মতে; দশ) বছর তিনি প্রতি বসন্তে শ্বাস নালীর সর্দি (Bronchial Catarrh)রোগে আক্রান্ত হতেন। জীবনের শেষ মূহুর্তে ১৩ ঘন্টা ধরে ক্রমান্বয়ে শ্বাসকষ্ট দেখা দিয়ে শ্বাস রোধ হয়ে তাঁর মৃত্যু ঘটে। ১৮৪৩ সালে প্যারিসের মন্টমার্টরী পর্বতের সমাধিক্ষেত্রে ৮ নং কবরে তাকে মাদাম মেলানী ও এক চাকরের সহায়তায় মুসলিম মতে দাফন করা হয়।[৫১] পরবর্তীতে ৫৫ বছর পর ১৮৯৪ সালে তাকে খ্রিষ্টান মতে পিয়ের ল্যাসেইসি সিমেটেরিতে দাফন ও বিভিন্ন স্থানে মুর্তিসহ ৯টি স্মৃতিসৌধ স্থাপন করা হয়। [৫২]

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

  • .A Tex Book of Principles of Homoeopathy by M.M. Abul Monsur & Gurudas Sarkar 2nd edition 21 feb 1999; Published By Hassan Book House, 65, Pyaridas Road, Banglabazar, Dhaka-1000, Bangladesh;

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Brockmeyer, Bettina (২০০৭)। "Representations of illness in letters addressed to Samuel Hahnemann: gender and historical perspectives"। Medizin, Gesellschaft, und Geschichte : Jahrbuch des Instituts für Geschichte der Medizin der Robert Bosch Stiftung (German ভাষায়) 29: 211–221, 259। পিএমআইডি 18354994 
  • Kayne, Steven (২০০৬)। "Samuel Hahnemann (1755–1843): the founder of modern homeopathy."। Pharmaceutical historian 36 (2 Suppl): S23–6। পিএমআইডি 17153748 
  • Brockmeyer, Bettina (২০০৫)। "Writing about oneself and others: men and women in letters to doctor Samuel Hahnemann 1831–1835"। Würzburger medizinhistorische Mitteilungen / im Auftrage der Würzburger medizinhistorischen Gesellschaft und in Verbindung mit dem Institut für Geschichte der Medizin der Universität Würzburg (German ভাষায়) 24: 18–28। পিএমআইডি 17153289 
  • "Biographic synopsis on Samuel Hahnemann"। Revista de enfermería (Barcelona, Spain) (Spanish ভাষায়) 28 (3): 10–16। ২০০৫। পিএমআইডি 15871338 
  • Eschenbruch, Nicholas (২০০৫)। "Rationalist, magician, scharlatan? Samuel Hahnemann and homeopathy from the viewpoint of homeopathy"। Schweiz. Rundsch. Med. Prax. (German ভাষায়) 94 (11): 443–446। পিএমআইডি 15822443 
  • Jutte, R. (১৯৯৯)। ""Thus it passes from the patient's purse into that of the doctor without causing displeasure" – Samuel Hahnemann and medical fees"। Medizin, Gesellschaft, und Geschichte : Jahrbuch des Instituts für Geschichte der Medizin der Robert Bosch Stiftung (German ভাষায়) 18: 149–167। পিএমআইডি 11624613 
  • de Goeij, C. M. (১৯৯৪)। "Samuel Hahnemann: an indignant systems builder"। Nederlands tijdschrift voor geneeskunde (Dutch ভাষায়) 138 (6): 310–314। পিএমআইডি 8121514 
  • Rizza, E. (১৯৯৪)। "Samuel Hahnemann: a mystical empiricist. A study of the origin and development of the homeopathic medical system"। Medicina nei secoli (Italian ভাষায়) 6 (3): 515–524। পিএমআইডি 11620590 
  • Meissner, M. (১৯৯২)। "Samuel Hahnemann—the originator of homeopathic medicine"। Krankenpflege Journal 30 (7–8): 364–366। পিএমআইডি 1405462 
  • Schmidt, J. M. (১৯৮৮)। "The publications of Samuel Hahnemann"। Sudhoffs Archiv 72 (1): 14–36। পিএমআইডি 2970128 
