থাং সিং নিয়াও

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

থাং সিং নিয়াও (২২শে মে ১৯০২ - ৫ জানুয়ারি ১৯৯৬) একজন ইন্দোনেশিয়ান -ডাচ নারী অধিকার কর্মী, চিকিৎসক, অর্থনীতিবিদ ও রাজনীতিবিদ ছিলেন। বাটাভিয়ার 'কাবাং আতাস' জেন্ট্রির একটি ধনী ও প্রগতিশীল পেরানাকান পরিবারে জন্মগ্রহণ করে, তিনি শিক্ষা অর্জনের জন্য উৎসাহিত হন, যা সে সময় ইন্দোনেশিয়ান মহিলাদের জন্য অস্বাভাবিক ছিল।[১] উচ্চ বিদ্যালয়ে অধ্যায়ন শেষ করার পর, তিনি একজন খাতা রক্ষক হিসেবে যোগ্যতা অর্জন করেন, কিন্তু সামাজিক নিয়ম নারীদের অফিসের কাজ করতে বাধা দেয় - ফলে তিনি একজন শিক্ষিকা হন। একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সংক্ষিপ্তভাবে শিক্ষাদানের পর, ১৯২৪ সালে থাং অর্থনীতি পড়ার জন্য রটারডামের নেদারল্যান্ডস স্কুল অব বিজনেসে ভর্তি হন। স্নাতক হওয়ার পর, তিনি অর্থনীতিতে স্নাতকোত্তর ও ডক্টরেট অর্জন করেন। ১৯৩২ সালে, তিনি চিকিৎসা বিজ্ঞান বিষয়ে পড়ার জন্য আমস্টারডাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হন।

তিনি নেদারল্যান্ডে বিদ্যালয়ের অধ্যায়ন চলাকালীন সময়ে একজন ডাচ মহিলা আন্দোলনকর্মী আলেটা জ্যাকবসের সাথে দেখা করেন এবং মহিলাদের স্বার্থ ও সমান নাগরিকত্বের জন্য সংগঠনের সাথে জড়িত হতে উত্সাহিত হন। তিনি নেদারল্যান্ডস ও ডাচ ইস্ট ইন্ডিজ উভয় ক্ষেত্রে নারীবাদী জার্নালগুলির জন্য প্রবন্ধ লেখার জন্য নারীদের আর্থ-সামাজিক ও নাগরিক অবস্থার উন্নতির জন্য একজন কর্মী হয়ে ওঠেন। ১৯৩৮ সালে তার ডিগ্রি শেষ করার পর, থাং বাটাভিয়ায় ফিরে আসেন এবং মহিলাদের ও শিশুদের স্বাস্থ্যের চাহিদার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে চিকিৎসা অনুশীলন শুরু করেন। তিনি তার নারীবাদী সম্পৃক্ততা অব্যাহত রেখেছিলেন এবং মহিলাদের ভোটাধিকার জন্য লড়াই করেছিলেন। যখন সরকার শুধুমাত্র ইউরোপীয় মহিলাদের ভোট ও নির্বাচনে দাঁড়ানোর অধিকার দেওয়ার প্রস্তাব করেছিল, তখন তিনি শিক্ষিত মহিলাদের জন্য তাদের জাতি নির্বিশেষে ভোটের অধিকার নিশ্চিত করার জন্য সফলভাবে প্রচার করেছিলেন।

মৃত্যু ও উত্তরাধিকার[সম্পাদনা]

থাং ১৯৯৬ সালের ৫ জানুয়ারি আইন্ডহোভেনে মারা যান।[২] চীনে প্রকাশিত তার সামাজিক কর্মকান্ডের জন্য তাকে স্মরণ করা হয় এবং থুং (তাং) পরিবার সম্পর্কে ২০০০ সালে তার জীবনী ফুজিয়ান প্রদেশেরএকটি প্রকাশনায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল।[৩][৪] লিও সূর্যদিনতার লেখা বই প্রমিনেন্ট ইন্দোনেশিয়ান চাইনিস-এ (বিশিষ্ট ইন্দোনেশিয়ান চাইনিজ) তার একটি সংক্ষিপ্ত জীবনীও রয়েছে।[৩] মহিলাদের আন্দোলনের জন্য আন্তর্জাতিক আর্কাইভে তার কাগজপত্র দান করা হয়েছিল এবং এখন আমস্টারডামের জেন্ডার ইকুয়ালিটি অ্যান্ড উইমেন হিস্ট্রি সম্পর্কিত অ্যাট্রিয়া ইনস্টিটিউটে রাখা হয়েছে।[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]