যৌন উদ্দেশ্যে মানব পাচার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সুইডিশ যৌন-বিরোধী কর্মীদের দ্বারা বর্ণিত যৌন উদ্দেশ্যে মানব পাচারের ব্যবসায়িক মডেল

যৌন উদ্দেশ্যে মানব পাচার হল যৌন দাসত্ব সহ যৌন শোষণের উদ্দেশ্যে মানব পাচার, যার মধ্যেকার একটি রূপ হিসাবে আধুনিক দাসত্বকে বিবেচনা করা হয়। [১] একজন ভিকটিমকে বিভিন্ন উপায়ে তাদের পাচারকারীর উপর নির্ভরশীলতার পরিস্থিতিতে থাকে বাধ্য করা হয় এবং তারপর পাচারকারী (গুলি) গ্রাহকদের যৌন সেবা প্রদানের জন্য ভিকটিমকে ব্যবহার করে। [২] যৌন পাচার অপরাধের অধিগ্রহণ, পরিবহন ও শোষণ জড়িত হতে পারে;[১] যার মধ্যে রয়েছে শিশু যৌন পর্যটন (সিএসটি), গার্হস্থ্য গৌণ যৌন পাচার (ডিএমএসটি) বা শিশুদের অন্য ধরনের বাণিজ্যিক যৌন শোষণ ও পতিতাবৃত্তি। [২]

আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থা (আইএলও) ২০১২ সালে ২০.৯ মিলিয়ন মানুষ জোরপূর্বক শ্রমের শিকার হওয়া এবং ২২% (৪.৫ মিলিয়ন) জোরপূর্বক যৌন শোষণের শিকার হওয়ার কথা রিপোর্ট করে। [৩] আইএলও ২০১৬ সালে রিপোর্ট করে, যে আনুমানিক ২৫ মিলিয়ন ব্যক্তির মধ্যে জোরপূর্বক শ্রম, ৫ মিলিয়ন মানুষ যৌন শোষণের শিকার হয়েছিল। [৪][৫] যাইহোক, যৌন পাচারের গোপনীয়তার কারণে গবেষকদের জন্য সঠিক, নির্ভরযোগ্য পরিসংখ্যান পাওয়া কঠিন। [৬] আইএলও অনুসারে যৌন দাসত্বের জন্য বৈশ্বিক বাণিজ্যিক লাভ $৯৯ বিলিয়ন বলে অনুমান করা হয়েছে। [৭] মোট মানব পাচারের জন্য ২০০৫ সালে বাণিজ্যিক লাভের পরিমাণ ৯ বিলিয়ন ডলার হিসাব করা হয়েছিল। [৮][৯]

বেশিরভাগ ভুক্তভোগী নিজেদেরকে জোরপূর্বক বা অবমাননাকর পরিস্থিতির মধ্যে খুঁজে পায়, যেখান থেকে পালানো কঠিন ও বিপজ্জনক উভয়ই। এই অনুশীলনটি যে স্থানগুলিতে বিশ্বজুড়ে ব্যপ্ত হয় ও দেশের মধ্যে একটি জটিল তরঙ্গ বা ঢেউ প্রতিফলিত করে, তার মানবাধিকার সমস্যার কার্যকর সমাধানগুলি তৈরি করা খুব কঠিন করে তোলে।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

পৃথিবী জুড়ে[সম্পাদনা]

এশিয়া[সম্পাদনা]

