নবায়নযোগ্য শক্তি বাণিজ্যিকীকরণ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বায়ু শক্তি থেকে নবায়নযোগ্য শক্তি উৎপাদনের জন্য ফসলের ক্ষেতের মাঝে টারবাইন।

নবায়নযোগ্য শক্তি বাণিজ্যিকীকরণে ১০০ বছর ধরে ৩ প্রজন্ম পর্যন্ত নবায়নযোগ্য শক্তি প্রযুক্তি অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। প্রথম প্রজন্মের প্রযুক্তি, যা ইতিমধ্যে পরিপক্ব এবং অর্থনৈতিকভাবে প্রতিযোগিতামূলক। এর মধ্যে রয়েছে, জৈববস্তুপুঞ্জ, জলবিদ্যুৎ, ভূতাত্ত্বিক শক্তি এবং তাপ শক্তি। দ্বিতীয় প্রজন্মের প্রযুক্তি বাজারের জন্য প্রস্তুত এবং বর্তমান সময়ে নিযুক্ত করা হচ্ছে; এর মধ্যে রয়েছে, সৌর তাপ, ফোটোভোলটাইক, বায়ু শক্তি, সৌর তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র, এবং আধুনিক জৈবপ্রযুক্তি। তৃতীয় প্রজন্মের প্রযুক্তির বিশ্বব্যাপী বৃহত্তর অবদান রাখতে গবেষণা এবং উন্নয়ন (R & D) প্রচেষ্টার অব্যাহত প্রয়োজন এবং এর মধ্যে, উন্নত জৈববস্তুপুঞ্জ গ্যাসীকরণ, গরম শুষ্ক-শিলা ভূতাত্ত্বিক শক্তি, এবং মহাসাগরীয় শক্তি অন্তর্ভুক্ত করা প্রয়োজন। [১] ২0১২ সালের নবায়নযোগ্য শক্তি হিসাব মতে, অর্ধেক নতুন বৈদ্যুতিক প্রযুক্তি ব্যবহারের ফলে খরচ কমতে শুরু করেছে। [২]

জনসাধারণের নীতি ও রাজনৈতিক নেতৃত্ব "খেলার মাঠে সমতা" আনতে সহায়তা করে এবং নবায়নযোগ্য শক্তি প্রযুক্তির প্রতি জনসাধারণের গ্রহণযোগ্যতা অনতে সহায়তা করে। [৩][৪][৫] জার্মানি, ডেনমার্ক, এবং স্পেনের মতো দেশগুলি তাদের উদ্ভাবনী নীতিগুলি বাস্তবায়নের পথে পরিচালিত করেছে যা গত দশকে উন্নয়নের চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করেছে। ২0১৪ সালের মধ্যে, জার্মানি "এনার্জিউইন্ডে" একটি টেকসই শক্তি অর্থনীতিতে রূপান্তর করার অঙ্গীকার করেছে এবং ডেনমার্ক ২0৫০ সালের মধ্যে ১০০ ভাগ নবায়নযোগ্য শক্তির প্রতিশ্রুতি দিয়েছে। এখন ১৪৪ টি দেশে নবায়নযোগ্য শক্তি নীতির নির্দিষ্ট লক্ষ্যমাত্রা রয়েছে।

নবায়নযোগ্য শক্তি ২০১৫ সালে একাধিক সুবিধা প্রদান করে, তার দ্রুত বৃদ্ধি অব্যাহত রেখেছে। সেখানে, বায়ু এবং ফোটোভোলটাইক ধারণক্ষমতার (64GW এবং 57GW) জন্য একটি নতুন রেকর্ড নির্ধারিত ছিল এবং একটি নতুন উচ্চ মার্কিন $329 বিলিয়ন ডলার বিশ্বব্যাপী নবায়নযোগ্য বিনিয়োগের জন্য নির্ধারিত ছিল। এই বিনিয়োগ বৃদ্ধি প্রধানত চাকরি বৃদ্ধির সুবিধা বয়ে আনে। [৬] সাম্প্রতিক বছরগুলোতে বিনিয়োগের জন্য শীর্ষ দেশের তালিকায় ছিল, চীন, জার্মানি, স্পেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, ইতালি এবং ব্রাজিল। [৭][৮] নবায়নযোগ্য শক্তি সংস্থাগুলির মধ্যে রয়েছে, ব্রাইটসোর্স এনার্জি, ফার্স্ট সৌলার, গেমেস, জিই এনার্জি, গোল্ডউইন্ড, সিনোভেল, তারগ্রে, ট্রিনা সৌলার, ভেস্টাস এবং উইংলি। [৯][১০]

