টিকা গ্রহণে অনীহা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

টিকা গ্রহণে অনীহা (ইংরেজি: Vaccine hesitancy) বা টিকাবিমুখতা (ইংরেজি anti-vaccination বা anti-vax) বলতে কোনও রোগ প্রতিরোধের উদ্দেশ্যে টিকাদান সেবা সুলভ হওয়া সত্ত্বেও নিজে বা নিজের সন্তানের জন্য সেই টিকা গ্রহণে অনিচ্ছা, অনীহা, সংকোচ, দ্বিধাগ্রস্ততা বা অসম্মতি প্রকাশ করাকে বোঝায়। ২০১৯ সালে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা এই বিষয়টিকে বিশ্বজুড়ে স্বাস্থ্যগত সবচেয়ে বড় ১০টি হুমকির মধ্যে একটি হিসেবে চিহ্নিত করে।[১][২] টিকা গ্রহণকে সম্পূর্ণরূপে প্রত্যাখ্যান করা, দেরি করা, টিকাগ্রহণে সম্মতি দেবার পরেও তার ব্যবহার সম্পর্কে অনিশ্চয়তায় ভোগা, কিংবা কিছু টিকা গ্রহণ করলেও অন্য কিছু টিকা প্রত্যাখ্যান করা, ইত্যাদি বিভিন্ন বিষয়গুলিকে একত্রে "টিকা গ্রহণে অনীহা" নামক পরিভাষাটি দিয়ে সামগ্রিকভাবে নির্দেশ করা হয়।[৩][৪] টিকা গ্রহণের বিরুদ্ধে যে যুক্তিগুলি প্রদান করা হয়, সেগুলির বিপরীতে টিকাসমূহের কার্যকারিতা ও নিরাপত্তার স্বপক্ষে আন্তর্জতিক বৈজ্ঞানিক সম্প্রদায়ে প্রায় সার্বজনীন ঐকমত্য বিদ্যমান।[৫][৬][৭][৮]

টিকা গ্রহণে অনীহা মূলত টিকাকে ঘিরে বিরাজমান চিকিৎসাবিষয়ক, নৈতিক ও আইনগত কিছু উন্মুক্ত বিতর্ক থেকে উদ্ভূত হয়। যদি কোনও ব্যক্তি টিকা বা টিকাপ্রদানকারী স্বাস্থ্য সেবা সংস্থার উপর আস্থা না রাখেন (অনাস্থা), যদি তিনি টিকার প্রয়োজনীয়তা বা মূল্য অনুধাবন না করেন (আত্মতুষ্টি) কিংবা টিকা যদি সুলভ না হয় (দুর্লভ্যতা), তাহলে এই কারণগুলি টিকা গ্রহণে অনীহার পেছনে নিয়ামক হিসেবে কাজ করতে পারে।[৪] টিকার উদ্ভাবনের শুরু থেকেই টিকা গ্রহণে অনেক মানুষের অনীহা ছিল।[৯] টিকা গ্রহণে অনীহার ফলে টিকার দ্বারা প্রতিরোধযোগ্য রোগসমূহের প্রাদুর্ভাব বেড়ে যায় এবং মৃত্যুও হয়।[১০][১১][১২][১৩][১৪][১৫]

