শিশু শ্রম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

দক্ষিণ এশিয়ার একটি গুরুত্বপূর্ণ ও ভয়াবহ সমস্যা হলো শিশু শ্রম। বাংলাদেশ জাতীয় শ্রম আইন ২০০৬ অনুযায়ী ১৪ বছরের কম বয়সী শিশুদের কাজ করানো হলে তা শিশু শ্রমের অন্তর্ভুক্ত বলে গণ্য হবে। [১]

কারণ[সম্পাদনা]

বাংলাদেশ প্রেক্ষাপটে অর্থনৈতিক দুরবস্থা হচ্ছে শিশু শ্রমের প্রথম ও প্রধান কারণ। লেখাপড়ার খরচ দিতে না পেরে এবং সংসারের অসচ্ছলতার গ্লানি একজন মা-বাবাকে বাধ্য করে তার সন্তানকে শ্রমে নিযুক্ত করতে।

শিশু শ্রম প্রতিরোধে বাংলাদেশের আইন[সম্পাদনা]

বাংশাদেশের জাতীয় শ্রম আইন, ২০১৬ অনুযায়ী ১৪ বছরের কম বয়সী শিশুদেরকে কোনো প্রকার কাজে নিযুক্ত করা যাবেনা। ১৪ বছরের উর্ধ্ববয়সী কিশোরদের দৈনিক ৫ঘন্টা কর্মসময় নির্ধারণ করা হয়েছে। জাতীয় শিশু শ্রম নিরসন নীতি, ২০১০ - এ শিশুশ্রম বিলোপ সাধনে যথাযথ পদক্ষেপ ও দীর্ঘমেয়াদি পদ্ধতি গ্রহণ করা হয়েছে।

জাতিসংঘ ও শিশু শ্রম[সম্পাদনা]

ILO জাতিসংঘের একটি বিশেষায়িত সংস্থা। ১৯৯২ সালে আই এল ও'র আন্তর্জাতিক শিশু শ্রম দূরীকরণ কর্মসূচী [আইপেক] যাত্রা শুরু করে। বর্তমানে ৮০টি দেশে এই কর্মসূচী চালু আছে। ১৯৯৮ সালে আইএলও সর্বসম্মতিক্রমে কর্মক্ষেত্রে মৌলিক নীতি ও অধিকার সম্পৃক্ত ঘোষণা গ্রহণ করে। এর মধ্য দিয়ে আইএলও কর্মক্ষেত্রে নীতি ও অধিকার এর সাথে শিশুশ্রম দূরীকরণ এর দৃঢ় অঙ্গিকার ব্যাক্ত করেছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয়: নবম শ্রেণী (জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড) নভেম্বর , ২০১৪