জলবায়ু পরিবর্তনের উদ্বেগ [১১][১২][১৩] নবায়নযোগ্য শক্তি শিল্পের বৃদ্ধির পেছনে চালিকাশক্তি হিসেবে কাজ করছে। [১৪][১৫] ইন্টারন্যাশনাল এনার্জি এজেন্সি (আইএএ) এর ২০১১ সালের প্রকল্প অনুসারে, সৌর শক্তি জেনারেটর ৫০ বছরের মধ্যে ক্ষতিকারক গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন হ্রাস করে, সবচেয়ে বেশি বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে পারে। [১৬]

নবায়নযোগ্য শক্তি চাকরি তৈরির ক্ষেত্রে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কয়লা বা তেলের চেয়ে অধিক কার্যকর। [১৭]

নবায়নযোগ্য শক্তির যুক্তিসহ ব্যাখ্যা[সম্পাদনা]

জলবায়ু পরিবর্তন, দূষণ, এবং শক্তি অনিরাপত্তা উল্লেখযোগ্য সমস্যা, এবং তাদের মোকাবেলার জন্য শক্তির অবকাঠামোগুলিতে বড় পরিবর্তন প্রয়োজন। [20] নবায়নযোগ্য শক্তি প্রযুক্তিগুলি শক্তি সরবরাহ দফতরে অপরিহার্য অবদান রাখে। কারণ তারা বিশ্ব শক্তি নিরাপত্তায় অবদান রাখে, জীবাশ্ম জ্বালানির উপর নির্ভরতা কমাতে এবং গ্রীন হাউস গ্যাসগুলিকে হ্রাস করার সুযোগ দেয়। [3] জলবায়ু-বিঘ্নিত জীবাশ্ম জ্বালানীগুলি পরিষ্কার, জলবায়ু স্থিতিশীল, শক্তির অক্ষয়প্রাপ্ত জালানী উৎস দ্বারা প্রতিস্থাপিত হচ্ছে:

... কয়লা, তেল এবং গ্যাস থেকে বায়ু, সৌর, এবং ভূতাত্ত্বিক শক্তির রূপান্তর ভালভাবে চলছে। পুরাতন অর্থনীতিতে, তেল, কয়লা, বা প্রাকৃতিক গ্যাস জ্বালিয়ে জ্বালানি উৎপাদিত হতো, যা কার্বন নির্গমনের দিকে পরিচালিত করে। এই ছিল আমাদের অর্থনীতির সংজ্ঞা। কিন্তু, নতুন শক্তির অর্থনীতি বায়ু শক্তি, সূর্য থেকে আসা শক্তি এবং পৃথিবীর মধ্যে থেকে নির্গত হওয়া তাপের উপর নির্ভর করে। [21]

আন্তর্জাতিক জনমত জরিপের মধ্যে শক্তি সরবরাহের সমস্যা মোকাবেলার বিভিন্ন পদ্ধতির প্রতি শক্তিশালী সমর্থন রয়েছে। এই পদ্ধতিগুলির মধ্যে রয়েছে- নবায়নযোগ্য উৎসগুলোর উন্নতি করা যেমনঃ সৌর শক্তি এবং বায়ু শক্তি এবং আরো নবায়নযোগ্য শক্তি ব্যবহার করার উপযোগিতা এবং এই প্রযুক্তিগুলির উন্নয়ন এবং ব্যবহারকে উৎসাহিত করার জন্য ট্যাক্স প্রণোদনা সরবরাহ করা। প্রত্যাশিত যে, নবায়নযোগ্য শক্তির বিনিয়োগ দীর্ঘমেয়াদীভাবে অর্থনৈতিতে অবদান রাখবে। [22]

ইইউ সদস্য দেশগুলো উচ্চাকাঙ্ক্ষী নবায়নযোগ্য শক্তি লক্ষ্যের প্রতি সমর্থন দেখিয়েছে। ২০১০ সালে, "ইউরোবাওরোমিটার" ইইউর ২৭ টি সদস্যের উপর ভোট গ্রহণ করেছে এ লক্ষ্যে যে "নবায়নযোগ্য শক্তির অংশ ২০২০ সালের মধ্যে ২০ শতাংশ বৃদ্ধি করা"। এসকল দেশের বেশিরভাগ মানুষই লক্ষ্যটির অনুমোদন দেয় বা আরও এগিয়ে যেতে বলে। ইইউ জুড়ে, ৫৭ শতাংশ মনে করেন প্রস্তাবিত লক্ষ্যটি "সঠিক" এবং ১৬ শতাংশ মনে করেন এটি "চলনসই"। তুলনামূলকভাবে, ১৯ শতাংশ মনে করেন এটি "অত্যন্ত উচ্চাভিলাষী"। [২৩]

২০১১ সালে এক নতুন তথ্য প্রকাশিত হয়েছে যে, ঐতিহ্যগত শক্তি উৎসগুলির যথেষ্ট ঝুঁকিতে রয়েছে এবং শক্তি প্রযুক্তির মিশ্রণ গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠেছেঃ

