রুকসানা বেগম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
রুকসানা বেগম
২০১০ সালের ব্রিটিশ টাইটেল ফাইটে রুকসানা বেগম
২০১০ সালের ব্রিটিশ টাইটেল ফাইটে রুকসানা বেগম
জন্ম (১৯৮৩-১০-১৫) ১৫ অক্টোবর ১৯৮৩ (বয়স ৩৫)
সেভেন কিংস, ইলফোর্ড, এসেক্স, ইংল্যান্ড
অন্য নামWarrior Princess
বাসস্থানসেভেন কিংস, ইলফোর্ড, এসেক্স, ইংল্যান্ড
জাতীয়তাইংল্যান্ড English
ওজন৪৮ কেজি (১০৬ পা)
ধরনমুয়ে থাই কিকবক্সিং
Fighting out ofবেথনাল গ্রীন, টাওয়ার হ্যামলেটস, লন্ডন, ইংল্যান্ড
দলব্রিটিশ মুয়ে থাই টীম
প্রশিক্ষকবিল জাড
কার্যকাল২০০৮– বর্তমান
পেশাকিক বক্সার, সায়েন্স টেকনিশিয়ান
বিশ্ববিদ্যালয়ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টমিনিস্টার
উল্লেখযোগ্য ক্লাবকেও জিম
ওয়েবসাইটwww.ruqsana-begum.com

রুকসানা বেগম (ইংরেজি: Ruqsana Begum, জন্মঃ ১৫ অক্টোবর, ১৯৮৩) একজন বাংলাদেশী বংশদ্ভুত ব্রিটিশ কিক বক্সার। তিনি প্রাক্তন ব্রিটিশ নারী এটমওয়েট (৪৮-৫০ কেজি) মুয়ে থাই চ্যাম্পিয়ন[১] এবং ব্রিটিশ মুয়ে থাই দলের অধিনায়ক।

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

রুকসানা বেগম ১৯৮৩ সালের ১৫ অক্টোবর ইংল্যান্ডে একটি বাংলাদেশী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। পরিবারের চার সন্তানের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়। [২]

তিনি ২০০৬ সালে ইউনিভার্সিটি অব ওয়েস্টমিনিস্টার থেকে স্থাপত্যবিদ্যায় স্নাতক সম্পন্ন করেন। [৩]

কিক বক্সিং ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

২০০২ সালে, আঠারো বছর বয়সে রুকসানা বেগম কিক বক্সিং ক্লাসে যোগ দেন। শখের বশে কিক বক্সিং শুরু করলেও পরিবারের কাছে এই ব্যাপারটা গোপন রেখেছিলেন দীর্ঘ এক বছর। [৪] ২০০৬ সালে বিশ্ববদ্যালয় থেকে পাস করে তিনি পরিবারকে নিজের মুয়ে থাই চর্চার ব্যাপারে অবহিত করেন। ২০০৮ সালে রুকসানা বেগম প্রফেশনাল কিক বক্সার হিসেবে আত্মপ্রকাশ করেন।[২]

বক্সিং ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

২০১৮ সালের ১৭ই মার্চ রুকসানা পেশাগত মুষ্টিযুদ্ধের জগতে আত্মপ্রকাশ করেন। বুলগেরীয় বক্সার ইভাংকা ইভানোভার বিরুদ্ধে এই ম্যাচ লন্ডনে অনুষ্ঠিত হয়।[৫] প্রথম পেশাগত মুষ্টিযুদ্ধে ম্যাচটি ৩৮-৩৮ পয়েন্টে ড্র হয়।[৬]

চ্যাম্পিয়নশিপ ও অর্জন[সম্পাদনা]

  • ২০০৯ – ওয়ার্ল্ড এমেচার কিকবক্সিং চ্যাম্পিয়নশিপ্স Bronze[৭]
  • ২০১০ – ব্রিটিশ এটমওয়েট মুয়ে থাই চ্যাম্পিয়ন[৭]
  • ২০১১- ইউরোপীয়ান ক্লাব কাপ এমেচার মুয়ে থাই চ্যাম্পিয়নশিপ Gold[৭]
  • ২০১২ – ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব মুয়ে থাই এমেচার ওয়ার্ল্ড চ্যাম্পিয়নশিপ্স Bronze
  • ২০১৬ – ওয়ার্ল্ড কিকবক্সিং এসোসিয়েশন চ্যাম্পিয়ন [৮][৯][১০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "রুখসানাকে রুখবে কে?"দৈনিক প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ মার্চ ২৪, ২০১৫ 
  2. ডেইলি স্টার এ প্রকাশিত নিবন্ধঃ"Ruqsana Begum:Kicking and Dreaming"
  3. ইলফোর্ড রেকর্ডারে প্রকাশিত নিবন্ধ
  4. সাপোর্ট থ্রু স্পোর্ট
  5. RINGSIDE। "Askin devastates Simmons in two / Haye frustrated at Begum delay and draw / Camacho scores TKO"WBN - World Boxing News (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-১৬ 
  6. "Woman's secret life shocks family"NewsComAu। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-১৬ 
  7. "Ruqsana Begum Awakening Profile"। Awakeningfighters.com। সংগ্রহের তারিখ ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  8. "বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন রুকসানা"দৈনিক প্রথম-আলো। ৩০ এপ্রিল ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০১৭ 
  9. "ম্যায়ো থাই কিক বক্সিংয়ে বিশ্ব চ্যাম্পিয়ান বৃটিশ বাংলাদেশী রুকসানা"দৈনিক মানবজমিন। ২৯ এপ্রিল ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০১৭ 
  10. "বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন কিক বক্সার রুকসানা"দৈনিক ভোরেরকাগজ। ২৯ এপ্রিল ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৯ নভেম্বর ২০১৭ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]