মারিনা বে, সিঙ্গাপুর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

মারিনা বে একটি উপসাগর যা সিঙ্গাপুর এর কেন্দ্রীয় এলাকায় অবস্থিত এবং চারটি পরিকল্পিত এলাকা দ্বারা পরিবেষ্টিত। এগুলো হল ডাউনটাউন কোর, পুর্ব মারিনা, দক্ষিণ মারিনা ও স্ট্রেইস ভিউ। এর চারিদিকের পার্শ্ববর্তী এলাকাকেও মারিনা বে, বলা হয়।একটি ৩৬০ হেক্টর এলাকা সংলগ্ন কেন্দীয় বাণিজ্যিক বিভাগ।

প্রধান পরিকল্পনা[সম্পাদনা]

শহর পুনঃনির্মাণ কতৃপক্ষ এখানে বাণিজ্যিক, আবাসিক, হোটেল এবং বিনোদন এর সংমিশ্রণ ঘটাতে চেয়েছিল। এছাড়াও সিঙ্গাপুর সরকার মারিনা বে এর সামনের নদী সরোবর এর জন্য প্রায় $৩৫ মিলিয়ন অর্থ ব্যয় করেছে। এটাতে একটি নতুন পরিবেশ বান্ধব পর্যটক কেন্দ্র এবং যুব অলিম্পিক পার্কের পাশে হেলিক্স লিঙ্ক বেফ্রন্ট মারিনা সেন্টার অবস্থিত। মারিনা বে বিভিন্ন মেলা ও থিয়েটার হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মারিনা বে,পটভূমিতে মারিনা বে সেন্টার

১৯৬৯ সালে,প্রধান সরবর তৈরীর জন্য মারিনা বে তে ৩৬০ হেক্টর জমি পুনরুদ্ধারের কাজ শুরু হয়।বর্তমানের মারিনা সেন্টার এবং মারিনা দক্ষিণ এলাকাসমূহ ঐ পুনরুদ্ধার কৃত জমির ওপরেই অবস্থিত যা ১৯৯২ সালে সম্পন্ন হয়।[১][২][৩] পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়াতে তিলক আয়ের বাসিন এবং এদের মধ্যবর্তী রাস্তা মানচিত্র থেকে অপসারণ করা হয় যার ফলে সিঙ্গাপুরের নদী গুলো সরাসরি সাগরে পতিত হওয়ার বদলে মারিনা বে দিয়ে প্রবাহিত হয়। মারিনা বে এর জন্য দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা গৃহীত হয় URA এর দ্বারা ১৯৮৩ সালে সরবরটি জনসাধারণ এর জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়ার মাধ্যমে।[১] মারিনা বে এর খসড়া পরিকল্পনা ১৯৮৮ সালে জনসাধারণ এর নিকট উন্মুক্ত করে দেওয়া হয় এবং ২ সপ্তাহ যাবত প্রদর্শনী করা হয়।সেখানে এই যায়গার সরবর এবং অন্যান্য স্থাপনা সমূহ এই শহরটির আন্তর্জাতিক পরিচিতির কারণ হতে পারে।[৪]

২০০৮ সালে মারিনা বাঁধ নির্মিত হয়েছিল বেসিন কে একটি পানির জলাধার হিসেবে পরিনত করার লক্ষে।এছাড়াও এটি পানি সরবরাহ, বন্যা নিয়ন্ত্রণ এবং পর্যটকদের কাছে একটি নতুন আকর্ষণ হিসেবে কাজ করে।

মারিনা বে তে অনুষ্ঠান[সম্পাদনা]

সিঙ্গাপুর ফ্লায়ার থেকে দেখা, মারিনা বে সূর্যাস্ত

২০০৮ সালের ২৮শে সেপ্টেম্বর মারিনা বে এর স্ট্রিট সার্কিট এর প্রথম বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ সিঙ্গাপুর গ্র্যান্ড প্রিক্স সংঘটিত হয়।[৫] এটি ছিল প্রথম ফর্মুলা ওয়ান গ্র্যান্ড প্রিক্স যা রাতে মঞ্চস্থ করা হয়, শুরু থেকে এ পর্যন্ত মারিনা বে এর ফ্লোট এ নামা ধরনের অনুষ্ঠান যেমন জাতীয় প্যারেড নতুন বছরের সূচনার সময় গণনা,[৬] বিশ্বের বৃহত্তম ভাসমান স্টেডিয়ামে গ্রীষ্মকালীন যুব অলিম্পিক ২০১০ এর উদ্বোধন ও সমাপ্তি অনুষ্ঠান পালিত হয়।[৭]

এছাড়াও এখানে বার্ষিক ( I light Marina Bay) নামে প্রথম এবং এশিয়ার একমাত্র টেকসই আলো আর্ট মেলা পালিত হয়।

অবকাঠামো[সম্পাদনা]

সাধারণ সেবা সুড়ঙ্গ[সম্পাদনা]