"বিশ্বব্যাপী বিভিন্ন খনির দুঃখজনক ঘটনাগুলি কয়লা সরবরাহে কাজ করা মানুষের জীবনের প্রতি গুরুত্ব আরোপ করেছে । নতুন ইপাএ উদ্যোগগুলি বায়ু দূষক, কয়লার ছাই এবং বিষাক্ত তরল নির্গমনের উপর লক্ষ্য রেখে পরিবেশের উপর কয়লার প্রভাব এবং নিয়ন্ত্রিত প্রযুক্তি ব্যবহারে এর খরচ তুলে ধরে। ভূগর্ভস্থ পানি দূষণ এবং গ্রিনহাউজ গ্যাস নির্গমণ বিবেচনার আওতাধীন এবং এর সাথে প্রাকৃতিক গ্যাস অনুসন্ধানে ফ্র্যাকিং এর ব্যবহারও বিবেচনায় আনা হচ্ছে। কয়লাভিত্তিক চুল্লী এবং পারমাণবিক চুল্লীতে ব্যবহৃত পানির ব্যপারে উদ্বেগ বেড়ে চলেছে বিশেষত, যে সব অঞ্চলে পানির অভাব রয়েছে। ফুকুসিমা পাওয়ার প্ল্যান্টের ঘটনা, বৃহৎ সংখ্যক পারমাণবিক চুল্লী দীর্ঘ সময় ধরে নিরাপদে পরিচালিত করার সক্ষমতা পরিচালকদের আছে কি না তা মানুষের মনে নতুন করে সন্দেহ জাগিয়ে তুলেছে। তাছাড়া, নতুন প্রজন্মের পারমাণবিক ইউনিটের খরচও বেড়ে চলেছে এবং মহাজনগণ করদাতাদের নিশ্চয়তা ছাড়া খরচ বহন করতে রাজি হচ্ছে না। [২৪]

২০১৪ সালের REN21 Global Status Report বলে যে, নবায়নযোগ্য শক্তি শুধু শক্তির উৎসই নয় বরং সামাজিক, রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক এবং পরিবেশের সমস্যাবলি চেপে রাখারও উপায়ঃ

আজ, নবায়নযোগ্য শক্তি শুধু শক্তির উৎসই নয় বরং প্রয়োজনীয় চাপ প্রয়োগকারী বিষয়াবলি সম্ভাষণের হাতিয়ার। যেমনঃ শক্তি নিরাপত্তা বৃদ্ধি, জীবাশ্ম ও পারমাণবিক শক্তির সাথে যুক্ত শারীরিক এবং পরিবেশীয় প্রভাব কমানো, গ্রীনহাউজ গ্যাসের নিঃসরণ প্রশমণ করা, শিক্ষার সুযোগ উন্নতি করা, চাকরি সৃষ্টি, অভাব হ্রাস এবং লিঙ্গের সমতা বৃদ্ধি....নবায়নযোগ্য বস্তুু মূলধারায় প্রবেশ করেছে।[25]

নবায়নযোগ্য উৎস বৃদ্ধি[সম্পাদনা]

২০০৮ সালে প্রথমবারের মতো, ইউরোপীয় ইউনিয়ন এবং আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্র উভয় ক্ষেত্রে প্রচলিত বিদ্যুৎ ক্ষমতার চেয়ে অধিক নবায়নযোগ্য জ্বালানি যুক্ত হয়েছিল, যা নবায়নযোগ্যদের পক্ষে বিশ্বের শক্তি বাজারে একটি "মৌলিক রূপান্তর" প্রদর্শন করেছিল, আরইএন 21 (প্যারিস ভিত্তিক বৈশ্বিক নবায়নযোগ্য শক্তি নীতি নেটওয়ার্ক), দ্বারা প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে এ তথ্য উঠে এসেছে। [২৭] ২০১০ সালে নবায়নযোগ্য বিদ্যুৎ ছিল সদ্য নির্মিত বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতাগুলির এক তৃতীয়াংশ। [২৮]

২০১১ সালের মধ্যে, বিশ্বব্যাপী মোট নবায়নযোগ্য বিদ্যুৎ ক্ষমতা 8% ছাড়িয়ে 1,360 গিগাওয়াট ছাড়িয়েছে।২০১১ সালে, বিশ্বজুড়ে ২০৮ গিগাওয়াট বিদ্যুৎ ক্ষমতার প্রায় অর্ধেক অংশ ছিল নবায়নযোগ্য বিদ্যুৎ উৎপাদনকারীদের। প্রায় 40% এবং 30% এসেছে বায়ু এবং সৌর ফটোভোলটিক্স (পিভি) থেকে। [২৯] REN21 এর 2014 সালের প্রতিবেদনের ভিত্তিতে, নবায়নযোগ্যরা 2012 সালে এবং 2013 সালে যথাক্রমে আমাদের বিদ্যুৎ ব্যবহারে 19 শতাংশ এবং আমাদের বিদ্যুত উৎপাদনে 22 শতাংশ অবদান রেখেছিল। এই ব্যবহৃত শক্তি এসেছে- ঐতিহ্যবাহী বায়োমাস থেকে 9%, তাপশক্তি (নন-বায়োমাস) হিসাবে 4.2%, বায়ু, সৌর, ভূ-তাপীয় এবং জৈববস্তু থেকে 2% বিদ্যুত। [30]

