জেসা ডিলো ক্রিস্প

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

জেসা ডিলো ক্রিস্প (জন্ম ১৯৮৮)[১] যৌনপল্লীতে মানব পাচারের বিরুদ্ধে কাজ করেন এমন একজন আইনজীবী।

শৈশব[সম্পাদনা]

জেসা ডিলো ক্রিস্প ১০ বছর বয়স থেকে পরিবারের সদস্যদের দ্বারা যৌন নির্যাতনের শিকার হন।[১] এরপর পরিবারের লোকেরা তাকে শিশু পর্নোগ্রাফারদের মডেল হতে বাধ্য করে। এরপর তার পরিবার তাকে আশপাশের পাড়ায় পিম্পস এবং পেডোফাইলে পাচার করে। ক্রিস্প বলেছেন যে স্থানীয় পতিতালয় এবং হোটেলগুলিতেও তাকে যৌনকাজে অপব্যবহার করেছিল।[১] তিনি দাবি করেন যে তাকে মার্কিন সীমান্তের ওপারে কানাডায় পাচার করা হয়েছিল।[২] তার উপর যৌন সহিংসতার বর্ণনা এভাবে দিয়েছেন-“আমি কারো কাছে সাহায্যে চাইতে ভয় পেতাম। আমার হৃদয়ে সব সময় দোলা দিত যে আমার কোন মূল্য নেই। আমি লজ্জা পেতাম। তবে যৌনমিলনে ভালো ছিলাম।[২] ক্রিস্প আরও বলেছিলেন যে তার সাথে যৌনমিলন করার কাজে পুলিশ কর্মকর্তারাও ছিলেন। যদি তিনি তার সাথে কী ঘটছে তা নিয়ে কথা বলেন তবে তাকে কারাগারে পাঠানোর হুমকি দেওয়া হয়েছিল।[১]

পাচার থেকে পলায়ন[সম্পাদনা]

ক্রিস্প কয়েক মাস ধরে তার পালানোর পরিকল্পনা করেছিল। অবশেষে ২০১০ সালে তিনি একজন মহিলার সাহায্যে পালাতে সক্ষম হন যিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে একটি সেফ হাউস চালান। ট্যুরিস্ট ভিসায় যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশ করার পর, ক্রিস্প ৬ মাস পর আবার চলে যেতে বাধ্য হয়। পরে তিনি ভ্যাঙ্কুভারের এক সেফ হাউসে প্রবেশ করেন। সেখানে তিনি এক ছদ্মবেশী মহিলা দালালের সাথে বন্ধুত্ব করেছিলেন। এই দালাল ২০১০ সালে ভ্যাঙ্কুভারে অনুষ্ঠিত শীতকালীন অলিম্পিকের সময় তাকে বাইরে নিয়ে যেতে শুরু করেছিল। ক্রিস্প আবার মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ঐ সেফ হাউসে পালাতে সক্ষম হন যেখানে প্রথমবার প্রবেশ করেছিলেন।[১] সেফ হাউসের প্রধান তাকে পরামর্শ দেন, ক্রিস্পের কলেজে ভর্তি হওয়া উচিত। তিনি প্রথমে দ্বিধাগ্রস্ত ছিলেন এবং বিশ্বাস করেছিলেন যে তার পক্ষে এ প্রস্তাব গ্রহণ করে কলেজে যাওয়া সম্ভব হবে না কারণ তিনি শৈশবে স্কুলে যেতে পারতেন না। তখন সেফ হাউসের প্রধান তাকে বলেছিলেন, "যদি তুমি পড়তে পারো তবে তুমি কিছু শিখতে পারো ।" ক্রিস্প কলেজে আবেদন করার জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে শুরু করে।[২] তিনি নাজারিন বাইবেল কলেজে ভর্তি হতে সক্ষম হন। ফলে একটি ছাত্র ভিসা পেতে সক্ষম হন, যা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে থাকার জন্য সম্ভব করে তোলে। [৩]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

