মাওলানা সফিউল্লাহ দাদাজি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

মাওলানা সফিউল্লাহ দাদাজি
Maulana Safiullah Dadaji
The Holy Shrine of Dadaji in Kolkata, India.jpg
দাদাজির মাজার
হেড মাওলানা, কলকাতা আলিয়া মাদ্রাসা
কাজের মেয়াদ
১৯২৭ – ১৯২৯
পূর্বসূরীমজিদ আলী জৌনপুরি
উত্তরসূরীমুহাম্মাদ ইয়াহইয়া সাসারামি
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম১৮৭০
মৃত্যু১৯৪৮
জাতীয়তাভারতীয়
সন্তান
  • মাওলানা আব্দুল গফুর (বারে ভাইয়া)
  • জিয়াউল হক কুতুবুদ্দিন
  • সালমান আব্দুল কাইয়ুম
বাসস্থানকলকাতা, ভারত
জীবিকাসুফি ব্যক্তি, ধর্ম প্রচারক, দার্শনিক

শামসুল উলামা মাওলানা সফিউল্লাহ দাদাজি (১৮৭০ খ্রিঃ- ১৯৪৮) বাংলার মুসলমানদের মধ্যে দাদাজি হিসাবে বিখ্যাত ছিলেন।[১][২] তিনি একজন আধ্যাত্মিক পণ্ডিত, ইসলাম প্রচারক, দার্শনিক এবং শিক্ষক ছিলেন। তিনি কলকাতা আলিয়া মাদ্রাসার (বর্তমান আলিয়া বিশ্ববিদ্যালয়) হেড মাওলানা ছিলেন। এই সাধক শেষ পর্যন্ত ১৯০০ সালের প্রথম দিকে ভারতীয় উপমহাদেশের পশ্চিমবঙ্গের কলকাতায় বসতি স্থাপন করেন।[৩][৪] দাদাজি কোন প্রতিষ্ঠিত প্রতিষ্ঠান থেকে কোন প্রাতিষ্ঠানিক শিক্ষা বা ডিগ্রী নেননি, কিন্তু তিনি একজন দক্ষ ইসলামি চিন্তাবিদ ছিলেন।

জীবনের প্রথমার্ধ[সম্পাদনা]

দাদাজি ১৮৭০ খ্রিস্টাব্দে পাকিস্তানের উত্তর-পশ্চিম সীমান্ত প্রদেশের সোয়াত রাজ্যের মারদান জেলার মার্তুং তহসিলে জন্মগ্রহণ করেন।[৫] তার পিতার নাম শাহ সুফি আবদুর রহমান, যিনি জাওয়াদ শাহ নামে পরিচিত ছিলেন, তিনিও একজন মহান সাধক ছিলেন।[৬] মাওলানা সফিউল্লাহর জন্ম মারতুং তহসিলে হলেও, তার পূর্বপুরুষরা সোয়াত রাজ্যের গ্রামে ছিলেন। পরে তারা সোয়াতের তোরবান্দায় বসতি স্থাপন করে।

কলকাতায় দাদাজির পবিত্র মাজার

মৌলভী আবদুর রহমান কাককু ও মাওলানা মুজাফফর আহমদের মতে, ১৯০১ সালে, দাদাজি কাদির বখশ খানসামা মসজিদে চলে আসেন। সেখান থেকে মুন্সী আলিমুদ্দিন তাকে ২৩ নং আন্তনিবাগান লেনের বাড়িতে নিয়ে যান। এরপর তিনি আলিমুদ্দিনের মসজিদ, মীর রমজান আলীর মসজিদ, মুন্সী আলিমুদ্দিনের বাড়িসহ অনেক জায়গায় বসবাস করেন। তিনি অনেক জায়গায় বসবাস করার পরে ১৯১৪ সালে ১৮/১ ছককু খানসামা লেনে নিজ বাসভবনে বসবাস শুরু করেন।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

জঙ্গলে বেশিরভাগ সময় কাটানোর পর তিনি ৩১-৩২ বছর বয়সে অন্য একজন সাধুর পরামর্শে কলকাতায় এসে বসতি স্থাপন করেন। তিনি নবী মুহাম্মদকে অনুসরণ করেছিলেন, যিনি বিবাহ করেছিলেন এবং তার একটি পরিবার ছিলো।[৫] এরপর কলকাতার রমজানিয়া মাদ্রাসায় শিক্ষকতা করেন। সে সময় কলকাতা আলিয়া মাদ্রাসায় অতিরিক্ত মৌলভীর পদ খোলা হয়। মাদ্রাসা-ই-আলিয়া কলকাতার প্রিন্সিপাল তার বক্তব্য শুনে খুশি হয়ে তাকে মাদ্রাসার পদের জন্য পছন্দ করেন।[৭] পরে তিনি কলকাতা আলিয়া মাদ্রাসার প্রধান মাওলানা হিসেবে পদোন্নতি পান।[৮]

শিক্ষা এবং অলৌকিক ঘটনা[সম্পাদনা]

কলকাতায় দাদাজির মন্দিরের প্রধান ফটক।

তিনি ৭ বছর বয়সে অলৌকিক ঘটনা শুরু করেছিলেন। তার কথায় ছোট্ট শিশুটিকে কাঁদতে দেখে সবাই অবাক হয়ে গিয়েছিলো। আবার ৮-৯ বছর বয়সে আল্লাহর প্রতি গভীর ভালবাসা থেকে জংগলে চলে যান সান্নিধ্যের জন্য, সেখানে তিনি একবারে ৭-৮ মাস থাকতেন।[৫]