২০০৪ সাল থেকে ২০০৯ সাল অবধি পাঁচ বছরে বিশ্বব্যাপী নবায়নযোগ্য জ্বালানি ক্ষমতা অনেক প্রযুক্তির জন্য বার্ষিক 10-60 শতাংশ হারে বৃদ্ধি পেয়েছে, যখন প্রকৃত উৎপাদন সামগ্রিকভাবে 1.2% বৃদ্ধি পেয়েছে। ৩১] [৩২] ২০১১ সালে জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল আছিম স্টেইনার বলেছিলেন: "সবুজ অর্থনীতির এই মূল বিভাগে ক্রমাগত বৃদ্ধি দৈবক্রমে ঘটছে না। সরকারের লক্ষ্য নির্ধারণ, নীতি সমর্থন এবং উদ্দীপনা তহবিলের সমন্বয়টি নবায়নযোগ্য শিল্পের উত্থানকে লক্ষণীয় করে তুলেছে এবং আমাদের বৈশ্বিক জ্বালানি ব্যবস্থার প্রয়োজনীয় রূপান্তরকে নাগালের মধ্যে আনছে। তিনি আরও যোগ করেছেন: "নবায়নযোগ্য শক্তি বিনিয়োগ, প্রকল্প এবং ভৌগোলিক বিস্তার উভয় ক্ষেত্রেই প্রসারিত হচ্ছে। এগুলি করার ফলে তারা জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলা, জ্বালানি দারিদ্র্য এবং জ্বালানি নিরাপত্তাহীনতার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে ক্রমবর্ধমান অবদান রাখছে।" [৩৩]

আন্তর্জাতিক শক্তি সংস্থার ২০১১ সালের অভিক্ষেপ অনুসারে, সৌর বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলি ৫০ বছরের মধ্যে পরিবেশকে ক্ষতিগ্রস্ত করে এমন গ্রীনহাউস গ্যাসের নির্গমনকে উল্লেখযোগ্যভাবে হ্রাস করে বিশ্বের বেশিরভাগ বিদ্যুত উৎপাদন করতে পারে। আইইএ বলেছে: "ফটোভোলটাইক এবং সৌর-তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলি ২০৬০ সালের মধ্যে বিশ্বের বেশিরভাগ বিদ্যুতের চাহিদা পূরণ করতে পারে - এবং বাকি শক্তি চাহিদার অর্ধেক - বায়ু, জলবিদ্যুৎ এবং বায়োমাস উদ্ভিদের থেকে উৎপাদন করে সরবরাহ করতে পারে"। "ফোটোভোলটাইক এবং ঘন সৌর শক্তি একসাথে বিদ্যুতের প্রধান উৎস হয়ে উঠতে পারে"। [১৭]

২০১৩ সালে চীন প্রধানত জলবিদ্যুৎ এবং বায়ু শক্তি থেকে মোট ৩৭৮ গিগাওয়াট ক্ষমতার নবায়নযোগ্য শক্তি উৎপাদন করে নবায়নযোগ্য শক্তি উৎপাদনে বিশ্বকে নেতৃত্বে দিয়েছে। ২০১৪ সালের হিসাবে, চীন বায়ু শক্তি, সৌর ফটোভোল্টিক শক্তি এবং স্মার্ট গ্রিডটেকনোলজির উৎপাদন এবং ব্যবহারে বিশ্বের শীর্ষে অবস্থান করছে ততটুকু পরিমাণ বিদ্যুৎ উৎপাদন করে, যতটুকু ফ্রান্স এবং জার্মানির সমস্ত বিদ্যুৎকেন্দ্র একত্রিত হয়ে জল, বায়ু এবং সৌর শক্তি উৎপাদন করে। চীনের নবায়নযোগ্য শক্তি খাতটি তার জীবাশ্ম জ্বালানী এবং পারমাণবিক শক্তি সক্ষমতা তুলনায় দ্রুত বাড়ছে। ২০০৫ সাল থেকে, চীনে সৌর কোষের উৎপাদন 100 গুন প্রসারিত হয়েছে।যেহেতু, চীনা নবায়নযোগ্য উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়েছে, নবায়নযোগ্য শক্তি প্রযুক্তির ব্যয় হ্রাস পেয়েছে। উদ্ভাবন সাহায্য করেছে, তবে ব্যয় হ্রাসের মূল চালক হলেন বাজারের প্রসারণ [৩৭]

