বর্তি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বর্তি খাতুন
Börte.jpg
মোঙ্গল সাম্রাজ্যের মহান খাতুন ও খামাগ মোঙ্গল
কার্যকাল১১৮৯–১২৩৯
উত্তরসূরিমোক
জন্ম১১৬১
খেনতাই, মঙ্গোলিয়া
মৃত্যু১২৩০ (বয়স ৬৮–৬৯)
আভার্গা, মঙ্গোলিয়া
সমাধি
দাম্পত্য সঙ্গীচেঙ্গিজ খান
বংশধরজোচি
চাগতাই
ওগেদেই
তলুই
খোচেন বেখি
আলাখাই বেখি
তুমেলুন
আলালতুন
চেচেইখেন
রাজবংশঅঙ্গীরাত
পিতাদেই সেইচেন
মাতাতাছোতান
ধর্মতেংরিবাদ

বর্তি (বা Börte Üjin, সিরিলিক: Бөртэ үжин, ১১৬১-১২৩০) তেমুজিনের প্রথম স্ত্রী। তেমুজিন হচ্ছেন মঙ্গোল সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা চেঙ্গিজ খান। বর্তি চেঙ্গিজ খানের প্রথম আদালতের প্রধান এবং তার সাম্রাজ্যের গ্র্যান্ড সম্রাজ্ঞী হন। তার প্রাথমিক জীবনের বিস্তারিত বিবরণ সম্পর্কে খুব কমই জানা যায়, কিন্তু তিনি অল্প বয়সে চেঙ্গিজের সাথে বিবাহ বন্ধনে জড়িত হন। তিনি সতের বছর বয়সে বিয়ে করেন, এবং তারপর একটি প্রতিদ্বন্দ্বী উপজাতি দ্বারা অপহৃত হন। তাকে তার স্বামী কর্তৃক দুঃসাহসী উদ্ধার অভিযানই হয়তো তার স্বামীর বিজয়ী হওয়ার পথে শুরু করা অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা। তিনি চার পুত্র এবং পাঁচ কন্যা জন্ম দেন, যারা তাদের নিজেদের বংশধরের মধ্যে রক্তের সম্পর্ক রেখে যান, যারা মঙ্গোল সাম্রাজ্য আরো প্রসারিত হয়। বর্তি এবং হোলুন ছিলেন যথাক্রমে চেঙ্গিজের স্ত্রী এবং মা। এই দুই জন নারী খানদের জীবনের সবচেয়ে প্রভাবশালী এবং গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের মধ্যে অন্যতম।

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

তার প্রাথমিক জীবন সম্পর্কে কিছু ঐতিহাসিক তথ্য জানা যায়, কিন্তু মঙ্গোলীয়দের মধ্যে তার সম্পর্কে অনেক কিংবদন্তি আছে। যা সামান্য কিছু জানা যায় তা সাধারণত দ্য সিক্রেট হিস্ট্রি অব মোঙ্গলস বই থেকে।

বর্তি ১১৬১ সাল নাগাদ খোঙ্গিরাদের ওলখোনুদে জন্মগ্রহণ করেন। এই উপজাতির বোরজিজিন গোত্রের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ছিল। বোরজিজিন গোত্রেই তেমুজিন জন্মগ্রহণ করেন। তিনি দেই-সেচেন ও চোতানের কন্যা। ত "শ্যামল বর্ণের" হিসেবে বর্ণনা করা হয়েছে যার "মুখে আলো এবং চোখে আগুন রয়েছে", যার মানে সে বুদ্ধিমান ছিল। ওলখোনুদ উপজাতি থেকে আসা মেয়েরা বিশেষভাবে সুন্দরী হওয়ার জন্য পরিচিত ছিল।

বিয়ের আয়োজন করেন তার বাবা এবং চেঙ্গিজের বাবা ইয়েসুগি, যখন তার বয়স ছিল ১০ বছর এবং চেঙ্গিজের বয়স ছিল ৯ বছর। এরপর তেমুজিন তার পরিবারের সাথে অবস্থান করেন। কিন্তু যখন শত্রুর দ্বারা ইয়েসুগেই বিষক্রিয়ায় তার মা এবং ছোট ভাইবোনরা আক্রান্ত হন তখন তেমুজিনকে সাহায্য করার জন্য তাকে ডাকা হয়।