ক্রিস্প ২০১৬ সালে ক্লিনিকাল কাউন্সেলিংয়ে ৪.০ জিপিএসহ বিএ গ্রাজুয়েট পাশ করেন। তিনি তার ক্লাসের ভ্যালিডিক্টরিয়ান ছিলেন। তিনি ক্লিনিকাল মেন্টাল হেলথ কাউন্সেলিংয়ে এমএ প্রোগ্রামে শিক্ষা চালিয়ে যাচ্ছেন এবং ট্রমা রিকভারিতে বিশেষায়িত হয়ে ক্লিনিক্যাল সাইকোলজিতে পিএইচডি করার পরিকল্পনা করছেন।[২] তিনি ২০২০ সালের মে মাসে এমএ নিয়ে স্নাতক হওয়ার আশা করছেন।[৪]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

ক্রিস্প ২০১১ সাল থেকে ব্রিজ হোপ নাউ এর সহ-প্রতিষ্ঠাতা এবং নির্বাহী পরিচালক হিসাবে আছেন।[৫] সংস্থাটি মানব পাচার কী, কীভাবে এটি চিহ্নিত করা যায় এবং কীভাবে এটি মোকাবিলা করা যায় সে বিষয়ে সংস্থাগুলিকে প্রশিক্ষণ প্রদান করে। “ব্রিজ হোপ নাউ” একটি স্মার্ট ফোন অ্যাপ তৈরি করছে যার মাধ্যমে বেঁচে থাকা ও নেটওয়ার্কগুলির জন্য সম্পদ সমন্বয় করতে পারে এবং ভুক্তভোগীরা যৌনপল্লী থেকে বেরিয়ে আসতে পারে। সংগঠনটি একটি মেন্টরশিপ প্রোগ্রাম ও একটি ছুটির প্রোগ্রামের (ক্রিসমাস উপহার এবং বেঁচে থাকা ব্যক্তিদের জন্য প্রোগ্রামসহ) মাধ্যমে মানব পাচারের পর বেঁচে থাকা ব্যক্তিদের সাহায্য করে।[৬] ক্রিস্প মানব পাচারের বিষয়ে একজন পাবলিক বক্তা। তিনি ২০১৮ সালে ইউএস এয়ার ফোর্স একাডেমির ন্যাশনাল ক্যারেক্টার অ্যান্ড লিডারশিপ সিম্পোজিয়ামে বক্তৃতা দিয়েছেন।[৭] ক্রিস্প মানব পাচার সংক্রান্ত বিভিন্ন সম্মেলনে বক্তৃতা দিয়েছেন এবং মার্কিন ও ইউরোপে মানব পাচার বিরোধী সংগঠনের সাথে কাজ করেছে।[৪]

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

জেসা ডিলো ক্রিস্পকে ২১ বছর বয়সে জোডি এবং লিন্ডা ডিলো গ্রহণ করেছিলেন। বিবাহিত দম্পতি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেফ হাউসের বোর্ডে ছিলেন যেখানে জেসা আশ্রয় পেয়েছিলেন।[৮] ক্রিস্প ২০১৫ সালে জন ক্রিস্পকে বিয়ে করেছিলেন।[৯] তার স্বামী একজন ফটোগ্রাফার এবং পিএইচডি ছাত্র।[১] তারা দুজনেই কলোরাডোর ডেনভারে থাকেন

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Trafficked by her own family: Brave survivor of sexual abuse reveals how paedophiles made her 'star'"nzherald.co.nz। nzherald। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৯ 
  2. Crisp, Jessa Dillow। "'I Remember the Smells, the Sights, and the Taste of Slavery': Jessa Dillow Crisp Shares Her Stor"globalcitizen.org। global citizen। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৯ 
  3. "A Story of Redemption: How One Woman Survived Sex Trafficking Part 2"drjamesdobson.org। drjamesdobson। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৯ 
  4. "Life and Work with Jessa Dillow Crisp"voyagedenver.com। voyagedenver। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৯ 
  5. "HUMAN TRAFFICKING - JESSA DILLOW CRISP REVEALS HER STORY - RANDOM ACT OF KINDNESS"blueplanateyewear। blueplanateyewear। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৯ 
  6. "What we do"bridgehopenow.org। bridgehopenow। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৯ 
  7. "Jessa Dillow Crisp Talks About Surviving Human Trafficking at NCLS 2018"youtube.com। US Air Force Academy। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৯ 
  8. "A Story of Redemption: How One Woman Survived Sex Trafficking Part 3"drjamesdobson.org। drjamesdobson। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৯ 
  9. "our story"bridgehopenow.org। bridgehopenow। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৯