বিষয়বস্তুতে চলুন

লি ছিয়াং

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(লি কিয়াং থেকে পুনর্নির্দেশিত)

লি ছিয়াং (জন্ম ২৩ জুলাই ১৯৫৯) একজন চীনা রাজনীতিবিদ এবং চীনা কমিউনিস্ট পার্টি (সিসিপি)'র একজন জ্যেষ্ঠ নেতা যিনি গণপ্রজাতন্ত্রী চীনের প্রধানমন্ত্রী এবং ২০২৩ সাল থেকে চীনা কম্যুনিস্ট পার্টির পলিটব্যুরোর স্থায়ী পরিষদের দ্বিতীয় পর্যায়ভুক্ত সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ২০১৭ থেকে ২০২২ সাল পর্যন্ত তিনি সাংহাইয়ের দলীয় সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

লি ছিয়াং। চীনের প্রধানমন্ত্রী।

১৯৮৩ সালে সিসিপিতে যোগদানের পর তিনি প্রথম রুইয়ান, চচিয়াং প্রদেশের কমিউনিস্ট যুব লীগের সম্পাদক হন। পরে প্রাদেশিক বিভাগে বেসামরিক বিষয়ের দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ইয়ং কাং, ওয়েনচৌয়ের দলীয় সচিব, চচিয়াংয়ের রাজনৈতিক আইন বিষয়ক সম্পাদক এবং পরে চচিয়াং প্রদেশের সহকারি দলীয় সচিব হন। তিনি ২০১২ সালে চচিয়াংয়ের গভর্নর হন, পরে চিয়াংসু প্রদেশের দলীয় সচিব এবং অবশেষে ২০১৭ সালে সাংহাইয়ের দলীয় সচিব হন। একই বছরে তিনি সিসিপি পলিটব্যুরোর সদস্য হওয়ার জন্য উন্নীত হন।

সাংহাইতে তার মেয়াদকালে, তিনি সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জ স্টার মার্কেট প্রতিষ্ঠা করেন, টেসলা ইনকর্পোরেটেডের গিগাফ্যাক্টরিসহ শহরে বিদেশী বিনিয়োগ তত্ত্বাবধান করেন, অভ্যন্তরীণ অভিবাসীদের বসবাসের অনুমতি পাওয়ার প্রক্রিয়া সহজতর করেন এবং জমি সঙ্কট মোকাবেলায় পাঁচটি নতুন শহর তৈরি করেন। তিনি একটি রোগের প্রাদুর্ভাব মোকাবেলায় ২০২২ সালে সাংহাইতে দুই মাসের লকডাউন তদারকি করেছিলেন, যা স্থানীয় অর্থনীতিকে মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ করেছিল এবং সমালোচিত হয়েছিল। তা সত্ত্বেও, তিনি ২০২২ সালে পলিটব্যুরো স্ট্যান্ডিং কমিটিতে উন্নীত হন এবং ২০২৩ সালে প্রধানমন্ত্রী হন।

চচিয়াংয়ে বর্তমান সিসিপি সাধারণ সম্পাদক শি চিনফিংয়ের সাথে একসাথে কাজ করায়, লি-কে শি-র ঘনিষ্ঠ মিত্র হিসাবে বিবেচনা করা হয়।[১] শি-র সাথে ঘনিষ্ঠতা থাকা সত্ত্বেও, লি-কে সাধারণত ব্যবসা-বান্ধব হিসাবে বিবেচনা করা হয়। লি+র সাথে আলিবাবা গ্রুপের জ্যাক মা-র মতো উদ্যোক্তাদের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে।

প্রাথমিক জীবন এবং শিক্ষা

[সম্পাদনা]

লি ১৯৫৯ সালের জুলাই মাসে চচিয়াং প্রদেশের রুইয়েন শহরে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৭৬ থেকে ১৯৭৭ সাল পর্যন্ত রুইয়েন বিভাগের মাইউ জেলার সেচ পাম্প স্টেশনের একজন কর্মী ছিলেন এবং ১৯৭৭ থেকে ১৯৭৮ সাল পর্যন্ত রুইয়েনের তৃতীয় টুল কারখানায় কাজ করেছিলেন[২]