এশিয়াতে জাপান এর পরে সিঙ্গাপুর দ্বিতীয় দেশ যারা শহর উন্নয়ন এর ক্ষেত্রে সেবা বিতরণ এর উদ্দ্যেশ্য নিয়ে সাধারণ সেবা সুড়ঙ্গ চালু করেছে। মারিনা বে তে যোগাযোগ এর উদ্দেশ্যে যে সকল তার,পানির পাইপ,এবং বৈদুতিক যোগাযোগ তার সব কিছুই মাটির নিচ দিয়ে স্থানান্তর করা হয়েছে।CST শুধুমাত্র নির্ভরযোগ্যতাই বাড়ায় না বরং এটার ১০০% জরুরী সেবা রয়েছে এবং সকল কিছুর সহজ রক্ষণাবেক্ষণ নিশ্চিত করে।

পানি ব্যবস্থাপনা[সম্পাদনা]

২০০৪ সালে পাবলিক ইউটিলিটি বোর্ড মারিনা সরবরে বাধ তৈরীর মাধ্যমে শহরে একটি নতুন জলাধার তৈরীর প্রকল্প ঘোষণা করে।এই বাঁধটি ২০০৮ সালে সম্পন্ন হয়। বর্তমানে যা মারিনা বাধ হিসেবে পরিচিত তা মারিনা বে এবং কেলাং বেসিন এর পানিকে সুপেয় পরিষ্কার পানির জলাধার হিসেবে তৈরী করেছে এবং লবণাক্ত পানির প্রবাহ রোধ করেছে যা এর মান ঠিক রাখে। এটি সিঙ্গাপুরের সুপেয় পানির আরো একটি উৎস হিসাবে গণ্য হয় তাছাড়াও এটি স্থিতিশীল হওয়ায় এর পানি নানা কাজে ব্যবহৃত হয়। বাধটি চিনাটাউন এলাকাতে বন্যা প্রতিরোধে সহায়তা করে।

পরিবহন[সম্পাদনা]

বর্তমানে সেখানে ৭ টি রেল স্টেশন চালু আছে: সিটি হল, রেফেলস প্লেস, মেরিনা বে,বে ফ্রন্ট,ডাউনটাউন , এসপ্ল্যানেড এবং প্রমেনাড সেভারিং মারিনা বে।২০২০ সালের মধ্যে ৩৬০ হেক্টররের মারিনা বে হবে সিঙ্গাপুরের সবচেয়ে রেল-সংযুক্ত জেলা। প্রথম তিনটি নতুন এমআরটি লাইন খুলবে ২০১২ এবং ২০১৪ এর মধ্যে। ২০১৮ সালের মধ্যে মেরিনা বে জেলায় আরো ৬টি MRT স্টেশন তৈরী করা হবে। প্রচুর পথচারী যোগাযোগব্যবস্থা, আচ্ছাদিত ফুটপাত এর মাধ্যমে সকল আবহাওয়াতে সুরক্ষা নিশ্চিত হবে।

উন্নয়নের চাবিকাঠি[সম্পাদনা]

মারিনা বে[সম্পাদনা]

অন্যান্য দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

  • এই দর্শনীয় স্থানটিতে রয়েছে ১০১ হেক্টর সমুদ্র পার্শ্ববর্তি বাগান, যা দক্ষিণ সাগর বাগান,পূর্ব সাগর বাগান,এবং কেন্দ্রীয় সাগর বাগানের সমন্বয়ে গঠিত। ৩টি বাগানই একটি ধারাবাহিক পথচারি সেতু দ্বারা পরস্পর এর সংগে সংযুক্ত যা জনসাধারণ এর জন্য একটি বড় আকর্ষণ হিসেবে কাজ করে।
  • এখানে মারিনা সেন্টার,কল্লেয়ের কুয়ে এবং বে ফ্রন্ট কে সংযোগকারী যে সরবরটি আছে তা এই স্থানকে আরো বেশি আকর্ষণীয় করে তুলেছে যা ২০১০ সালে সম্পন্ন হয়।

সংস্কৃতিতে জনপ্রিয়[সম্পাদনা]

স্বাধীনতা দিবস ও পুনরূত্থান নামক চলচিত্রে দেখানো হয় মারিনা বে ভিনগ্রহের মহাকাশযান দ্বারা ধ্বংস হয়ে যায়।

কিছু ছবি[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. June Gwee, ed. (2013).
  2. Ching Tuan Yee and Benjamin Ng. "Marina Bay: The Shape of Things to Come".
  3. Collin Anderson (2016).
  4. Tan Chung Hong (1991).
  5. "Singapore to host F1 Grand Prix next year".
  6. "Marina Bay Singapore Countdown 2010/11"। ২০ মে ২০১১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১৬ 
  7. "Singapore YOG 2010 Fan Site". http://www.singaporeyoutholympicgames.com/yog-venues/marina-bay-floating-stadium/ ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৯ জানুয়ারি ২০১০ তারিখে Retrieved 2010-07-08.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]