দ্য শার্ড

স্থানাঙ্ক: ৫১°৩০′১৬″ উত্তর ০°০৫′১১″ পশ্চিম / ৫১.৫০৪৫° উত্তর ০.০৮৬৫° পশ্চিম / 51.5045; -0.0865
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
দ্য শার্ড
The Shard from the Sky Garden 2015.jpg
এপ্রিল ২০১৫ সালে দ্য শার্ড
বিকল্প নামশার্ড অফ গ্লাস, শার্ড লন্ডন ব্রিজ
উচ্চতার রেকর্ড
যুক্তরাজ্য সর্বোচ্চ কাঠামো ২০১২[৭] থেকে[I]
পূর্ববর্তীওয়ান কানাডা স্কয়ার
সাধারণ তথ্য
অবস্থাসম্পূর্ণ
স্থাপত্য রীতিনব-ভবিষ্যবাদ[৮]
অবস্থানলন্ডন, SE1
স্থানাঙ্ক৫১°৩০′১৬″ উত্তর ০°০৫′১১″ পশ্চিম / ৫১.৫০৪৫° উত্তর ০.০৮৬৫° পশ্চিম / 51.5045; -0.0865
নির্মাণ শুরু হয়েছেমার্চ ২০০৯
সম্পূর্ণজুলাই ২০১২
কার্যারম্ভ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৩
ব্যয়~£৪৩,৫০,২৩,৪২ (শুধুমাত্র চুক্তি অনুযায়ী খরচ)
স্বত্বাধিকারীকাতার (৯৫%)
সেলার প্রপার্টি গ্রুপ (৫%)
উচ্চতা
স্থাপত্য৩০৯.৬ মি (১,০১৬ ফু)[৯]
পর্যবেক্ষণিকা২৪৪ মি (৮০১ ফু)
কারিগরী বিবরণ
তলার সংখ্যা৯৫ টি (৭২ টি বাসযোগ্য)
তলার আয়তন৩,৯৮,৪৯০ বর্গ মিটার ১৩,০৭,৩৮৩ বর্গ ফুট
লিফট/এলিভেটর৩৬
নকশা এবং নির্মাণ
স্থপতিরেনজো পিয়ানো
উন্নয়নকারীরসেলার প্রপার্টি গ্রুপ
গাঠনিক প্রকৌশলীডাব্লুএসপি গ্লোবাল (কাঠামোগত প্রকৌশলী), রবার্ট বার্ড গ্রুপ (কংক্রিটের অস্থায়ী কাজগুলি), বেশিরভাগ মেঝেতে ইসচেবেক টাইটান ৪০+ (কংক্রিট সমর্থন)
পরিসেবা প্রকৌশলীআরূপ গ্রুপ
প্রধান ঠিকাদারমেচ
তথ্যসূত্র
[১][২][৩][৪][৫][৬]

দ্য শার্ড,[ক] একটি ৯৫ তলা সু-উচ্চ আকাশচুম্বী ভবন, লন্ডনের সাউথওয়ার্কে অবস্থিত ভবনটির নকশা করেন ইতালীয় স্থপতি রেনজো পিয়ানো, যা শার্ড কোয়ার্টার উন্নয়নের অংশ হিসাবে কাজ করে। ভবনটি কাঁচের শার্ড,[১০][১১] শার্ড লন্ডন ব্রিজ[১২] এবং লন্ডন ব্রিজ টাওয়ার[১৩][১৪][১৫] হিসাবে পরিচিত। ৩০৯.৬ মিটার (১,০১৬ ফুট) উঁচু দ্য শার্ড হ'ল যুক্তরাজ্যের সবচেয়ে উঁচু ভবন, ইউরোপীয় ইউনিয়নের উচ্চতম ভবন এবং ইউরোপের ষষ্ঠ-উচ্চতম ভব।[৯][১৬][১৭] এটি এমিলি মুর ট্রান্সমিশন স্টেশনের কংক্রিট টাওয়ারের পরে যুক্তরাজ্যের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ-স্থিতিশীল কাঠামো বা স্থাপনা।[১৮] এটি ১৯৭৫ সালে একই স্থানে নির্মিত ২৪-তলা দাপ্তরিক ব্লক সাউথওয়ার্ক টাওয়ারকে প্রতিস্থাপন করে।