এশিয়ার উপ-অঞ্চলের পরিবহন ও গন্তব্য উভয়ের মূল কেন্দ্রগুলির মধ্যে ভারত, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া এবং থাইল্যান্ড রয়েছে। [১০] পাচারকৃত বাংলাদেশী ও নেপালি নারীদের জন্য ভারত একটি প্রধান কেন্দ্র। [১১] ভারতে আনুমানিক ৩ মিলিয়ন যৌনকর্মী রয়েছে, যাদের ৪০% পাচার হওয়া শিশু, বেশিরভাগই জাতিগত সংখ্যালঘু ও নিম্নবর্ণের মেয়ে। থাইল্যান্ডে, ২০০৪ সালে ১৬ বছরের কম বয়সী ৮,০০,০০০ শিশু পতিতাবৃত্তিতে জড়িত ছিল। [১২] এছাড়াও, ইউনিসেফ ও আন্তর্জাতিক শ্রম সংস্থার মতে শ্রীলঙ্কায় ৪০,০০০ শিশু পতিতা রয়েছে। [১২] থাইল্যান্ড ও ভারত শিশু পতিতাবৃত্তির সর্বোচ্চ হারের শীর্ষ পাঁচটি দেশে রয়েছে। [১২] গ্লোবাল স্লেভারি ইনডেক্স (জিএসআই) ২০১৪ সালে বলছে যে বিশ্বে পাচারের শিকার প্রায় ৩৬ মিলিয়ন   মানুষ এবং যার মধ্যে এশিয়া থেকে প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ মানুষ রয়েছে। পাকিস্তান, থাইল্যান্ড, চীন, ভারত ও বাংলাদেশ বিশ্বের সবচেয়ে বেশি সংখ্যক পাচারের শিকার হওয়া দেশগুলির মধ্যে শীর্ষ দশে রয়েছে। ভারত ১৪ মিলিয়ন  ভুক্তভোগীর সাথে তালিকার শীর্ষে রয়েছে, চীন ৩.২ মিলিয়ন ভুক্তভোগীর সাথে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে , এবং পাকিস্তান ২.১ মিলিয়ন ভুক্তভোগীর সাথে তৃতীয় স্থানে রয়েছে। [১৩] কম্বোডিয়া ট্রানজিট, উৎস ও পাচারের জন্য একটি গন্তব্য দেশ। [১৪] এশিয়ায় পাচারের শিকার হওয়া ব্যাক্তিদের মধ্যে ৩৬% শিশু ও ৬৪% প্রাপ্তবয়স্ক। [১৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Kara, Siddharth (২০০৯)। Sex Trafficking: Inside the Business of Modern Slavery। Columbia University Press। আইএসবিএন 9780231139618। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০১৫ 
  2. Hammond, Gretchen; McGlone, Mandy (২২ মার্চ ২০১৪)। "Entry, Progression, Exit, and Service Provision for Survivors of Sex Trafficking: Implications for Effective Interventions": 157–168। ডিওআই:10.1007/s40609-014-0010-0অবাধে প্রবেশযোগ্য , citing Maria Beatriz Alvarez, Edward J. Alessi (মে ২০১২)। "Human trafficking is more than sex trafficking and prostitution: implications for social work": 142–152। ডিওআই:10.1177/0886109912443763 
  3. "ILO 2012 Global estimate of forced labour – Executive summary" (PDF)। International Labour Organization। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০১৫ 
  4. Odhiambo, Agnes & Barr, Heather. (2 Aug 2019). "Opinion:Trafficking survivors are being failed the world over." Al Jazeera website Retrieved 4 August 2019.
  5. International Labour Organization. (19 September 2017). Press Release:40 million in modern slavery and 152 million in child labour around the world. International Labour Organization website Retrieved 4 August 2019.
  6. Tiefenbrun, Susan (২০০২)। "The Saga of Susannah A U.S. Remedy for Sex Trafficking in Women: The Victims of Trafficking and Violence Protection Act of 2000"। 
  7. "Human Trafficking by the Numbers". (7 January 2017). Human Rights First website Retrieved 2 December 2018.
  8. Daffron, Joshua W. (Dec 2011). "Combating Human Trafficking: Evolution of State Legislation and the Policies of the United Kingdom and France." Thesis, M.A. Monterey, Calif.:Department of National Security Affairs. Naval Postgraduate School. Defense Technical Information Center website Retrieved 2 December 2018.
  9. Tiziana Luise. (2005). "Are human rights becoming burdensome for our economies? The role of slavery-like practices in the development of world economics and in the context of modern society," Rivista Internazionale Di Scienze Sociali, 113(3): 473.
  10. Gender and Human Rights in the Commonwealth: Some critical issues for action in the decade 2005–2015। Commonwealth Secretariat। ২০০৪। আইএসবিএন 9781848598553। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০১৫ 
  11. "Gender and Human Rights in the Commonwealth"। Commonwealth Secretariat। 
  12. Iaccino, Ludovica (৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৪)। "Top Five Countries with Highest Rates of Child Prostitution"International Business Times। সংগ্রহের তারিখ ২৮ এপ্রিল ২০১৫ 
  13. Enos, Olivia (২০ নভেম্বর ২০১৪)। "Nearly Two-Thirds of Human Trafficking Victims Are from Asia"The Daily Signal। সংগ্রহের তারিখ ৬ মে ২০১৭ 
  14. "Facts and Statistics | SHE Rescue Home"www.sherescuehome.org (ইংরেজি ভাষায়)। ২৭ আগস্ট ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ মে ২০১৭ 
  15. john। "Asian Century Institute – Human trafficking and smuggling in Asia"asiancenturyinstitute.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৬ মে ২০১৭