লি ছিয়াং কাওখাও (বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষা) পুনরায় চালু হওয়ার পর ১৯৭৮ থেকে ১৯৮২ সাল পর্যন্ত চচিয়াং কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বর্তমানে চচিয়াং ওয়ানলি কলেজ) নিংপো শাখায় কৃষি যান্ত্রিকীকরণ বিষয়ে অধ্যয়ন করেন। তিনি ১৯৮৫ থেকে ১৯৮৭ পর্যন্ত বেইজিংয়ে বেসরকারি চায়না সোসিওলজি করেসপন্ডেন্স বিশ্ববিদ্যালয়ে দূর শিক্ষণ পদ্ধতিতে সমাজবিজ্ঞান অধ্যয়ন করেন।[২][৩]

লি ১৯৯৫ থেকে ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত ব্যবস্থাপনা প্রকৌশল বিষয়ে কর্মজীবী-শিক্ষার্থী হিসেবে স্নাতক অধ্যয়নের জন্য চচিয়াং বিশ্ববিদ্যালয়ে এবং ২০০১ থেকে ২০০৪ সাল পর্যন্ত বিশ্ব অর্থনীতি বিষয়ে কর্মজীবী-শিক্ষার্থী হিসেবে স্নাতক অধ্যয়নের জন্য সেন্ট্রাল পার্টি স্কুলে যোগদান করেন। তিনি ২০০৩ থেকে ২০০৫ সাল পর্যন্ত হংকং পলিটেকনিক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করেছেন এবং ২০০৫ সালে ব্যবসায় প্রশাসনে স্নাতকোত্তর অর্জন করেছেন।[২]

কর্মজীবন

[সম্পাদনা]

স্থানীয় নেতৃত্ব

[সম্পাদনা]

লি ১৯৮৩ সালের এপ্রিলে চীনা কমিউনিস্ট পার্টিতে (সিসিপি) যোগদান করেন। তিনি রুইয়েন বিভাগের কমিউনিস্ট যুব লীগের সম্পাদক ছিলেন। এরপর তিনি বেসামরিক বিষয়ের প্রাদেশিক বিভাগে ক্রমান্বয়ে জ্যেষ্ঠ পদে দায়িত্ব পালন করেন। পরে তিনি ইয়ংকাং শহরের কমিউনিস্ট পার্টির সেক্রেটারি হন এবং তারপরে প্রিফেকচার-স্তরের শহর ওয়েনচৌয়ের দলীয় সচিব হন। এসময়ে তার বয়স ছিল মাত্র ৪৩ বছর, যা তাঁকে ওয়েনচৌয়ের ইতিহাসে সর্বকনিষ্ঠ দলীয় সচিব হিসেবে পরিচিতি দেয়।[৪] ২০০৪ সালে লি চচিয়াং প্রাদেশিক দলীয় পরিষদের মহাসচিব হন এবং পরের বছরে স্থায়ী কমিটিতে একটি আসন অর্জন করেন, এসময় চচিয়াংয়ের দলীয় সচিব শি চিনফিং প্রশাসন ও সমন্বয়ের দায়িত্বে ছিলেন।[৫] ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারিতে তিনি চচিয়াং প্রদেশের রাজনৈতিক ও আইন বিষয়ক সম্পাদক হন এবং কয়েক মাস পরে তাকে সহকারি দলীয় সচিব করা হয়।[৬]

