ব্ল্যাকফুট পুরাণ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

ব্ল্যাকফুট নেটিভ আমেরিকান এবং আদিবাসীদের মধ্যে অনেকগুলি পুরাণ প্রচলিত আছে। ব্ল্যাকফুটেরা কানাডার অ্যালবার্টামার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মন্টানা রাজ্যে বাস করে। এই সব কাহিনি, পুরাণকথা, সৃষ্টিতত্ত্ব ও কিংবদন্তি তাদের দৈনন্দিন জীবনে এবং তাদের ধর্ম, ইতিহাস ও বিশ্বাসে গভীর প্রভাব ফেলেছে।[১] ব্ল্যাকফুট উপজাতিগুলিতে কেবলমাত্র প্রবীণ ব্যক্তিরা গল্প বলার অধিকারী। এই সব পুরাণকথা সব সময় জানা সম্ভব হয় না। কারণ, উপজাতিগুলির প্রবীণ ব্যক্তিরা প্রায়শই উপজাতির বাইরের অচেনা লোকের সামনে গল্প বলতে অস্বীকার করেন।[১] জর্জ বার্ড গ্রিনেল, জন ম্যাকলেন, ডি. সি. ডুভাল, ক্লার্ক উইসলার ও জেমস উইলার্ড স্কুলজ প্রমুখ ব্যক্তিরা এই সব উপজাতির কাছে পবিত্র কিছু গল্প জানতে সক্ষম হন।

সৃষ্টিপুরাণ[সম্পাদনা]

নেটিভ আমেরিকান সংস্কৃতিতে একাধিক সৃষ্টিপুরাণ পাওয়া যায়। এগুলির মধ্যে একটি হল নাপিওয়া-সংক্রান্ত সৃষ্টিপুরাণ। প্রায় প্রত্যেকটি ব্ল্যাকফুট পুরাণেই নাপিওয়ার উল্লেখ পাওয়া যায়। ব্ল্যাকফুট পুরাণে ইনি একটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র হিসেবে পরিগণিত হন। সূর্য, বৃদ্ধ ও নাপি (নাহ্‌-পি) ইত্যাদি একাধিক নামে নাপিওয়া পরিচিত। কথিত আছে, নাপিওয়া একটি নদীতে ভাসতে ভাসতে একটি কচ্ছপ খুঁজে পান। সেই কচ্ছপের মুখের কাদা দিয়ে তিনি পৃথিবী সৃষ্টি করেন।[১][২] তিনি কাদা দিয়ে শুধুমাত্র পৃথিবীই সৃষ্টি করলেন না, বরং পুরুষ ও নারীদেরও সৃষ্টি করলেন। মানুষের শিকারের উপযোগী করে নাপিওয়া পোষা বাইসনও সৃষ্টি করলেন।[১][২] কথিত আছে, তিনি পশু, ঘাস এবং পৃথিবীতে আর সব কিছু সৃষ্টি করেছেন।

বায়ুর উৎপত্তি[সম্পাদনা]

ব্ল্যাকফুট পুরাণে প্রত্যেকটি জিনিসের উৎপত্তি-সংক্রান্ত কিংবদন্তি রয়েছে। কারণ, তারা মনে করে, প্রত্যেকটি জিনিসের একটি উৎস রয়েছে। বায়ুর উৎপত্তি-সংক্রান্ত কিংবদন্তিতেও নাপিওয়া একটি চরিত্র।[১] এই কিংবদন্তি অনুসারে, নাপিওয়া দুটি থলি খুঁজে পেয়েছিলেন। সেই দুটি থলির একটিতে ছিল গ্রীষ্ম এবং অন্যটিতে ছিল শীত। এই দুই ঋতুকে সমান সংখ্যক মাসে ভাগ করে দেওয়ার জন্য নাপিওয়ার ইচ্ছে জাগল যে তিনি ওই থলি দুটি নিয়ে নেন।[১] নাপিওয়া থলি দুটি নিতে চাইলেন। কিন্তু পারলেন না। শেষে তিনি একটি ছোটো পশুকে পাঠালেন। সে গিয়ে গ্রীষ্মের থলিটি তুলে নিল। থলির রক্ষক সেই পশুটিকে ধাওয়া করে তার মাথা কেটে ফেলল। এই গোলমালে থলিটি ফেটে গেল এবং সেটির ভিতর থেকে প্রচণ্ড বেগে বায়ু বেরিয়ে এল।[১]