১১৭৭ সালে, প্রায় ৭ বছর পর, তেমুজিন বর্তিকে খুঁজতে কেলুরেন নদীর অববাহিকা বরাবর ভ্রমণ করেন। যখন দেই-সেচেন দেখলেন যে তেমুজিন বর্তির কাছে ফিরে এসেছেন, তখন তিনি "স্বামী-স্ত্রীর জুটি একত্রিত হয়েছেন" দেখে আনন্দিত হন। দেই-সেচেনের অনুমতিক্রমে তিনি বর্তি ও তার মাকে নিয়ে তার পরিবারের কাছে ইয়ার্টে - এ বসবাস করতে যান, যারা সেংগুর নদীর তীরে শিবির করেছিল। বোরতের যৌতুক ছিল একটি সূক্ষ্ম কালো সেবল জ্যাকেট।

অপহরণ ও উদ্ধার[সম্পাদনা]

তেমুজিনকে বিয়ে করার পর পরই থ্রি মার্কিটরা একদিন ভোরে পারিবারিক শিবিরে হামলা চালায়। তেমুজিন, তেমুজিনের পরিবার এবং বন্ধুরা ঘোড়ায় চড়ে পালাতে সক্ষম হয়, কিন্তু বর্তির পালানোর জন্য কোন ঘোড়া অবশিষ্ট ছিল না। তাকে মারকিটসরা বন্দী করে নেয় এবং তাদের একজন যোদ্ধাকে যুদ্ধবন্দী হিসেবে দেওয়া হয় (সোচিজেল এবং একজন দাসীসহ)।[১] এই অভিযানটি তেমুজিনের মা হোলুনকে তার বাবা ইয়েসুগেই কর্তৃক অনেক বছর আগে অপহরণ করার প্রতিশোধ হিসেবে চালানো হয়েছিল। তেমুজিন তার স্ত্রীকে অপহরণের ঘটনায় গভীরভাবে শোকাহত হন এবং মন্তব্য করেন যে তার বিছানা "খালি করা হয়েছে" এবং তার বুক "ছিড়ে" ফেলা হয়েছে। তিনি বর্তিকে ফিরিয়ে আনতে দৃঢ়প্রতিজ্ঞ হন এবং কয়েক মাস পরে তার মিত্র ওয়াং খান এবং জামুখার সাহায্যে তাকে উদ্ধার করেন। কিছু পণ্ডিত এই ঘটনাকে তেমুজিনের জীবনের অন্যতম প্রধান ঘটনা হিসেবে বর্ণনা করেছেন, যা তাকে বিজেতা হওয়ার পথে নিয়ে যায়।[২][৩]

বর্তিকে আট মাস বন্দী করে রাখা হয়েছিল, এবং উদ্ধারের পর তিনি জোচিকে জন্ম দেন। শিশুটির পিতা কে তা নিয়ে সন্দেহ তৈরি হয়, কারণ তার বন্দী তাকে "স্ত্রী" হিসেবে গ্রহণ করে, এবং সম্ভবত তাকে গর্ভবতী করে থাকতে পারে। যাইহোক, চেঙ্গিজ জোচিকে তার পরিবারের সাথে থাকতে দেয় এবং তাকে তার নিজের ছেলে বলে দাবি করে। তার চেঙ্গিজের উত্তরসূরি হওয়ার কথা ছিল কিন্তু জোচির আসল পিতা নিয়ে সন্দেহের কারণে তার ভাইয়েরা তাকে শাসক হিসেবে গ্রহণ করে নি এবং এর ফলে চেঙ্গিজকে আরেক জন পুত্রকে বেছে নিতে হয়। জোচি এরপর গোল্ডেন হোর্ড নেতা হন।

গ্র‍্যান্ড সম্রাজ্ঞী[সম্পাদনা]