১৮ তম সিসিপি জাতীয় কংগ্রেসের পর, তিনি সিসিপি কেন্দ্রীয় পরিষদের বিকল্প সদস্য হন। ২১ ডিসেম্বর ২০১২ সালে তিনি প্রাদেশিক পার্টির সেক্রেটারি পদে পদোন্নতিপ্রাপ্ত চচিয়াং-এর ভারপ্রাপ্ত গভর্নর চিয়া পাওলুংয়ের স্থলাভিষিক্ত হন এবং ২০১৩ সালের ৩০শে জানুয়ারি তারিখে আনুষ্ঠানিকভাবে গভর্নর নির্বাচিত হন।[৫][৭] তিনি ৪ জুলাই ২০১৬ পর্যন্ত গভর্নর হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ২০১৪ সালে, যখন চচিয়াং একটি আন্তর্জাতিক ইন্টারনেট সম্মেলন করার প্রস্তুতি নিচ্ছিল, তখন লি প্রস্তাব করেছিলেন যে পশ্চিমা সংস্থাসমূহের জন্য চীনের কঠোর ইন্টারনেট নিয়ন্ত্রণ শিথিল করার হোক এবং স্বাগতিক শহরকে শিথিলকৃত ইন্টারনেট ব্যবহারের একটি পরীক্ষামূলক এলাকায় পরিণত করা হোক। এটি শেষ পর্যন্ত কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব দ্বারা অনুমোদিত হয়নি।[৮] তিনি একটি প্রকল্পের উদ্যোগ নিয়েছিলেন যেখানে ব্যবসা-বান্ধব পরিবেশ ও ভাল ভৌত অবকাঠামো সম্মৃদ্ধ কিছু ছোট শহর তৈরি করা হবে। প্রকল্পটি পরবর্তিতে শি চিনফিংয়ের সমর্থন পায় ও সারা চীনে ছড়িয়ে দেওয়া হয়।[৮]

২০১৫ সালে লি সিসিপি নেতা শি চিনফিংয়ের সাথে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে রাষ্ট্রীয় সফরে গিয়েছিলেন। ৩০শে জুন ২০১৬ সালে লি ছিয়াং চিয়াংসু প্রদেশের পার্টি সেক্রেটারি মনোনীত হন।[৯] তিনি ১৫ মাস দায়িত্ব পালন করেন যা গণপ্রজাতন্ত্রের ইতিহাসে সবচেয়ে কম সময়ের জন্য চিয়াংসু দলীয় সচিবের মেয়াদকাল। তার মেয়াদকালে তিনি বিনিয়োগকে উৎসাহিত করার জন্য আলিবাবা গ্রুপের জ্যাক মা- এর মতো ব্যবসায়িক কর্মকর্তাদের সাথে বৈঠকের ব্যবস্থা করেছিলেন।[৮]

২৯ অক্টোবর ২০১৭-তে, ১৯ তম দলীয় মহাসভার পর, লি সাংহাইয়ের দলীয় সচিব হিসাবে নিযুক্ত হন।[৬][১০] একই বছর তিনি সিসিপি পলিটব্যুরোর সদস্য হিসেবেও নিযুক্ত হন। তাঁকে ব্যবসা-বান্ধব বলে মনে করা হয়, তিনি সাংহাইতে থাকাকালীন সাংহাই স্টক এক্সচেঞ্জ স্টার মার্কেটের মতো ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে ব্যবসা-বান্ধব নীতি বাস্তবায়ন করেছিলেন।[১১][১২] তিনি টেসলা, ইনকর্পোরেটেডের গিগাফ্যাক্টরি সহ শহরে ক্রমবর্ধমান বিদেশী বিনিয়োগ তদারকি করেন।[১৩] তিনি অভ্যন্তরীণ অভিবাসিদের বসবাস সহজতর করার উদ্দেশ্যে অনুমোদনের সীমা হ্রাস করেন এবং শহরে জমি ঘাটতি কমাতে পাঁচটি নতুন শহর প্রতিষ্ঠা করেন।[১৪] ২০২২ সালে লি সাংহাইতে একটি ২ মাস ব্যাপী লকডাউন দেন, যার কারণে অর্থনীতি মারাত্নকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়।[১৫] তবুও, কথিত আছে যে তিনি "কোভিডের সাথে বসবাস" ধারণাটির প্রতি আগ্রহী ছিলেন।[৮] দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের মতে, লি হলের চীনের শীর্ষ নেতৃত্বদের মধ্যে একজন যারা চায় চীনে কোভিড-১৯ মোকাবেলায় পশ্চিমা এমআরএনএ ভ্যাকসিন চালু করুক। জানা গেছে, তিনি চীনে বায়োএনটেকের প্রতিষেধক সরবরাহ করার চেষ্টা করেছিলেন।[৮]