এছাড়াও তার ভ্রমণের সময় তিনি অনেক কুতুব, গাউস এবং আউলিয়ার মাজার পরিদর্শন করেন এবং অনেক সাধকের সাথে সাক্ষাত করেন যারা তাকে আল্লাহর নৈকট্য অর্জনে তার যাত্রায় সাহায্য করেছিলেন। তাদের কাছ থেকে মারিফতের জ্ঞান অর্জন করেন। তিনি ইসলামের অতীন্দ্রিয় ব্যক্তিত্ব খিজিরের সাথে সাক্ষাত করেন এবং তার শিক্ষা ও নির্দেশনা থেকে উপকৃত হন।[৫][৯]

তার কাছে সাধারণ মানুষ, উলামা, আধ্যাত্মিক গুরু ও বড় বড় সাধকগণ আসতেন। কারণ তাকে তার সময়ের "সকল সাধুদের সাধু" হিসাবে বিবেচনা করা হত। কথিত আছে যে, জিনরাও তার কাছ থেকে শিখতে ও উপকৃত হওয়ার জন্য মানবরূপে তার কাছে এসেছিল। আল্লাহ তাকে মারিফাত জ্ঞান দিয়েছেন এবং আল্লাহর রহমত ও অনুমতিতে তিনি আল্লাহর অনুমতি অনুযায়ী মানুষের ভেতরের চিন্তা ও ভবিষ্যতের ঘটনা জানতে পারেন।[৭]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

তার বৃদ্ধ বয়সে তিনি বেদনাদায়ক কার্বাঙ্কেল (ত্বকের মধ্যে একাধিক ফোঁড়া সহ একটি গুরুতর ফোঁড়া) ভুগছিলেন, এটি তাকে শারীরিকভাবে দুর্বল করে দেয়। তিনি ১৯৪৮ সালে এই রোগে মারা যান।

পরিবার[সম্পাদনা]

  • মাওলানা আব্দুল গফুর (বারে ভাইয়া), জ্যেষ্ঠ পুত্র - কলকাতা মাদ্রাসা থেকে শিক্ষা গ্রহণ করেন এবং এছাড়াও একজন বিশিষ্ট সুফি, ইসলামী পন্ডিত ও সাধক।[১০][১১] বারে ভাইয়া ভারতে ক্রিকেট খেলার বিকাশে বিরাট অবদান রেখেছিলেন। ইসলামের প্রচার ও প্রসারেও তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন।[১২]
  • জিয়াউল হক কুতুবুদ্দিন, কনিষ্ঠ পুত্র - লেখক, ভিজিটিং প্রফেসর ইসলামিক স্টাডিজ, সাউথ-ইস্ট ইউনিভার্সিটি, ঢাকা[১৩]
  • সালমান আব্দুল কাইয়ুম, গ্রান্ডসন।

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

রেফারেন্স[সম্পাদনা]

  1. Great Sufi Saint Shamsul Ulama Maulana Safiullah (Dadaji) (English ভাষায়)। Amazon। ২০২১। পৃষ্ঠা 28–37, 252–263, 267। আইএসবিএন 9798789641583 
  2. Wahhab, Abdul (২০০৮)। Shamsul Ulama Maulana Safiullah (Dadaji), the saint of Kolkata (1 সংস্করণ)। Oshi Publ.। 
  3. Maulana M. Obaidul Huq, Bangladesher Pir Aulia, Feni, 1389/1969, p.175-236। Madina Publications। 
  4. Abdul Wahhab, Maulana Safiullah, Islamic Foundation, Dhaka, 1403,1983, Abdus Sattar, Tarikh-e-Madrasa-e-Aliya: Dhaka, 1959, p.172-73. Published by The Islamic Foundation of Bangladesh. Article contributed by A.T.M. Muslehuddin 
  5. Anam, Mufakkharul। Great Sufi Saint Shamsul Ulama Maulana Safiullah (Dadaji): Life, Teachings and Miracles. -- Author: Abdul Wahhab Translator: Mufakkharul (English ভাষায়)। 
  6. "The Rise of Islam and the Bengal Frontier, 1204–1760"publishing.cdlib.org। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৮-২২ 
  7. Mufakkharul Anam, Mr Abdul Wahhab (এপ্রিল ৮, ২০০৮)। Great Sufi Saint Shamsul Ulama Maulana Safiullah (Dadaji): Life, Teachings and Miracles (ইংরেজি ভাষায়)। Independently Published। আইএসবিএন 979-8789641583এএসআইএন B09P1VTG9W 
  8. Wahhab, Abdul (২০০৮)। Shamsul Ulama Maulana Safiullah (Dadaji): the saint of Kolkata (English ভাষায়)। Oshi Publications। ওসিএলসি 276515383 
  9. "Maulana Safiullah: The Saint of Kolkata | The University Press Limited"www.uplbooks.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৮-২৩ 
  10. Alamgir, Muhammad। Sufi Saint Maulana Abdul Ghafoor (Baray Bhaiyya): Life, Teachings and Miracles -- Author: Abdul Wahhab Translator: Muhammad (English ভাষায়)। 
  11. Wahhab, Abdul; Alamgir, Muhammad (২০০৯)। Profile of a saint: the amazing life of Baray Bhaiyya, Fakhrul Muhaddeseen Maulana Abdul Ghafoor (English ভাষায়)। Ziaul Haq Qutubuddin। আইএসবিএন 978-984-33-0609-8ওসিএলসি 680427748 
  12. "The Amazing Life of Baray Bhaiyya | The University Press Limited"www.uplbooks.com। সংগ্রহের তারিখ ২০২২-০৩-১০ 
  13. Qutubuddin, Ziaul Huq (২০০৭)। The Concept of Bid'ah in Islam: In the Light of the Qur'an and Sunnah (ইংরেজি ভাষায়)। Oshi Publications। 

বাহ্যিক সংযোগ[সম্পাদনা]