মার্কিন-পরিসংখ্যানগুলির জন্য যুক্তরাষ্ট্রে নবায়নযোগ্য শক্তিও দেখুন।

অর্থনৈতিক প্রবণতা[সম্পাদনা]

জাতীয় নবায়নযোগ্য শক্তি পরীক্ষাগার অভিক্ষেপ করে যে, প্রকল্পগুলি যে বায়ু বিদ্যুতের স্তরিত ব্যয় ২০১২ থেকে ২০৩০ সাল পর্যন্ত প্রায় ২৫% হ্রাস পাবে। [৩৮]

নবায়নযোগ্য শক্তি প্রযুক্তিগুলি প্রযুক্তিগত পরিবর্তনের মাধ্যমে এবং ব্যাপক উৎপাদন ও বাজার প্রতিযোগিতার সুবিধার মাধ্যমে সস্তা হয়ে উঠছে। ২০১১ সালের আইএএর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে: "নবায়নযোগ্য শক্তি প্রযুক্তির একটি দফতর ক্রমবর্ধমান বিস্তৃত পরিস্থিতিতে ব্যয়বহুল প্রতিযোগিতামূলক হয়ে উঠছে, কিছু ক্ষেত্রে সুনির্দিষ্ট অর্থনৈতিক সহায়তার প্রয়োজন ছাড়াই বিনিয়োগের সুযোগ প্রদান করে," এবং আরো যোগ করেছেন যে "জটিল প্রযুক্তি যেমন বায়ু এবং সৌর প্রযুক্তিতে, ব্যয় হ্রাস থামছে না। "[৩৯] ২০১১ সালের হিসাবে, সৌর ও বায়ু প্রযুক্তির ব্যয় যথেষ্ট হ্রাস হয়েছে: ব্লুমবার্গ নিউ এনার্জি ফিনান্সের হিসাব অনুসারে ২০০৮ সালের গ্রীষ্মের পর থেকে প্রতি মেগাওয়াট পিভি মডিউলের দাম ৬০% শতাংশ কমেছে, বেশ কয়েকটি রৌদ্রোজ্জ্বল দেশে বিদ্যুতের খুচরা মূল্যের সাথে প্রথমবারের মতো সৌর বিদ্যুতকে প্রতিযোগিতামূলক ভিত্তিতে ফেলেছে। গত দুই বছরে, বায়ু টারবাইনের দামও প্রতি মেগাওয়াটে 18 শতাংশ হ্রাস পেয়েছে - সরবরাহের বেড়ীতে সৌরর সাথে প্রচণ্ড প্রতিযোগিতা প্রতিফলিত হচ্ছে। সৌর, বায়ু এবং অন্যান্য প্রযুক্তির জন্য শক্তির স্তরিত ব্যয়ে আরও উন্নতি হলে আগামী কয়েক বছরে জীবাশ্ম জ্বালানী উৎসের আধিপত্যের জন্য ক্রমবর্ধমান হুমকির কারণ হয়ে দাঁড়াবে। [৩৩]

সুবিধাজনক জায়গায়, উৎপাদিত পানি-বিদ্যুৎ এবং ভূ-তাপীয় বিদ্যুৎ এখন বিদ্যুৎ উৎপাদনের সবচেয়ে সহজ উপায়। নবায়নযোগ্য শক্তির ব্যয় হ্রাস অব্যাহত রয়েছে এবং বায়ু বিদ্যুৎ, সৌর ফটোভোলটাইক (পিভি), কেন্দ্রীভূত সৌর শক্তি (সিএসপি) এবং কিছু বায়োমাস প্রযুক্তির জন্য বিদ্যুতের স্তরযুক্ত ব্যয় (এলসিওই) হ্রাস পাচ্ছে [৪]

