মালিকা-ই-জাহান (আলাউদ্দিন খিলজির স্ত্রী)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মালিকা-ই-জাহান
দিল্লি সুলতানাতের শাহজাদি
দিল্লি সুলতানাতের সুলতানা
রাজত্বআনু. ১২৯৬–১৩১৬
দাম্পত্য সঙ্গীআলাউদ্দিন খিলজি
রাজবংশখিলজি (জন্মসূত্রে)
পিতাজালালউদ্দিন
মাতামালিকা-ই-জাহান
ধর্মসুন্নি ইসলাম

মালিকা-ই-জাহান ("দুনিয়ার রানী")[১] ছিলেন দিল্লির সুলতান আলাউদ্দিন খিলজির প্রথম ও প্রধান স্ত্রী।[২] তিনি ছিলেন আলাউদ্দিন খিলজির চাচা জালালউদ্দিন খিলজির মেয়ে, যিনি খিলজি সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।[৩]

পরিবার ও বংশ পরিচিতি[সম্পাদনা]

মালিকা-ই-জাহান ছিলেন খিলজি সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা সুলতান জালালউদ্দিন খিলজির মেয়ে।[৪][৫] তার মায়ের উপাধিও ছিল মালিকা-ই-জাহান, যিনি জালালউদ্দিন খিলজির প্রধান স্ত্রী ছিলেন। তিনি ছিলেন উচ্চাকাঙ্ক্ষী নারী এবং জালালউদ্দিন খিলজির উপরে তার বিস্তর প্রভাব ছিল।[৬]

মালিকা-ই-জাহানের তিন ভাইয়ের নাম জানা যায়। তারা হলেন, খান-ই-খান, আরকালি খান ও কদর খান।

আলাউদ্দিন খিলজি সম্পর্কে তার চাচাতো ভাই হতেন। তিনি ছিলেন জালালউদ্দিন খিলজির বড় ভাই শাহাবুদ্দিন মাসুদের ছেলে।[৭] শাহবুদ্দিন মাসুদের মৃত্যু হলে জালালউদ্দিন খিলজির নিকট আলাউদ্দিন খিলজি বেড়ে ওঠেন। তার ছোট ভাই আলমাস বেগ তার মতই আলাউদ্দিন খিলজির এক মেয়েকে বিয়ে করেছিলেন।[৮]

বিবাহ[সম্পাদনা]

মালিকা-ই-জাহান দিল্লির বুকে খিলজি সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠার বহু পূর্বে আলাউদ্দিন খিলজির সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন।[৭] আলাউদ্দিন খিলজি বিয়ের পর উপরের দিকে উঠতে থাকেন।[৯] জালালউদ্দিন খিলজি ১২৯০ সালে দিল্লির সিংহাসনে অধিষ্ঠিত হলে তিনি আমির-ই-তুজুগ পদে অধিষ্ঠিত হন।[১০] তাদের মধ্যকার বৈবাহিক জীবন সুখের ছিল না। মালিকা-ই-জাহান সুলতানের মেয়ে বলে গর্বপ্রকাশ করতেন। ফলশ্রুতিতে তার এবং তার স্বামীর মাঝে শীতল সম্পর্ক বিদ্যমান ছিল।

একদিন আলাউদ্দিন খিলজি ও তার দ্বিতীয় স্ত্রী মাহরু বাগানে হাঁটছিলেন। তখন মালিকা-ই-জাহান মাহরুকে আক্রমণ করেন। রাগের মাথায় আলাউদ্দিন খিলজি মালিকা-ই-জাহানকে প্রহার করেন। ঘটনাটি জালালউদ্দিন খিলজির কানে পৌঁছালেও তিনি আলাউদ্দিন খিলজির বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেন নি।[১০]

