বানৌজা সৈকত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
HMS Orwell (M2011) Bay of Biscay 1990.jpg
ইতিহাস
বাংলাদেশ
শ্রেণী এবং ধরন: রিভার ক্লাস মাইন বিধ্বংসী
নাম: বানৌজা সৈকত
নির্মাতা: রিচার্ড ড্রাই ডক অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং লি:
কমিশন লাভ: ২৭ এপ্রিল ১৯৯৫
অবস্থা: সক্রিয়
সাধারণ বৈশিষ্ট্য
ওজন:
  • ৮৫০ লং টন (৮৬৪ টন) standard
  • ৮৯০ লং টন (৯০৪ টন) full
দৈর্ঘ্য: ৪৭ মি (১৫৪ ফু ২ ইঞ্চি)
প্রস্থ: ১০.৫ মি (৩৪ ফু ৫ ইঞ্চি)
গভীরতা: ৩.১ মি (১০ ফু ২ ইঞ্চি)
প্রচালনশক্তি: 2 shafts, Ruston 6RKC diesels, ৩,০৪০ bhp (২,২৬৭ কিওয়াট)
গতিবেগ: ১৪ নট (১৬ মা/ঘ; ২৬ কিমি/ঘ)
লোকবল:
  • 5 officers and 23 ratings
  • (accommodation for 36: 7 officers and 29 ratings)
রণসজ্জা:
টীকা: Pennant Number: M 96

বানৌজা সৈকত বাংলাদেশ নৌবাহিনীর একটি রিভার শ্রেণীর মাইন বিধ্বংসী জাহাজ,[১] যা ১৯৯৫ সাল থেকে নৌবাহিনীতে সক্রিয় রয়েছে।

জাহাজটি ব্রিটিশ রাজকীয় নৌবাহিনীতে এইচএমএস ক্যারন (এম২০০৪) হিসেবে যুক্ত ছিল। ১৯৮৪ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর অবমুক্ত করা হয়েছিল। তাকে রাজকীয় নৌ সাভার্ন ডিভিশনে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। ১৯৯৩ সালে একে বিমুক্ত করা হয়। ১৯৯৫ সালে জাহাজটিকে বাংলাদেশের নিকট বিক্রি করে।

১৯৯৫ সালের ২৭ এপ্রিল জাহাজটি বাংলাদেশ নৌবাহিনীতে কমিশন লাভ করে। বর্তমানে এটি নৌবাহিনীতে মাইন বিধ্বংসী জাহাজ হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

জাহাজটি একটি বোফর্স ৪০ মিমি মার্ক তৃতীয় বন্দুক বহন করে যা উভয় পৃষ্ঠের বিরোধী এবং বায়ু বিরোধী ভূমিকাতে ব্যবহৃত হতে পারে। এছাড়াও এটি দুইটি এল৪৪এ১ ৭.৬২ মিমি সাধারণ উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত মেশিনগান বহন করে।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Story of PRISM and Others। পৃষ্ঠা ৩৮। সংগ্রহের তারিখ ১২ আগস্ট ২০২০