নবায়নযোগ্য শক্তি নতুন গ্রিড-সংযুক্ত ক্ষমতার জন্যও সবচেয়ে ভালো অর্থনৈতিক সমাধান যেখানে সম্পদের প্রাচুর্য রয়েছে। নবায়নযোগ্য শক্তির ব্যয় হ্রাস পাওয়ার সাথে সাথে অর্থনৈতিকভাবে টেকসই প্রয়োগের সুযোগও বৃদ্ধি পায়। বর্তমানে, নবায়নযোগ্য প্রযুক্তিগুলি প্রায়শই নতুন উৎপাদন ক্ষমতার জন্য সবচেয়ে ভালো অর্থনৈতিক সমাধান। যেখানে "তেলচালিত উৎপাদন বিদ্যুৎ উৎপাদনের প্রধান উৎস (যেমনঃ দ্বীপপুঞ্জ, অফ-গ্রিড এবং কিছু দেশে) সেখানেও একটি স্বল্প ব্যয় নবায়নযোগ্য সমাধান প্রায় সর্বদা উপস্থিত রয়েছে"। 4] 2012 সালের হিসাবে, নবায়নযোগ্য বিদ্যুৎ উৎপাদন প্রযুক্তি বিশ্বব্যাপী সমস্ত নতুন বিদ্যুত উৎপাদন ক্ষমতা সংযোজনের প্রায় অর্ধেক দখল করেছে। ২০১১ সালে সংযোজনগুলির মধ্যে অন্তর্ভুক্ত ছিল, নতুন বায়ু বিদ্যুৎ ক্ষমতার ৪১ গিগাওয়াট (জিডব্লু), পিভি থেকে ৩০ গিগাওয়াট, হাইড্রো-বিদ্যুতের ২৫ গিগাওয়াট, বায়োমাসের ৬ গিগাওয়াট, সিএসপি'র ০.৫ গিগাওয়াট এবং ভূ-তাপীয় বিদ্যুৎ ০.১ গিগাওয়াট। [৪]

প্রযুক্তির তিন প্রজন্ম[সম্পাদনা]

নবায়নযোগ্য শক্তি বাণিজ্যিকীকরণের বিভিন্ন পর্যায়ে হরেকরকমের উৎস এবং প্রযুক্তি রয়েছে। আন্তর্জাতিক শক্তি সংস্থা (আইইএ) নবীনযোগ্য শক্তি প্রযুক্তির তিনটি প্রজন্মকে সংজ্ঞায়িত করেছে, যা 100 বছরেরও বেশি সময় পেরিয়ে গেছে:

"উনিশ শতকের শেষদিকে প্রথম প্রজন্মের প্রযুক্তি শিল্প বিপ্লব থেকে উদ্ভূত হয়েছিল এবং এতে জলবিদ্যুৎ, বায়োমাস দহন, ভূ-তাপীয় বিদ্যুৎ এবং তাপ অন্তর্ভুক্ত ছিল। এই প্রযুক্তিগুলি বেশ ব্যাপকভাবে ব্যবহৃত হয়। 3] দ্বিতীয়-প্রজন্মের প্রযুক্তিগুলির মধ্যে রয়েছে সৌর উত্তাপন এবং শীতলীকরণ, বায়ু শক্তি, জৈব-শক্তির আধুনিক রূপ এবং সৌর ফটোভোলটাইজ। ১৯৮০ এর দশক থেকে গবেষণা, উন্নয়ন ও প্রদর্শন (আরডি অ্যান্ড ডি) বিনিয়োগের ফলস্বরূপ এগুলি এখন বাজারে প্রবেশ করছে। প্রাথমিক বিনিয়োগটি ১৯৭০ এর দশকের তেল সংকটের সাথে যুক্ত জ্বালানি সুরক্ষা উদ্বেগের দ্বারা উৎসাহিত হয়েছিল তবে এই প্রযুক্তির স্থায়ী আবেদন কিছুটা হলেও পরিবেশগত সুবিধার জন্য বেগ পেয়েছে। প্রযুক্তিগুলির মধ্যে অনেকগুলি উপকরণের উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি প্রতিফলিত করে। [3] তৃতীয় প্রজন্মের প্রযুক্তিগুলি এখনও বিকাশের অধীনে রয়েছে এবং উন্নত বায়োমাস গ্যাসীফিকেশন, বায়োরিফিনিয়ার টেকনোলজিস,কেন্দ্রীভূত সৌর তাপবিদ্যুত, গরম-শুকনো-পাথরের ভূতাত্ত্বিক শক্তি এবং সমুদ্রের শক্তিকে অন্তর্ভুক্ত করে। ন্যানোপ্রযুক্তিবিদ্যায় অগ্রগতিও প্রধান ভূমিকা পালন করবে"। [3] প্রথম প্রজন্মের প্রযুক্তিগুলি সুপ্রতিষ্ঠিত, দ্বিতীয়-প্রজন্মের প্রযুক্তি বাজারে প্রবেশ করছে এবং তৃতীয়-প্রজন্মের প্রযুক্তিগুলি দীর্ঘমেয়াদী গবেষণা এবং উন্নয়ন প্রতিশ্রুতিগুলির উপর নির্ভর করে, যেখানে সরকারী খাত ভূমিকা পালন করতে পারে। [3]

প্রথম প্রজন্মের প্রযুক্তিসমূহ[সম্পাদনা]

