সরিতা জোশী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরিতা জোশী
Photo Of Sarita Joshi From The Celebs grace the Kashish Film Festival press meet.jpg
২০১২ সালে সরিতা জোশী
জন্ম
সরিতা ভোঁসলে

(1941-10-17) ১৭ অক্টোবর ১৯৪১ (বয়স ৮০)
অন্যান্য নামসরিতা খাতাও
পেশাঅভিনেত্রী
কর্মজীবন১৯৫০-বর্তমান
দাম্পত্য সঙ্গীপ্রবীণ জোশী
সন্তানকেতকি দবে
পূর্বী জোশী
আত্মীয়রসিক দবে
শারমন জোশী
মানসী জোশী রায়

সরিতা জোশী (বা সরিতা ভোঁসলে; জন্ম: ১৭ই অক্টোবর ১৯৪১) হলেন একজন ভারতীয় মঞ্চ, টেলিভিশন এবং চলচ্চিত্র অভিনেত্রী। তিনি গুজরাতিমারাঠি মঞ্চ নাটকে অভিনয়ের পাশাপাশি মারাঠি চলচ্চিত্রের একজন অভিজ্ঞ অভিনেত্রী হিসেবে অভিনয় করে থাকেন। তিনি পঁচাত্তরের দশকে স্বামী প্রবীণ জোশীর সাথে করা গুজরাতি নাটকে অভিনয়ের জন্য সবচেয়ে বেশি পরিচিত। ১৯৮৮ সালে, তিনি গুজরাতি জগতে তাঁর অভিনয়ের জন্য সংগীত নাটক আকাদেমি দ্বারা প্রদত্ত সংগীত নাটক অকাদেমি পুরস্কার, ভারতের ন্যাশনাল অ্যাকাডেমি অফ মিউজিক, নৃত্য ও নাটক একাডেমি পুরস্কার দ্বারা সম্মানিত হয়েছিলেন।[১] ২০২০ সালে, তিনি শিল্পকলায় অবদানের জন্য ভারতের চতুর্থ সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার পদ্মশ্রী পুরস্কার পেয়েছেন।[২]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

সরিতা জোশী ১৯৪১ সালের ১৭ই অক্টোবর তারিখে তৎকালীন ব্রিটিশ ভারতের বোম্বে প্রেসিডেন্সির পুনের একটি মধ্যবিত্ত মারাঠি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। অতঃপর তিনি বড়োদরায় তাঁর শৈশবকাল অতিবাহিত করেছেন। [৩] তাঁর বাবা ভীমরাও ভোঁসলে একজন ব্যারিস্টার ছিলেন এবং তাঁর মা কমলাবাই রাণে গোয়ার একজন বাসিন্দা ছিলেন। তিনি তাঁর বোন পদ্মরাণীর সাথে মাত্র নয় বছর বয়সে মঞ্চ নাটকে অভিনয় শুরু করেছিলেন, পরিবারে আর্থিক সমস্যা দেখা দেওয়ার কারণে তিনি ঐতিহ্যবাহী মঞ্চ নাটক দিয়ে তাঁর কর্মজীবন শুরু করলেও শীঘ্রই তিনি শান্তা আপ্তের মতো বিশিষ্ট শিল্পীদের সাথে কাজ শুরু করেছিলেন।[৩] দর্শক প্রায়শই তাঁকে তাঁর বোন পদ্মরাণীর সাথে মিলিয়ে ফেলেন। তাঁর বোন পদ্মরাণীও একজন অভিনেত্রী।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

ছয় বছর যাবৎ শিশু অভিনেত্রী হিসাবে কাজ করার পরে, যোশী মাত্র ১৬ বছর বয়সে প্রথম কেন্দ্রীয় চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ পেয়েছিলেন। তিনি ভারতীয় জাতীয় থিয়েটার গুজরাটি-এর সাথে অভিনয় শুরু করেছিলেন এবং এখানেই তিনি তাঁর হবু স্বামী প্রবীণ জোশীকে দেখেছিলেন।[৩]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

জোশী মঞ্চ নাটকের পরিচালক ও নাট্যকার প্রবীণ জোশীর সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন।[৪] তিনি হলেন অভিনেত্রী কেতকি দাভের মা, যিনি কিঁউকি সাস ভি কভি বহু থি-তে দক্ষ-এর চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন এবং তাঁর আরেক মেয়ে পূর্বী জোশী সনি এন্টারটেইনমেন্ট টেলিভিশনে প্রচারিত জনপ্রিয় কৌতুক বিষয়ক অনুষ্ঠান কমেডি সার্কাসে উপস্থাপনার দায়িত্ব পালন করেছেন। অরুনা ইরানির সাথে তাঁর পারিবারিকভাবে সম্পর্ক রয়েছে। তাঁর ভাগ্নি মানসী জোশী রায় (রোহিত রায়ের স্ত্রী) এবং ভাগ্নে হলেন অভিনেতা শারমন জোশী (প্রেম চোপড়ার জামাতা)।[৩][৫]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

১৯৮৮ সালে, তিনি গুজরাতি জগতে অভিনয়ের জন্য সংগীত নাটক অকাদেমি পুরস্কার পেয়েছিলেন।[৪][৬] ২০০৭ সালে, বা বাহু অর বেবিতে গোদাবরী ঠক্করের চরিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি "সেরা অভিনেত্রী" বিভাগে আইডিইএ ইন্ডিয়ান টেলিভিশন একাডেমি পুরস্কার পেয়েছিলেন। ২০২০ সালে, ভারত সরকার তাঁকে প্রজাতন্ত্রের চতুর্থ সর্বোচ্চ বেসামরিক পুরস্কার পদ্মশ্রী দিয়ে সম্মানিত করেছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Theatre - Acting (Language Theatre-wise) - Gujarati"Sangeet Natak Akademi Award। ২৮ জুন ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুলাই ২০১৬ 
  2. https://www.thehindu.com/news/national/article30653369.ece/binary/2020AwardeesList.pdf
  3. "All in the family"। Indian Today। ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০১৩ 
  4. "Twining"Screen। ২২ মার্চ ২০০২। ২ মার্চ ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ আগস্ট ২০০৯ 
  5. "Baa, beti aur baby"। MiD DAY। ২৮ নভেম্বর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ১৫ মে ২০১৩ 
  6. "SNA: List of Akademi Awardees"Sangeet Natak Akademi Official website। ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]