  • Lozowski, J. (১৯৮২)। "Homeopathy (Samuel Hahnemann)"। Pielȩgniarka i połozna (Polish ভাষায়) (4–5): 16–17। পিএমআইডি 6750668 
  • Habacher, M. (১৯৮০)। "Homöopathische Fernbehandlung durch Samuel Hahnemann"। Medizinhistorisches Journal (German ভাষায়) 15 (4): 385–391। পিএমআইডি 11610925 
  • Antall, J.; Kapronczay, K. (১৯৭৩)। "Samuel Hahnemann"। Orvosi hetilap 114 (32): 1945–1947। পিএমআইডি 4581537 
  • Hodges, P. C. (১৯৬৪)। "Homeopathy and Christian Friedrich Samuel Hahnemann"। Postgraduate Medicine 35: 666–668। পিএমআইডি 14143315 
  • Dietrich, H. J. (১৯৫৮)। "Hahnemann's capacity for greatness; Samuel Hahnemann; and Hahnemann Medical College"। The Hahnemannian 93 (2): 35–39। পিএমআইডি 13562700 
  • Koch, E. (১৯৫৫)। "On the 200th anniversary of Dr. Samuel Hahnemann; several ideas concerning homeopathy"। Das Deutsche Gesundheitswesen (German ভাষায়) 10 (16): 585–590। পিএমআইডি 14379841 
  • Auster, F. (১৯৫৫)। "200th Anniversary of the birth of Dr. Samuel Hahnemann, born April 10, 1755"। Pharmazeutische Zentralhalle für Deutschland (German ভাষায়) 94 (4): 124–128। পিএমআইডি 14384489 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  1. Works by সামুয়েল হানেমান on Open Library at the Internet Archive
  2. Life History of Samuel Hahnemann
  3. Life History of Samuel Hahnemann
  4. Christian Friedrich Samuel Hahnemann A historical overview
  5. Hahnemann Building, Hope Street, Liverpool former site of the Hahnemann Hospital, Liverpool
  6. Wikisource-logo.svg "Hahnemann, Samuel Christian Friedrich"। The American Cyclopædia। ১৮৭৯। 
  7. A digitized copy of Hahnemann's personal 5th edition with handwritten notes for the 6th edition
  1. https://en.wikisource.org/wiki/1911_Encyclop%C3%A6dia_Britannica/Hahnemann,_Samuel_Christian_Friedrich
  2. https://en.wikipedia.org/wiki/Help:IPA_for_German
  3. Though some sources do state that he was born in the early hours of 11 April 1755, Haehl, Richard (১৯২২)। Samuel Hahnemann his Life and Works 1। পৃ: ৯। "Hahnemann, was born on 10 April at approximately twelve o'clock midnight." 
  4. https://en.wikipedia.org/wiki/M%C3%A9lanie_Hahnemann
  5. https://de.wikipedia.org/wiki/Organon_der_Heilkunst
  6. https://en.wikipedia.org/wiki/Samuel_Hahnemann
  7. https://en.wikipedia.org/wiki/Alternative_medicine
  8. Brief History of Life of Samuel Hahnemann, The Father of Homoeopathy. Homoeoscan.com. 10 April 2014
  9. http://www.homeoint.org/morrell/articles/biohahnemann.htm
  10. Cook, 28
  11. A Tex Book of Principles of Homoeopathy by M.M. Abul Monsur & Gurudas Sarkar 2nd edition 21 feb 1999; Published By Hassan Book House, 65, Pyaridas Road, Banglabazar, Dhaka-1000, Bangladesh; p-111
  12. A Tex Book of Principles of Homoeopathy by M.M. Abul Monsur & Gurudas Sarkar 2nd edition 21 feb 1999; Published By Hassan Book House, 65, Pyaridas Road, Banglabazar, Dhaka-1000, Bangladesh; P-111
  13. to: a b c d "Hahnemann Biography". Retrieved 2009-01-13.