প্রথম প্রজন্মের প্রযুক্তি সে সকল স্থানে বহুল ব্যবহৃত হয় যেখানে সম্পদের প্রাচুর্য রয়েছে।ভবিষ্যতে তাদের ব্যবহার বাকী সম্পদ সম্ভাবনার অনুসন্ধান, বিশেষত উন্নয়নশীল দেশগুলিতে এবং পরিবেশ এবং সামাজিক গ্রহণযোগ্যতা সম্পর্কিত চ্যালেঞ্জগুলি কাটিয়ে ওঠার উপর নির্ভর করে।

জৈববস্তুপুঞ্জ[সম্পাদনা]

তাপ এবং বিদ্যুতের জন্য জৈববস্তু একটি সম্পূর্ণ পরিপক্ব প্রযুক্তি যা পৌরসভা, কৃষি, এবং শিল্প জৈব বর্জ্যগুলির জন্য প্রস্তুত নিষ্পত্তি প্রক্রিয়া সরবরাহ করে। তবে অনেকগুলি উন্নয়নশীল দেশে বায়োমাসের (বেশিরভাগ কাঠের) চাহিদা ক্রমাগত বাড়তে থাকা সত্ত্বেও শিল্পটি তুলনামূলকভাবে ২০০৭ এর দশকে স্থবির হয়ে পড়েছে। বায়োমাসের অন্যতম সমস্যা হলো, রান্নার চুলাগুলিতে সরাসরি পদার্থের মিশ্রণ দূষণকারী পদার্থ উৎপাদন করে যা মারাত্মক স্বাস্থ্য এবং পরিবেশগত পরিণতির দিকে পরিচালিত করে, যদিও উন্নত রান্নার চুলা এর কয়েকটি প্রভাব হ্রাস করে। প্রথম প্রজন্মের বায়োমাস প্রযুক্তিগুলি অর্থনৈতিকভাবে প্রতিযোগিতামূলক হতে পারে তবে জনসাধারণের গ্রহণযোগ্যতা এবং ক্ষুদ্র-আকারের সমস্যাগুলি কাটিয়ে উঠতে এখনও বিস্তৃত সহায়তার প্রয়োজন হতে পারে [৩]

জলবিদ্যুৎ[সম্পাদনা]

জলবিদ্যুৎ শব্দটি জলশক্তি দ্বারা উৎপাদিত বিদ্যুতকে বোঝায়; ঝর্ণা বা প্রবাহিত জল মহাকর্ষ শক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে বৈদ্যুতিক শক্তি উৎপাদনকে বোঝায়। ২০১৫ সালে জলবিদ্যুৎ বিশ্বের মোট বিদ্যুতের ১৬.৬% এবং সমস্ত নবায়নযোগ্য বিদ্যুতের ৭০% উৎপন্ন করেছিল এবং আগামী ২৫ বছরের জন্য প্রতি বছর প্রায় ৩.১% হারে বৃদ্ধি পাবে বলে আশা করা হচ্ছে। জলবিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলির দীর্ঘস্থায়ী থাকার সুবিধা রয়েছে এবং বহু বিদ্যমান কেন্দ্র ১০০ বছরেরও বেশি সময় ধরে পরিচালিত হচ্ছে।

২০১০ সালে ১৫০ টি দেশে জলবিদ্যুত উৎপাদিত হয় এবং এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে বিশ্বের ৩২ শতাংশ জলবিদ্যুৎ উৎপাদিত হয়। ২০১০ সালে চীন ৭২১ টেরাওয়াট-ঘণ্টার উৎপাদন নিয়ে সর্ববৃহৎ জলবিদ্যুৎ উৎপাদক হয়ে উঠেছিল এবং ১৭ শতাংশ অভ্যন্তরীণ বিদ্যুৎ ব্যবহার করেছিল।চীনে এখন ১০ গিগাওয়াটের চেয়ে বড় জলবিদ্যুৎ কেন্দ্র রয়েছে: চীনের তিনটি গর্জেস বাঁধ, ব্রাজিল /প্যারাগুয়ের সীমান্ত বাঁধ এবং ভেনেজুয়েলার গুরি বাঁধ। [৪১] জলবিদ্যুৎ খরচ কম, যা একে প্রতিযোগিতামূলক নবায়নযোগ্য বিদ্যুতের উৎসে পরিনত করেছে। ১০ মেগাওয়াট এর চেয়ে বড় হাইড্রো প্লান্ট থেকে বিদ্যুতের গড় ব্যয় প্রতি কিলোওয়াট-ঘণ্টা মাত্র ৩ থেকে ৫ মার্কিন সেন্ট [৪১]

ভূতাত্ত্বিক শক্তি এবং তাপশক্তি[সম্পাদনা]

ভূ-তাপীয় বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলি বেসডলোড ক্ষমতা প্রদান করে প্রতিদিন ২৪ ঘণ্টা পরিচালিত হতে পারে। ভূ-তাপীয় বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য বিশ্বের সম্ভাব্য আনুমানিক পরিমাণ 2020 সালের মধ্যে ৪০ গিগাওয়াট থেকে ৬০০০ গিগাওয়াট পর্যন্ত বিস্তৃত হবে।[৪২] [৪৩]

