মুনির খান ওরাকজাই

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মুনির খান ওরাকজাই
পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের সদস্য
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
১৩ আগস্ট ২০১৮
সংসদীয় এলাকাএনএ -৪৫ (উপজাতি অঞ্চল-৬)
কাজের মেয়াদ
২০০২ – ২০১৩
সংসদীয় এলাকাএনএ -৩৮ (উপজাতি অঞ্চল -৩)
ব্যক্তিগত বিবরণ
জাতীয়তাপাকিস্তানি
রাজনৈতিক দলমুত্তাহিদা মজলিসে আমল (এমএমএ)

মুনির খান ওরাকজাই হলেন একজন পাকিস্তানি রাজনীতিবিদ যিনি আগস্ট ২০১৮ সাল থেকে পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদের সদস্য। এর আগে তিনি ২০০২ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত জাতীয় জাতীয় পরিষদের ছিলেন। এই খসড়াটিতে নয় মাস ধরে যে কমিটি কাজ করেছে, তাতে সংসদের দুটি সভায় প্রতিনিধিত্বকারী সব রাজনৈতিক দলের প্রতিনিধিরাও রয়েছেন। এর মধ্যে রয়েছে: রাজা পারভেজ আশরাফ, মাওলানা ফজলুর রহমান, গোলাম মুর্তজা জতোয়, সৈয়দ নাভেদ কামার, বাবর আওয়ান, শহীদ বুগতি, মুনির খান ওরাকজাই, এবং মিয়া রাজা রাব্বানী।

জন্ম ও প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

রাজনৈতিক ও কর্মজীবন[সম্পাদনা]

মুনির খান ওরাকজাই ২০০২ সালে পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে নির্বাচনী এলাকা এনএ -৩৮ (উপজাতি অঞ্চল -৩) থেকে পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদে সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন । [১][২] তিনি ৬,৬১৯ ভোট পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী গুল মনানকে পরাজিত করেছিলেন। [৩]

২০০৮ সালের পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে তিনি নির্বাচনী এলাকা এনএ -৩৮ (উপজাতি অঞ্চল -৩) থেকে জাতীয় সংসদে পুনরায় জাতীয় পরিষদে সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন । [১][৪] তিনি ১৬৫২৫ ভোট পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী আখুনজাদা ওবায়দুল্লাহ শরীফকে পরাজিত করেছিলেন। [৫]

২০১১ সালে তিনি নিশান-ই-ইমতিয়াজ পেয়েছিলেন। [১]

তিনি ২০১৩ সালে পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে এনএ -৩৮ (উপজাতি অঞ্চল -২) আসন থেকে জমিয়তে ওলামায়ে ইসলাম (এফ) এর প্রার্থী ছিলেন।[৬][৭] তবে নির্বাচনী বৈঠকে আক্রমণ করা হয়েছিল যাতে কমপক্ষে ১৯ জনকে হত্যা করেছিল। তেহরিক-ই-তালিবান পাকিস্তানের দাবি করা এই হামলার স্পষ্ট লক্ষ্য ছিলেন ওরাকজাই। যার কারণে নির্বাচনী এলাকায় নির্বাচন স্থগিত করা হয়। [৮][৯]

তিনি ২০১৮ সালের পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনে এনএ -৪৫ (উপজাতি অঞ্চল-৬) আসন থেকে মুত্তাহিদা মজলিস-এ-অমলের (এমএমএ) প্রার্থী হিসাবে জাতীয় সংসদে পুনরায় নির্বাচিত হয়েছিলেন । [১০] তিনি ১৬,৩৫৩ ভোট পেয়ে পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফের প্রার্থী সাইদ জামালকে পরাজিত করেছিলেন। [১১]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "More than two years after 2013 polls, NA-38 Kurram Agency has no MNA"www.thenews.com.pk (ইংরেজি ভাষায়)। ৩ সেপ্টেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১৭ 
  2. Ali, Zulfiqar (২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৪)। "ECP, admin fail to hold polls in Kurram even after one year"DAWN.COM (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১৭ 
  3. "2002 election result" (PDF)। ECP। ২৬ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মে ২০১৮ 
  4. "FATA parliamentarian Munir Orakzai to join JUI-F - The Express Tribune"The Express Tribune। ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১৭ 
  5. "2008 election result" (PDF)। ECP। ৫ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মে ২০১৮ 
  6. Report, Bureau (২৬ মার্চ ২০১৩)। "Fazl to contest for three NA seats"DAWN.COM (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১৭ 
  7. Afzal, Hussain (৭ মে ২০১৩)। "Taliban say their target was Munir Orakzai: JUI-F rally attacked in Kurram; 19 https://www.dawn.com/news/812374/taliban-say-their-target-was-munir-orakzai-jui-f-rally-attacked-in-kurram-19-dead dead"DAWN.COM (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১৭  |title= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য)
  8. "Kurram's displaced: NA-38 candidates ask ECP to delay election - The Express Tribune"The Express Tribune। ১৭ মে ২০১৩। 
  9. "The Sunni part"tns.thenews.com.pk। The News on Sunday। ৮ আগস্ট ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ জুলাই ২০১৭ 
  10. "Losing candidate demands re-election on NA-45" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১ আগস্ট ২০১৮ 
  11. "NA-45 Result - Election Results 2018 - Kurram Agency 1 Tribal Area 6 - NA-45 Candidates - NA-45 Constituency Details - thenews.com.pk"www.thenews.com.pk (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১ আগস্ট ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]