  14. [Haehl, vol. 1, 20] http://www.homeoint.org/morrell/articles/biohahnemann.htm
  15. [Haehl, vol. 1, 11]http://www.homeoint.org/morrell/articles/biohahnemann.htm
  16. https://www.barmherzige-brueder.at/site/oesterreich/sprachen/en/theaustrianprovince
  17. https://en.wikipedia.org/wiki/Hippocrates
  18. Cook, p. 36.
  19. Richard Haehl (1922). Samuel Hahnemann His Life and Work. 2. London: Homoeopathic Publishing. p. 11. OCLC 14558215
  20. A Tex Book of Principles of Homoeopathy by M.M. Abul Monsur & Gurudas Sarkar 2nd edition 21 feb 1999; Published By Hassan Book House, 65, Pyaridas Road, Banglabazar, Dhaka-1000, Bangladesh; P-117
  21. "Hahnemann Biography". Retrieved 2009-01-13.
  22. A Tex Book of Principles of Homoeopathy by M.M. Abul Monsur & Gurudas Sarkar 2nd edition 21 feb 1999; Published By Hassan Book House, 65, Pyaridas Road, Banglabazar, Dhaka-1000, Bangladesh; P-118
  23. A Tex Book of Principles of Homoeopathy by M.M. Abul Monsur & Gurudas Sarkar 2nd edition 21 feb 1999; Published By Hassan Book House, 65, Pyaridas Road, Banglabazar, Dhaka-1000, Bangladesh; P-১২৫-১২৬
  24. http://www.wikiwand.com/en/Homeopathic_Materia_Medica
  25. হোমিওপ্যাথি, প্রিন্সিপাল অব (১৯৮৮)। প্রিন্সিপাল অব হোমিওপ্যাথি। হাসান বুক, বাড়ী ৬৫, প্যারিদাস রোড, বাংলাবাজার, ঢাকা: ডা. রওশন আরা। পৃ: ১১৮। 
  26. http://hyperphysics.phy-astr.gsu.edu/hbase/pertab/Hg.html
  27. https://en.wikipedia.org/wiki/J%C3%B6ns_Jacob_Berzelius
  28. A Tex Book of Principles of Homoeopathy by M.M. Abul Monsur & Gurudas Sarkar 2nd edition 21 feb 1999; Published By Hassan Book House, 65, Pyaridas Road, Banglabazar, Dhaka-1000, Bangladesh; P-120-122
  29. Samuel Hahnemann; his life and work, based on recently discovered state papers, documents, letters, etc. Translated from the German by Marie L. Wheeler and W.H.R. Grundy. Edited by J.H. Clarke & F.J. Wheeler" page 29
  30. Samuel Hahnemann; his life and work, based on recently discovered state papers, documents, letters, etc. Translated from the German by Marie L. Wheeler and W.H.R. Grundy. Edited by J.H. Clarke & F.J. Wheeler" page 29
  31. "Hahnemann Biography". Retrieved 2009-01-13.