ভূ-তাপীয় বিদ্যুৎ ক্ষমতা ১৯৭৫ সালে প্রায় ১ গিগাওয়াট থেকে ২০০৮ সালে প্রায় দশ গিগাওয়াটে উন্নীত হয়েছিল। [৪৩] মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠাপিত ক্ষমতার দিক থেকে ৩.১ গিগাওয়াটের প্রতিনিধিত্ব করে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয়। উল্লেখযোগ্যভাবে প্রতিষ্ঠাপিত ক্ষমতা সহ অন্যান্য দেশগুলির মধ্যে রয়েছে ফিলিপাইন (১.৯ গিগাওয়াট), ইন্দোনেশিয়া (১.২ গিগাওয়াট), মেক্সিকো (১.০ গিগাওয়াট), ইতালি (০.৮ গিগাওয়াট), আইসল্যান্ড (০.৬ গিগাওয়াট), জাপান (০.৫ গিগাওয়াট), এবং নিউজিল্যান্ড (০.৫ গিগাওয়াট))। [৪৩] [৪৪] কিছু দেশে ভূতাত্ত্বিক বিদ্যুৎ মোট বিদ্যুৎ সরবরাহের উল্লেখযোগ্য পরিমাণে রয়েছে, যেমন, ফিলিপাইনে ২০০০ সালের শেষে ভূ-তাপীয় মোট বিদ্যুতের মিশ্রণের ১৭% শতাংশ উপস্থাপন করে। [৪৫]

ভূ-তাপীয় (স্থল উৎস) তাপ পাম্পগুলি ২০০৮ সালের শেষের দিকে প্রতিষ্ঠাপিত ক্ষমতার আনুমানিক ৩০ গিগাওয়াটের প্রতিনিধিত্ব করে এবং ভূ-তাপীয় তাপের অন্যান্য সরাসরি ব্যবহারের সাথে (যেমন, স্থান গরম করার জন্য, কৃষি শুকানোর জন্য এবং অন্যান্য ব্যবহারের জন্য) আনুমানিক 15 গিগাওয়াটে পৌঁছেছে। ২০০৮ সালের হিসাবে, কমপক্ষে ৭৬ টি দেশ কোনও না কোনও রূপে সরাসরি ভূ-তাপীয় শক্তি ব্যবহার করে [৪৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. International Energy Agency (2007). Renewables in global energy supply: An IEA facts sheet (PDF) OECD, 34 pages.
  2. International Renewable Energy Agency (২০১২)। "Renewable Power Generation Costs in 2012: An Overview" (PDF)। ১৫ জুলাই ২০১৯ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ এপ্রিল ২০১৩ 
  3. Donald W. Aitken. Transitioning to a Renewable Energy Future, International Solar Energy Society, January 2010, p. 3.
  4. REN21 (2012). Renewables Global Status Report 2012 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৫ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে p. 17.
  5. REN21 (২০১১)। "Renewables 2011: Global Status Report" (PDF)। পৃষ্ঠা 11–13। ৫ সেপ্টেম্বর ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  6. Editorial, Green Gold, Nature Energy, 2016.
  7. REN21 (2012). Renewables Global Status Report 2012 ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৫ ডিসেম্বর ২০১২ তারিখে p. 17.
  8. REN21 (২০১১)। "Renewables 2011: Global Status Report" (PDF)। পৃষ্ঠা 35। ৫ সেপ্টেম্বর ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  9. Top of the list, Renewable Energy World, 2 January 2006.
  10. Keith Johnson, Wind Shear: GE Wins, Vestas Loses in Wind-Power Market Race, Wall Street Journal, 25 March 2009, accessed on 7 January 2010.
  11. International Energy Agency. IEA urges governments to adopt effective policies based on key design principles to accelerate the exploitation of the large potential for renewable energy ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে 29 September 2008.
  12. REN21 (2006). Changing climates: The Role of Renewable Energy in a Carbon-constrained World (PDF) ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১১ জুন ২০০৭ তারিখে p. 2.
  13. HM Treasury (2006). Stern Review on the Economics of Climate Change.
  14. New UN report points to power of renewable energy to mitigate carbon emissions UN News Centre, 8 December 2007.
  15. Joel Makower, Ron Pernick and Clint Wilder (2008). Clean Energy Trends 2008, Clean Edge, p. 2.
  16. Ben Sills (২৯ আগস্ট ২০১১)। "Solar May Produce Most of World's Power by 2060, IEA Says"Bloomberg 
  17. Trump Is Foolish to Ignore the Flourishing Renewable Energy Sector

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]