মেহরাঙ্গিজ দৌলতশাহী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মেহরাঙ্গিজ দৌলতশাহী

মেহরাঙ্গিজ দৌলতশাহী ( ফার্সি: مهرانگیز دولتشاهی‎‎; ১৩ ডিসেম্বর ১৯১৯ - ১১ অক্টোবর ২০০৮) ছিলেন একজন ইরানি সমাজকর্মী এবং রাজনীতিবিদ। তিনি পাহলভি যুগে ডেনমার্কে ইরানের রাষ্ট্রদূতসহ উল্লেখযোগ্য পদে ছিলেন। সাংসদ হিসাবেও তিনি তিন মেয়াদে দায়িত্ব পালন করেন।

প্রাথমিক জীবন এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

দৌলতশাহির জন্ম তারিখ এবং জন্মস্থান সম্পর্কে কিছু পরস্পরবিরোধী প্রতিবেদন রয়েছে যা তিনি নিজেই বলেছিলেন।[১] আব্বাস মিলনি বলেছেন যে তিনি দুটি ভিন্ন জন্ম বছর দিয়েছেন; একটি ১৯১৭ এবং অন্যটি ১৯১৯।[১] আব্বাস মিলানি তার জন্মশহর সম্পর্কেও একই কথা জানিয়েছেন, যা তেহরান এবং ইসফাহান উভয় হিসাবে দেওয়া হয়েছিল।[১] তার পরিবার কেরমানশাহে অবস্থিত প্রধান জমিদার ছিল।[২] তিনি মোহাম্মদ আলী মির্জার মেয়ে ছিলেন "মেশকৌত আল দোওলেহ",[৩] [৪] মজলিসের সদস্য এবং জমির মালিক। তিনি কাজার রাজবংশের সদস্য ছিলেন।[১] তার মা ছিলেন হিদায়েত কুলি খানের মেয়ে আখতার ওল-মুলক। মেহরাঙ্গিজ রেজা শাহের চতুর্থ স্ত্রী এসমাত দৌলতশাহির চাচাতো বোন ছিলেন।[৫]

মেহরাঙ্গিজ জার্মানিতে পড়াশোনা করেন এবং বার্লিন বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।[৩] তিনি হাইডেলবার্গ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সামাজিক ও রাজনৈতিক বিজ্ঞানে পিএইচডি লাভ করেন।[৩]

ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

দৌলতশাহী সামাজিক সেবা সংস্থায় এবং বন্দীদের সমর্থনের জন্য সংস্থায় কাজ করতেন।[৬] তিনি রাহ-ই নো (নিউ ওয়ে) সমাজ প্রতিষ্ঠা করেন, যা পরবর্তীতে আন্তর্জাতিক মহিলা সিন্ডিকেটের অংশ হয়ে ওঠে।[৬] সমাজ মহিলাদের প্রশিক্ষণের প্রস্তাব দেয় এবং তাদের জন্য সমান অধিকারের পক্ষে সওয়াল করে।[৩] তিনি দক্ষিণ তেহরানে প্রাপ্তবয়স্কদের সাক্ষরতা কার্যক্রমও চালু করেন[৬]। ১৯৫১ সালে তিনি এবং মহিলা কর্মী সাফেহ ফিরুজ মোহাম্মদ রেজা শাহের সাথে দেখা করে ইরানে নারীদের নির্বাচনী অধিকার নিয়ে আলোচনা করেন।[৭] তিনি ইরানের মহিলা সংস্থার (ডাব্লুওআই) আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপদেষ্টা কমিটির পরিচালক ছিলেন।[৮] ১৯৭৩ সালে তিনি আন্তর্জাতিক নারী পরিষদের সভাপতি নিযুক্ত হন এবং ১৯৭৬ সালে তার মেয়াদ শেষ হয়।[৯]