আলাউদ্দিন খিলজির সাথে তার শাশুড়িরও শীতল সম্পর্ক ছিল। তিনি জালালউদ্দিন খিলজির কাছে অভিযোগ করেছিলেন যে, আলাউদ্দিন খিলজি খিলজি সাম্রাজ্যের দূরবর্তী প্রান্তে নিজস্ব স্বাধীন সাম্রাজ্য প্রতিষ্ঠা করতে চায়।[১১]

সুলতানের উপরে তার শাশুড়ির বিস্তর প্রভাব ছিল বলে আলাউদ্দিন খিলজি কখনো সুলতানের কাছে তার স্ত্রীর নামে অভিযোগ জানান নি।[১২] ১২৯৬ সালে জালালউদ্দিন খিলজিকে হত্যা করে আলাউদ্দিন খিলজি নিজেকে দিল্লির নতুন সুলতান বলে ঘোষণা করেন।[১৩] মালিকা-ই-জাহান কখনো তার বাবাকে হত্যা করার জন্য আলাউদ্দিন খিলজিকে মাফ করেন নি।[২]

জনপ্রিয় সংস্কৃতিতে[সম্পাদনা]

অদিতি রাও হায়দারী মালিকা-ই-জাহানের ভূমিকায় সঞ্জয় লীলা বনশালির চলচ্চিত্র পদ্মাবত (২০১৮) - এ অভিনয় করেছিলেন, যেখানে তার চরিত্রের নাম ছিল মেহেরুন্নিসা।[১৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Indian History (ইংরেজি ভাষায়)। Allied Publishers। পৃষ্ঠা B-122। আইএসবিএন 9788184245684 
  2. Hasan, Masudul (২০০৭)। History of Islam (Rev. সংস্করণ)। New Delhi: Adam Publishers & Distributors। পৃষ্ঠা 155। আইএসবিএন 9788174350190 
  3. "Khalji Dynasty"Encyclopædia Britannica। সংগ্রহের তারিখ ২০১৪-১১-১৩ 
  4. Chandra, Satish (২০০৪)। Medieval India : from Sultanat to the Mughals. (Rev. সংস্করণ)। New Delhi: Har-Anand Publications। পৃষ্ঠা 75। আইএসবিএন 9788124110645 
  5. Lethbridge, Sir Roper (১৮৮১)। A Short Manual of the History of India: With an Account of India as it is (ইংরেজি ভাষায়)। Macmillan and Company। পৃষ্ঠা 190। 
  6. Hasan, Masudul (২০০৭)। History of Islam (Rev. সংস্করণ)। New Delhi: Adam Publishers & Distributors। পৃষ্ঠা 88। আইএসবিএন 9788174350190 
  7. Mehta, Jaswant Lal (১৯৮০)। Advanced Study in the History of Medieval India (ইংরেজি ভাষায়)। Sterling Publishers Pvt. Ltd। পৃষ্ঠা 137। আইএসবিএন 9788120706170 
  8. Banarsi Prasad Saksena 1992, পৃ. 321।
  9. Congress, Indian History (১৯৮৫)। "Proceedings – Indian History Congress" (ইংরেজি ভাষায়)। 45। Indian History Congress.: 273। সংগ্রহের তারিখ ১২ নভেম্বর ২০১৭ 
  10. Kishori Saran Lal 1950, পৃ. 41।
  11. Nand, Lokesh Chandra (১৯৮৯)। Women in Delhi Sultanate (1st সংস্করণ)। Allahabad, India: Vohra Publishers। পৃষ্ঠা 85। আইএসবিএন 9788185072524 
  12. "Journal of Indian History" (ইংরেজি ভাষায়)। 9। University of Kerala.। ১৯৩১: 220। 
  13. Ahmed, Farooqui Salma (২০১১)। A Comprehensive History of Medieval India: From Twelfth to the Mid-Eighteenth Century (ইংরেজি ভাষায়)। Pearson Education India। পৃষ্ঠা 69। আইএসবিএন 9788131732021 
  14. "Mehrunisa in Padmaavat was tiny but special: Aditi Rao Hydari"The Express TribuneIANS। ৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