বাহার (টিভি ধারাবাহিক)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বাহার
বাহার নাটক.jpeg
ধরননাটক
লেখকহানডে আলদাইলি
পরিচালকনাদিম দুচ
মূল দেশ তুরস্ক
মূল ভাষাতুর্কি ও বাংলা
মৌসুমের সংখ্যা
পর্বের সংখ্যা৮১
নির্মাণ
প্রযোজকফারুক বায়ান
ব্যাপ্তিকাল১২০ মিনিট
নির্মাণ কোম্পানিমেড ইয়াপিন
পরিবেশকফক্স ফ্লিম
মুক্তি
মূল নেটওয়ার্কফক্স ফ্লিমদীপ্ত টিভি
মূল মুক্তির তারিখ২৪ অক্টোবর ২০১৭ (2017-10-24) –
৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০ (2020-02-04)

বাহার হল একটি তুর্কী টেলিভিশন নাটক। এটি ২০১৩ সালের "নারী" নামক জাপানি নাটকের উপর ভিত্তিক করে তৈরি। বাহারে অভিনয় করেন ডিজে এক্সপেরিয়েন্স, ক্যানার সিন্ডোরুক এবং বেনু শিয়ালদাসহ প্রমুখ। এটি ২০১৭ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি ফক্স ফিল্ম-এ প্রথম প্রচারিত হয়।[১] তিন মৌসুমে মোট ৮১টি পর্ব প্রচারের পর, ২০২০ সালের ৪ ফেব্রুয়ারি ধারাবাহিকটি শেষ হয়। বাংলাদেশে দীপ্ত টিভিতে বাহার নামে সিরিজটি সম্প্রচারিত হয়।[২]

পটভূমি[সম্পাদনা]

বাহার দুই বাচ্চা সহ এক অল্প বয়সী বিধবা নারী। তিনি ৮ বছর বয়সে তার মা দ্বারা অবরুদ্ধ ছিলেন এবং পরে তিনি তার দাদা-দাদি কেও হারান। যখন সে একা পড়ে যায়, বাহার সার্পের সাথে দেখা করে যার সাথে সে প্রেমে পড়ে যায়। তবে, বাহার একসাথে কয়েক বছর সুখের পরে সার্প হারায়। বাহার তার দুই সন্তান নিসান ও ডোরুকের সাথে রয়ে গেছে। একসাথে, তিনি জীবনকে একটি খেলায়, দারিদ্র্যকে মজাতে এবং অনুপস্থিতিকে আনন্দে পরিণত করতে সক্ষম। তিনি বিশ্বাস করেন যে যখন কারও মুখে হাসি থাকে তখন হৃদয়ও হাসি দিয়ে সাড়া দেয়। কখনও কখনও, তিনি তার সমস্ত অতীতের দিনগুলির স্মরণে রাখার সমস্ত সমস্যার বিষয়ে সার্পের ফটোতে কথা বলেন।[২]

বাহার তার বাচ্চাদের জন্য নিজের জীবনের মায়া ছেড়ে দিয়েছেন। বাহারের মা হ্যাটিস (হাতিজে) ২০ বছর পর তার জীবনে ফিরে আসেন। বাহার যেমন আবার তার মায়ের কাছে যেতে চায়, ততক্ষণে বড় বাধা এসে দাঁড়ায় শিরিন যিনি তার সৎ বোন। শিরিন তার মা এবং তার বোনকে তাদের বন্ধন পুনরায় জাগাতে বাধা দিতে যা কিছু করতে পারে তার সব কিছু করে। শিরিনের মানসিক সুস্বাস্থ্যের সুরক্ষার জন্য, হ্যাটিস তার বাহারের দিকে ফিরে যান, যাকে তার প্রয়োজন। হ্যাটিসের স্বামী এনভর, বাহারকে অনেক যত্ন করে এবং তাকে সহায়তা করে। ইলিজ যিনি বাহারের সেরা বন্ধু তিনিও তাকে সহায়তা করেন। শীঘ্রই, বাহার আরিফ এবং সাইদা নামের নতুন প্রতিবেশীদের সাথে দেখা করে। আরিফ বাহারের ফ্ল্যাটের মালিকের ছেলে। সায়দা যিনি তার সৌন্দর্যে আক্রান্ত, বাহারকে প্রথমে অস্বীকার করেছিলেন এবং পরে বাহারকে তার সম্পর্কে জানার পরে বাঁচতে সহায়তা করেন।

এদিকে, বাহার অনেক সময় ব্যথা এবং বেহুশ্যে ভুগছেন। তিনি যখন কোনও ডাক্তারের সাথে দেখা করেন, তখন তিনি জানতে পারেন যে তিনি অ্যাপ্লাস্টিক রক্তাল্পতায় ভুগছেন এবং তার জীবন বাঁচাতে অস্থিমজ্জা প্রতিস্থাপন করতে হবে। বাহার তার আর্থিক সমস্যার কারণে এটি সবার থেকে গোপন করে। শীঘ্রই, সবাই এ সম্পর্কে জানতে পারে এবং জানতে পারে যে শিরিনের অস্থি মজ্জা বাহারে প্রতিস্থাপনের জন্য উপযুক্ত।

