নরম জল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
নরম জল পরিমাপ

নরম জল হল পৃষ্ঠ জলের কম আয়ন ঘনত্ব বিশিষ্ট অংশ এবং বিশেষ করে নমর জলে ক্যালসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম আয়ন কম থাকে। নরম জল স্বাভাবিকভাবেই সৃষ্টি হয়ে থাকে, যেখানে বৃষ্টিপাত হয়, নদীর তলদেশের গঠন কঠিন, অযৌক্তিক এবং কম ঘনত্বের ক্যালসিয়াম পাথরের তৈরি।[১] উদাহরণ হিসাবে বলা যায় যুক্তরাজ্যের ওয়েলল্যান্ডের স্নোডোননিয়া এবং স্কটল্যান্ডের পশ্চিমাঞ্চলীয় পার্বত্য অঞ্চলে এই নরম জল পাওয়া যায়।

শব্দটি জলকে নরম করার প্রক্রিয়া দ্বারা উৎপাদিত জলের বর্ণনা করার জন্যও ব্যবহার করা যেতে পারে, যদিও এই ধরনের জলকে আরো সঠিকভাবে নরম জল বলে। এই ক্ষেত্রে জলয়ে সোডিয়াম এবং বাইকার্বনেট আয়নের ঘনত্ব উচ্চ মাত্রায় থাকতে পারে।

নরম জলের কয়েকটি ক্যালসিয়াম আয়ন কারণে, জামাকাপর ধৌয়ার কাজে কোনো বাধা নেই এবং কোনও সাবান ফেনা স্বাভাবিক ধৌতকরনে গঠিত হয় না। একইভাবে, নরম জল গরম করা হলে ক্যালসিয়াম আয়ন উৎপাদন করে না। এই ঘটনা থেকে নরম জল ও কঠিন জলের পার্থ্যক করা হয়।

যুক্তরাজ্যে, জলে ৫০ মিলিগ্রাম/লি থেকে কম ক্যালসিয়াম কার্বোনেটের ঘনত্ব বিশিষ্ট জলকে নরম জল বলা হয়।[২] ৫০ মিলিগ্রাম/লি ক্যালসিয়াম কার্বোনেটের জলকে বলা হয় কঠিন জল। আবার, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ৬০ মিলিগ্রাম/লি ক্যালসিয়াম কার্বোনেট বিশিষ্ট জলকে নরম জল হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়।[৩]

কঠোরতার উৎস[সম্পাদনা]

জলের কঠিনতা মাল্ট্যালেন্ট ক্রিয়া ঘনত্ব দ্বারা নির্ধারিত হয়। কঠিন জলের মধ্যে পাওয়া প্রচলিত ক্যালশিয়াম আয়ন (Ca2+) এবং ম্যাগনেশিয়াম (Mg2+) অন্তর্ভুক্ত। এই আয়ন জলবাহী স্তরের মধ্যে খনিজ থেকে লেচিং দ্বারা একটি জল সরবরাহে প্রবেশ করে। সাধারণ ক্যালসিয়াম ধারণকারী খনিজ ক্যালসাইট এবং জিপ্সাম হয়। একটি সাধারণ ম্যাগনেসিয়াম খনিজ হল ডলোমাইট (যার মধ্যে ক্যালসিয়ামও রয়েছে)। বৃষ্টির জল এবং পাতিত বা নিঃসৃত জল হল নরম জল, কারণ এদের মধ্যে আয়নের পরিমান কম।[১]

জটিল ভূতাত্ত্বিক অঞ্চলগুলি ক্ষুদ্র দূরত্বের উপর বিভিন্ন মাত্রার জলের স্তর উৎপন্ন করতে পারে।[২][৩]

স্বাস্থ্যের প্রভাব[সম্পাদনা]

স্তন্যপায়ী প্রাণীসহ অনেক প্রাণীর মধ্যে ক্যালসিয়াম এবং ম্যাগনেসিয়াম আয়ন স্বাভাবিক বিপাকের জন্য প্রয়োজন হয়। নরম জলে এই আয়ন অভাবের ফলে এই নরম জল পানে আকস্মিক কার্ডিয়াক মৃত্যুর সহ স্বাস্থ্যগত বিষয়ে উদ্বেগ বৃদ্ধি করেছে।[৪][৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Hermann Weingärtner (২০০৬)। Ullmann's Encyclopedia of Industrial Chemistry। Weinheim. ডিওআই:10.1002/14356007.a28_001: Wiley–VCH। 
  2. "Map showing the rate of hardness in mg/l as Calcium carbonate in England and Wales" (PDF)। DEFRA/ Drinking Water Inspectorate। ২০০৯। 
  3. "Water hardness"। US Geological Service। ৮ এপ্রিল ২০১৪। 
  4. Frantisek Kozisek। "Health risks from drinking demineralised water" (PDF)। World Health Organisation। 
  5. Durlach, J.; Bara, M.; Guiet-Bara, A. (১৯৮৯)। "Magnesium level in drinking water: its importance in cardiovascular risk"। Itokawa, Y.; Durlach, J.। Magnesium in health and disease: Fifth International Magnesium Symposium, August 8-12, 1988, Kyoto, Japan। London: J. Libbey & Co Ltd। আইএসবিএন 978-0861961597ওসিএলসি 24469088 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]