দ্য শার্ডের নির্মাণ কাজ শুরু হয় মার্চ ২০০৯ সালে; এটি ৩০ মার্চ ২০১২ সালে[১৯] শীর্ষে পৌছায় এবং ৫ জুলাই ২০১২ সালে এটি উদ্বোধন করা হয়।[২০] ব্যবহারিক সমাপ্তি নভেম্বর ২০১২ এ অর্জন করে। টাওয়ারটির ব্যক্তিগতভাবে পরিচালিত পর্যবেক্ষণ ডেক, দ্য শার্ড থেকে দ্য ভিউ, ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ সালে জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত করা হয়।[১][২১][২২] কাঁচে পিরামিড টাওয়ারটিতে ৭২ টি বাসযোগ্য মেঝে রয়েছে, যার একটি দৃশ্য গ্যালারী এবং মুক্ত-বায়ু পর্যবেক্ষণ ডেক ২৪৪ মিটার (৮০১ ফুট) এর উচ্চতায় রয়েছে।[৪][২৩] দ্য শার্ডেটি এলবিকিউ লিমিটেডের পক্ষে সেলার প্রোপার্টি গ্রুপ দ্বারা নির্মাণ করা হয় এবং এর যৌথ মালিকানায় রয়েছে সেলার প্রপার্টি (৫%) এবং কাতার (৯৯%)।[৬] মালিকদের পক্ষ থেকে রিয়েল এস্টেট ম্যানেজমেন্ট (ইউকে) লিমিটেড দ্বারা দ্য শার্ড পরিচালনা করা হয়।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Shard Opens Viewing Deck To Visitors"। Sky News। ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৩। ৩ মার্চ ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  2. The Shard: The Official Guidebook. Thames & Hudson (2013). p. 22. আইএসবিএন ৯৭৮০৫০০৩৪২৮৪৮.
  3. Piano, Renzo (২০১৩)। The Shard: London Bridge Tower (English and Italian ভাষায়)। Matador। পৃষ্ঠা 74। আইএসবিএন 978-88-6264-006-0 
  4. "The Shard – The Skyscraper Center"। Council on Tall Buildings and Urban Habitat। সংগ্রহের তারিখ ২৬ এপ্রিল ২০১৩ 
  5. ইম্পরিসদ্য শার্ড. Retrieved 27 November 2012.
  6. "Inauguration of the Shard Tower in London on July 5th 2012" (সংবাদ বিজ্ঞপ্তি)। Business Wire। এপ্রিল ৩০, ২০১২।  The Shard is managed by Real Estate Management (UK) Limited on behalf of the owners.
  7. As of CTBUH guidelines when building is completed, and of CTBUH Awards Criteria for skyscrapers.
  8. Brogden, Jim (২০১৯)। Photography and the Non-Place: The Cultural Erasure of the City। Springer। পৃষ্ঠা 128। আইএসবিএন 978-3-030-03919-6 
  9. "Shard London Bridge, London - SkyscraperPage.com"SkyscraperPage.com। সংগ্রহের তারিখ ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭ 
  10. Bar-Hillel, Mira (২৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৯)। "£28bn Shard of Glass to start its ascent"London Evening Standard। ২৭ মে ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুলাই ২০১০ 
  11. "Work starts on Shard of Glass"New Civil Engineer। ২ এপ্রিল ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুলাই ২০১০ 
  12. "London Bridge Tower, London"। Designbuild-network.com। ১৫ জুন ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০১২ 
  13. Weaver, Matt (১৫ এপ্রিল ২০০৩)। "Battle begins for London Bridge Tower"The Guardian। London। সংগ্রহের তারিখ ৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  14. "Shard funding crisis: Tower finances cast shadow over project"World Architecture News। ১০ সেপ্টেম্বর ২০০৭। ২৯ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৭ জুলাই ২০১০ 
  15. "Why do tall buildings have such silly names?"। BBC News। ২৬ নভেম্বর ২০১০। ২৬ এপ্রিল ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৭ নভেম্বর ২০১০ 
  16. "List and details of the tallest buildings in the world"infoplease.com। Infoplease Encyclopedia। সংগ্রহের তারিখ ২৯ আগস্ট ২০১৫ 
  17. "A vertical city"। The-Shard.com। সংগ্রহের তারিখ ৫ আগস্ট ২০১৫ 
  18. "Emley Moor"। TheBigTower.com। সংগ্রহের তারিখ ১২ ফেব্রুয়ারি ২০১৩ 
  19. "Shard Tops Out"। Skyscrapernews.com। ৩০ মার্চ ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২ এপ্রিল ২০১২ 
  20. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; DMJ2012 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  21. "The Shard opens up to share its high, wide and handsome view"The Guardian। ১১ জানুয়ারি ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১২ জানুয়ারি ২০১৩ 
  22. "The Shard may open for events, but not until late 2013"Event। ৯ আগস্ট ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৪ নভেম্বর ২০১২ 
  23. Whitten, Nick (২০ মে ২০০৯)। "Shard observation deck to be Europe's highest"। Cnplus.co.uk। সংগ্রহের তারিখ ৬ জুলাই ২০১২ 

পাদটীকাসমূহ[সম্পাদনা]

  1. The building's operators officially stylise its name as The Shard, with the word "the" capitalised.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]