শীর্ষ নেতৃত্ব

[সম্পাদনা]

২০ তম সিসিপি কেন্দ্রীয় কমিটির প্রথম পূর্ণাঙ্গ অধিবেশনের পর, লি কিয়াংকে সিসিপি পলিটব্যুরোর স্থায়ী কমিটিতে নিযুক্ত করা হয়েছিল।[১৬] তিনি ২০২৩ সালে প্রিমিয়ার হবেন বলে আশা করা হয়েছিল।[১৭] তিনি ১৯৭৬ সালের পর প্রথম ব্যক্তি যিনি কেন্দ্রীয় সরকারে কোনো পূর্ব অভিজ্ঞতা ছাড়াই সরাসরি স্থানীয় সরকার থেকে প্রিমিয়ার পদে উন্নীত হচ্ছেন, বিশেষত ভাইস প্রিমিয়ার হিসেবে।[১৮] বেইজিংয়ের রাষ্ট্রীয় কাউন্সিল পরিচালনার অভিজ্ঞতার অভাব তাকে জন্য শি জিনপিংয়ের সমর্থনের উপর অনেক বেশি নির্ভরশীল করে তোলে।[১৯] রয়টার্স ৩ মার্চ ২০২৩ তারিখে একটি সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে জানিয়েছিল যে লি ২০২২ সালের শেষের দিকে শির চাপকে অগ্রাহ্য করে শূন্য-কোভিড নীতি শিথিল করার জন্য চাপ দিয়েছিলেন। রয়টার্স আরও বলে যে লি সিসিপির কোভিড টাস্কফোর্সের প্রধান হয়েছিলেন এবং স্থানীয় সরকারগুলিকে কোভিড বিধিনিষেধ শিথিল করা চালিয়ে যেতে উত্সাহিত করেছিলেন।[২০] লি ১১ মার্চ প্রধানমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন।[২১]

রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি

[সম্পাদনা]

অর্থনীতি এবং ব্যবসা

[সম্পাদনা]

শি জিং পিং এর সাথে তার ঘনিষ্ঠতা থাকা সত্ত্বেও, লিকে ব্যবসা-বান্ধব এবং অর্থনৈতিকভাবে তুলনামূলক সংস্কারবাদী হিসাবে দেখা হয়।[১১][১৪][২২] ২০০৩ সালে ওয়েনজুতে তার শাসনামলে, তিনি বলেছিলেন যে "ব্যক্তিগত অর্থনীতি না থাকলে, ওয়েনজু এর নগর উন্নয়ন কমপক্ষে এক শতাব্দী পিছিয়ে যাবে"।[৮] ২০১৪ সালে, লি বলেছিলেন যে "আরও আলিবাবা এবং আরও জ্যাক মাস হওয়া উচিত"। ২০১৫ সালে বলেছিলেন যে অর্থনৈতিক সংস্কার "জীবন ও মৃত্যুর" বিষয় এবং "সরকার সীমাহীন সরকার হতে পারে না।" তিনি আরও বলেছিলেন যে "একটি সীমিত অথচ কার্যকর আধুনিক সরকার গড়তে, আপনাকে সামাজিক সংস্থাগুলির কাছে প্রচুর ব্যবস্থাপনা ক্ষমতা হস্তান্তর করতে হবে।"[২২] দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল অনুসারে, জ্যাক মা-এর সাথে লির ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে।[৮] সংবাদপত্রটি আরও জানিয়েছে যে লি সরকারকে ব্যবসার বিরুদ্ধে তার নিয়ন্ত্রক পদক্ষেপগুলি আরও সহজতর করার পরামর্শ দিয়েছিলেন এবং বেসরকারি ব্যবসার উপর সরকারের কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার সময় ব্যবসায়ী এবং সরকারের মধ্যে মধ্যস্থতাকারী হিসাবে কাজ করেছিলেন।[৮]

