পারভানে সালাহশৌরি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পারভানে সালাহশৌরি
Parvaneh Salahshouri 1394.jpg
ইরানের পার্লামেন্টের সদস্য
কাজের মেয়াদ
২৮ মে ২০১৬ – ২৬ মে ২০২০
সংসদীয় এলাকাতেহরান, রে, শেমিরানাট এবং ইসলামশহর
সংখ্যাগরিষ্ঠ১,১৯৮,৭৬০ (৩৬.৯১%)
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্মপারভানে সালাহশৌরি
১৯৬৪
মসজিদ সোলেমান, ইরান
রাজনৈতিক দলইসলামী ইরানের স্নাতকদের সমাবেশ[১]
দাম্পত্য সঙ্গীবরাত ঘোবাদিয়ান[২]
সন্তান
জীবিকাবিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক

পারভানে সালাহশৌরি (জন্ম ১৯৬৪ সাল মসজিদে সুলাইমানিয়া) একজন রাজনীতিবিদ, ইরানী ইউনিভার্সিটির প্রভাষক, এবং তেহরানের রে-ইসলামশাহর ও শেমিরানাথ এর ইসলামি পরামর্শদায়ক কমিটির ইসলামি পরামর্শ পরিষদের সাবেক প্রতিনিধি। তিনি ইসলামী আজাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক, গ্রামীণ মহিলাদের জন্য ভ্রাম্যমাণ কাজকারী দলের সদস্য, বঞ্চিত এলাকার নারী ও পরিবারের জন্য কাজ করা কমিটির ভাইস প্রেসিডেন্টের সদস্য। সালাহশৌরি সমাজবিজ্ঞানে ডক্টরেট করেন। ইসলামী পরামর্শক পরিষদের দশম মেয়াদে সংস্কারপন্থীদের সর্ব-অন্তর্ভুক্তিমূলক জোটের তালিকায় তার নাম ছিল। তার বউ বরাত ঘোবাডিয়ান শিল্প, খনি ও শিক্ষা, গবেষণা ও প্রযুক্তি বিষয়ক বাণিজ্য উপমন্ত্রী।

জীবনী[সম্পাদনা]

তিনি ১৯৬৪ সালে খুজেস্তান প্রদেশের মসজিদে সুলাইমানিয়া শহরে এক উপজাতি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। দশম সংসদে প্রবেশের আগে তিনি ইসলামী আজাদ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রভাষক হিসেবে চাকরি করেন।

দশম সংসদে তেহরান প্রতিনিধি[সম্পাদনা]

ইসলামী পরামর্শক পরিষদের নির্বাচনের দশম রাউন্ডে পারভানেহ সালাহশৌরি ৯০ সদস্যের তালিকায় সর্ব-অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। কোয়ালিশন অব রিফর্মিস্টস এর অধীন তেহরানে দ্বিতীয় ধাপে ১১,১৯৮৭৬০ ভোট পেয়ে দশম সংসদে প্রবেশ করতে সক্ষম হন। তিনি সংসদীয় মহিলা দলের সভাপতি। বর্তমানে ফরিদহ ওলাদ ঘোবদ উপদলের সভাপতি। গার্ডিয়ান কাউন্সিলের অনুমোদনের তদারকির প্রতিবাদে এবং ২০০৯ সালে ইরানে জ্বালানি বিক্ষোভের সময় প্রতিবাদকারীদের সাথে খারাপ আচরণের প্রতিবাদে সালশৌরি ইসলামী পরামর্শক পরিষদের নির্বাচনের ১১ তম দফায় অংশগ্রহণ করেনি।

সংসদে বক্তব্য[সম্পাদনা]

নির্বাচনের পরে ইংরেজিতে একটি ভিডিও সাক্ষাৎকার প্রকাশিত হয় এতে তিনি বাধ্যতামূলক হিজাব আইনের উল্লেখ করে বলেন, হিজাব "মহিলাদের পছন্দের বিষয়" হওয়া উচিত।[৩] পরে তিনি বক্তব্য সংশোধন করে বলেন, "নারীরা কালো চাদর পরতে পারে যখন অন্যরা হেডস্কার্ফ ও লম্বা কোট পছন্দ করবে"।[৩] পার্লামেন্টে এক বক্তৃতায় তিনি "দেশের আপত্তিকর শাসন, স্বৈরাচারী আচরণ এবং ক্রমবর্ধমান সমান্তরাল অপশক্তি, অনির্বাচিত ক্ষমতার” সমালোচনা করেছিলেন। ২০১৯ সালের নভেম্বরে পেট্রলের দাম বৃদ্ধির বিরুদ্ধে ইরানে বিক্ষোভের পর, সালাহশৌরি বিক্ষোভকারীদের বিরুদ্ধে সরকারের কঠোর অভিযানের বিরুদ্ধে কথা বলেছিলেন। তিনি বলেছিলেন বিক্ষোভকারীদের মধ্যে বেশ কয়েকজন শিশু নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে নিহত হয়েছে।[৪] তিনি সংসদে সরকারের সিদ্ধান্তের ওপর সেনাবাহিনীর প্রভাবের নিন্দা জানান এবং জিজ্ঞাসা করেন, "জনগণের প্রতিনিধি হিসেবে আমি কিভাবে আমার দেশের তরুণদের খুন দেখতে পারি?" [৫] সাংবাদিক ডেক্সটার ফিলকিন্সের মতে, এ মন্তব্যের পর তাকে "কয়েকদিন ধরে অভিযুক্ত এবং হয়রানি করা হয়েছিল"।[৫] ৯ ডিসেম্বর ২০১৯ সালে, সালাহশৌরি ঘোষণা করেছিলেন যে, তিনি বিক্ষোভে ইসলামী প্রজাতন্ত্রের প্রতিক্রিয়ার প্রতিবাদে সংসদের জন্য পুনরায় নির্বাচনে অংশ নেবেন না।[৬]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

  • ইসলামী পরামর্শক পরিষদের দশম মেয়াদের প্রতিনিধিদের তালিকা
  • আশার তালিকা
  • ইরানে নারী নিরাপত্তা বিল

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "لیست انتخاباتی اصلاح‌طلبان در تهران + جدول سوابق"Iranian Labour News Agency (Persian ভাষায়)। ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ 
  2. گزارش-بومرنگ-نفرت-چرا-یک-شایعه-غیراخلاقی-درباره-پروانه-سلحشوری-گسترش-یافت
  3. উদ্ধৃতি খালি (সাহায্য) 
  4. "Outspoken Lawmaker Summoned By Iran Court For 'Propaganda Against Regime'"RFE/RL। ১ ফেব্রুয়ারি ২০২০। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 
  5. Filkins, Dexter (১৮ মে ২০২০)। "TheTwilight of the Iranian Revolution"। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুন ২০২০ 
  6. "Iran Lawmaker Says She Will Not Run Again as Protest to Brutal Suppression"