বিরু কোহলি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

বিরু কোহলি (জন্ম ১৯৬৪) হলেন একজন পাকিস্তানি চুক্তিভিত্তিক শ্রম ও মানবাধিকার কর্মী। [১] তিনি নিজে কুড়ি বছর দাসত্বের জীবন কাটানোর পর দাসপ্রথার বিরুদ্ধে প্রচারণা শুরু করার জন্য পরিচিতি পেয়েছেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

তিনি সিন্ধু প্রদেশের ঝুডো শহরের আল্লাহদিনো শাহ গ্রামে একটি দরিদ্র হিন্দু তফসিলি জাতের কৃষিশ্রমিক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছিলেন এবং ১৬ বছর বয়সে তাঁদের জমির মালিকের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন।[২][৩] তিনি বর্তমানে ১১ জন বাচ্চাসহ একজন বিধবা হয়ে জীবনযাপন করছেন।

প্রচারণা[সম্পাদনা]

২০১৩ সালে, তিনি হায়দ্রাবাদ প্রদেশের নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসাবে প্রতিদ্বন্দিতা করেছিলেন।[৪][৫] তিনি এর আগে দক্ষিণ পাকিস্তানে ক্রীতদাস ছিলেন। [৬]

জোরপূর্বক দাসত্ব বন্ধনে আবদ্ধ হওয়া এবং মারধর সহ্য করার পরে তিনি কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছিলেন এবং হায়দ্রাবাদে পাকিস্তানের মানবাধিকার কমিশনের সহায়তায় নিজের স্বাধীনতা অর্জন করেছিলেন।[২][৩] নিজেরঁ অভিজ্ঞতা তাঁকে অন্যের জন্য স্বাধীনতার প্রচারণায় অনুপ্রাণিত করেছিল। অক্সফাম তাঁকে তাঁর ধারণাগুলো প্রচার করতে এবং তাঁর আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করেছে।

২০০৯ সালে তিনি ফ্রি দ্য স্লেভস সংস্থা থেকে ফ্রেডেরিক ডগলাস ফ্রিডম পুরস্কার পেয়েছিলেন। [২][৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Women activists stress need for transformative feminist leadership"। The Nation। নভেম্বর ২১, ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  2. "Veeru Kohli: From bonded labourer to election hopeful", Dawn.com, 24 April 2014.
  3. "A brick-solid activist"The Express Tribune (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৫-১২-১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৪-০২  উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; আলাদা বিষয়বস্তুর সঙ্গে "tribune" নামটি একাধিক বার সংজ্ঞায়িত করা হয়েছে
  4. Repila, Jacky (৪ জুলাই ২০১৩)। "Veeru Kohli – the ultimate outsider"। Oxfam। ২৬ ডিসেম্বর ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  5. Green, Duncan (২৩ জুলাই ২০১৩)। "Women's Leadership Groups in Pakistan – Some Good News and Inspiration"। World Bank। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  6. Mehmood, Rabia (২১ সেপ্টেম্বর ২০১৪)। "Home of the Free: Starting a New Life in Pakistan's Azad Nagar, A Colony of Ex-Slaves"। Aljazeera America। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০১৬ 
  7. Free the Slaves