রাশিয়ার সংবিধান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
রুশ ফেডারেশনের সংবিধান
Red copy of the Russian constitution.jpg
রুশ সংবিধানের অনুলিপি
কার্যকারী এলাকারাশিয়া
নামাঙ্কনকারীরুশ জনগণ
কার্যকরণ তারিখ১২ ডিসেম্বর ১৯৯৩
অবস্থা: বলবৎ

বর্তমান রুশ ফেডারেশনের সংবিধান (রুশ: Конституция Российской Федерации, Konstitutsiya Rossiyskoy Federatsii; উচ্চারিত [kənsʲtʲɪˈtutsɨjə rɐˈsʲijskəj fʲɪdʲɪˈratsɨɪ]) ১৯৯৩ সালের ১২ ডিসেম্বর জাতীয় গণভোটে গৃহীত হয়। ১৯৯৩ সালের ২৫ ডিসেম্বর এই সংবিধান সরকারীভাবে প্রকাশিত হওয়ার সাথে সাথে কার্যকর হয়; যার ফলে সোভিয়েত সরকার পদ্ধতির বিলোপ ঘটে। বর্তমান সংবিধানটি ১৯৩৬ সালের সংবিধানের পর রাশিয়ার ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ দীর্ঘকালস্থায়ী সংবিধান।

১৯৯৩ সালে রাশিয়ার সংবিধান-সভায় ৮০০ জনের অধিক লোক অংশগ্রহণ করে। সের্গেই আলেক্সেভ, সের্গেই শাখরে এবং কখনো কখনো আনাতোলি সোবশেককে এই সংবিধানের সহ-রচয়িতা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সংবিধানটির মূলপাঠে মিখাইল স্পেরানস্কির চিন্তাধারা ও বর্তমান ফরাসি সংবিধানের প্রভাব রয়েছে।[১]

১৯৯৩ সালের ১২ ডিসেম্বর রাশিয়ায় একটি সাংবিধানিক গণভোট অনুষ্ঠিত হয়। সকল নিবন্ধিত ভোটারদের মধ্যে ৫৮,১৮৭,৭৫৫ জন (অর্থাৎ, ৫৪.৮%) ভোটদান করেন। এদের মধ্যে ৩২,৯৩৭,৬৩০ জন (অর্থাৎ, ৫৪.৫%) সংবিধানটি কার্যকর করার পক্ষে ভোটদান করেন।[২] এর ফলে ১৯৯৩ সালের সাংবিধানিক সংকটের প্রেক্ষাপটে নতুন সংবিধানটি পূর্ববর্তী ১৯৭৮ সালের ১২ই এপ্রিল সোভিয়েত শাসনামলে গৃহীত রুশীয় সোভিয়েত যুক্তরাষ্ট্রীয় সমাজতান্ত্রিক প্রজাতন্ত্রের সংবিধানের (১৯৯২ সালের এপ্রিল মাসে সোভিয়েত ইউনিয়নের ভাঙ্গন ও রুশ ফেডারেশনের আত্মপ্রকাশের স্বীকৃতির জন্য এই সংবিধানটি সংশোধিত হয়েছিল) স্থলে কার্যকর হয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

সোভিয়েত ইউনিয়নের পর রাশিয়ার সংবিধান[সম্পাদনা]

গঠন[সম্পাদনা]

সংবিধানটি দুটি খণ্ডে বিভক্ত।

প্রথম খণ্ড[সম্পাদনা]

  1. সাংবিধানিক পদ্ধতির ভিত্তি
  2. মানুষ ও নাগরিকদের অধিকার ও স্বাধীনতা
  3. যুক্তরাষ্ট্রীয় পদ্ধতি
  4. রুশ ফেডারেশনের রাষ্ট্রপতি
  5. যুক্তরাষ্ট্রীয় সভা
  6. রুশ ফেডারেশনের সরকার
  7. বিচারপতিগণ
  8. স্থানীয় স্বায়ত্তশাসন
  9. সাংবিধানিক সংশোধন ও পরিমার্জনা

দ্বিতীয় খণ্ড[সম্পাদনা]

  1. চূড়ান্ত ও পরিবর্তনসূচক বিধানসমূহ

বিধানসমূহ[সম্পাদনা]

নাগরিকের মানবাধিকার ও মৌলিক স্বাধীনতা রক্ষার জন্য রাশিয়ার সংবিধান সার্বজনীন স্বীকৃত আন্তর্জাতিক আইন ও সাংবিধানিক আদর্শ ও নীতিমালা অনুসরণ করে।[৩] সার্বজনীন স্বীকৃত অন্যান্য মানবাধিকার ও স্বাধীনতা প্রত্যাখ্যাত হলে রুশ ফেডারেশনের সংবিধানে উল্লেখিত মৌলিক অধিকার ও স্বাধীনতার বিষয়টি ব্যাখ্যা করা হবে না।[৪]

রাষ্ট্রপতিত্ব[সম্পাদনা]

দিমিত্রি মেদভেদেভ সংবিধানের উপর হাত রেখে রাষ্ট্রপতির শপথ গ্রহণ করছেন, মে ৭, ২০০৮.