তথ্যসূত্র

[সম্পাদনা]
  1. Munroe, Tony; Tian, Yew Lun (২০২২-১০-১২)। "After COVID lockdown, eyes on Shanghai chief at party congress"Reuters (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১০-২০ 
  2. Xinhua News Agency (২০১৭-১০-২৫)। "李强同志简历-新华网"Xinhua News Agency। ২০২২-১০-১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১০-২৩ 
  3. Zhang, Yu (২০২১-১০-২৯)। "北京26所民办学校办学许可证被注销"news.sina.com.cn। ২০২২-১০-২৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১০-২৩ 
  4. "李强浙江往事:改革是贯穿始终的头等大事"finance.sina.cn। ১২ জুলাই ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ৩১ ডিসেম্বর ২০২২ 
  5. 李强 (চীনা ভাষায়)। Xinhua News Agency। জানুয়ারি ১৮, ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-১৬ 
  6. 李强 (চীনা ভাষায়)। People's Daily। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০১-১৬ 
  7. "夏宝龙当选浙江人大常委会主任 李强当选省长"। জানুয়ারি ৩০, ২০১২। 
  8. Chun, Han Wong; Zhai, Keith। "China's No. 2 Is a Business Pragmatist and a Party Loyalist. Which Will Prevail?"The Wall Street Journal (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১১-০২ 
  9. "李强任江苏省委书记,罗志军不再担任"। জুন ৩০, ২০১৬। 
  10. "李强兼任上海市委书记 韩正不再兼任"। অক্টোবর ২৯, ২০১৭। 
  11. Xie, Keith Zhai and Stella Yifan। "China's New Slate of Top Leaders Stirs Concern Over Economy"WSJ (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১০-২৩ 
  12. "Xi Jinping promotes loyal Shanghai chief to upper echelons of power"Financial Times। ২০২২-১০-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১০-২৩ 
  13. "Li Qiang sheds Shanghai Covid chaos to enter Communist Party inner circle"South China Morning Post (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২২-১০-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১০-২৯ 
  14. "Li Qiang sheds Shanghai Covid chaos to enter Communist Party inner circle"South China Morning Post (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২২-১০-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১০-২৩ 
  15. Chia, Kyrstal (২৮ এপ্রিল ২০২২)। "Xi in a Bind Over Who to Blame for Shanghai's Covid Outbreak"Bloomberg News। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১০-২০ 
  16. "Communique of the first plenary session of the 20th CPC Central Committee"www.gov.cn 
  17. "China's Xi expands powers, promotes allies"CTVNews (ইংরেজি ভাষায়)। ২০২২-১০-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১০-২৩ 
  18. Baptista, Eduardo; Munroe, Tony (২৩ অক্টোবর ২০২২)। "China's next premier Li: A Xi loyalist who oversaw Shanghai lockdown"Reuters (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২৩ 
  19. Bradsher, Keith (২৩ অক্টোবর ২০২২)। "A loyal aide in Shanghai takes a leading role in Beijing."The New York Times। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০২৩ 
  20. Zhu, Julie; Yew, Lun Tian (৩ মার্চ ২০২৩)। "How China's new No.2 hastened the end of Xi's zero-COVID policy"Reuters। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০২৩ 
  21. Chen, Laurie; Munroe, Tony (২০২৩-০৩-১১)। "Li Qiang becomes China's premier, tasked with reviving economy"Reuters। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০৩-১১ 
  22. "Li Qiang, Xi's right-hand man"Financial Times। ২০২২-১০-২৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-১০-২৯