এদিকে সার্পকে জীবিত দেখানো হয়েছে এবং আল্প করাহান বলে ভান করে। তিনি পিরিলের সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ এবং এখন তার দুটি যমজ বাচ্চা রয়েছে। পিরিলের বাবা সার্পকে জানান যে বাহার এবং তার সন্তানরা 4 বছরের আগে মারা গিয়েছিল। তা প্রমাণ করার জন্য, পিরিলের বাবা তাদের নামে জাল কবর তৈরি করে এবং সার্পকে দেখায়। তারপরে, সার্প বিবেচনা করে যে বাহার এবং শিশু মারা গেছে। শীঘ্রই, সার্প বছরের পর বছর পরে শিরিনের সাথে দেখা করে এবং শিরিন হতবাক হয়ে যায়। এই সময়ে, এটি প্রকাশ পেয়েছে যে শিরিন 4 বছরের আগে সার্পের সাথে প্রেম করেছিলেন এবং তিনিই সার্পের ফেরি দুর্ঘটনার কারণ। বাহার বেঁচে আছেন তা জানতে প্যারিলের বাবা শিরিনকে থামাতে শিরিনকে অপহরণ করেছিলেন।

এই সময়ে, বাহারের অবস্থা আরও খারাপ হয়ে যায় এবং তিনি দ্রুত হাসপাতালে যান। আরিফ যার এখন বাহারের প্রতি তার অনুভূতি তৈরি হয়, তাকে সহায়তা করে এবং তাকে প্রস্তাব দেয়। একদিন, ডোরুক সার্পকে রাস্তায় দেখে তাকে বাবা বলে ডাকে। সার্প কিছুটা বিভ্রান্ত হয়ে পড়ে এবং তাকে এনভারের বাড়িতে দেখে। তারপরে, সার্প এনভারের সাথে দেখা করে এবং জেনেছে যে বাহার এবং বাচ্চারা জীবিত। সার্প হতবাক হয়ে কবর খনন করে বুঝতে পারে পিরিলের বাবা তাকে মিথ্যা বলেছিলেন। তারপরে তিনি হাসপাতালে গিয়ে নিসান এবং ডরুকের সাথে একত্রিত হন। সার্প বাহারের পরিস্থিতি সম্পর্কে জানতে পারে এবং শিরিনকে ফিরিয়ে আনেন। বাহার সুস্থ হয়ে উঠে এবং বহু বছর পর তিনি সার্পের সাথে দেখা করেন।

২য় সিজনে বাহার এবং শার্প এর দেখা হলেও তাদের সম্পর্ক ভেঙে যেতে থাকে। কারন বাহার আরিফ কে পছন্দ করে আবার শার্প বিবাহিত ছিল। বাহারকে অস্থিমজ্জার দেয়ার জন্য মানানর জন্য শার্প এর সাথে শিরিন কিছু অপ্রিতিকর ছবি তুলে যা বাহার জেনে ফেলে। অন্য দিকে শার্প কেন পিরিলকে বিয়ে করে তা দেখানো হয়। যেখানে পিরিল কে বাঁচাতে গিয়ে পিরিল এর বাকদত্তা মারত কে শার্প খুন করে। মারত এর বাবা নেজির তার ছেলের মৃত্যু এর প্রতিশোধ নেবার জন্য অনেক ঘটনা ঘটান। বাহার দের অপহরণ করতে গিয়ে নেজিরের লোক বাহারের বন্ধু ইয়েলিয কে মেরে ফেলে।

ইয়েলিয কে যে গুলি দিয়ে মারা হয় তা আরিফের দোকান এ নেজির রেখে দিয়ে আরিফ কে ফাসায়। আরিফ জেলে জায় যেখানে তাকে বাঁচাতে তার বোন কিস্মেত উকিল হিসেবে নিয়োগ পায়। জেইদার অবৈধ সন্তান আরদা এর বাবা এম্রে কেও খুঁজে পাওয়া যায় এই সিজনে। বাহার অন্য দিকে বাচ্ছাদের দের জন্য সারপের সাথে সম্পর্ক রাখতে বাধ্য হয়। বাহার আবারো হতাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাকে হাসপাতাল এ নিতে গিয়ে শার্প , আরিফ,আর বাহারের মা হাতিজে গাড়ি দুর্ঘটনার শিকার হন।

পুরস্কার এবং মনোনয়ন[সম্পাদনা]

বছর পুরস্কার বিভাগ
২০১৮ টোকিও নাটক পুরস্কার বিশেষ পুরস্কার
গোল্ডেন বাটারফ্লাই পুরস্কার সেরা অভিনেত্রী
সেরা শিশু অভিনেতা
সেরা টিভি সিরিজ
সেরা সুরকার
সেরা চিত্রনাট্যকার
সেরা পরিচালক

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Award-winning drama series "Woman" to be remade in Turkey"ntv.co.jp। অক্টোবর ২৭, ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ১০, ২০১৯ 
  2. "তুর্কি ধারাবাহিক 'বাহার'"বাংলাদেশ প্রতিদিন। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১০-২২ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]