রুশ ফেডারেশনের সংবিধানে স্পষ্টভাবে রাষ্ট্রপতিকে রাষ্ট্রপ্রধান বলা হয়েছে। রাষ্ট্রপতি স্বরাষ্ট্র ও পররাষ্ট্র বিষয়ক নীতি নির্ধারণ করবেন এবং জাতিকে দেশের ভেতরে ও আন্তর্জাতিকভাবে প্রতিনিধিত্ব করবেন। [অনুচ্ছেদ ৮০][৫] মূল সংবিধানে রাষ্ট্রপতির মেয়াদ চার বছর এবং সর্বোচ্চ দুই মেয়াদে ক্ষমতায় থাকতে পারেন। তবে বর্তমান সংবিধান রাষ্ট্রপতির ছয় বছর মেয়াদের ফরমান জারি করেছে। ভ্লাদিমির পুতিন তার প্রথম ও দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতাসীন থাকা অবস্থায় চার বছর মেয়াদের বিধানটি বলবৎ ছিল। ফলে ২০০৮ সালে রাষ্ট্রপতি হওয়ার পথে তিনি বাধার সম্মুখীন হন। দিমিত্রি মেদভেদেভ চার বছর রাষ্ট্রপতি থাকাকালে পুতিন প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। পুতিন ২০১২ সালে পুনরায় তৃতীয়বারের মত ক্ষমতায় আসেন। ছয় বছর মেয়াদের বিধান অনুসারে তিনি চতুর্থবারের মত ২০১৮ সালে নির্বাচিত হন। ৮১ নং অনুচ্ছেদে গোপন ভোটসহ নির্বাচনের পদ্ধতি উল্লেখ করা হয়েছে; ৮২ থেকে ৯৩ নং অনুচ্ছেদে রাষ্ট্রপতির ক্ষমতা, দায়িত্ব ও সীমাবদ্ধতার বিস্তারিত বিবরণ রয়েছে। সংবিধানে রাষ্ট্রপতিকে প্রভূত ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি "রুশ ফেডারেশনের সশস্ত্র বাহিনীর মহান সর্বাধিনায়ক"।[৬] এমনকি রাষ্ট্রের আইনসভা ভেঙ্গে দেওয়ার ক্ষমতাও রাষ্ট্রপতির রয়েছে।[৭]

নির্বাহী বিভাগ[সম্পাদনা]

আইন বিভাগ[সম্পাদনা]

বিচার বিভাগ[সম্পাদনা]

রুশ ফেডারেশনের সংবিধানে বিচার বিচাগকে শক্তিশালী, স্বাধীন ও নিরপেক্ষ বিভাগ হিসেবে উল্লেখ করা হলেও, বাস্তবতা প্রশ্নবিদ্ধ ও বিতর্কিত। রাশিয়ার সংবিধান আইনের শাসন ও সুষ্ঠু বিচারব্যবস্থা নিশ্চিত করার জন্য বিচার বিভাগের অনাক্রম্যতা, অপসারণের অযোগ্য বিচারপতিগণ এবং আধিপত্যকে স্বীকৃতি দিয়েছে। সংবিধানমতে বিচারপতিগণ সংবিধান ও যুক্তরাষ্ট্রীয় আইনের প্রতি অনুগত হবে।[৮] আবার, ১২৩ নং অনুচ্ছেদে অবাধ ও সুষ্ঠু বিচার ও আইনের প্রয়োগে সবার সমান অধিকার নিশ্চিত করা হয়েছে।[৯] রুশ ফেডারেশনের সাংবিধানিক আদালত, রুশ ফেডারেশনের সুপ্রীমকোর্ট, উচ্চতর সালিসি কোর্ট এ তিনটি আদালতের বিচারকদের রাষ্ট্রপতির প্রস্তাবে ফেডারেশনের কাউন্সিল কর্তৃক নিয়োগ দেওয়া হয়।"[৮] সাংবিধানিক কোর্টের কার্যক্রম পরিচালনায় ১৯ জন বিচারক নিয়োগ দেওয়া হয়[৮], তবে অন্যান্য আদালতগুলোর বিচারকসংখ্যা নির্ধারিত নয়। ২০০২ সালের সুপ্রীম কোর্টে ১১৫ জন সদস্য কার্যরত ছিল।[১০] কার্যক্রম প্রসারিত হওয়ায় ২০১৪ সালে সুপ্রীম কোর্টের আসনসংখ্যা ১৭০ জনের উন্নীত করা হয়।[১১] ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে ইন্সটিটিউট অব মডার্ন রাশিয়ার এক প্রতিবেদন অনুসারে, রুশ ফেডারেশনের উচ্চতর সালিসি কোর্ট বিলুপ্ত করে এ কোর্টের পূর্বে পালনকৃত দায়িত্বভার সুপ্রীম কোর্টের আওতায় নিয়ে আসা হয়।[১১]

সংবিধানে আদর্শ বিধান থাকা সত্ত্বেও অধিকাংশ নাগরিক সুষ্ঠু বিচার পাওয়ার ক্ষেত্রে আশঙ্কা প্রকাশ করেন।[১২] এমনকি, এসব বিধানকে উপেক্ষা করে রাশিয়ায় প্রতিনিয়ত মানবাধিকার লঙ্ঘিত হয়।[১৩].

পুস্তিকায় রাশিয়ার সংবিধান

.]]

স্থানীয় সরকার[সম্পাদনা]

টীকা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]