লুৎফুল হাসান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

লুৎফুল হাসান একজন বাংলাদেশী শিক্ষাবিদ ও বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য। ৩০ মে ২০১৯ তারিখে তিনি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৪তম উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পান।[১]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

লুৎফুল হাসান ১৯৫৬ সালের ২৮ জানুয়ারি বরিশাল জেলার উজিরপুর উপজেলার নয়াবাড়ী গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা আবুল হাসান ও মাতা জনাবা ফাতেমা বেগম।

শিক্ষা জীবন[সম্পাদনা]

লুৎফুল হাসান ১৯৭৬ সালে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৃষি অনুষদ থেকে কৃষিতে বিএসসি -অনার্স (প্রথম শ্রেণীতে চতুর্থ) এবং ১৯৭৭ সালে এমএসসি ইন জেনেটিক্স অ্যান্ড প্ল্যান্ট ব্রিডিং ডিগ্রী (প্রথম শ্রেণীতে প্রথম) লাভ করেন।

পরে ১৯৮৯ সালে যুক্তরাজ্যের ওয়েলস বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কমনওয়েলথ স্কলার হিসাবে পিএইচডি ডিগ্রী লাভ করেন। ১৯৯৫ সালে একই বিশ্ববিদ্যালয় হতে রয়েল সোসাইটি স্কলার হিসাবে পোস্ট ডক্টরাল গবেষণা করেন এবং ১৯৯৬ সালে জাপান সোসাইটি ফর দি প্রোমোশান অব সাইন্স ফেলো হিসাবে জাপানের মিয়াজাকি বিশ্ববিদ্যালয়ে পোষ্ট ডক্টরাল গবেষণা করেন। ১৯৯৯-২০০১ সালে আলেকজ্যান্ডার ভন হামবোল্ট ফাউন্ডেশন ফেলো হিসাবে জার্মানীর গুটিনগেন বিশ্ববিদ্যালয়ে পোষ্ট ডক্টরাল গবেষণা করেন। ২০০৬ সালে নরম্যান ই বোরলগ সাইন্স এন্ড টেকনোলজি ফেলো হিসাবে তিনি যুক্তরাষ্ট্রের ক্যানসাস স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ে গবেষণা করেন। ২০১৫ সালে গবেষণা ব্যবস্থাপনা বিশেষ অবদানের জন্য অষ্ট্রেলিয়ার জন ডিলন মেমোরিয়াল ফেলো পুরস্কার লাভ করেন।

কর্ম জীবন[সম্পাদনা]

তিনি ১৯৮১ সালে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের কৌলিতত্ত্ব ও উদ্ভিদ প্রজনন বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন। পরে ১৯৮৪ সালে সহকারী প্রফেসর, ১৯৯১ সালে সহযোগী প্রফেসর ও ১৯৯৫ সালে প্রফেসর পদে উন্নীত হন। ২০০২ সালে তিনি এই একই বিশ্ববিদ্যালয়ের জৈবপ্রযুক্তি বিভাগে খন্ডকালীন প্রফেসর হিসেবে কাজ করেন। ৩০ মে ২০১৯ তারিখে তিনি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৪তম উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পান।

এছাড়া তিনি তিনি কৃষি বিশেষজ্ঞ হিসেবে আন্তর্জাতিক ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ে কাজ করেছেন।

তিনি বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সভাপতি, গণতান্ত্রিক শিক্ষক ফোরামের সভাপতি, ক্রপ সায়েন্স সোসাইটি অভ বাংলাদেশ এর সভাপতি, বাংলাদেশ জেএসপিএস অ্যালামনাই এসোসিয়েশনের সভাপতি, সদস্য বাংলাদেশ সরকারের পে এন্ড সার্ভিস কমিশন ২০১৪, বাংলাদেশ এসোসিয়েশন ফর বায়োটেকনলজি এন্ড জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং-এর সভাপতিসহ বিভিন্ন পদে দায়িত্ব পালন করেন।[২]

প্রকাশনা[সম্পাদনা]

তার কৃষিসংশ্লিষ্ট ৫টি বই ও ১৬৬টি গবেষণামূলক প্রবন্ধ জাতীয় ও আন্তর্জাতিক জার্ণালে প্রকাশিত হয়েছে। তিনি ৩০টি দেশী-বিদেশী গবেষণা প্রকল্প পরিচালনা করেছেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]