সন্ত সোয়রাবাই

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

সন্ত সোয়রাবাই চোদ্দ শতকের ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যের একজন সুপরিচিত সাধিকা ছিলেন।জাতিগতভাবে তিনি ছিলেন মহার বর্ণের অন্তর্ভুক্ত। তার স্বামী ছিলেন তৎকালীন মহারাষ্ট্রের সুবিখ্যাত সন্ত চোখামেলা। তিনি তার স্বামী চোখামেলার শিষ্য হিসাবেও পরিচিত ছিলেন।[১][২]

প্রচলিত লোককথা অনুযায়ী তিনি অস্যংখ শ্লোক রচনা করেছিলেন। কিন্ত দুর্ভাগ্যবশত তার রচিত অগনিত শ্লোকের মধ্যে অধুনা কেবল ৬২ টি শ্লোক জানা গেছে।[১] তার রচনায় তিনি নিজেকে চোখামেলার মাহারি হিসাবে পরিচয় দিয়েছেন। তিনি তার রচনায় বরাবরই সমাজের দলিত বর্গকে ভুলে যাওয়ার জন্য ও তাদের জীবন খারাপ করে দেওয়ার জন্য ঈশ্বরকে অভিযুক্ত করেছেন। তার সবচেয়ে মৌলিক শ্লোকগুলিতে বর্ণিত আছে যে তিনি দেবতাকে সরল ও সহজ নৈবিদ্য প্রদান করতেন। তার কবিতাগুলি ঈশ্বরের প্রতি তার ভক্তির বর্ণনা করে এবং সাথে সাথে অস্পৃশ্যতার মতো সমাজের অন্যায়কারী নিয়মের প্রতি তার প্রতিবাদী মনোভাবনাকেও তুলে ধরে।[৩]

সোয়রাবাই বিশ্বাস করতেন যে "শরীর শুধুমাত্র অপবিত্র বা দূষিত হতে পারে, কিন্তু আত্মা সর্বদা শুচি। শরীর তো অশুচি জন্মায় তাই কেউ কিভাবে শরীরকে শুদ্ধ বলে দাবি করতে পারে? শরীরে অনেক দূষণ আছে। কিন্তু দেহের দূষণ শরীরেই থেকে যায়। আত্মাকে এই মলিনতা স্পর্শ করতে পারেনা।"[১]

সন্ত সোয়ারাবাই প্রত্যেক বছর নিয়মিতভাবে তার স্বামী চোখামেলার সাথে পণ্ঢরপুরে পণ্ঢারী ভগবানের দর্শনহেতু যাত্রা করতেন। তারা সর্বদাই গোঁড়া ব্রাহ্মণদের দ্বারা নিগৃহীত হতেন। কিন্তু কোনোপ্রকার নিগ্রহ তাদের ভগবানের প্রতি ভক্তি ও অটুট বিশ্বাসকে বিচলিত করতে পারেনি।[১]


তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Stewart-Wallace, editorial advisers Swami Ghananda, Sir John (১৯৭৯)। Women saints, east & west (1. U.S. সংস্করণ)। Hollywood, Calif.: Vedanta। পৃষ্ঠা 61। আইএসবিএন 0874810361 
  2. Zelliot, Eleanor (২০০৮)। "Chokhamela, His Family and the Marathi Tradition"। Aktor, Mikael; Deliège, Robert। From Stigma to Assertion: Untouchability, Identity and Politics in Early and Modern India। Copenhagen: Museum Tusculanum Press। পৃষ্ঠা 76–86। আইএসবিএন 978-8763507752 
  3. Mikael, Aktor, সম্পাদক (২০০৮)। From Stigma to Assertion : Untouchability, Identity & Politics in Early & Modern India। Copenhagen: Museum Tusculanum Press। পৃষ্ঠা 81–85। আইএসবিএন 978-8763507752