বর্তি তেমুজিনের সিনিয়র এবং প্রথম স্ত্রী ছিলেন। তেমুজিন চেঙ্গিজ খান হওয়ার পর মঙ্গোলদের দ্বারা বর্তি পূজিত হন, এবং তিনি গ্র্যান্ড সম্রাজ্ঞী মুকুট লাভ করেন। বর্তি বেশ কয়েকবার তার স্বামীর সিদ্ধান্তকে ব্যাপকভাবে প্রভাবিত করেছেন। এরকম একটি ঘটনা ছিল যখন ওটিগিগিন চেঙ্গিজ খানের তাঁবুতে আসেন এবং কোংকোতান গোত্রের বিরুদ্ধে সাহায্য চেয়েছিলেন। তখন তিনি বর্তির সাথে বিছানায় ছিলেন। চেঙ্গিজ খান কিছু বলার আগেই বর্তি "বিছানায় বসে কম্বলের কিনারা দিয়ে তার স্তন ঢেকে রাখেন" এবং কোংকোতানের নিষ্ঠুরতা বর্ণনা করেন। স্ত্রীর কথা শোনার পর চেঙ্গিজ খান ওতসিগিনকে সাহায্য করার সিদ্ধান্ত নেন।

যখন চেঙ্গিজ খান তার প্রভাব ও সাম্রাজ্য প্রসারিত করতে থাকেন, বর্তি তখন থেকে যান এবং মোঙ্গলদের মাতৃভূমি শাসন করতে চেঙ্গিজের ভাই তেমুগেকে সহায়তা করেন। অন্যান্য স্ত্রীরা যখন অভিযানে চেঙ্গিজ খানের সাথে থাকতেন তখন তিনি তার নিজের এলাকা শাসন করতেন এবং তার নিজের আদালত পরিচালনা করতেন।[৪] খেরলেন নদীর অধিকাংশই তার জন্য বরাদ্দ করা হয়েছিল, যে জমি আগে তাতারদেরছিল।[৫] শুধুমাত্র তার ছেলেদের খান হিসেবে তেমুজিনের স্থলাভিষিক্ত হওয়ার জন্য প্রার্থী হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

বর্তিকে প্রায়ই "সাদা সিল্কের গাউন পরিহিত একজন সুন্দরী মহিলা, তার চুলে স্বর্ণমুদ্রা, একটি সাদা ভেড়ার মাংস ধরে রাখা এবং একটি সাদা স্টিড চালানো" হিসেবে দেখানো হয়।[৬]

আধুনিক যুগে[সম্পাদনা]

চেঙ্গিজ খানের জীবনে তার উল্লেখযোগ্য ভূমিকার কথা মাথায় রেখে, তার স্বামীর জীবন এবং বিজয়ের উপর ভিত্তি করে অনেক চলচ্চিত্র এবং টেলিভিশন সিরিজে বর্তি একটি বিশিষ্ট চরিত্র হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে। যে সব অভিনেত্রী তার চরিত্রে অভিনয় করেছেন তাদের মধ্যে রয়েছেন সুসান হেওয়ার্ড, চেঙ্গিজ খানের ফ্রাঁসোয়া ডরলিয়াক এবং ২০০৭ সালের অস্কার মনোনীত রাশিয়ান চলচ্চিত্র মঙ্গোলে চুলুনি খুলান।[৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ДОКУМЕНТЫ->МОНГОЛИЯ->СОКРОВЕННОЕ СКАЗАНИЕ МОНГОЛОВ->ПУБЛИКАЦИЯ С. А. КОЗИНА 1941 Г.->ГЛАВЫ I-III"www.vostlit.info। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১২-০৫ 
  2. "Historic Kidnapping Cases That Will Make You Want to Hold Your Loved Ones Closer"HistoryCollection.co (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-১০-০৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-২৮ 
  3. Editors, History com। "Genghis Khan"HISTORY (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-২৮ 
  4. Ratchnevsky, Paul (১৯৯১)। Genghis Khan: His Life and Legacy। Blackwell Publishing। পৃষ্ঠা 164–65। আইএসবিএন 0-631-16785-4 
  5. Weatherford। The Secret History of the Mongol Queens। পৃষ্ঠা 28। 
  6. Stone, Zofia. Genghis Khan: A Biography. Alpha Editions, 2017.
  7. Mongol: The Rise of Genghis Khan, সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৭-২৬