  32. https://en.wikipedia.org/wiki/William_Cullen
  33. Haehl, vol. 1, p.38; Dudgeon, p.48
  34. "Hahnemann Biography". Retrieved 2009-01-13
  35. https://en.wikipedia.org/wiki/Christoph_Wilhelm_Hufeland
  36. https://en.wikipedia.org/wiki/Homeopathy
  37. অর্গানন অব মেডিসিন- ৬ষ্ঠ সংস্করণ এর ১০৮ নং এ্যাফরিজমের ১ নং টিকা (Not one single physician, as far as I know, during the previous two thousand five hundred years, thought of this so natural, so absolutely necessary and only genuine mode of testing medicines for their pure and peculiar ef fects in deranging the health of man, in order to learn what morbid state each medicine is capable of curing, except the great and immortal Albrecht von Haller. He alone, besides myself, say the necessity of this (vide the Preface to the Pharmacopoeia Helvet., Basil, 1771, fol., p. 12); Nempe primum in corpore sano medela tentanda est, sine peregrina ul la miscela; odoreque et sapore ejus exploratis, exigua illius dosis ingerenda et ad omn es, quae inde contingunt, affectiones, quis pulsus, qui calor, quae respiratio, quaenam ex cretiones, attendendum. Inde ad ductum phaenomenorum, in sano obviorum, transeas ad experimenta in corpore aegroto, ..etc. But no one, not a single physician, attended to or followed up this invaluable hint.) [Organon of Medicine 6th Edition 1810; 1st Published 1921 in English; Translation copyright © 1982 by The Hahnemann Foundation]
  38. (অর্গানন অব মেডিসিন- সুত্র ৬ এর টিকা [Organon of Medicine 6th Edition 1810; 1st Published 1921 in English; Translation copyright © 1982 by The Hahnemann Foundation])
  39. A Tex Book of Principles of Homoeopathy by M.M. Abul Monsur & Gurudas Sarkar 2nd edition 21 feb 1999; Published By Hassan Book House, 65, Pyaridas Road, Banglabazar, Dhaka-1000, Bangladesh; P-121
  40. A Tex Book of Principles of Homoeopathy by M.M. Abul Monsur & Gurudas Sarkar 2nd edition 21 feb 1999; Published By Hassan Book House, 65, Pyaridas Road, Banglabazar, Dhaka-1000, Bangladesh; P-121
  41. https://it.wikipedia.org/wiki/Similia_similibus_curantur
  42. (অর্গানন অব মেডিসিন- সুত্র ৬ এর টিকা [Organon of Medicine 6th Edition 1810; 1st Published 1921 in English; Translation copyright © 1982 by The Hahnemann Foundation])
  43. A Tex Book of Principles of Homoeopathy by M.M. Abul Monsur & Gurudas Sarkar 2nd edition 21 feb 1999; Published By Hassan Book House, 65, Pyaridas Road, Banglabazar, Dhaka-1000, Bangladesh; P-124-125
  44. A Tex Book of Principles of Homoeopathy by M.M. Abul Monsur & Gurudas Sarkar 2nd edition 21 feb 1999; Published By Hassan Book House, 65, Pyaridas Road, Banglabazar, Dhaka-1000, Bangladesh; P-112-114
  45. http://www.homeoint.org/books4/bradford/family.htm
  46. Haehl, Richard; Wheeler, Marie L. (tr.) and Grundy, W.H.R. (tr.) (১৯২২)। John Henry Clarke, Francis James Wheeler, সম্পাদক। Samuel Hahnemann his Life and Work 1। London: Homoeopathic Publishing। ওসিএলসি 222833661 , reprinted as ISBN 81-7021-693-1- page 223
  47. All. Hom. Zeitung, Vol. IV, p. 144. (December 14, 1857.)
  48. http://www.homeoint.org/books4/bradford/family.htm
  49. http://www.homeopathyworldcommunity.com/profiles/blogs/samuel-hahnemann-founder-of
  50. Page No. 245 of the Journal “ Allgem Anzeig Der Deutsehen ( Vol XII No.6 ) which is kept at the British Museum, Great Russell Street, WC1B 3DG
  51. http://www.homeopathyworldcommunity.com/profiles/blogs/samuel-hahnemann-founder-of
  52. A Tex Book of Principles of Homoeopathy by M.M. Abul Monsur & Gurudas Sarkar 2nd edition 21 feb 1999; Published By Hassan Book House, 65, Pyaridas Road, Banglabazar, Dhaka-1000, Bangladesh; P-115