শাইলা আব্দুল্লাহ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
শাইলা আব্দুল্লাহ
জন্ম১৯৭১
জাতীয়তাপাকিস্তানী, আমেরিকান
উল্লেখযোগ্য রচনাবলিসাফ্রন ড্রিমস

শাইলা আব্দুল্লাহ (জন্ম ১৯৭১) একজন পাকিস্তানি আমেরিকান লেখিকা, এবং ডিজাইনার । [১]

জীবনী[সম্পাদনা]

শাইলা আব্দুল্লাহ ইংরেজি ভাষার জন্য প্যাট্রাস বুখারী পুরস্কার, গোল্ডেন কুইল অ্যাওয়ার্ড, রিডার ভিউস অ্যাওয়ার্ড, লিখন আর্ট অ্যাওয়ার্ড এবং হবসন ফাউন্ডেশন থেকে অনুদান পেয়েছেন। বিয়োন্ড দ্য কয়েনে ওয়ালে তার অসাধারণ কথাসাহিত্যের জন্য জুরি পুরস্কার পেয়েছেন, যা নরুমবেগা ফিকশন অ্যাওয়ার্ডসের সর্বোচ্চ পুরস্কার। [২][৩]

তার বইগুলিতে কেফেন ওয়াল ড্রপস, বিয়োন্ড দ্য কয়েনে ওয়াল এবং তাঁর তিনটি বাচ্চাদের বই রয়েছে: রানী ইন দ্য রেইনবো, মাই ফ্রেন্ড সুহানা, এবং এ ম্যানুয়াল ফর মার্কো[৪] তিনি বিশেষ প্রয়োজন শিশুদের জন্য বই লিখেছেন। [৪]

২০১৪ সালের গোড়ার দিকে, ওয়াশিংটন এবং লি ইউনিভার্সিটির গবেষক দল একটি গবেষণায় পরিচালিত হয়েছিল। যেখানে তারা দেখেছিল যে, কেফার ড্রিমস থেকে ৩০০০ শব্দের লাইন পড়ার ফলে একজন ব্যক্তি কম বর্ণবাদী হতে পারে[৫][৬][৭][৮][৯][১০][১১] উপন্যাসটি ওপেন শিক্ষা ডেটাবেসে ৫০ টি শ্রেষ্ঠতম ওয়ার্ক অব ইমিগ্রেশন লিটারেচার হিসাবে উল্লেখ করা হয়েছে। [১২]

কর্ম[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Meet 20 Super Women Who Are Earning Respect For Pakistan"Daily Pakistan Global (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-২৭ 
  2. Oh, Seiwoong (২০০৯)। "Abdullah, Shaila"। Encyclopedia of Asian-American Literature। পৃষ্ঠা 4–5। 
  3. "Meet 20 Super Women Who Are Earning Respect For Pakistan"Daily Pakistan Global (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-১৬ 
  4. "Interview Shaila Abdullah Author of Children's Book About an Autistic Sibling, A Manual for Marco"Special Needs Book Review (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৫-০৪-০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-০৫ 
  5. "Study: Reading Literary Fiction Can Make You Less Racist"Pacific Standard (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-২৭ 
  6. "Is fiction good for you? How researchers are trying to find out"ScienceDaily (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-২৭ 
  7. "Leer novelas fomenta la empatía"ELMUNDO (স্পেনীয় ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-২৭ 
  8. "Reading really does broaden the mind | IOL News" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-০৫ 
  9. M.D, Jalees Rehman (২০১৪-০৫-০৬)। "Does Literary Fiction Challenge Racial Stereotypes?"Huffington Post (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৩-০৫ 
  10. "This is How Literary Fiction Teaches Us to Be Human"Signature Reads (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৬-০৯-১৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-১৬ 
  11. "Reading Fiction May Boost Empathy" (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৬-০৭-২০। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-১৬ 
  12. "50 Greatest Works of Immigration Literature"OEDB.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১১-০১-০৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-২৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]