ডেবি ফোর্ড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ডেবি ফোর্ড
জন্ম১ অক্টোবর, ১৯৫৫
মৃত্যু১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৩ (৫৭ বছর)
সান ডিয়েগো কাউন্টি, ক্যালিফোর্নিয়া, যুক্তরাষ্ট্র
পেশাস্ব-সহায়িকা লেখিকা, প্রশিক্ষিকা, প্রভাষিকা, শিক্ষিকা
উল্লেখযোগ্য কর্ম
দ্য ডার্ক সাইড অফ দ্য লাইট চ্যাজার (১৯৯৮)
ওয়েবসাইটwww.debbieford.com

ডেবি ফোর্ড (১ অক্টোবর, ১৯৫৫―১৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৩) ছিলেন একজন আমেরিকান স্ব-সহায়ক লেখিকা, প্রশিক্ষিকা, প্রভাষিকা এবং শিক্ষিকা। তিনি নিউ ইয়র্ক টাইমসের অন্যতম সর্বাধিক বিক্রিত বই "দ্য ডার্ক সাইড অফ দ্য লাইট চেজার" (১৯৯৮) এর জন্য সমধিক পরিচিতি পেয়েছিলেন। পরের বছরগুলোতে, তিনি স্পিরিচুয়াল ডিভোর্স, হোয়াই গুড পিপল ডু ব্যাড থিংস, এবং দ্য ২১-ডে কনসাসনেস ক্লিনজ সহ আরও আটটি বই লিখেছিলেন যেগুলো প্রায় ১০ মিলিয়ন কপি বিক্রি হয়েছে এবং ৩২টি ভাষায় অনূদিত হয়েছে।[১] তিনি "শ্যাডো প্রসেস" এর উপর কর্মশালার নেতৃত্ব দিয়েছিলেন এবং বিভিন্ন টিভি ও রেডিও অনুষ্ঠান পরিচালনা করেছিলেন। এর পাশাপাশি তিনি "ফোর্ড ইনস্টিটিউট ফর ট্রান্সফরমেশনাল ট্রেনিং" নামে একটি বিদ্যাপীঠও প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।[২][৩]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

২০০০ সালে ওপরা উইনফ্রি তাঁর একটি অনুষ্ঠানে ডেবি ফোর্ডের প্রথম বই "দ্য ডার্ক সাইড অফ দ্য লাইট চেজার" (১৯৯৯) নিয়ে আলোচনা করার পরে এটি ২০০০ সালের শেষের দিকে এবং ২০০১ সালের শুরুর দিকে নিউইয়র্ক টাইমসের সেরা বিক্রিত বইয়ের তালিকায় বেশ কয়েক সপ্তাহ ধরে অবস্থান করেছিল।[৪][৫] দীপিকা চোপড়া এবং মেরিয়েন উইলিয়ামসনের সহযোগিতায় লেখা তাঁর অন্যান্য বইয়ের মধ্যে রয়েছে হোয়াই গুড পিপল ডু ব্যাড থিংস (২০০৮)[৬] এবং দ্য শ্যাডো এফেক্ট: ইলিউমিনেটিং দ্য হিডেন পাওয়ার অফ ইয়ুর ট্রু সেলফ (২০১০)।[৭]

২০ বছরের কর্মজীবনে বেশ কয়েক বছর তিনি আমেরিকা জুড়ে কর্মশালা, বক্তৃতা এবং 'শ্যাডো প্রসেস' বিষয়ে প্রশিক্ষণার্থীদের প্রশিক্ষণ দিয়েছিলেন।[৮] তিনি ওপরা, গুড মর্নিং আমেরিকা, ল্যারি কিং লাইভ, দ্য বিগ আইডিয়া উইথ ডনি ডয়েচ এবং ফক্স অ্যান্ড ফ্রেন্ডস অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়েছিলেন।[৯] তিনি হাফিংটন পোস্টের নিয়মিত লেখিকা ছিলেন।[১] তিনি "শ্যাডো টক" শিরোনামে হ্যে হাউস রেডিওতে একটি সাপ্তাহিক রেডিও অনুষ্ঠান পরিচালনা করেছিলেন।[১০][১১][১২][১৩]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

ডেবি ফোর্ড সান ডিয়েগো কাউন্টির লা জোলার সমুদ্র উপকূলীয় সম্প্রদায়ে বসবাস করতেন। ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘ লড়াইয়ের পরে ২০১৩ সালের ১৭ ফেব্রুয়ারিতে তিনি তার নিজ বাড়িতে মৃত্যুবরণ করেছিলেন। [১৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Debbie Ford"। Huffington Post। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রু ২০, ২০১৩ 
  2. "Debbie Ford, author of 'The Dark Side of the Light Chasers,' dies"The Christian Science Monitor। ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রু ২০, ২০১৩ 
  3. "Bestselling Self-help Author Debbie Ford Has Died"। TIME। ফেব্রু ১৯, ২০১৩। ২০১৩-০২-২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রু ২০, ২০১৩ 
  4. Willian Yardley (ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৩)। "Debbie Ford, Author of Self-Help Books, Is Dead at 57"The New York Times। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ২১, ২০১৩ 
  5. "PAPERBACK BEST SELLERS: February 11, 2001"The New York Times। ফেব্রুয়ারি ১১, ২০০১। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৩ 
  6. "Hardcover Advice (2008)"The New York Times। মার্চ ৩০, ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৩ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  7. "Best Sellers: Advice, How To And Miscellaneous"The New York Times। মে ৩০, ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৩ 
  8. "Teachers: Debbie Ford"। Omega Institute। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রু ২০, ২০১৩ 
  9. "Contributor:Debbie Ford"Oprah.com। ডিসেম্বর ২৮, ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৩ 
  10. Debbie Ford: Shadow Talk ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১৩-০৩-০২ তারিখে HayhouseRadio.com.
  11. "Highlights from Oprah and Debbie Ford's "Super Soul Sunday" Conversation"। OWN। জুলাই ১০, ২০১২। মে ৮, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৩ 
  12. ইন্টারনেট মুভি ডেটাবেজে ডেবি ফোর্ড (ইংরেজি)
  13. Debbie Ford On 'Super Soul Sunday': God Is 'A Spiritual Energy' (VIDEO)Huffington Post|accessdate=February 20, 2013.
  14. "Debbie Ford, bestselling self-help author of 'Dark Side of the Light Chasers' dead at 57"The Washington Post। ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ২০, ২০১৩ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]