পর্বতে ভাষার প্রকাশ[সম্পাদনা]

এই গল্পে নাপিওয়াকে বৃদ্ধ বলে উল্লেখ করা হয়েছে।[৩] একবার মহাপ্লাবন এসে গোটা দেশ ভাসিয়ে দেয়। প্লাবনের পর বৃদ্ধ জলকে বিভিন্ন রং দেন। তিনি জাতিকে একটি বিরাট পর্বতের চূড়ায় জড়ো করেন এবং তাদের বিভিন্ন রঙের জল দেন। তারপর বৃদ্ধ জাতিকে জল পান করতে বলেন এবং তার পরে কথা বলতে বলেন। তারাও তাঁর আদেশ মান্য করে।[৩] সবাই ভিন্ন ভিন্ন ভাষায় কথা বলছিল। শুধু যারা কালো জল পেয়েছিল, তারা একই ভাষায় কথা বলছিল। এদের মধ্যে পাইগ্যান, ব্ল্যাকফুট ও ব্লাড নেটিভ আমেরিকানরা ছিল। কথিত আছে, এই ঘটনা ঘটেছিল মন্টানা রিজার্ভেশনের উচ্চতম পর্বতে।[৩]

রেড কউলির কিংবদন্তি[সম্পাদনা]

সব কটি কিংবদন্তিতে বৃদ্ধ/নাপিওয়ার কথা নেই। রেড কউলির কিংবদন্তি সেই ধরনের কিংবদন্তিগুলির একটি। এটি অনেকটাই ঐতিহাসিক কিংবদন্তি। রেড কউলি হল মন্টানায় মারিয়াস নদীর কাছে ম্যাকলেড ও বেন্টানার মধ্যবর্তী একটি এলাকা।[১] প্রাচীন কালে ব্ল্যাকফুট নেটিভ আমেরিকানরা মন্টানা অঞ্চলের অধিবাসীদের কাছে এক ঔষধি পাথরের কথা শুনেছিলেন। বহু বছর পরে, ব্ল্যাকফুট উপজাতি পঞ্চাশজন লোকের একটি দল গঠন করে সেই পাথরটি খুঁজতে বের হয়। পাথরটি খুঁজে পাওয়ার পর সেই দলের নেতা দলের অন্যান্য সদস্যদের পরিহাস করে বলেন যে এটি ছেলেভোলানো গল্প। এই বলে তিনি পাথরটি পাহাড় থেকে নিচে ফেলে দেন। [১] ফেরার পথে তাদের মধ্যে যুদ্ধ বেধে যায়। এই যুদ্ধে একজন ছাড়া দলের সবাই মারা পড়ে। এই কারণে তারা এই জায়গাটির নাম দেয় ‘রেড কাউলি’ (অর্থাৎ, ‘লাল উপত্যকা’)। এখনও এখানে লোকেরা এসে সেই যুদ্ধে নিহতদের উদ্দেশ্যে সম্মান জানায়।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Maclean, John (১৮৯৩)। "Blackfoot mythology"। The Journal of American Folklore। 22। 6 (July-Sept.): 165–172। doi:10.2307/533004 
  2. Grinnell, George (১৯১৩)। Native American Legends: Blackfoot Legends-Blackfoot Creation। George Bird Grinnell। 
  3. Duvall, D.C.; Clark Wissler (১৯৯৫)। Mythology of the Blackfoot Indians। Lincoln, NE: University of Nebraska Press। পৃষ্ঠা 19।