থিংকপ্যাড টি সিরিজ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
থিংকপ্যাড টি সিরিজ
Lenovo ThinkPad T420 Ubuntu Linux.jpeg
উবুন্টু লিনাক্স চালিত লেনোভো থিংকপ্যাড টি৪২০
বিকাশকারী
ধরননোটবুক কম্পিউটার
মুক্তির তারিখ২০০০

থিংকপ্যাড টি সিরিজ ২০০০ সালে আইবিএমের শুরু করা ল্যাপটপ কম্পিউটারের একটি ধারা। ২০০৫-এ ভোক্তা কম্পিউটার বিভাগের স্থানান্তরের পর থেকে এগুলো চীনা প্রযুক্তি কোম্পানি লেনোভো কর্তৃক উন্নয়ন ও বাজারজাত করা হচ্ছে। এ ল্যাপটপ ধারাটি লিনাক্সের সাথে সামঞ্জস্যতার জন্যে ও ব্যবসায়ীদের কথা মাথায় রেখে বানানো বলে ব্যবহারকারীদের মধ্যে বেশ প্রশংসিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

আইবিএম তাদের থিংকপ্যাড ব্র‍্যান্ডের অংশ হিসেবে ২০০০ সালে এর সূচনা করেন। বহু নেটওয়ার্ক ও ভিন্ন ভিন্ন পরিবেশে কাজ করা ব্যবহারকারীদের লক্ষ্য ছিলো এ পণ্য। গতি ও বহনযোগ্যতার ব্যালেন্স করাই ছিলো এ পণ্যের লক্ষ্য।

আইবিএম টি২০ আইবিএম থিংকপ্যাড ৬০০-এর উত্তরসুরি হিসেবে মুক্তি পায়।[১] অক্টোবর ২০০০ সালে থিংকপ্যাড টি২০ হালনাগাদ করা হয় ও টি২১ নামে মুক্তি পায়। টি২x সিরিজে আরও উন্নয়ন করা হয়, যা দেখা যায় টি২২ ও শেষে টি২৩তে। মে ২০০২ সালে থিংকপ্যাড টি৩০ মুক্ত পায়। মার্চ ২০০৩ সালে মুক্তি পাওয়া থিংকপ্যাড টি৪০ টি সিরিজের প্রথম "পারফরমেন্স" ক্লাস ল্যাপটপ ছিলো। একই ডিজাইন দেখা যায় টি৪১ ও টি৪১পি এবং টি৪২ ও টি৪২পিতে। এপ্রিল ২০০৫ সালে মুক্তি পাওয়া টি৪৩ ও টি৪৩পি আইবিএম কর্তৃক তৈরি করা প্রথম টি-সিরিজ ল্যাপটপ। মাইক্রোসফট উইন্ডোজ ৮.x বা উইন্ডোজ ১০ চালাতে পারা প্রথম থিংকপ্যাড ল্যাপটপ এ দুটো।

ডিসেম্বর ২০০৪ সালে লেনোভো চায়না আইবিএমের পিসি বিভাগ কিনে নেয়ার কথা জানায়,[২] যার মধ্যে থিংকপ্যাড ব্র‍্যান্ডও ছিলো। লেনোভো ফেব্রুয়ারি ২০০৬ এ টি৬০ ও টি৬০পি আনে বাজারে। লেনোভো কর্তৃক ডিজাইন ও প্রস্তুত করা হলেও এ যন্ত্রগুলোতো আইবিএম লোগো ছিলো। মে ২০০৭ সালে থিংকপ্যাড লোগোর জন্যে টি৬১ ও টি৬১পিতে আইবিএম লোগো একপাশে সরিয়ে আনা হয়।[৩]

পর্যালোচনা[সম্পাদনা]

পিসিওয়ার্ল্ড থিংকপ্যাড টি২০ সম্পর্কে বললো “packs a bigger screen, a more comfortable keyboard, and a larger set of useful features into a smaller package than any of its competitors.” (আরও বড় পর্দা, আরও আরামদায়ক কীবোর্ড ও আরও বেশি সুবিধা এর প্রতিযোগীদের চেয়ে ছোট প্যাকেজে)। থিংকপ্যাড টি৬০-এর একটি পর্যালোচনায় নোটবুক রিভিউ ট-সিরিজ ল্যাপটপকে করপোর্ট পেশাদারদের লক্ষ্য রেখে “flagship of the ThinkPad brand” (থিংকপ্যাড ব্র‍্যান্ডের ফ্ল্যাগশিপ) বলে অভিহিত করেন।[৪] notebookreview.com-এর লেখা টি-সিরিজের কিছু বৈশিষ্ট্য টেকসই, নিরাপত্তা, ব্যবহারযোগ্যতা ও পারফরমেন্স। [৫]

নোটবুক রিভিউ থেকে থিংকপ্যাড টি৪১০ ৫-এ ৪.৫ স্টার পায়।[৬] পর্যালোচনায় ভাল দিক হিসেবে এর গতি, ব্যাটারি ও বিভিন্ন পোর্টের কথা বলা হয়।[৭] মন্দ দিকের মধ্যে ছিলো পর্দা নোয়ানো হলে পর্দায় বিকৃতি ও পাখার উচ্চ শব্দ।[৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "IBM ThinkPad T20"। ১৮ অক্টোবর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। থিংকপ্যাড টি২০-এর সাথে, থিংকপ্যাড ৬০০ সিরিজের অনুসরনে, ভ্রমন নোটবুকের একটি নতুন প্রমাণ স্থাপন করলো আইবিএম 
  2. "Sale of I.B.M. PC Unit Is a Bridge Between Cultures"। New York Times। ডিসেম্বর ৮, ২০০৪। 
  3. "ThinkPad T Series – History and Development"। Archived from the original on ২০১২-০২-০৫। the T Series range had dropped the IBM brand with the T61 plus T61p in May 2007 
  4. "Lenovo ThinkPad T60 Review"The ThinkPad T-series can be thought of as the flagship of the ThinkPad brand, it's squarely targeted towards business users and professionals. 
  5. "Lenovo ThinkPad T60 Review"Durability, security, usability and performance are all important characteristics of the ThinkPad T series. 
  6. "Lenovo ThinkPad T410 Review" 
  7. "Lenovo ThinkPad T410 Review"The full-redesigned Lenovo ThinkPad T410 offers quite a few enhancements over the previous generation T400, including less keyboard flex, an updated keyboard, a nicer touchpad, huge improvement in port selection, and better component access through the chassis. 
  8. "Lenovo ThinkPad T410 Review"Cons: Screen shows some distortion when flexing, High pitched fan could be annoying