শ্রীবিদ্যা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
শ্রীযন্ত্র (এখানে ত্রিমাত্রিক শ্রীমেরুচক্র বা মহামেরু আকৃতিবিশিষ্ট, যা মূলত শ্রীবিদ্যা শাক্ত সম্প্রদায়ের অনুষ্ঠানে ব্যবহৃত হয়) হল শাক্ত তান্ত্রিক রূপগুলির অন্যতম।

শ্রীবিদ্যা (অর্থাৎ, আধ্যাত্মিক বিদ্যা[১]) হল একটি হিন্দু তান্ত্রিক মত, যে মতে মহাশক্তিকে ললিতা ত্রিপুরাসুন্দরী, ভুবনেশ্বরী ইত্যাদি রূপে পূজা করা হয়। এই রূপটির এক হাজার নাম পাওয়া যাউ ললিতা সহস্রনাম স্তোত্রে। এই স্তোত্রটি শ্রীবিদ্যা ধারণার অন্তর্গত।[২] এই সম্প্রদায় জাগতিক সমৃদ্ধি ও আত্ম-অনুসন্ধান উভয়ের উপরই জোর দিয়ে থাকে। শ্রীবিদ্যা সম্প্রদায়ের সাহিত্য বেশ সমৃদ্ধ।[৩] বিভিন্ন ধর্মগ্রন্থে এই মতের নানা খুঁটিনাটি উল্লেখ করা হয়েছে। তবে এই মতের সাধারণ নীতিগুলি কাশ্মীর শৈবধর্মের অনুরূপ।[৪] এই সম্প্রদায়ে বামাচারী ও দক্ষিণাচারী শাখা দেখা যায়। এই সম্প্রদায়ের নানা ধর্মগ্রন্থ ও মন্ত্র থাকা সত্ত্বেও গুরু কর্তৃক দীক্ষার উপর বেশি জোর দেওয়া হয়।

শ্রীবিদ্যা শাক্ত দর্শন অনুসারে, দেবী হলেন সর্বোচ্চ উপাস্য। তিনি নানা রূপে জগতে আবির্ভূত হন।[৫] তাঁকে শ্রীযন্ত্র বা শ্রীচক্র নামে একটি ছবিতে পূজা করা হয়।[৬] শ্রীযন্ত্রের ত্রিমাত্রিক রূপটি হল মেরুচক্র। এটি পাথর, স্ফটিক বা ধাতুতে নির্মিত হয়। কোনো কোনো ক্ষেত্রে সোনায় মোড়া অষ্টধাতুর শ্রীযন্ত্রও পূজা করা হয়। সুভাষ কাকের মতে শ্বেতাশ্বেতর উপনিষদে শ্রীযন্ত্রের উল্লেখ আছে।[৭]

শ্রীবিদ্যা সম্প্রদায়ের মতে মন্ত্র গুরু, দেবতা ও শিষ্যকে এক করে। এই সম্প্রদায়ে প্রথমে বাল-ত্রিপুরাসুন্দরী মন্ত্রে দীক্ষা দেওয়া হয়। এই মতে দেবী একটি শিশুকন্যা। এরপর পঞ্চদশাক্ষরী এবং শেষে ষোড়শী মন্ত্রে দীক্ষা হয়।

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. Apte 1965, পৃ. 857.
  2. For influence on the Lalitā Sahasranāma and a brief summary of some Śrī Vidyā practices see: Sastry 1986, পৃ. vii-ix.
  3. Bhattacharyya 1999, পৃ. 329.
  4. Flood 1996, পৃ. 188.
  5. For goddess as supreme and beyond the manifest cosmos, see: Flood 1996, পৃ. 188.
  6. Flood 1996, পৃ. 187–188.
  7. http://ikashmir.net/subhashkak/docs/SriChakra.pdf Subhash Kak, The Great Goddess Lalitā and the Śrī Cakra. Brahmavidyā: The Adyar Library Bulletin, vol. 72-73, pp. 155-172, 2008-2009

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • Apte, Vaman Shivram (১৯৬৫), The Practical Sanskrit Dictionary (Fourth revised and enlarged সংস্করণ), Delhi: Motilal Banarsidass Publishers, আইএসবিএন 81-208-0567-4 
  • Bhattacharyya, N. N. (১৯৯৯), History of the Tantric Religion (Second revised সংস্করণ), New Delhi: Manohar, আইএসবিএন 81-7304-025-7 
  • Dempsey, Corinne G. (২০০৬), The Goddess Lives in Upstate New York: Breaking Convention and Making Home at a North American Hindu Temple (first সংস্করণ), New York: Oxford University Press, আইএসবিএন 978-0-19-518729-8 
  • Dev, K. V. (editor) (১৯৯৬), The Thousand Names of the Divine Mother, San Ramon, California: Mata Amritanandamayi Center, আইএসবিএন 1-879410-67-2 
  • Flood, Gavin (১৯৯৬), An Introduction to Hinduism, Cambridge: Cambridge University Press, আইএসবিএন 0-521-43878-0 
  • Joshi, L. M. (১৯৯৮), Lalitā Sahasranāma, New Delhi: D. K. Printworld (P) Ltd., আইএসবিএন 81-246-0073-2 
  • Sastry, R. Ananthakrishna (১৯৮৬), Lalitāsahasranāma, Delhi: Gian Publishing House 
  • Tapasyananda, Swami (১৯৯০), Śrī Lalitā Sahasranāma, Mylapore, Chennai: Sri Ramakrishna Math, আইএসবিএন 81-7120-104-0 
  • Melanathuru, Venkata Subrahmanyam, Śhrī Vidya Upasana, Nellore, Andhra Pradesh - 9849120534 
  • SHARMA, RALLABANDI VISHWANATHA, shri vidya upasana, secunderabad,ANDHRA PRADESH - 09849354341