কোনও কোনও দেশে আইন করে টিকা গ্রহণ করা বাধ্যতামূলক করার ব্যাপারটি আলোচনা করা হয়েছে, তবে টিকাবিরোধী সংগঠনগুলি এগুলির জোর বিরোধিতা করেছে।[১৬][১৭][১৮] আবশ্যকীয় টিকাগ্রহণের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়ার পেছনে টিকাবিরোধী মনোভাব, নাগরিক স্বাধীনতা ক্ষুণ্ণ হবার উদ্বেগ, কিংবা ঔষধ ও টিকা নির্মাতা প্রতিষ্ঠানসমূহের মুনাফা বৃদ্ধির ব্যাপারে সন্দেহ, ইত্যাদি ব্যাপারগুলি কাজ করে।[১২][১৯][২০][২১][২২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Ten threats to global health in 2019"Who.int (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-১২-০৩ 
  2. PM, Aristos Georgiou (২০১৯-০১-১৫)। "The anti-vax movement has been listed by WHO as one of its top 10 health threats for 2019" (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০১-১৬ 
  3. Smith, MJ (নভেম্বর ২০১৫)। "Promoting Vaccine Confidence"। Infectious Disease Clinics of North America (Review)। 29 (4): 759–69। ডিওআই:10.1016/j.idc.2015.07.004পিএমআইডি 26337737 
  4. Larson, HJ; Jarrett, C; Eckersberger, E; Smith, DM; Paterson, P (এপ্রিল ২০১৪)। "Understanding vaccine hesitancy around vaccines and vaccination from a global perspective: a systematic review of published literature, 2007–2012."। Vaccine32 (19): 2150–59। ডিওআই:10.1016/j.vaccine.2014.01.081পিএমআইডি 24598724 
  5. "Communicating science-based messages on vaccines"Bulletin of the World Health Organization95 (10): 670–71। অক্টোবর ২০১৭। ডিওআই:10.2471/BLT.17.021017পিএমআইডি 29147039পিএমসি 5689193অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  6. "Why do some people oppose vaccination?"Vox। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১১-২৬ 
  7. Ceccarelli, Leah। "Defending science: How the art of rhetoric can help"The Conversation (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১১-২৬  অজানা প্যারামিটার |name-list-style= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য)
  8. U.S. Department of Health and Human Services। "Vaccines.gov"Vaccines.gov (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৮-০৫ 
  9. Gerber JS, Offit PA (ফেব্রুয়ারি ২০০৯)। "Vaccines and autism: a tale of shifting hypotheses"Clinical Infectious Diseases48 (4): 456–61। ডিওআই:10.1086/596476পিএমআইডি 19128068পিএমসি 2908388অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  10. "Frequently Asked Questions (FAQ)"Boston Children's Hospital। অক্টোবর ১৭, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১১, ২০১৪ 
  11. Phadke VK, Bednarczyk RA, Salmon DA, Omer SB (মার্চ ২০১৬)। "Association Between Vaccine Refusal and Vaccine Preventable Diseases in the United States: A Review of Measles and Pertussis"JAMA315 (11): 1149–58। ডিওআই:10.1001/jama.2016.1353পিএমআইডি 26978210পিএমসি 5007135অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  12. Wolfe RM, Sharp LK (আগস্ট ২০০২)। "Anti-vaccinationists past and present"BMJ325 (7361): 430–32। ডিওআই:10.1136/bmj.325.7361.430পিএমআইডি 12193361পিএমসি 1123944অবাধে প্রবেশযোগ্য 
  13. Poland GA, Jacobson RM (জানুয়ারি ২০১১)। "The age-old struggle against the antivaccinationists"The New England Journal of Medicine364 (2): 97–99। এসটুসিআইডি 39229852ডিওআই:10.1056/NEJMp1010594পিএমআইডি 21226573 
  14. Wallace A (২০০৯-১০-১৯)। "An epidemic of fear: how panicked parents skipping shots endangers us all"Wired। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-১০-২১ 
  15. Poland GA, Jacobson RM (মার্চ ২০০১)। "Understanding those who do not understand: a brief review of the anti-vaccine movement"। Vaccine19 (17–19): 2440–45। ডিওআই:10.1016/S0264-410X(00)00469-2পিএমআইডি 11257375 
  16. "The Long History of America's Anti-Vaccination Movement"DiscoverMagazine.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০২-০২ 
  17. Young, Zachary (২০১৮-১১-২১)। "How anti-vax went viral"। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০২-০২  অজানা প্যারামিটার |name-list-style= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য)
  18. "How the anti-vaxxers are winning in Italy" (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০৯-২৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০২-০২ 
  19. Chang, Julie (১২ জুলাই ২০১৭)। "'Civil liberties' at center of vaccination debate in Texas"MystatesmanAustin American-Statesman। ১৩ জুলাই ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ ডিসেম্বর ২০২০  অজানা প্যারামিটার |name-list-style= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য)
  20. Elliman, David; Bedford, Helen (২৩ মার্চ ২০১৪)। "In Britain, Vaccinate With Persuasion, not Coercion"The New York Times  অজানা প্যারামিটার |name-list-style= উপেক্ষা করা হয়েছে (সাহায্য)
  21. "Anti-vaxxers have embraced social media. We're paying for fake news with real lives" (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৬-২৮। ২০১৯-০৪-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০২-০২ 
  22. Bourree Lam, Vaccines Are Profitable, So What?. The Atlantic Feb. 10, 2015