তিনি ১৯৬৩ থেকে ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত মজলিসের সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি এই পদের প্রথম মহিলা ছিলেন।[৮] তিনি তিন মেয়াদে মজলিসে কেরমানশাহের প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন।[১০] তিনি ১৯৬৭ সালে "পারিবারিক সুরক্ষা আইন" এবং ১৯৭৪ সালে এর সম্প্রসারণে উল্লেখযোগ্যভাবে অবদান রেখেছিলেন।[১০] তিনি মহিলা বিষয়ক প্রথম মন্ত্রী হিসাবেও দায়িত্ব পালন করেছিলেন।[১১] তিনি ডেনমার্কে ইম্পেরিয়াল ইরানের প্রথম মহিলা রাষ্ট্রদূতও ছিলেন।[১১] তিনি ১৯৭৫ সালে এই পদে নিযুক্ত হন।[১২]

শেষ জীবন[সম্পাদনা]

১৯৭৯ সালের বিপ্লবের সময় দৌলতশাহি ডেনমার্কে ইরানের রাষ্ট্রদূত ছিলেন। তিনি সেই দেশ ছেড়ে প্যারিসে বসতি স্থাপন করেন।[৬] ২০০২ সালে তিনি সোসাইটি, গভর্নমেন্ট এবং ইরানের নারী আন্দোলন শিরোনামে একটি বই প্রকাশ করেন।[৬] তিনি ২০০৮ সালের অক্টোবরে প্যারিসে মারা যান। [৬]

পুরস্কার ও সম্মাননা[সম্পাদনা]

  • DNK Order of Danebrog Grand Cross BAR.png গ্র্যান্ড ক্রস অফ দ্য অর্ডার অফ দ্য ড্যানব্রোগ অফ ডেনমার্ক (১৪ ফেব্রুয়ারি ১৯৭৯)[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

১৯৯৭ সাল[ উদ্ধৃতি প্রয়োজন ]ে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইরানি উইমেন্স স্টাডিজ ফাউন্ডেশন কর্তৃক দৌলতশাহীকে বর্ষসেরা নারী হিসেবে মনোনীত করা হয়। [১৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

 

  1. Abbas Milani (১৯ ডিসেম্বর ২০০৮)। Eminent Persians: The Men and Women Who Made Modern Iran, 1941-1979। Volumes One and Two। Syracuse University Press। পৃষ্ঠা 526। আইএসবিএন 978-0-8156-0907-0 
  2. "Centers of Power in Iran" (PDF)CIA। মে ১৯৭২। সংগ্রহের তারিখ ৫ আগস্ট ২০১৩ 
  3. "Sex equality still elusive: feminist"The Age। ৬ নভেম্বর ১৯৭৩। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০১৩ 
  4. "Dolatshahi, Mehrangiz"Harvard University। ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০১৩ 
  5. Camron Michael Amin (১ ডিসেম্বর ২০০২)। The Making of the Modern Iranian Woman: Gender, State Policy, and Popular Culture, 1865-1946। University Press of Florida। পৃষ্ঠা 115। আইএসবিএন 978-0-8130-3126-2 
  6. Nazy Kaviani (২৮ অক্টোবর ২০০৮)। "Mehrangiz Dolatshahi"Iranian। ৫ ডিসেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০১৩ 
  7. Ali Akbar Mahdi (অক্টোবর ২০০৪)। "The Iranian Women's Movement: A Century Long Struggle" (PDF) 
  8. "Oral History interview of Mehrangiz Dowlatshahi"Foundation for Iranian Studies। ২৪ মার্চ ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০১৩ 
  9. "About us"International Council of Women। ৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০১৩ 
  10. "Mehrangiz Dolatshahi, who struggled for the ratification of the "Family Support Law" in 1967"The Feminist School। ২৩ অক্টোবর ২০০৮। ৬ মে ২০২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০১৩ 
  11. Darius Kadivar (৬ সেপ্টেম্বর ২০১০)। "Mehrangiz Dolatshahi First Woman Ambassador of Imperial Iran (1960)"Iranian। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০১৩ 
  12. Official Report of Debates. Volume II। Council of Europe। পৃষ্ঠা 681। GGKEY:49S8UY2XXFL। 
  13. "The Woman of the Year. Past awardees"IWSF। ১২ জুলাই ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০১৩